Introduction to the Study of the Law of the Constitution: Albert Venn Dicey [1915]

Albert Venn Dicey, Introduction to the Study of the Law of the Constitution [1915]

 Table of Contents:

 

  • CONTENTS
  • I
  • II
  • PREFACE TO THE FIRST EDITION
  • PREFACE TO THE EIGHTH EDITION
  • INTRODUCTION
  • AIM
  • SOVEREIGNTY OF PARLIAMENT
  • POSSIBLE CHANGE IN CONSTITUTION OR CHARACTER OF THE PARLIAMENTARY SOVEREIGN (EFFECT OF THE PARLIAMENT ACT, 1911)
  • THE STATE OF THINGS IMMEDIATELY BEFORE THE PASSING OF THE PARLIAMENT ACT
  • THE DIRECT EFFECTS OF THE PARLIAMENT ACT
  • PRACTICAL CHANGE IN THE AREA OF PARLIAMENTARY SOVEREIGNTY (RELATION OF THE IMPERIAL PARLIAMENT TO THE DOMINIONS)
  • First Question
  • Rule 1
  • Rule 2
  • Rule 3
  • Rule 4
  • Second Question
  • THE RULE OF LAW
  • DECLINE IN REVERENCE FOR RULE OF LAW
  • Legislation
  • Distrust of Judges and of Courts
  • Lawlessness
  • COMPARISON BETWEEN THE PRESENT OFFICIAL LAW OF ENGLAND AND THE PRESENT DROIT ADMINISTRATIF OF FRANCE
  • CONVENTIONS OF THE CONSTITUTION
  • FIRST QUESTION
  • ANSWER
  • MERE CONVENTIONS
  • ENACTED CONVENTIONS
  • SECOND QUESTION
  • ANSWER
  • THIRD QUESTION
  • ANSWER
  • DEVELOPMENT DURING THE LAST THIRTY YEARS OF NEW CONSTITUTIONAL IDEAS
  • TWO GENERAL OBSERVATIONS
  • First Observation
  • Second Observation
  • CRITICISM OF EACH OF THE FOUR NEW CONSTITUTIONAL IDEAS
  • Woman Suffrage
  • The Causes
  • The Main Lines of Argument
  • First Argument
  • Answer
  • Second Argument
  • Answer
  • Proportional Representation
  • First Proposition
  • Second Proposition
  • Third Proposition
  • Objections to the Third Proposition
  • Second Objection
  • Third Objection
  • Federalism
  • Leading Characteristics of Federal Government
  • The Characteristics of Federal Government in Relation to Imperial Federalism
  • Characteristics of Federal Government in Relation to Home Rule All Round
  • The Referendum
  • The Causes
  • The Main Argument Against the Referendum
  • The Main Argument in Favour of the Referendum
  • CONCLUSIONS
  • OUTLINE OF SUBJECT
  • THE TRUE NATURE OF CONSTITUTIONAL LAW
  • PART I: THE SOVEREIGNTY OF PARLIAMENT
    • Chapter I: THE NATURE OF PARLIAMENTARY SOVEREIGNTY
    • NATURE OF PARLIAMENTARY SOVEREIGNTY
    • Unlimited Legislative Authority of Parliament
    • The Absence of Any Competing Legislative Power
    • ALLEGED LEGAL LIMITATIONS ON THE LEGISLATIVE SOVEREIGNTY OF PARLIAMENT
    • DIFFICULTIES AS TO THE DOCTRINE OF PARLIAMENTARY SOVEREIGNTY
    • Chapter II: PARLIAMENT AND NON-SOVEREIGN LAW-MAKING BODIES
    • CHARACTERISTICS OF SOVEREIGN PARLIAMENT
    • CHARACTERISTICS OF NON-SOVEREIGN LAW-MAKING BODIES
    • Subordinate Law-making Bodies
    • Foreign Non-sovereign Legislatures
    • Chapter III: PARLIAMENTARY SOVEREIGNTY AND FEDERALISM
  • PART II: THE RULE OF LAW
    • Chapter IV: THE RULE OF LAW: ITS NATURE AND GENERAL APPLICATIONS
    • Chapter V: THE RIGHT TO PERSONAL FREEDOM
    • REDRESS FOR ARREST
    • WRIT OF HABEAS CORPUS
    • Nature of Writ
    • The Habeas Corpus Acts
    • Suspension of the Habeas Corpus Act
    • An Act of Indemnity
    • Chapter VI: THE RIGHT TO FREEDOM OF DISCUSSION
    • Chapter VII: THE RIGHT OF PUBLIC MEETING1
    • FIRST LIMITATION
    • SECOND LIMITATION
    • Chapter VIII: MARTIAL LAW
    • Chapter IX: THE ARMY
    • THE STANDING ARMY
    • A SOLDIER’S POSITION AS A CITIZEN
    • A SOLDIER’S POSITION AS A MEMBER OF THE ARMY
    • THE TERRITORIAL FORCE
    • Chapter X: THE REVENUE1
    • SOURCE OF PUBLIC REVENUE
    • AUTHORITY FOR EXPENDING REVENUE
    • SECURITY FOR THE PROPER APPROPRIATION OF THE REVENUE
    • Chapter XI: THE RESPONSIBILITY OF MINISTERS
    • Chapter XII: RULE OF LAW COMPARED WITH DROIT ADMINISTRATIF
    • FIRST PERIOD: NAPOLEON AND THE RESTORATION, 1800–1830
    • SECOND PERIOD: THE ORLEANS MONARCHY AND THE SECOND EMPIRE 1830–187030
    • THIRD PERIOD: THE THIRD REPUBLIC, 1870–1908
    • The Period of Unnoticed Growth, 1800–18 (Période D’élaboration Secréte)
    • The Period of Publication, 1818–60 (Période de Divulgation)
    • The Period of Organisation, 1860–1908 (Période d’Organisation)
    • Chapter XIII: RELATION BETWEEN PARLIAMENTARY SOVEREIGNTY AND THE RULE OF LAW
  • PART III: THE CONNECTION BETWEEN THE LAW OF THE CONSTITUTION AND THE CONVENTIONS OF THE CONSTITUTION
    • Chapter XIV: NATURE OF CONVENTIONS OF CONSTITUTION
    • Chapter XV: THE SANCTION BY WHICH THE CONVENTIONS OF THE CONSTITUTION ARE ENFORCED

 

  • APPENDIX
  • Note I: RIGIDITY OF FRENCH CONSTITUTIONS
  • Note II: DIVISION OF POWERS IN FEDERAL STATES
  • THE UNITED STATES
  • THE SWISS CONFEDERATION
  • THE CANADIAN DOMINION
  • THE COMMONWEALTH OF AUSTRALIA
  • THE GERMAN EMPIRE
  • Note III: DISTINCTION BETWEEN A PARUAMENTARY EXECUTIVE AND A NON-PARLIAMENTARY EXECUTIVE
  • Note IV: THE RIGHT OF SELF-DEFENCE
  • FIRST THEORY
  • SECOND THEORY
  • Note V: QUESTIONS CONNECTED WITH THE RIGHT OF PUBLIC MEETING
  • DOES THERE EXIST ANY GENERAL RIGHT OF MEETING IN PUBLIC PLACES?
  • WHAT IS THE MEANING OF THE TERM “AN UNLAWFUL ASSEMBLY”?
  • WHAT ARE THE RIGHTS OF THE CROWN OR ITS SERVANTS IN DEALING WITH AN UNLAWFUL ASSEMBLY?
  • WHAT ARE THE RIGHTS POSSESSED BY THE MEMBERS OF A LAWFUL ASSEMBLY WHEN THE MEETING IS INTERFERED WITH OR DISPERSED BY FORCE?
  • Note VI: DUTY OF SOLDIERS CALLED UPON TO DISPERSE AN UNLAWFUL ASSEMBLY
  • Note VII: THE MEANING OF AN “UNCONSTITUTIONAL” LAW
  • Note VIII: SWISS FEDERALISM89
  • THE FEDERAL COUNCIL
  • THE FEDERAL ASSEMBLY
  • THE FEDERAL TRIBUNAL
  • THE REFERENDUM
  • Note IX: AUSTRALIAN FEDERALISM101
  • FEDERAL GOVERNMENT
  • THE PARLIAMENTARY EXECUTIVE
  • AMENDMENT OF THE CONSTITUTION
  • MAINTENANCE OF THE RELATION WITH THE UNITED KINGDOM
  • Note X: MARTIAL LAW IN ENGLAND DURING TIME OF WAR OR INSURRECTION121
  • NATURE OF MARTIAL LAW
  • CONCLUSIONS
  • OTHER DOCTRINES WITH REGARD TO MARTIAL LAW
  • The Doctrine of the Prerogative
  • The Doctrine of Immunity
  • The Doctrine of Political Necessity or Expediency154
  • Note XI: CONSTITUTION OF THE TRIBUNAL DES CONFLITS
  • Note XII: PROCEEDINGS AGAINST THE CROWN
  • AS TO BREACH OF CONTRACT
  • AS TO WRONGS
  • Note XIII: PARLIAMENT ACT, 1911 [I & 2 Geo. 5. Ch. Ch. 13.]

 

  • INDEX

Constitution of the Federative Republic of Brazil 1988

Constitutional Process in Brazil

1500-Portuguese land in the area and claim it to the Portuguese crown
1822-Son of Portuguese king declares independence from Portugal and crowns himself Peter I, Emperor of Brazil.
1889-Monarchy overthrown, federal republic established
1930-Revolt places Getulio Vargas at head of provisional revolutionary government.
1937-Vargas leads coup, rules as dictator with military backing. Economy placed under authoritarian state control, start of social welfare revolution and reform of laws governing industry.
1945-Vargas ousted in military coup. Elections held under caretaker government. New constitution returns power to states.
1964-Goulart ousted in bloodless coup, flees into exile. Military rule associated with repression but also with rapid economic growth based on state-ownership of key sectors.
1974-General Ernesto Geisel becomes president, introduces reforms which allow limited political activity and elections.
1988-New constitution reduces presidential powers.
1997-Constitution changed to allow president to run for re-election

Continue Reading

CONSTITUTION OF THE PEOPLE’S REPUBLIC OF CHINA

Preamble

Chapter I General Principles

Chapter II The Fundamental Rights and Duties of Citizens

Chapter III The Structure of the State

Section 1 The National People’s Congress
Section 2 The President of the People’s Republic of China
Section 3 The State Council
Section 4 The Central Military Commission
Section 5 The Local People’s Congresses and Local People’s Governments at Various Levels
Section 6 The Organs of Self-Government of National Autonomous Areas
Section 7 The People’s Courts and the People’s Procuratorates

Chapter IV The National Flag, the National Anthem, the National Emblem and the Capital

Continue Reading

The Constitution of Canada

CONSTITUTION ACT, 1867

1 – I. PRELIMINARY
3 – II. UNION
9 – III. EXECUTIVE POWER
17 – IV. LEGISLATIVE POWER
21 – The Senate
37 – The House of Commons
53 – Money Votes; Royal Assent
58 – V. PROVINCIAL CONSTITUTIONS
58 – Executive Power
69 – Legislative Power
69 – 1. Ontario
71 – 2. Quebec
81 – 3. Ontario and Quebec
88 – 4. Nova Scotia and New Brunswick
89 – 5. Ontario, Quebec, and Nova Scotia
90 – 6. The Four Provinces
91 – VI. DISTRIBUTION OF LEGISLATIVE POWERS
91 – Powers of the Parliament
92 – Exclusive Powers of Provincial Legislatures
92A – Non-Renewable Natural Resources, Forestry Resources and Electrical Energy
93 – Education
94 – Uniformity of Laws in Ontario,  Nova Scotia, and New Brunswick
94A – Old Age Pensions
95 – Agriculture and Immigration
96 – VII. JUDICATURE
102 – VIII. REVENUES; DEBTS; ASSETS; TAXATION
127 – IX. MISCELLANEOUS PROVISIONS
127 – General
134 – Ontario and Quebec
145 – X. INTERCOLONIAL RAILWAY
146 – XI. ADMISSION OF OTHER COLONIES
THE FIRST SCHEDULE
THE SECOND SCHEDULE
THE THIRD SCHEDULE
THE FOURTH SCHEDULE
THE FIFTH SCHEDULE
THE SIXTH SCHEDULE

Continue Reading

Constitution of France

France is an indivisible, secular, democratic and social republic

Constitution of October 4, 1958

Consolidated version as of December 24, 2019

The Government of the Republic, in accordance with the constitutional law of June 3, 1958, proposed, The French people adopted, The President of the Republic promulgates the constitutional law whose content follows:

Article PREAMBLE Find out more about this article …

Amended by Constitutional law n ° 2005-205 of March 1, 2005 – art. 1

The French People solemnly proclaim their attachment to Human Rights and to the principles of national sovereignty as defined by the Declaration of 1789, confirmed and supplemented by the preamble to the 1946 Constitution, as well as to the rights and duties defined in the 2004 Environmental Charter.

By virtue of these principles and that of the self-determination of the peoples, the Republic offers to the overseas territories which manifest the will to join it new institutions based on the common ideal of freedom, equality and fraternity and designed for their democratic development.

Continue Reading

Appointment of General Qamar Javed Bajwa as COAS shall be continued for six months: Pakistan SC-28/11/2019

Observed: Article 243 of the Constitution, therefore, clearly shows that the President shall, subject to law, raise and maintain the military, however, the laws referred to above do not specify the tenure, retirement, re-appointment and extension of the COAS or of a General of the Pakistan Army.

IN THE SUPREME COURT OF PAKISTAN

(Original Jurisdiction)

PRESENT:

Mr. Justice Asif Saeed Khan Khosa, CJ Mr. Justice Mazhar Alam Khan Miankhel Mr. Justice Syed Mansoor Ali Shah

Constitution Petition No. 39 of 2019

(Against Extension of Tenure of Chief of the Army Staff)

The Jurists Foundation through its Chairman         …Petitioner

versus

Federal Government through Secretary Ministry of Defence, etc. …Respondents

Petitioner: In person.

For the respondents: Mr. Anwar Mansoor Khan, Attorney-General for Pakistan with

Mr. Sajid Ilyas Bhatti, Addl. Attorney-General

Mr. Amir-ur-Rehman, Addl. Attorney General

Ch. Ishtiaq Ahmed, Addl. Attorney General.

Mr. Sohail Mehmood, Dy. Attorney General.

Mian Asghar Ali, Dy. Attorney General. Assisted by Ms. Faryal Shah Afridi, Advocate.

Syed Iqbal Hussain, ASC.

Brig. Falak Naz, Director (Law), M/o Defence.

Flt. Lt. Khalid Abbas, Asst. Director (Law), M/o Defence.

Brig. Muhammad Khalid Khan, JAG Department, GHQ.

Lt. Col Rai Tanveer Ahmed Kharral, OIC, JAG Department, GHQ.

Dr. Farogh Nasim, ASC for respondent No.4, alongwith
Mr. Abid S. Zuberi, ASC.

assisted by M/s Ayan Memon, Mr. Shahid Naseem Gondal & Barriser Neelum Bukhari.

Constitution Petition No. 39 of 2019

Date of hearing: 28.11.2019

ORDER

For detailed reasons to be recorded later we pass the following short order:-

2. The extension/reappointment of General Qamar Javed Bajwa, Chief of the Army Staff (“COAS”) has been challenged before us. In the proceedings before us during the last three days the Federal Government has moved from one position to another referring to it as reappointment, limiting of retirement or extension of tenure and has also interchangeably placed reliance on Article 243(4)(b) of the Constitution of the Islamic Republic of Pakistan, 1973 (“Constitution”) and Regulation 255 of the Army Regulations (Rules), 1998. However, finally today the Federal Government through the learned Attorney General for Pakistan has presented this Court with a recent summary approved by the President on the advice of the Prime Minister along with Notification dated 28.11.2019 which shows that General Qamar Javed Bajwa has been appointed as COAS under Article 243(4)(b) of the Constitution with effect from 28.11.2019.

3. We have examined Article 243(4)(b) of the Constitution, Pakistan Army Act, 1952, Pakistan Army Act Rules, 1954 and Army Regulations (Rules), 1998 and inspite of the assistance rendered by the learned Attorney-General, we could not find any provision relating to the tenure of COAS or of a General and whether the COAS can be reappointed or his term can be extended or his retirement can be limited or suspended under the Constitution or the law. The learned Attorney-General has taken pains to explain that the answers to these questions are based on practice being followed in the Pakistan Army but the said practice has not been codified under the law.

4. Article 243 of the Constitution clearly mandates that the Federal Government shall have control and command of the Armed Forces and the supreme command of the Armed Forces Constitution Petition No. 39 of 2019 3 shall vest in the President. It further provides that the President shall, subject to law, have power to raise and maintain the military, etc. and it is the President who on the advice of the Prime Minister shall appoint, inter alia, COAS. Article 243 of the Constitution, therefore, clearly shows that the President shall, subject to law, raise and maintain the military, however, the laws referred to above do not specify the tenure, retirement, re-appointment and extension of the COAS or of a General of the Pakistan Army.

5. The learned Attorney-General has categorically assured the Court that this practice being followed is to be codified under the law and undertakes that the Federal Government shall initiate the process to carry out the necessary legislation in this regard and seeks a period of six months for getting the needful done. Considering that the COAS is responsible for the command, discipline, training, administration, organization and preparedness for war of the Army and is the Chief Executive in General Headquarters, we, while exercising judicial restraint, find it appropriate to leave the matter to the Parliament and the Federal Government to clearly specify the terms and conditions of service of the COAS through an Act of Parliament and to clarify the scope of Article 243 of the Constitution in this regard. Therefore, the current appointment of General Qamar Javed Bajwa as COAS shall be subject to the said legislation and shall continue for a period of six months from today, whereafter the new legislation shall determine his tenure and other terms and conditions of service.

6. This petition is disposed of in the above terms.

Chief Justice

Judge

Islamabad,

28th November, 2019
Approved for reporting.
Judge
Sadaqat

Article 243, 244 and 245 of the Constitution of Pakistan

Constitution of the Islamic Republic of Pakistan, 1973

Part XII: Miscellaneous

Chapter 2: Armed Forces.

689 [ 243. Command of Armed Forces –

(1) The Federal Government shall have control and command of the Armed Forces.

(2) Without prejudice to the generality of the foregoing provision, the Supreme  command of the Armed Forces shall vest in the President.

(3) The President shall subject to law, have power-

(a) to raise and maintain the Military, Naval and Air Forces of Pakistan; and the Reserves of such Forces; and
(b) to grant Commissions in such Forces.

(3) The President shall, on advice of the Prime Minister, appoint-

(a) the Chairman, Joint Chiefs of Staff Committee;
(b) the Chief of the Army Staff;
(c) the Chief of the Naval Staff; and
(d) the Chief of the Air Staff,
and shall also determine their salaries and allowances. ] 689

244 Oath of Armed Forces.

Every member of the Armed Forces shall make oath in the form set out in the Third Schedule.

245 Functions of Armed Forces.

696[(1)] 696 The Armed Forces shall, under the directions of the Federal Government, defend Pakistan against external aggression or threat of war, and, subject to law, act in aid of civil power when called upon to do so.

697[ (2) The validity of any direction issued by the Federal Government under clause (1) shall not be called in question in any court.

(3) A High Court shall not exercise any jurisdiction under Article 199 in relation to any area in which the Armed Forces of Pakistan are, for the time being, acting in aid of civil power in pursuance of Article 245:

Provided that this clause shall not be deemed to affect the jurisdiction of the High Court in respect of any proceeding pending immediately before the day on which the Armed Forces start acting in aid of civil power.

(4) Any proceeding in relation to an area referred to in clause (3) instituted on or after the day the Armed Forces start acting in aid of civil power and pending in any High Court shall remain suspended for the period during which the Armed Forces are so acting.] 697


Foot Notes

689 Substituted by Constitution (Eighteenth Amendment) Act, 2010, Section 90 (with effect from April 19, 2010) for :
243 Command of Armed Forces.
(1) The Federal Government shall have control and command of the Armed Forces.

690[ (1A) Without prejudice to the generality of the foregoing provision, the Supreme Command of the Armed Forces shall vest in the President. ] 690
(2) The President shall, subject to law, have power-
(a) to raise and maintain the Military, Naval and Air Forces of Pakistan; and the Reserves of such Forces; 691[and] 691
(b) to grant Commissions in such Forces 692[.] 692
693[] 693

694[ (3) The President shall, 695[in consultation with the Prime Minister] 695, appoint-
(a) the Chairman, Joint Chiefs of Staff Committee;
(b) the Chief of the Army Staff;
(c) the Chief of the Naval Staff; and
(d) the Chief of the Air Staff,
and shall also determine their salaries and allowances.” ] 694

690 Inserted by Revival of Constitution of 1973 Order, 1985 (President’s Order No. 14 of 1985), Art 2, Sch. item 50 (with effect from March 2, 1985).
691 Inserted by Legal Framework Order, 2002 (Chief Executive’s Order No. 24 of 2002), Article 3(1), Sch. item 23(1)(a) (with effect from August 21, 2002).
692 Substituted by Legal Framework Order, 2002 (Chief Executive’s Order No. 24 of 2002), Article 3(1), Sch. item 23(1)(b) (with effect from August 21, 2002) for “; and”.
693 The following was omitted by Legal Framework Order, 2002 (Chief Executive’s Order No. 24 of 2002), Article 3(1), Sch. item 23(1)(b) (with effect from August 21, 2002) : :
(c) to appoint the Chairman, Joint Chiefs of Staff Committee, the Chief of the Army Staff, the Chief of the Naval Staff and the Chief of the Air Staff, and determine their salaries and allowances.
694 Inserted by Legal Framework Order, 2002 (Chief Executive’s Order No. 24 of 2002), Article 3(1), Sch. item 23(2) (with effect from August 21, 2002).
695 Substituted by Constitution (Seventeenth Amendment) Act, 2003 (3 of 2003), Article 8 (with effect from December 31, 2003) for “in his discretion”.
696 Renumbered by Constitution (Seventh Amendment) Act, 1977 (23 of 1977), Section 4 (with effect from April 21, 1977)
697 Inserted by Constitution (Seventh Amendment) Act, 1977 (23 of 1977), Section 4 (with effect from April 21, 1977).


The Constitution of Pakistan

The French Constitution

France is an indivisible, secular, democratic and social republic

Constitution du 4 octobre 1958

Constitution of October 4, 1958 (JORF No. 0238 of October 5, 1958, page 9151)

Edition: March 3, 2017

Contents

PREAMBLE
First article.
Title I – SOVEREIGNTY
Article 2.
Article 3.
Article 4.
Title II – THE PRESIDENT OF THE REPUBLIC
Article 5.
Article 6.
Article 7.
Article 8.
Article 9.
Article 10.
Article 11.
Article 12.
Article 13.
Article 14.
Article 15.
Article 16.
Article 17.
Article 18.
Article 19.
Title III – THE GOVERNMENT
Article 20.
Article 21.
Article 22.
Article 23.
Title IV – THE PARLIAMENT
Article 24.
Article 25.
Article 26.
Article 27.
Article 28.
Article 29.
Article 30.
Article 31.
Article 32.
Article 33.
Title V – REPORTS BETWEEN PARLIAMENT AND GOVERNMENT
Article 34.
Article 34-1.
Article 35.
Article 36.
Article 37.
Article 37-1.
Article 38.
Article 39.
Article 40.
Article 41.
Article 42.
Article 43.
Article 44.
Article 45.
Article 46.
Article 47.
Article 47-1.
Article 47-2.
Article 48.
Article 49.
Article 50.
Article 50-1.
Article 51.
Article 51-1.
Article 51-2.
Title VI – TREATIES AND INTERNATIONAL AGREEMENTS
Article 52.
Article 53.
Article 53-1.
Article 53-2.
Article 54.
Article 55.
Title VII – THE CONSTITUTIONAL COUNCIL
Article 56.
Article 57.
Article 58.
Article 59.
Article 60.
Article 61.
Article 61-1.
Article 62.
Article 63.
Title VIII – JUDICIAL AUTHORITY
Article 64.
Article 65.
Article 66.
Article 66-1.
Title IX – THE HIGH COURT
Article 67.
Article 68.
Title X – CRIMINAL RESPONSIBILITY OF GOVERNMENT MEMBERS
Article 68-1.
Article 68-2.
Article 68-3.
Title XI – THE ECONOMIC, SOCIAL AND ENVIRONMENTAL COUNCIL
Article 69.
Article 70.
Article 71.
Title XI bis – THE DEFENDER OF RIGHTS
Article 71-1.
Title XII – TERRITORIAL COMMUNITIES
Article 72.
Article 72-1.
Article 72-2.
Article 72-3.
Article 72-4.
Article 73.
Article 74.
Article 74-1.
Article 75.
Article 75-1.
Title XIII – TRANSITIONAL PROVISIONS RELATING TO NEW CALEDONIA
Article 76.
Article 77.
Title XIV – FRANCOPHONIE AND ASSOCIATION AGREEMENTS
Article 87.
Article 88.
Title XV – THE EUROPEAN UNION
Article 88-1.
Article 88-2.
Article 88-3.
Article 88-4.
Article 88-5.
Article 88-6.
Article 88-7.
Title XVI – REVISION
Article 89.The French


The Government of the Republic, in accordance with the Constitutional Law of 3 June 1958, has proposed,

The French people adopted,

The President of the Republic promulgates the constitutional law whose content follows:


Le Gouvernement de la République, conformément à la loi constitutionnelle du 3 juin 1958, a proposé,

Le peuple français a adopté,

Le Président de la République promulgue la loi constitutionnelle dont la teneur suit :


PREAMBLE

The French people solemnly proclaim their commitment to human rights and the principles of national sovereignty as defined by the Declaration of 1789 , confirmed and supplemented by the preamble to the 1946 Constitution , as well as the rights of the people. and duties defined in the 2004 Environmental Charter .

By virtue of these principles and of the free determination of the peoples, the Republic offers the Overseas Territories which express the will to adhere to it new institutions based on the common ideal of freedom, equality and equality. fraternity and designed for their democratic evolution.


PRÉAMBULE

Le peuple français proclame solennellement son attachement aux Droits de l’homme et aux principes de la souveraineté nationale tels qu’ils ont été définis par la Déclaration de 1789, confirmée et complétée par le préambule de la Constitution de 1946, ainsi qu’aux droits et devoirs définis dans la Charte de l’environnement de 2004.

En vertu de ces principes et de celui de la libre détermination des peuples, la République offre aux territoires d’Outre-Mer qui manifestent la volonté d’y adhérer des institutions nouvelles fondées sur l’idéal commun de liberté, d’égalité et de fraternité et conçues en vue de leur évolution démocratique.


First article.

France is an indivisible, secular, democratic and social republic. It ensures equality before the law of all citizens without distinction of origin, race or religion. She respects all beliefs. Its organization is decentralized.

The law promotes equal access for women and men to electoral mandates and elective functions, as well as to professional and social responsibilities.


Article premier.

La France est une République indivisible, laïque, démocratique et sociale. Elle assure l’égalité devant la loi de tous les citoyens sans distinction d’origine, de race ou de religion. Elle respecte toutes les croyances. Son organisation est décentralisée.

La loi favorise l’égal accès des femmes et des hommes aux mandats électoraux et fonctions électives, ainsi qu’aux responsabilités professionnelles et sociales.


Title I – SOVEREIGNTY
Article 2.

The language of the Republic is French.

The national emblem is the tricoloured flag, blue, white, red.

The national anthem is the “Marseillaise”.

The motto of the Republic is “Freedom, Equality, Fraternity”.

Its principle is: government of the people, by the people and for the people.

Article 3.
National sovereignty belongs to the people who exercise it through their representatives and by referendum.

No section of the people nor any individual can assume the exercise.

Suffrage may be direct or indirect under the conditions provided by the Constitution. it is always universal, equal and secret.

The electors, under the conditions determined by law, are all major French nationals of both sexes, enjoying their civil and political rights.

Article 4.
Political parties and groups contribute to the expression of suffrage. They form and exercise their activity freely. They must respect the principles of national sovereignty and democracy.

They contribute to the implementation of the principle set out in the second paragraph of Article 1 under the conditions determined by law.

The law guarantees pluralistic expressions of opinion and the equitable participation of political parties and groups in the democratic life of the nation.

 

Title II – THE PRESIDENT OF THE REPUBLIC

Article 5.
The President of the Republic ensures the respect of the Constitution. It ensures, by its arbitration, the regular functioning of the public authorities as well as the continuity of the State.

It is the guarantor of national independence, territorial integrity and respect for treaties.

Article 6.
The President of the Republic is elected for five years by direct universal suffrage.

No one may serve more than two consecutive terms.

The methods of application of this article are laid down in an organic law.

Article 7.
The President of the Republic is elected by an absolute majority of the votes cast. If it is not obtained in the first ballot, a second ballot shall be taken on the fourteenth day following. Only the two candidates who, if necessary after the withdrawal of more advantaged candidates, are to have the highest number of votes in the first round.

Voting is open upon convocation of the Government.

The election of the new President shall take place at least twenty days and not more than thirty-five days before the expiry of the powers of the President-in-Office.

In the event of vacancy of the Presidency of the Republic for any reason whatsoever, or of impediment noted by the Constitutional Council seized by the Government and acting by an absolute majority of its members, the functions of the President of the Republic, at the except those provided for in Articles 11 and 12 below, are provisionally exercised by the President of the Senate and, if he is in turn prevented from exercising these functions, by the Government.

In case of vacancy or when the impediment is declared definitive by the Constitutional Council, the ballot for the election of the new president takes place, except in cases of force majeure recognized by the Constitutional Council, twenty days at least and thirty-five days at more after the opening of the vacancy or the declaration of the definitive nature of the impediment.

If, in the seven days preceding the closing date for submitting nominations, one of the persons who, less than thirty days before that date, publicly announced his decision to become a candidate dies or is prevented from doing so, the Constitutional Council may decide to postpone the election.

If, before the first round, one of the candidates dies or is prevented, the Constitutional Council pronounces the postponement of the election.

In the event of the death or incapacity of one of the two most favored candidates in the first round before any withdrawals, the Constitutional Council declares that all the electoral operations must be carried out again; the same applies in the event of the death or incapacity of one of the two candidates remaining in the presence for the second round.

In all cases, the Constitutional Council is seized under the conditions set in the second paragraph of Article 61 below or in those determined for the presentation of a candidate by the organic law provided for in Article 6 above.

The Constitutional Council may extend the time limits provided for in the third and fifth paragraphs without the vote being held more than thirty-five days after the date of the decision of the Constitutional Council. If the application of the provisions of this paragraph has had the effect of postponing the election to a date subsequent to the expiry of the powers of the incumbent President, the latter shall remain in office until the proclamation of his successor.

Articles 49 and 50 and 89 of the Constitution can not be applied during the vacancy of the Presidency of the Republic or during the period between the declaration of the definitive nature of the President’s incapacity of the Republic and the election of his successor.

Article 8.
The President of the Republic appoints the Prime Minister. He terminates his duties on the presentation by him of the resignation of the Government.

On the proposal of the Prime Minister, he appoints the other members of the Government and terminates their functions.

Article 9.
The President of the Republic chairs the Council of Ministers.

Article 10.
The President of the Republic promulgates the laws within fifteen days following the transmission to the Government of the definitively adopted law.

He may, before the expiry of this period, ask the Parliament for a new deliberation of the law or some of its articles. This new deliberation can not be refused.

Article 11.
The President of the Republic, on the proposal of the Government during the duration of the sessions or on the joint proposal of the two Assemblies, published in the Official Gazette , may submit to the referendum any draft law on the organization of the public authorities, on reforms relating to the economic, social or environmental policy of the nation and the public services which contribute to it, or tending to authorize the ratification of a treaty which, without being contrary to the Constitution, would affect the functioning of the institutions.

When the referendum is organized on a proposal from the Government, the latter makes a statement before each assembly, which is followed by a debate.

A referendum on an object mentioned in the first paragraph may be organized on the initiative of one fifth of the members of Parliament, supported by one-tenth of the voters registered on the electoral lists. This initiative takes the form of a legislative proposal and can not be used to repeal a legislative provision that has been in place for less than a year.

The conditions of its presentation and those in which the Constitutional Council controls compliance with the provisions of the preceding paragraph are determined by an organic law.

If the bill has not been examined by both assemblies within a deadline set by the organic law, the President of the Republic submits it to the referendum.

When the bill of law is not adopted by the French people, no new proposal for a referendum on the same subject can be presented before the expiry of a period of two years following the polling date.

When the referendum concludes the adoption of the bill or bill, the President of the Republic promulgates the law within fifteen days after the proclamation of the results of the consultation.

Article 12.
The President of the Republic may, after consultation with the Prime Minister and the presidents of the assemblies, pronounce the dissolution of the National Assembly.

General elections shall be held not less than twenty days and not more than forty days after the dissolution.

The National Assembly meets as of right on the second Thursday following its election. If this meeting is held outside the period provided for the ordinary session, a session shall be open for a period of fifteen days.

There can be no further dissolution in the year following these elections.

Article 13.
The President of the Republic signs orders and decrees deliberated in the Council of Ministers.

He appoints to the civil and military jobs of the State.

The State Councilors, the Grand Chancellor of the Legion of Honor, the ambassadors and envoys extraordinary, the master advisers to the Court of Auditors, the prefects, the representatives of the State in the oversea communities governed by Article 74 and in New Caledonia, the general officers, the rectors of the academies, the directors of the central administrations are appointed in the Council of Ministers.

An organic law determines the other posts to which it is provided in the Council of Ministers as well as the conditions under which the power of appointment of the President of the Republic may be delegated by him to be exercised on his behalf.

An organic law determines the jobs or functions, other than those mentioned in the third paragraph, for which, because of their importance for the guarantee of rights and freedoms or the economic and social life of the Nation, the power of appointment of the President of the Republic is exercised after public notice from the competent standing committee of each assembly. The President of the Republic can not make an appointment when the addition of negative votes in each committee represents at least three-fifths of the votes cast in both committees. The law determines the competent standing committees according to the jobs or functions concerned.

Article 14.
The President of the Republic accredits ambassadors and envoys extraordinary to foreign powers; foreign ambassadors and envoys are accredited to him.

Article 15.
The President of the Republic is the chief of the armies. He chairs the councils and senior committees of national defense.

Article 16.
When the institutions of the Republic, the independence of the Nation, the integrity of its territory or the performance of its international commitments are threatened in a serious and immediate manner and the regular functioning of the constitutional public authorities is interrupted, the President of the Republic takes the measures required by these circumstances, after official consultation of the Prime Minister, the presidents of the assemblies as well as the Constitutional Council.

He informs the Nation by a message.

These measures must be inspired by the desire to provide the constitutional public authorities, as quickly as possible, with the means to accomplish their mission. The Constitutional Council is consulted about them.

Parliament meets as of right.

The National Assembly can not be dissolved during the exercise of exceptional powers.

After thirty days of exercise of exceptional powers, the Constitutional Council may be seized by the President of the National Assembly, the President of the Senate, sixty deputies or sixty senators, for the purpose of examining whether the conditions set out in the first paragraph remain met. . It pronounces as soon as possible by a public notice. It proceeds automatically to this examination and pronounces under the same conditions after 60 days of exercise of the exceptional powers and at any time beyond this period.

Article 17.
The President of the Republic has the right to pardon individually.

Article 18.
The President of the Republic communicates with the two assemblies of the Parliament by messages that he has read and that do not give rise to any debate.

He may address the Parliament convened for this purpose in Congress. His statement may give rise, in his absence, to a debate which is not subject to any vote.

Outside the session, the parliamentary assemblies are convened specifically for this purpose.

Article 19.
The acts of the President of the Republic other than those provided for in articles 8 (1st paragraph), 11, 12, 16, 18, 54, 56 and 61 are countersigned by the Prime Minister and, where appropriate, by the ministers responsible.

Title III – THE GOVERNMENT

Article 20.
The Government determines and conducts the policy of the Nation.

He has the administration and the armed force.

He shall be responsible to Parliament in accordance with the conditions and procedures provided for in Articles 49 and 50.

Article 21.
The Prime Minister directs the action of the Government. He is responsible for national defense. He ensures the execution of the laws. Subject to the provisions of Article 13, he exercises regulatory power and appoints civil and military posts.

He can delegate some of his powers to ministers.

It replaces, if need be, the President of the Republic in the chairmanship of the councils and committees envisaged in article 15.

He may, exceptionally, substitute him for the presidency of a council of ministers by virtue of an express delegation and for a specific agenda.

Article 22.
The acts of the Prime Minister are countersigned, if necessary, by the ministers in charge of their execution.

Article 23.
The functions of a member of the Government are incompatible with the exercise of any parliamentary mandate, any function of national professional representation and any public employment or any professional activity.

An organic law lays down the conditions under which the replacement of the holders of such mandates, functions or jobs is provided.

The replacement of members of Parliament shall take place in accordance with the provisions of Article 25.

Title IV – THE PARLIAMENT

Article 24.
Parliament votes the law. It controls the action of the Government. It evaluates public policies.

It includes the National Assembly and the Senate.

Members of the National Assembly, whose number may not exceed five hundred and seventy-seven, are elected by direct suffrage.

The Senate, whose number of members may not exceed three hundred and forty-eight, is elected by indirect suffrage. It ensures the representation of the territorial collectivities of the Republic.

French people living outside France are represented in the National Assembly and the Senate.

Article 25.
An organic law fixes the duration of the powers of each assembly, the number of its members, their indemnity, the conditions of eligibility, the system of ineligibilities and incompatibilities.

It also lays down the conditions under which the persons appointed to ensure, in the event of vacancy, the replacement of deputies or senators until the general or partial renewal of the assembly to which they belonged or their temporary replacement in case acceptance by them of governmental functions.

An independent commission, whose law determines the composition and rules of organization and operation, decides on a public opinion on the draft texts and draft laws delimiting constituencies for the election of deputies or modifying the distribution of seats deputies or senators.

Article 26.
No Member of Parliament may be prosecuted, investigated, arrested, detained or judged on the occasion of opinions or votes cast by him in the exercise of his functions.

No member of Parliament may be subject to arrest or any other privative or restrictive measure of liberty in criminal or correctional matters except with the authorization of the Bureau of the Assembly of which he is a member. This authorization is not required in the event of a crime or flagrant offense or final conviction.

Detention, privative or restrictive measures of liberty or the prosecution of a Member of Parliament shall be suspended for the duration of the session if the Assembly to which it belongs so requests.

The assembly concerned is automatically reunited for additional sessions to allow, if necessary, the application of the above paragraph.

Article 27.
Any imperative mandate is null.

The voting rights of Members of Parliament are personal.

The organic law may exceptionally authorize the delegation of vote. In this case no one can receive delegation of more than one mandate.

Article 28.
Parliament meets as of right in an ordinary session which begins on the first working day of October and ends on the last working day of June.

The number of sitting days that each assembly may hold during the ordinary session may not exceed one hundred and twenty. The weeks of sitting are fixed by each assembly.

The Prime Minister, after consultation with the president of the assembly concerned, or the majority of the members of each assembly may decide to hold additional days of sitting.

The days and times of the sessions are determined by the rules of each meeting.

Article 29.
The Parliament meets in extraordinary session at the request of the Prime Minister or the majority of the members composing the National Assembly, on a determined agenda.

When the extraordinary session is held at the request of the members of the National Assembly, the closing decree comes as soon as the Parliament has exhausted the agenda for which it was convened and at the latest twelve days from its meeting .

The Prime Minister can only request a new session before the end of the month following the closing decree.

Article 30.
Except in cases where the Parliament meets as of right, the extraordinary sessions are opened and closed by decree of the President of the Republic.

Article 31.
Government members have access to both assemblies. They are heard when they ask for it.

They can be assisted by government commissioners.

Article 32.
The President of the National Assembly is elected for the duration of the legislature. The President of the Senate is elected after each partial renewal.

Article 33.
The sessions of both assemblies are public. The full report of the proceedings is published in the Official Journal .

Each assembly may sit in a secret committee at the request of the Prime Minister or one-tenth of its members.

Title V – REPORTS BETWEEN PARLIAMENT AND GOVERNMENT

Article 34.
The law sets the rules concerning:

civil rights and fundamental guarantees granted to citizens for the exercise of public freedoms; freedom, pluralism and independence of the media; the subjections imposed by the national defense on the citizens in their person and in their property;
nationality, state and capacity of persons, matrimonial regimes, inheritances and liberalities;
the determination of the crimes and offenses and the penalties applicable to them; criminal procedure; the amnesty; the creation of new orders of jurisdiction and the status of magistrates;
the base, the rate and the methods of recovery of taxes of all kinds; the regime of issue of the currency.
The law also sets the rules for:

the electoral system of parliamentary assemblies, local assemblies and representative bodies of French nationals established outside France, as well as the conditions for the exercise of the electoral mandates and elective functions of the members of deliberative assemblies of local authorities;
the creation of categories of public institutions;
basic guarantees granted to civil and military officials of the state;
nationalizations of enterprises and transfers of ownership of companies from the public to the private sector.
The law determines the fundamental principles:

the general organization of National Defense;
the free administration of local authorities, their powers and their resources;
Education ;
the preservation of the environment;
property rights, rights in rem and civil and commercial obligations;
labor law, trade union law and social security.
The finance laws determine the resources and the expenses of the State in the conditions and under the reserves provided for by an organic law.

The social security financing laws determine the general conditions of its financial equilibrium and, taking into account their revenue forecasts, fix its spending objectives, under the conditions and under the reserves provided for by an organic law.

Programming laws determine the objectives of state action.

The multiannual public finance guidelines are defined by programming laws. They are part of the objective of balancing the accounts of general government.

The provisions of this article may be specified and supplemented by an organic law.

Article 34-1.
Meetings may vote resolutions under the conditions set by the organic law.

Proposed resolutions of which the Government considers that their adoption or rejection would be such as to call into question its responsibility or contain injunctions against it are inadmissible and may not be placed on the agenda.

Article 35.
The declaration of war is authorized by Parliament.

The Government informs Parliament of its decision to involve the armed forces abroad, no later than three days after the start of the intervention. It specifies the objectives pursued. This information may give rise to a debate which is not followed by any vote.

When the duration of the intervention exceeds four months, the Government submits its extension to the authorization of Parliament. He may ask the National Assembly to decide in the last resort.

If the Parliament is not in session at the end of the four-month period, it shall take a decision at the opening of the next session.

Article 36.
The state of siege is decreed in the Council of Ministers.

Its extension beyond twelve days can only be authorized by Parliament.

Article 37.
Subjects other than those which fall within the scope of the law are of a regulatory nature.

Legislative texts in these matters may be amended by decrees issued after consulting the Council of State. Those of those texts that would come into force after the coming into force of this Constitution can only be amended by decree if the Constitutional Council has declared that they are of a regulatory nature under the preceding paragraph.

Article 37-1.
The law and the regulations may include, for a limited purpose and duration, provisions of an experimental nature.

Article 38.
The Government may, in the execution of its program, request Parliament to authorize, for a limited period of time, measures which are normally within the scope of the law.

Ordinances are issued by the Council of Ministers after consulting the Council of State. They come into force as soon as they are published but lapse if the ratification bill is not tabled in Parliament before the date set by the enabling law. They can only be ratified expressly.

At the expiry of the period mentioned in the first paragraph of this article, ordinances may only be amended by law in matters which are in the legislative domain.

Article 39.
The initiative of the laws belongs concurrently to the Prime Minister and the members of Parliament.

Bills are deliberated by the Council of Ministers after consulting the Council of State and deposited on the desk of one of the two assemblies. The bills of finance and social security financing law are submitted in the first place to the National Assembly. Without prejudice to the first paragraph of Article 44, bills whose main purpose is the organization of local and regional authorities shall be submitted first to the Senate.

The presentation of bills introduced in the National Assembly or the Senate meets the conditions set by an organic law.

Bills can not be placed on the agenda if the Conference of Presidents of the first meeting seized finds that the rules set by the organic law are ignored. In the event of disagreement between the Conference of Presidents and the Government, the President of the Assembly concerned or the Prime Minister may refer the matter to the Constitutional Council within eight days.

