মিহির ব্যানার্জী : ‘অনেকের চোখে আজ ঘুম নেই’

ককপীট

বসে আছি ককপীটে—–
দূরন্ত ঈগলের চোখে চোখ রেখে,
মেঘের সুড়ঙ্গ বেয়ে চেয়ে থাকি নীচে–
বহু নীচে,
দেখি নদী- নালা ,পর্বত ,গাছ -পালা
আধমরা গ্রাম ও নগর সভ্যতা,
ক্যামেরা বন্দী করি আরো কত কিছু—-
ন্যাংটো শিশুর দল খেলে কাদা মাঠে,¡
কালো প্যান্ট, সাদা জামা, লাল টাই বাঁধা
গোল গাল শিশুদের পায়ে কালো বুট,
ভিড় করে ইস্কুলে, কালো কালো মাথা
দুটি ভিন্ন ছবি আঁকা একই ক্যানভাসে।
ওরা কাটে ধান মাঠে মাঠে,
টোল খাওয়া থালা মাজে ঘাটে,
বড় বড় মল, রকমারী গাড়ী–
সেনসেক্স ওঠা নামা করে মারামারি—-
হাড় হাভাতের দল ভিড় করে,
ভিক্ষা হাতে সরকার দুয়ারে দুয়ারে ।
বন্যায় ভাসে গ্রাম বার বার,
যায় না দেখা এপার ওপার—
ককপিটে বসে তুলি ছবি,
বানভাসি নিরন্ন মানুষের হাহাকার,
পচা চাল পোকা ডাল খিঁচুড়ি খাবার।
পচা জলে ডুবে থাকে শহরের গলি–
তড়িতাহত হয়ে দশজন বলি,
জন প্রতি এক লাখ টাকা ,ব্যাস !

ককপিটে বসে দেখি —
লাখে লাখে বেকার মিছিল,
হাত আছে কাজ নেই ,কারখানায় তালা,
মালিকের মুনাফা বেড়ে শতগুন,
যোগসাজশ তরজা কান ঝালাপালা,,
বোমারু বিমান হানা যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা,
পৃষ্ঠা দুই মুদ্রা এক ,মিথ্যা নাট্য মহলা।
জানিনা এসব কবে হবে শেষ
মানুষের হুঁশ হবে,
ককপীটে বসা ঈগলের ডানা
সাম্যের গান গাবে।

%d bloggers like this: