The Decline and Fall of Buddhism-B. R. Ambedkar-1954

CHAPTER 9

The Decline and Fall of Buddhism.

The disappearance of Buddhism from India has been a matter of great surprize to everybody who cares to think about the subject and is also a matter of regret. But it lives in China, Japan, Burma, Siam, Annam, Indo-China, Ceylon and parts of Malaya-Archipalego. In India alone, it has ceased to exist. Not only it has ceased to live in India but even the name of Buddha has gone out of memory of most Hindus. How could such a thing have happened? This is an important question for which there has been no satisfactory answer. Not only there is no satisfactory answer, nobody has made an attempt to arrive at a satisfactory answer. In dealing with this subject people fail to make a very important distinction. It is a distinction between the fall of Buddhism and the decline of Buddhism. It is necessary to make this distinction because the fall of Buddhism is one, the reasons for which are very different from those which brought about its downfall. For the fall is due to quite obvious causes while the reasons for its decline are not quite so obvious.

Continue Reading

THE ANABASIS OF ALEXANDER BY ARRIAN 250 CE

TRANSLATED BY : E. J. CHINNOCK, M.A., LL.B., LONDON

LIFE AND WRITINGS OF ARRIAN.

All we know of Arrian is derived from the notice of him in the Bibliotheca of Photius, who was Patriarch of Constantinople in the ninth century, and from a few incidental references in his own writings. We learn from Suidas that Dion Cassius wrote a biography of Arrian; but this work is not extant. Flavius Arrianus was born near the end of the first century of the Christian era, at Nicomedia, the capital of Bithynia. He became a pupil of the famous Stoic philosopher Epictetus, and afterwards went to Athens, where he received the surname of the “younger Xenophon,” from the fact that he occupied the same relation to Epictetus as Xenophon did to Socrates. Not only was he called Xenophon by others, but he calls himself so in Cynegeticus (v. ); and in Periplus (xii. ; xxv. ), he distinguishes Xenophon by the addition the elder. Lucian (Alexander, ) calls Arrian simply Xenophon. During the stay of the emperor Hadrian at Athens, a.d. , Arrian gained his friendship. He accompanied his patron to Rome, where he received the Roman citizenship. In consequence of this, he assumed the name of Flavius. In the same way the Jewish historian, Josephus, had been allowed by Vespasian and Titus to bear the imperial name Flavius.

Photius says, that Arrian had a distinguished career in Rome, being entrusted with various political offices, and at last reaching the supreme dignity of consul under Antoninus Pius. Previous to this he was appointed (a.d. ) by Hadrian, Governor of Cappadocia, which province was soon after invaded by the Alani, or Massagetae, whom he defeated and expelled. When Marcus Aurelius came to the throne, Arrian withdrew into private life and returned to his native city, Nicomedia. Here, according to Photius, he was appointed priest to Demeter and Persephone. He died in the reign of Marcus Aurelius.

Continue Reading

A Fake Letter produced by Republic of Macedonia purportedly written by Alexander to Aristotle to make him god

The purpose of writing this letter has been described as below:

If I ask you now as my wise friend and guide to prepare the way by philosophy and to justify my proclamation as god in such a way as to be acceptable to my Greeks and Macedonians, I do so as a responsible politician and statesman..

Ἀλεξάνδρ

TEXT

To Aristotle of Stagirus,

director of the school at Athens

My great and beloved teacher, dear Aristotle!

It is a very, very long time since I wrote to you; but as you know I have been over-occupied with military matters, and while we were marching through Hyrcania, Drangiana, and Gedrosia, conquering Bactria, and advancing beyond the Indus, I had neither the time nor the inclination to take up my pen. I have now been back in Susa for some months; but I have been so overwhelmed with administrative business, appointing officials, and mopping up all kinds of intrigues and revolts, that I have not had a moment till today to write to you about myself. Of course, you know roughly from the official reports what I have been doing; but both my devotion to you and my confidence in your influence on cultivated Hellenic circles urge me once more to open my heart to you as my revered teacher and spiritual guide.

Continue Reading

The English Revolution- Lord Acton 1906

United Kingdom

THE ENGLISH REVOLUTION

Three–quarters of a century of struggling and experiment, from the fall of Bacon to the death of Charles II., had ended in failure, and the government of England had been brought into line with continental monarchy when James ascended the throne.

The House of Commons refused to listen to Seymour’s warning speech, and voted, nemine discrepante, a revenue which, by the growth of trade, soon rose to near two millions. It was in the king’s power to retain that loyal and submissive parliament as long as he chose, and he was not obliged to meet it annually. He had the control of the constituencies. The press was not free, and the proceedings of the legislature were withdrawn from public knowledge. Judges could be dismissed at will, until the bench was filled with prerogative lawyers. There was an army kept in foreign pay that could be recalled when it was wanted. Passive obedience was taught as a precept by the universities, and as a religious dogma by the Church.

Continue Reading

American revolution- Lord Acton 1906

THE AMERICAN REVOLUTION

The rational and humanitarian enlightenment of the eighteenth century did much for the welfare of mankind, but little to promote the securities of freedom. Power was better employed than formerly, but it did not abdicate.

In England, politically the most advanced country, the impetus which the Revolution gave to progress was exhausted, and people began to say, now that the Jacobite peril was over, that no issue remained between parties which made it worthwhile for men to cut each others’ throats. The development of the Whig philosophy was checked by the practical tendency to compromise. Compromise distinguished the Whig from the Roundhead, the man who succeeded from the man who failed, the man who was the teacher of politics to the civilised world from the man who left his head on Temple Bar.

The Seven Years’ War renewed the interrupted march by involving America in the concerns of Europe, and causing the colonies to react on the parent state. That was a consequence which followed the Conquest of Canada and the accession of George III. The two events, occurring in quick succession, raised the American question.

Continue Reading

History of Christian Church from Justin Martyr 150 CE to Covid19 2020 CE

50 Philo of Alexandria Died (placed Logos as creator)

68 CE Nero died

100 Flavius Josephus[Joseph Ben Matthias] died. He wrote History of the Jewish War (75–79), The Antiquities of the Jews (93) in Greek , wrote nothing about Christians.
107 Ignatius of Antioch
150 Justin Martyr
150 Tertullian
200 Irenaeus[ in”Against Heresies” referred about five books written by Papias and about Polycrap. He mentioned of having Gospel of John]

Continue Reading

Dissertation on the Origin of the Native Races of America by Hugo Grotius 1884

HUGO GROTIUS’S DISSERTATION ON THE ORIGIN OF THE AMERICAN RACES.

I see that the ancients, as well those who have described countries as those who have recorded events, have laid much stress on this point, that they, either from ancient monuments if possible, or, where these were wanting, from traditions or conjecture, have instructed us as to whence the people came who first inhabited certain lands. So Dionysius Halicarnassus, greatly overstepping the diligence of all the Italians, has shown to us, from the monuments of the Greeks, to which he has also added other evidences, the origin of the tribes which first possessed Italy. So Sallust inquires who first settled in Africa; so, also, Tacitus, who in Britain—the former from old traditions, the latter partly from tradition, partly from conjecture, which he based upon a consideration of the language, dress, and customs.

In Strabo, a man of great discernment, there are many inquiries of this sort. Such being the case, I have often wondered that no one from among so many learned men of our age has earnestly investigated whence those nations sprung which, before the advent of the Spaniards, inhabited the continent, which, unknown to the ancients, some of us have called America from Vespucius, others Western India, which extends from the Northern Ocean to the Straits of Magellan—a tract very long and broad, indeed—lying between the Atlantic sea and another, which washes China, and is known to some as the Pacific, and to others as of the South. I, since I have read several of the Spanish, French, British, and Dutch writers who have been in those lands, have thought that I would not undertake a fruitless task if I communicated, what appears to me to be most probable, both to persons now living and to posterity, with the intention of stirring up others who may possess a greater knowledge of these events, whether by travel in that quarter of the globe or even by books which have come into their hands, either to confirm my conclusions, or to refute them by valid reasoning.

Continue Reading

TYPES OF NATIONALISTS: Lala Lajpat Rai 1916

TYPES OF NATIONALISTS 1916

We will now see how many types of Nationalists there are in India. From what follows in the chapter, the reader should not conclude that the Indian Nationalists are disunited. So far as the goal is concerned there is practical unanimity in all ranks. Even those who stand for complete independence would be glad to have self-government within the Empire, if that were promised in the near future. As to methods, there is the usual cleavage to be found in all struggles for freedom in all countries. One party stands for the use of physical force, the other for peaceful means. The Indian Nationalists, too, are divided into two parties, the physical force party and the moderate party. The following account of the types is intended to show the different lines of their thinking. Complete unanimity in principles and methods can only be expected of a collection of machine-made clogs of wood.

The Extremists. (i) To take up the extremists first: There are some who do not recognise the British Government at all. They think that the Government of the British in India is founded on force and fraud. They have therefore no scruples to use force as well as fraud against the Government. In their eyes every one who is helping the Government in India either by accepting their service or otherwise by willing co-operation, abets the crime of which the Britishers are guilty. They do not recognise British laws nor their courts. They have no respect or use for either. They believe that their nationalism gives them the right of removing every one who stands in the way of their propaganda, whether by force or fraud. In their heart of hearts they are against every one who supports the British Government in India, but in the prosecution of their object they do not desire to strike at all of them. But if need be they are prepared to strike at any one. They have declared war against the British Government. Their leaders have assumed the right of passing sentences against those who are of the enemy. They judge and deal severely with those whom they think guilty of treason against them. They also consider themselves entitled to collect taxes as they call them, and make impositions on people in India. Acting on the principle that the safety of the state is the first consideration for all those who form the state, and that in case of necessity the state has a right to use the property of every private individual who is included in the body politic, they are prepared to exact their impositions by force. The fact that the British Government is the enemy against whom they have declared war, gives them the right to loot British treasuries and injure their property wherever and whenever they can.

Continue Reading

History of Bengal-The reign of Mourya and Saka: Rakhal Das Bandopadhya

Rakhaldas-Banerji- History of Bengal

বাঙ্গালার ইতিহাস-রাখালদাস বন্দ্যোপাধ্যায়:-মৌর্য্যাধিকার ও শকাধিকার

১৩৩০- Bangabda 

মৌর্য্যাধিকার ও শকাধিকার।


আর্য্যাধিকার কালে দ্রবিড়জাতীয় ভারতের আদিম অধিবাসিগণের রীতি নীতি—মগধে শূদ্ররাজগণের অভ্যুত্থান—মৌর্য্য সাম্রাজ্যের সীমা—প্রচলিত মুদ্রা–মৌর্য্য সাম্রাজ্যের অধঃপতন—ইউচি ও উ-সুন জাতির বিবাদ—শক জাতি কর্ত্তৃক উত্তরাপথ অধিকার ও নূতন শকরাজ্য স্থাপন—সুঙ্গবংশীয় পুষ্যমিত্র কর্ত্তৃক মগধরাজ্য অধিকার—পঞ্চনদ প্রভৃতি দেশের শকগণের বিরুদ্ধে যুদ্ধযাত্রা—সুঙ্গবংশীয় শেষ রাজা দেবভূমির হত্যা—দেবভূমির মন্ত্রী কাণ্ববংশীয় বাসুদেব কর্ত্তৃক মগধের সিংহাসন অধিকার—তৎকালে মগধরাজ্যের বিস্তৃতি—ভিন্ন ভিন্ন শকজাতির অধিকার—শকক্ষত্রপগণ—ইউচি জাতি কর্ত্তৃক উত্তরাপথ ও ক্ষুদ্র ক্ষুত্র শকরাজ্য অধিকার—কনিষ্কের সময়ে শক রাজ্যের বিস্তৃতি—বুদ্ধগয়ার মন্দির—বোধিসত্ত্বমূর্ত্তি—পুষ্কর্ণরাজ চন্দ্ৰবর্ম্মার দিগ্বিজয়।