Under the conditions provided for by law, the chairman of a meeting may submit to the Conseil d’État, for consideration before the committee’s consideration, a proposal for a law tabled by one of the members of that meeting, unless the latter opposes it.

Article 40.
Proposals and amendments formulated by Members of Parliament are not admissible when their adoption would result either in a diminution of public resources or the creation or aggravation of a public office.

Article 41.
If it appears during the course of the legislative procedure that a proposal or an amendment is not within the scope of the law or is contrary to a delegation granted under Article 38, the Government or the President of the Assembly seizure may preclude the inadmissibility.

In case of disagreement between the Government and the President of the assembly concerned, the Constitutional Council, at the request of one or the other, shall rule within eight days.

Article 42.
At the meeting, the debate on bills and bills shall refer to the text adopted by the committee seized pursuant to Rule 43 or, failing that, to the text before the assembly.

However, the discussion at the meeting of constitutional revision projects, draft finance bills and draft social security financing bills bears, in first reading before the first assembly seized, the text presented by the Government and, for other readings, on the text transmitted by the other assembly.

The debate at the first reading session of a bill or a bill may only take place before the first meeting seized at the end of six weeks after it has been tabled. It may not intervene before the second meeting seized until the expiry of a period of four weeks from its transmission.

The preceding paragraph does not apply if the expedited procedure has been initiated under the conditions provided for in Article 45. It does not apply either to draft finance bills, to draft security financing laws. social security and crisis projects.

Article 43.
Proposals and bills are sent for consideration to one of the standing committees, which is limited to eight in each assembly.

At the request of the Government or the Assembly which is seized of it, the bills or proposals of law are sent for examination to a commission specially designated for this purpose.

Article 44.
Members of Parliament and the Government have the right of amendment. This right is exercised in session or in committee according to the conditions fixed by the by-laws of the assemblies, within the framework determined by an organic law.

After the opening of the debate, the Government may oppose the examination of any amendment which has not previously been submitted to the Committee.

If the Government so requests, the Assembly shall decide by a single vote on all or part of the text under discussion, retaining only the amendments proposed or accepted by the Government.

Article 45.
Any bill or bill is examined successively in both Houses of Parliament with a view to the adoption of an identical text. Without prejudice to the application of Articles 40 and 41, any amendment shall be admissible at first reading if it presents a link, even indirectly, with the text deposited or transmitted.

When, as a result of a disagreement between the two assemblies, a bill or a bill could not be adopted after two readings by each assembly or, if the Government decided to initiate the accelerated procedure without the Conferences of the presidents jointly opposed, after a single reading by each of them, the Prime Minister or, for a proposal for a law, the presidents of the two assemblies acting jointly, have the faculty to provoke the meeting of a joint commission parity responsible for proposing a text on the provisions still under discussion.

The text prepared by the Joint Committee may be submitted by the Government for approval to both Assemblies. No amendment is admissible unless the Government agrees.

If the Joint Committee fails to adopt a common text or if this text is not adopted under the conditions set out in the preceding paragraph, the Government may, after a further reading by the National Assembly and by the Senate, ask the National Assembly to rule definitively. In this case, the National Assembly may adopt either the text drafted by the joint committee or the last text voted by it, modified if necessary by one or more of the amendments adopted by the Senate.

Article 46.
The laws to which the Constitution confers the character of organic laws are voted and modified under the following conditions.

The draft or proposal may, at first reading, be submitted to the deliberation and vote of the assemblies only at the expiry of the time limits set in the third paragraph of Article 42. However, if the accelerated procedure has been initiated in the conditions set out in Article 45, the draft or the proposal may not be submitted to the deliberation of the first meeting before the expiry of a period of fifteen days after its submission.

The procedure of Article 45 is applicable. However, if there is no agreement between the two assemblies, the text can only be adopted by the National Assembly at last reading by an absolute majority of its members.

The organic laws relating to the Senate must be voted in the same terms by the two assemblies.

Organic laws can be promulgated only after the declaration by the Constitutional Council of their conformity to the Constitution.

Article 47.
The Parliament votes the finance bills in the conditions provided for by an organic law.

If the National Assembly has not taken a decision at first reading within forty days after the tabling of a draft, the Government shall refer the Senate to a decision within a period of fifteen days. It is then carried out under the conditions provided for in Article 45.

If the Parliament has not pronounced within seventy days, the provisions of the draft can be put into effect by ordinance.

If the budget law fixing the resources and expenses of a financial year has not been submitted in time to be promulgated before the beginning of this financial year, the Government urgently requests from Parliament the authorization to collect the taxes and opens the A-base vote by order in council.

The time limits provided for in this Article shall be suspended when Parliament is not in session.

Article 47-1.
The Parliament votes the bills of financing of the social security in the conditions envisaged by an organic law.

If the National Assembly has not taken a decision on first reading within twenty days after the submission of a draft, the Government shall refer the Senate to a decision within fifteen days. It is then carried out under the conditions provided for in Article 45.

If Parliament has not reached a decision within fifty days, the provisions of the draft can be implemented by ordinance.

The time limits provided for in this article shall be suspended when the Parliament is not in session and, for each assembly, in the weeks in which it has decided not to hold a meeting, in accordance with the second paragraph of Article 28.

Article 47-2.
The Court of Auditors assists the Parliament in controlling the action of the Government. It assists the Parliament and the Government in the control of the execution of the financial laws and the application of the laws of financing of the social security as well as in the evaluation of the public policies. Through its public reports, it contributes to the information of citizens.

The accounts of the general government are regular and sincere. They give a true picture of the results of their management, their wealth and their financial situation.

Article 48.
Without prejudice to the application of the last three paragraphs of Article 28, the agenda shall be fixed by each meeting.

Two weeks out of four shall be reserved by priority, and in the order that the Government has fixed, for the examination of the texts and debates for which it requests the inclusion on the agenda.

In addition, the examination of bills of finance, social security financing bills and, subject to the provisions of the following paragraph, texts transmitted by the other assembly for six weeks at least, projects relating to states of crisis and requests for authorization referred to in Article 35 shall, at the request of the Government, be placed on the agenda by priority.

One out of four sitting weeks is reserved by priority and in the order set by each assembly for the control of the Government’s action and the evaluation of public policies.

One sitting day per month is reserved for an agenda decided by each assembly at the initiative of the opposition groups of the assembly concerned as well as that of the minority groups.

At least one sitting per week, including the special sessions provided for in Rule 29, shall be preceded by questions from Members of Parliament and Government replies.

Article 49.
The Prime Minister, after deliberation of the Council of Ministers, engages before the National Assembly the responsibility of the Government on its program or possibly on a declaration of general policy.

The National Assembly questions the responsibility of the Government by voting a motion of censure. Such a motion is admissible only if it is signed by at least one tenth of the members of the National Assembly. The vote can not take place until forty-eight hours after its deposit. Only the votes in favor of the motion of censure, which can only be adopted by a majority of the members of the Assembly, are counted. Except as provided in the following paragraph, a Member may not sign more than three motions of censure during the same ordinary session and more than one during the same extraordinary session.

The Prime Minister may, after deliberation of the Council of Ministers, engage the responsibility of the Government before the National Assembly on the vote of a bill of finance or financing of social security. In this case, the project is deemed to be adopted, unless a motion of censure, tabled within twenty-four hours, is voted under the conditions set out in the preceding paragraph. The Prime Minister may, in addition, use this procedure for another project or a proposal for a law per session.

The Prime Minister has the right to ask the Senate for approval of a general policy statement.

Article 50.
When the National Assembly adopts a motion of censure or when it disapproves of the program or a statement of general policy of the Government, the Prime Minister must submit to the President of the Republic the resignation of the Government.

Article 50-1.
Before any of the assemblies, the Government may, on its own initiative or at the request of a parliamentary group within the meaning of section 51-1, make a declaration on a specific subject giving rise to to debate and may, if it so decides, be votable without liability.

Article 51.
The closure of the ordinary session or the extraordinary sessions is by law delayed to allow, if necessary, the application of article 49. For the same purpose, additional sessions are by right.

Article 51-1.
The rules of each assembly determine the rights of the parliamentary groups formed within it. It recognizes specific rights for opposition groups in the assembly concerned as well as for minority groups.

Article 51-2.
For the exercise of the monitoring and evaluation missions defined in the first paragraph of Article 24, commissions of inquiry may be set up within each assembly to collect, under the conditions provided for by law, elements of information.

The law determines their rules of organization and operation. Their conditions of creation are fixed by the rules of each assembly.

Title VI – TREATIES AND INTERNATIONAL AGREEMENTS

Article 52.
The President of the Republic negotiates and ratifies the treaties.

He is informed of any negotiations leading to the conclusion of an international agreement not subject to ratification.

Article 53.
Peace treaties, commercial treaties, treaties or agreements relating to the international organization, those that commit the finances of the State, those that modify provisions of a legislative nature, those that relate to the state of the people those containing assignment, exchange or addition of territory may be ratified or approved only by law.