মগধ ও বঙ্গ আর্য্যজাতি কর্ত্তৃক অধিকৃত হইলে, দ্রবিড়জাতীয় আদিম অধিবাসিগণ দেশত্যাগ করেন নাই। ভারতবর্ষের অবশিষ্টাংশের ন্যায় এই দুইটি প্রদেশও ক্রমশঃ বিজেতৃগণের ধর্ম্ম, রীতি-নীতি ও ভাষা অবলম্বন করিয়াছিল। দাক্ষিণাত্যবাসী দ্রবিড়গণ সম্পূর্ণরূপে আর্য্যভাষা গ্রহণ করেন নাই; কিন্তু তাঁহারা পুরাতন ধর্ম্মের পরিবর্ত্তে নূতন ধর্ম্ম গ্রহণ করিয়াছিলেন এবং আর্য্যগণের অনেক আচারব্যবহারের অনুকরণ করিয়াছিলেন। বঙ্গ ও মগধ, নবাগত বিজেতৃগণের শাসন অধিকদিন সহ্য করে নাই। খৃষ্টপূর্ব্ব প্রথম সহস্রাব্দে উত্তরাপথের পূর্ব্বসীমান্তস্থিত প্রদেশগুলি আর্য্যগণের করায়ত্ত হইয়াছিল; এই ঘটনার তিন বা চারি শতাব্দী পরে, সমগ্র আর্য্যাবর্ত্ত, মগধের শূদ্ৰজাতীয় রাজগণের অধীনতা স্বীকার করিতে বাধ্য হইয়াছিল। ভাষাতত্ত্ববিদ্ ও প্রত্নতত্ত্ববিদ্‌গণ একবাক্যে স্বীকার করিয়া থাকেন যে, প্রাচীন ভারতের শূদ্রগণ অনার্য্যবংশসম্ভূত। উত্তরাপথে শূদ্ৰবংশজাত রাজবংশের প্রাধান্য স্থাপনের প্রকৃত অর্থ,—আর্য্যজাতীয় বিজেতৃগণের নির্বীর্য্যতা ও ক্ষত্রিয়বংশজাত আর্য্যরাজগণের অধঃপতন। আর্য্যরাজগণের অধঃপতনের পূর্ব্বে উত্তরাপথের পূর্ব্বাঞ্চলে আর্য্যধর্ম্মের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী আন্দোলন উপস্থিত হইয়াছিল, জৈনধর্ম্ম ও বৌদ্ধধর্ম্ম এই আন্দোলনের ফল। জৈনধর্ম্মগ্রন্থমালা পাঠ করিলে স্পষ্ট বুঝিতে পারা যায় যে, আর্য্যাবর্ত্তের পূর্ব্বাংশই এই নূতন ধর্ম্মমতের জন্মস্থান। জৈনধর্ম্মের চতুর্ব্বিংশতি তীর্থঙ্করের মধ্যে চতুর্দ্দশজন, মগধে ও বঙ্গে নির্ব্বাণ লাভ করিয়াছিলেন[১]। মগধদেশে উরুবিল্ব গ্রামের নিকটে শাক্যরাজপুত্র গৌতম সিদ্ধার্থ বৌদ্ধধর্ম্মের সৃষ্টি করিয়াছিলেন। জৈন ও বৌদ্ধধর্ম্মের ইতিহাস পর্য্যালোচনা করিলে স্পষ্ট বোধ হয় যে, দীর্ঘকালব্যাপী বিবাদের পরে সনাতন আর্য্যধর্ম্মের বিরুদ্ধবাদী নূতন ধর্ম্মদ্বয় ভারতবর্ষে প্রতিষ্ঠালাভ করিতে সমর্থ হইয়াছিল। চতুর্ব্বিংশতিতম তীর্থঙ্কর বর্দ্ধমান মহাবীরদেবের আবির্ভাবের পূর্ব্বে, মগধ ও বঙ্গ বহু ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র খণ্ডরাজ্যে বিভক্ত ছিল। গৌতমবুদ্ধ ও মহাবীর বর্দ্ধমানে নির্ব্বাণপ্রাপ্তির অতি অল্পকাল পরে শিশুনাগবংশীয় মহানন্দের শূদ্রা পত্নীর গর্ভজাত পুত্র, ভারতের সমস্ত ক্ষত্ৰিয়কুল নির্ম্মূল করিয়া একচ্ছত্র সম্রাট্ হইয়াছিলেন। এই সময় হইতে গুপ্তরাজবংশের অধঃপতন পৰ্য্যন্ত, মগধরাজ উত্তরাপথে একচ্ছত্র সম্রাট্‌রূপে পূজিত হইতেন, এবং পাটলিপুত্রই সাম্রাজ্যের একমাত্র রাজধানী ছিল। মগধে শূদ্রবংশের অভ্যুত্থান ও আর্য্যাবর্ত্ত পুনর্ব্বার নিঃক্ষত্রিয়করণের প্রকৃত অর্থ বোধ হয় যে, এই সময়ে বিজিত অনার্য্যগণ অবসর পাইয়া পুনরায় মস্তকোত্তোলন করিয়াছিলেন এবং মহাপদ্মনন্দের সাহায্যে ক্ষত্রিয়রাজকুল নির্ম্মূল করিয়াছিলেন। মহাপদ্মনন্দের পূর্ব্বে ভারতবর্ষে কোন রাজা সমগ্র আর্য্যাবর্ত্ত অধিকার করিয়া “একরাট্” পদবী লাভ করিতে পারেন নাই[২]। এই সময়ে (অনুমান ৩২৭ খৃষ্টপূর্ব্বাব্দে) মাসিডন্‌রাজ দিগ্বিজয়ী আলেকজন্দর বা সেকেন্দর, পঞ্চনদ অধিকার করিয়া বিপাশা-তীরে উপস্থিত হইয়াছিলেন। বিপাশাতীরে, শিবিরে, তিনি আর্য্যাবর্ত্তের পূর্ব্বপ্রান্তে অবস্থিত “প্রাসিই” এবং “গঙ্গরিডই” নামক দুইটি পরাক্রান্ত রাজ্যের অস্তিত্বের কথা অবগত হইয়াছিলেন[৩]। নন্দবংশ সিংহাসনচ্যুত হইলে, মৌর্য্যবংশের প্রথম নরপতি চন্দ্রগুপ্ত যখন, যবন বা গ্ৰীকগণ কর্ত্তৃক বিজিত পঞ্চনদ প্রদেশ পুনরধিকার করিয়া মাগধসাম্রাজ্যের আয়তন বর্দ্ধিত করিয়াছিলেন, তখন বোধ হয় দক্ষিণবঙ্গে ও দক্ষিণ কোশলে একটি স্বতন্ত্র রাজ্য ছিল। চন্দ্রগুপ্তের সভায় অবস্থানকালে যবন রাজদূত মেগাস্থিনিস প্রাচ্যজগতের যে বিবরণ লিপিবদ্ধ করিয়াছিলেন, তাহা এখন আর পাওয়া যায় না; কিন্তু পরবর্ত্তী গ্রীক লেখকগণ, স্ব স্ব গ্রন্থে মেগাস্থিনিস-বিরচিত “ইণ্ডিকা” নামক গ্রন্থের যে সকল অংশ লিপিবদ্ধ করিয়াছেন, তাহা হইতে অবগত হওয়া যায় যে, চন্দ্রগুপ্তের রাজ্যকালে গঙ্গরিডই রাজ্য, অন্ধ্র রাজ্যের ন্যায় স্বাধীন ছিল। গঙ্গরিডই রাজ্যের সহিত কলিঙ্গী রাজ্য যুক্ত ছিল। গঙ্গানদী গঙ্গরিডই রাজ্যের পূর্ব্বসীমা ছিল[৪]। ইহা হইতে অনুমান হয় যে, মৌর্য্যসাম্রাজ্যের প্রারম্ভে রাঢ় ও কলিঙ্গ মগধরাজের অধীনে ছিল না। মৌর্য্যবংশীয় মাগধরাজগণ প্রবল পরাক্রান্ত হইয়া উঠিলে, রাঢ় ও বঙ্গ তাঁহাদিগের সাম্রাজ্যভুক্ত