They take effect only after they have been ratified or approved.

No cession, no exchange, no addition of territory is valid without the consent of the populations concerned.

Article 53-1.
The Republic may conclude with the European States which are bound by identical commitments to its own on asylum and the protection of human rights and fundamental freedoms, agreements determining their respective powers for the examination of applications for asylum that are presented to them.

However, even if the request does not fall within their competence under these agreements, the authorities of the Republic always have the right to give asylum to any foreigner persecuted by reason of his action for the freedom or which seeks the protection from France for another reason.

Article 53-2.
The Republic may recognize the jurisdiction of the International Criminal Court under the conditions provided for in the treaty signed on 18 July 1998 .

Article 54.
If the Constitutional Council, seized by the President of the Republic, by the Prime Minister, by the president of one or the other assembly or by sixty deputies or sixty senators, declared that an international commitment contains a clause contrary to the Constitution, the authorization to ratify or approve the international commitment in question can only be made after the revision of the Constitution.

Article 55.
Treaties or agreements duly ratified or approved have, from their publication, an authority superior to that of the laws, subject, for each agreement or treaty, to its application by the other party.

Title VII – THE CONSTITUTIONAL COUNCIL

Article 56.
The Constitutional Council comprises nine members, whose term of office lasts nine years and is not renewable. The Constitutional Council is renewed by thirds every three years. Three of the members are appointed by the President of the Republic, three by the President of the National Assembly, three by the President of the Senate. The procedure provided for in the last paragraph of Article 13 is applicable to these appointments. The appointments made by the chairman of each meeting are subject to the sole opinion of the relevant standing committee of the relevant meeting.

In addition to the nine members provided for above, the former Presidents of the Republic are entitled to life for life from the Constitutional Council.

The president is appointed by the President of the Republic. He has a casting vote in case of sharing.

Article 57.
The functions of member of the Constitutional Council are incompatible with those of minister or member of Parliament. The other incompatibilities are fixed by an organic law.

Article 58.
The Constitutional Council ensures the regularity of the election of the President of the Republic.

He examines the claims and proclaims the results of the ballot.

Article 59.
The Constitutional Council decides, in case of dispute, on the regularity of the election of deputies and senators.

Article 60.
The Constitutional Council shall ensure the regularity of the referendum operations provided for in Articles 11 and 89 and Title XV. He proclaims the results.

Article 61.
The organic laws, before their promulgation, the legislative proposals mentioned in article 11 before they are submitted to the referendum, and the regulations of the parliamentary assemblies, before their implementation, must be submitted to the Constitutional Council which decides on their conformity to the Constitution.

For the same purpose, the laws may be referred to the Constitutional Council, before their promulgation, by the President of the Republic, the Prime Minister, the President of the National Assembly, the President of the Senate or sixty deputies or sixty senators.

In the cases provided for in the two preceding paragraphs, the Constitutional Council must decide within one month. However, at the request of the Government, if there is urgency, this period is reduced to eight days.

In these same cases, the seizin of the constitutional council suspends the delay of promulgation.

Article 61-1.
Where, in proceedings pending before a court, it is alleged that a legislative provision infringes the rights and freedoms guaranteed by the Constitution, the Constitutional Council may be seized of this matter by reference from the Council. State or the Court of Cassation which pronounces within a specified period.

An organic law determines the conditions of application of this article.

Article 62.
A provision declared unconstitutional on the basis of Article 61 can not be promulgated or enforced.

A provision declared unconstitutional on the basis of Article 61-1 is repealed from the publication of the decision of the Constitutional Council or a later date fixed by this decision. The Constitutional Council determines the conditions and limits within which the effects that the provision has produced are likely to be challenged.

Decisions of the Constitutional Council are not subject to any appeal. They are binding on public authorities and all administrative and jurisdictional authorities.

Article 63.
An organic law determines the rules of organization and functioning of the Constitutional Council, the procedure that is followed before it and in particular the deadlines open for the seizure of disputes.

Title VIII – JUDICIAL AUTHORITY

Article 64.
The President of the Republic guarantees the independence of the judicial authority.

He is assisted by the Superior Council of the Judiciary.

An organic law bears the status of magistrates.

The judges of the seat are irremovable.

Article 65.
The Superior Council of the Judiciary includes competent training for magistrates at headquarters and competent training for prosecutors.

The competent training for magistrates is chaired by the first president of the Court of Cassation. It includes, in addition, five judges and a prosecutor, a State Councilor appointed by the Council of State, a lawyer and six qualified persons who do not belong to Parliament or the judiciary. nor to the administrative order. The President of the Republic, the President of the National Assembly and the President of the Senate each appoint two qualified persons. The procedure provided for in the last paragraph of Article 13 shall apply to the appointments of qualified persons. Appointments made by the president of each assembly of Parliament are submitted to the sole opinion of the competent standing committee of the assembly concerned.

The competent training for prosecutors is chaired by the public prosecutor at the Court of Cassation. It includes, in addition, five magistrates of the public prosecutor’s office and a magistrate of the seat, as well as the councilor of state, the lawyer and the six qualified persons mentioned in the second paragraph.

The formation of the Superior Council of the Judiciary competent with regard to the magistrates of the seat makes proposals for the appointments of the magistrates sits at the Court of Cassation, for those of first president of court of appeal and for those of president of court of high instance. The other judges of the seat are appointed on his assent.

The formation of the Superior Council of the Judiciary with regard to the prosecutors gives its opinion on the appointments concerning the prosecutors.

The formation of the Superior Council of the Judiciary with jurisdiction over the magistrates of the seat judges as a disciplinary council of the magistrates of the seat. It includes, in addition to the members referred to in the second paragraph, the magistrate of the seat belonging to the competent formation with regard to the magistrates of the public prosecutor’s office.

The formation of the Superior Council of Magistrates with regard to the prosecutors gives its opinion on the disciplinary sanctions which concern them. It then includes, in addition to the members referred to in the third paragraph, the public prosecutor belonging to the competent formation with regard to the magistrates of the head office.

The Superior Council of the Judiciary meets in plenary session to respond to the requests for opinion made by the President of the Republic under Article 64. It gives its opinion, in the same formation, on the questions relating to the ethics of the magistrates as well as on any question relating to the functioning of justice, which is referred to the Minister of Justice. The plenary session shall include three of the five judges of the seat mentioned in the second paragraph, three of the five public prosecutors mentioned in the third paragraph, as well as the State Councilor, the lawyer and the six qualified persons mentioned in the second paragraph. It is presided over by the first president of the Court of Cassation, who can replace the attorney general at this court.

Except in disciplinary matters, the Minister of Justice may participate in the sessions of the formations of the Superior Council of the Judiciary.

The Superior Council of the Judiciary can be seized by a litigant in the conditions fixed by an organic law.

The organic law determines the conditions of application of this article.

Article 66.
No one can be arbitrarily detained.

The judicial authority, guardian of individual liberty, ensures the respect of this principle under the conditions provided for by law.

Article 66-1.
No one can be sentenced to death.

Title IX – THE HIGH COURT

Article 67.
The President of the Republic is not liable for acts done in this capacity, subject to the provisions of Articles 53-2 and 68.

He may not, during his mandate and before any French jurisdiction or administrative authority, be required to testify or be the subject of an action, an act of information, instruction or prosecution. Any limitation period or foreclosure is suspended.

Proceedings and procedures so obstructed may be resumed or brought against him within one month of the termination of his duties.

Article 68.
The President of the Republic may be dismissed only in the event of a breach of his duties manifestly incompatible with the exercise of his mandate. The dismissal is pronounced by the Parliament constituted in High Court.

The proposal for a meeting of the High Court adopted by one of the Assemblies of Parliament is immediately forwarded to the other, which shall decide within fifteen days.

The High Court is presided over by the President of the National Assembly. It decides within a month, by secret ballot, on the dismissal. His decision is of immediate effect.

Decisions taken pursuant to this Article shall be by a two-thirds majority of the members of the relevant meeting or the High Court. Any delegation of vote is forbidden. Only votes in favor of the proposed High Court meeting or dismissal are counted.

An organic law lays down the conditions of application of this article.

Title X – CRIMINAL RESPONSIBILITY OF GOVERNMENT MEMBERS

Article 68-1.
The members of the Government are criminally responsible for the acts done in the exercise of their functions and qualified as crimes or misdemeanors at the time they were committed.

They are judged by the Court of Justice of the Republic.

The Court of Justice of the Republic is bound by the definition of crimes and offenses as well as by the determination of the penalties as they result from the law.

Article 68-2.
The Court of Justice of the Republic comprises fifteen judges: twelve members of parliament, elected from among them and in equal numbers, by the National Assembly and the Senate after each general or partial renewal of these assemblies and three judges sitting at the Court of Justice. cassation, one of which presides over the Court of Justice of the Republic.

Anyone claiming to be aggrieved by a crime or misdemeanor committed by a member of the Government in the performance of his duties may lodge a complaint with a petition commission.