হইয়াছিল বলিয়া অনুমান হয়। চন্দ্রগুপ্তের পুত্র বিন্দুসারের রাজ্যকালে দাক্ষিণাত্য, এবং বিন্দুসারের পুত্র অশোকের শাসনকালে কলিঙ্গদেশ মৌর্য্যসাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত হইয়াছিল[৫]। অশোকের অনুশাসনসমূহে রাঢ়, বঙ্গ, গৌড় বা বরেন্দ্রের কোন উল্লেখ নাই; কিন্তু ইহা নিশ্চয় যে, তাঁহার রাজ্যকালে মাগধসাম্রাজ্যের পূর্ব্বসীমান্তে কোন স্বাধীন রাজ্য ছিল না। তাঁহার দ্বিতীয়সংখ্যক অনুশাসনে দেখিতে পাওয়া যায় যে, তাঁহার রাজ্যকালে মৌর্য্যসাম্রাজ্যের দক্ষিণসীমান্তে চোল, পাণ্ড্য, সত্য, কেরল ও তাম্রপর্ণী এবং পশ্চিমসীমান্তে গ্রীকরাজ দ্বিতীয় বা তৃতীয় আন্তিওকের অধিকার ব্যতীত অপর কোন প্রত্যন্তে স্বাধীনরাজ্যের অস্তিত্ব ছিল না[৬]। উত্তরে তুষারমণ্ডিত হিমালয়ের উপত্যকাসমূহে এবং পূর্ব্বে লৌহিত্যের অপরপারে গিরিসঙ্কুল আটবিক প্রদেশের অধিবাসিগণকে, রাজাধিরাজ মহারাজ স্বতন্ত্র স্বাধীনরাজ্যবাসী বলিয়া স্বীকার করিতে বোধ হয় কুণ্ঠিত হইতেন। ধর্ম্মপ্রচারের উত্তেজনায় যখন বিস্তৃত মৌর্য্যসাম্রাজ্যের রাষ্ট্রীয়বন্ধন শিথিল হইয়া পড়িল, তখন হইতে সুদূর প্রত্যন্তস্থিত প্রদেশগুলি স্বাধীন হইবার সুযোগের প্রতীক্ষা করিতে ছিল। দেবতাদিগের প্রিয় প্রিয়দর্শী অশোকের দেহাবসানের অব্যবহিত পরে পশ্চিমে গান্ধার ও কপিশা, এবং দক্ষিণে অন্ধ্র ও কলিঙ্গদেশ স্বাতন্ত্র্য অবলম্বন করিয়াছিল। মৌর্য্যরাজবংশের অধিকারকালে ভারতবর্ষে রাজনামাঙ্কিত সুবর্ণ বা রজতমুদ্রার প্রচলন ছিল না; তৎকালে পুরাণ নামক চতুষ্কোণ রজতখণ্ডই মুদ্রারূপে ব্যবহৃত হইত। শ্রেষ্ঠী ও স্বার্থবাহগণ এই জাতীয় মুদ্রা প্রস্তুত করিত। মগধ ও বঙ্গের নানাস্থানে শত শত “পুরাণ” নামক প্রাচীন রজতমুদ্রা আবিষ্কৃত হইয়াছে। ১৮৭৯ খৃষ্টাব্দে, জিলা ২৪ পরগণার অন্তর্গত জাক্রা গ্রামে এই জাতীয় ছয়টি মুদ্রা আবিষ্কৃত হইয়াছিল[৭]। বাঙ্গালা ১২৭৫ সালে দীনবন্ধু মিত্র নামক কোন ব্যক্তি মেদিনীপুর জেলার অন্তর্গত তমলুকনগরে একটি “পুরাণ” আবিষ্কার করিয়াছিলেন[৮]। মগধ ও তীরভুক্তির নানাস্থানে “পুরাণ” আবিষ্কৃত হইয়াছে। গত বৎসর পূর্ণিয়াজেলার একস্থানে প্রায় তিন সহস্র “পুরাণ” আবিষ্কৃত হইয়াছিল[৯]।

Continue Reading

History of Bengal- Rakhal Das Bandopadhya: Pre-Historic Era

Rakhaldas-Banerji- History of Bengal

বাঙ্গালার ইতিহাস-রাখালদাস বন্দ্যোপাধ্যায়:প্রাগৈতিহাসিক যুগ

বাঙ্গালার ইতিহাস।

প্রথম পরিচ্ছেদ।

প্রাগৈতিহাসিক যুগ।

Synopsis 

যুগ বিভাগ—মানবের অস্তিত্বের সর্ব্বপ্রাচীন নিদর্শন—আদিম-মানব নিরামিষাশী—যুগবিপ্লব—আদিম মানবের স্বভাব পরিবর্ত্তন—মানবের প্রথম অস্ত্র—প্রস্তরের যুগ—প্রত্ন-প্রস্তরের যুগ—বাঙ্গালা দেশে আবিষ্কৃত নিদর্শন—বঙ্গবাসী ও মাদ্রাজবাসী আদিম মানব—নব্য-প্রস্তর যুগ—বাঙ্গালাদেশে আবিষ্কৃত নিদর্শন—ধাতু আবিষ্কার—তাম্রের যুগ—বাঙ্গালা দেশের তাম্র নির্ম্মিত অস্ত্র।

জগতে, সর্ব্বপ্রথমে, কোন্ যুগে কত কাল পূর্ব্বে, মানবের সৃষ্টি হইয়াছিল, তাহা এখনও অজ্ঞাত রহিয়াছে। প্রাণিতত্ত্ববিদ্‌গণ স্থির করিয়াছেন যে, বর্ত্তমান সময়ের সকল জীবের পরে মানবের আবির্ভাব হইয়াছিল। ভূতত্ত্ববিদ্‌গণ বলিয়া থাকেন যে, নব্যজীবক যুগের শেষভাগে মানবের অস্তিত্বের চিহ্ন লক্ষিত হয়[১]। অস্ত্যাধুনিক উপযুগ হইতে ভূপৃষ্ঠে মানবের অস্তিত্বের নিদর্শন পাওয়া যায়, কিন্তু ইহার পূর্ব্ববর্ত্তী দুইটি উপযুগে মানবের অস্তিত্ব সম্বন্ধে ভূতত্ত্ববিদ্‌গণের মধ্যে মতভেদ আছে। কেহ কেহ বলেন যে, মধ্যাধুনিক ও বহ্বাধুনিক উপযুগে মানবের অস্তিত্বের নিদর্শন পাওয়া যায়; কিন্তু কেহ কেহ এই সকল নিদর্শনের সহিত মানবের সম্পর্ক স্বীকার করেন না[২]। কেহ কেহ বলেন যে, বহ্বাধুনিক উপযুগে মানবের অস্তিত্বের নিদর্শন আবিষ্কৃত হইবে ইহা আশা করা যাইতে পারে, কিন্তু মধ্যাধুনিক যুগে মানবের অস্তিত্ব প্রমাণ করিবার কোন আশাই নাই। মাদ্রাজ প্রদেশে কর্ণুল নামক স্থানে একটি পর্ব্বতগুহায় জীবাশ্মের (Fossil) সহিত আদিম মানবের অস্তিত্বের নিদর্শন আবিষ্কৃত হইয়াছে। ভূতত্ত্ববিদ্‌গণ অনুমান করেন যে, এই সকল জীবাশ্ম বহ্বাধুনিকযুগের স্তন্যপায়ী জীবের অস্থি[৩]। ব্রহ্মদেশে বহ্বাধুনিকযুগের লুপ্ত স্তন্যপায়ী জীবের অস্থির সহিত আদিম মানব কর্ত্তৃক ব্যবহৃত প্রস্তরনির্ম্মিত অস্ত্র আবিষ্কৃত হইয়াছে[৪]। অস্ত্যাধুনিক ও উপাধুনিক যুগে মানবের অস্তিত্ব সম্বন্ধে মনীষিগণের মতদ্বৈধ নাই।

Continue Reading