This commission orders either the filing of the proceedings or its transmission to the public prosecutor at the Court of Cassation for the purpose of referral to the Court of Justice of the Republic.

The public prosecutor at the Court of Cassation may also appeal ex officio to the Court of Justice of the Republic with the assent of the petitions commission.

An organic law determines the conditions of application of this article.

Article 68-3.
The provisions of this title shall apply to acts committed before its entry into force.

Title XI – THE ECONOMIC, SOCIAL AND ENVIRONMENTAL COUNCIL

Article 69.
The Economic, Social and Environmental Council, seized by the Government, gives its opinion on draft laws, ordinances or decrees as well as on proposed laws submitted to it.

A member of the Economic, Social and Environmental Council may be appointed by the Council to present to the Parliamentary Assembly the opinion of the Council on the projects or proposals submitted to it.

The Economic, Social and Environmental Council can be petitioned under the conditions set by an organic law. After examining the petition, it informs the Government and Parliament of the action it proposes to take.

Article 70.
The Economic, Social and Environmental Council may be consulted by the Government and the Parliament on any economic, social or environmental problem. The Government can also consult it on the draft programming law defining the multiannual orientations of the public finances. Any economic, social or environmental programming plan or bill is submitted for opinion.

Article 71.
The composition of the Economic, Social and Environmental Council, whose number of members may not exceed two hundred and thirty-three, and its rules of operation are set by an organic law.

Title XI bis – THE DEFENDER OF RIGHTS

Article 71-1.
The Defender of Rights ensures the respect of rights and freedoms by the State administrations, local authorities, public institutions, as well as by any organization entrusted with a public service mission, or in respect of which the organic law gives him skills.

It may be seized, under the conditions provided for by the organic law, by any person who feels aggrieved by the operation of a public service or an organization referred to in the first paragraph. He can seize automatically.

The organic law defines the powers and modalities of intervention of the Defender of Rights. It determines the conditions under which it may be assisted by a college for the exercise of certain of its attributions.

The Defender of Rights is appointed by the President of the Republic for a non-renewable six-year term, following the procedure set out in the last paragraph of article 13. His duties are incompatible with those of a member of the Government and a member of the Parliament. The other incompatibilities are fixed by the organic law.

The Defender of Rights reports to the President of the Republic and Parliament.

Title XII – TERRITORIAL COMMUNITIES

Article 72.
The territorial units of the Republic are the communes, the departments, the regions, the special-status communities and the overseas collectivities governed by Article 74. Any other territorial collectivity is created by law, if any place and place of one or more communities mentioned in this paragraph.

Local and regional authorities are responsible for making the decisions for all the skills that can best be implemented at their level.

Under the conditions provided for by law, these communities freely administer themselves through elected councils and have regulatory power to exercise their powers.

Under the conditions provided for by the organic law, and except where the essential conditions for the exercise of a public freedom or a constitutionally guaranteed right are at issue, local authorities or their groupings may, where, as the case may be, the law or the regulation provides for it, to derogate, on an experimental basis and for a limited purpose and duration, from the legislative or regulatory provisions governing the exercise of their powers.

No territorial authority can exercise guardianship over another. However, where the exercise of a jurisdiction requires the assistance of several local authorities, the law may authorize one of them or one of their groupings to organize the terms of their joint action.

In the territorial communities of the Republic, the representative of the State, representing each of the members of the Government, is responsible for national interests, administrative control and compliance with the laws.

Article 72-1.
The law lays down the conditions under which the electors of each territorial collectivity may, by the exercise of the right of petition, request the inclusion on the agenda of the deliberative assembly of that collectivity of a question within its competence. .

Under the conditions provided for by the organic law, projects of deliberation or act within the jurisdiction of a local authority may, on its own initiative, be submitted, by way of referendum, to the decision of the electors of that collectivity.

When it is envisaged to establish a territorial collectivity with a particular status or to modify its organization, it may be decided by law to consult registered voters in the communities concerned. The modification of the limits of the territorial collectivities can also give rise to the consultation of the voters under the conditions envisaged by the law.

Article 72-2.
Local and regional authorities benefit from resources freely available to them under the conditions set by law.

They can receive all or part of the product of impositions of all kinds. The law may authorize them to fix the base and rate within the limits it determines.

Tax revenues and other own resources of local authorities represent, for each category of community, a decisive part of their total resources. The organic law sets the conditions under which this rule is implemented.

Any transfer of powers between the State and the local authorities is accompanied by the allocation of resources equivalent to those devoted to their exercise. Any creation or extension of powers which has the effect of increasing the expenditure of local authorities is accompanied by resources determined by law.

The law provides for equalization schemes designed to promote equality between local and regional authorities.

Article 72-3.
The Republic recognizes, within the French people, the populations of overseas, in a common ideal of freedom, equality and fraternity.

Guadeloupe, Guyana, Martinique, Reunion, Mayotte, Saint Barthelemy, Saint-Martin, Saint-Pierre-et-Miquelon, the Wallis and Futuna Islands and French Polynesia are governed by Article 73 for the departments and territories. regions, and for local authorities created under the last paragraph of Article 73, and Article 74 for other communities.

The status of New Caledonia is governed by Title XIII.

The law determines the legislative regime and the particular organization of the French Southern and Antarctic Lands and Clipperton.

Article 72-4.
No change, for all or part of one of the communities referred to in the second paragraph of section 72-3, from one to the other of the plans provided for in sections 73 and 74, may take place without the consent electors of the community or part of the community concerned have been previously collected under the conditions set out in the following paragraph. This change of regime is decided by an organic law.

The President of the Republic, on the proposal of the Government during the duration of the sessions or on a joint proposal of the two assemblies, published in the Official Journal , may decide to consult the electors of a territorial collectivity located overseas on a question relating to its organization. , its jurisdiction or its legislative scheme. When the consultation concerns a change provided for in the preceding paragraph and is organized on the proposal of the Government, the latter makes a statement before each assembly, which is followed by a debate.

Article 73.
In the overseas departments and regions, laws and regulations are automatically applicable. They can be adapted to the particular characteristics and constraints of these communities.

These adaptations may be decided by these communities in the areas in which their powers are exercised and if they have been authorized, as the case may be, by the law or the by-law.

By way of derogation from the first subparagraph and to take account of their specificities, the authorities governed by this Article may be empowered, as the case may be, by law or by the regulation, to lay down the rules applicable in their territory, in a limited number of matters that may fall within the scope of the law or regulation.

These rules can not relate to nationality, civil rights, guarantees of civil liberties, the state and capacity of persons, the organization of justice, criminal law, criminal procedure, foreign policy, defense, public security and order, money, credit and foreign exchange, and the electoral law. This enumeration may be specified and supplemented by an organic law.

The provision provided for in the two preceding paragraphs is not applicable to the department and the region of Reunion.

The authorizations provided for in the second and third paragraphs are decided, at the request of the community concerned, under the conditions and under the reservations provided for by an organic law. They can not intervene when the essential conditions for the exercise of a public freedom or a constitutionally guaranteed right are involved.

The creation by law of a collectivity substituting for a department and an overseas region or the institution of a deliberative assembly unique for these two communities can not intervene without having been collected, according to the forms provided for in the second paragraph of section 72-4, the consent of the electors registered in the jurisdiction of those communities.

Article 74.
The overseas communities governed by this article have a status that takes into account the interests of each of them within the Republic.

This status is defined by an organic law, adopted after consulting the deliberative assembly, which sets:

the conditions under which the laws and regulations apply;
the skills of this community; subject to those already exercised by it, the transfer of powers of the State may not relate to the matters listed in the fourth paragraph of Article 73, specified and supplemented, where appropriate, by the organic law;
the rules of organization and operation of the institutions of the community and the electoral system of its deliberative assembly;
the conditions under which its institutions are consulted on bills and proposals for legislation and draft ordinances or decrees containing specific provisions for the community, as well as on the ratification or approval of international commitments concluded in matters falling within of its competence.
The organic law can also determine, for those of these self-governing communities, the conditions under which:

the Council of State exercises a specific judicial control over certain categories of acts of the deliberative assembly intervening in respect of the competences it exercises in the field of the law;
the deliberative assembly can modify a law promulgated after the entry into force of the statute of the collectivity, when the Constitutional Council, seized in particular by the authorities of the collectivity, found that the law had intervened in the field of competence of this community;
measures justified by local needs may be taken by the community in favor of its population, in terms of access to employment, right of establishment for the exercise of a professional activity or protection of land assets;
the community can participate, under the control of the State, in the exercise of the competences that it preserves, in the respect of the guarantees granted on the whole national territory for the exercise of the civil liberties.
The other methods of the particular organization of the communities covered by this article are defined and modified by law after consulting their deliberative assembly.

Article 74-1.
In the overseas collectivities referred to in Article 74 and in New Caledonia, the Government may, by ordinance, in matters which remain under the jurisdiction of the State, extend, with the necessary modifications, the provisions of legislative nature in force in mainland France or adapting the provisions of a legislative nature in force to the particular organization of the collectivity concerned, provided that the law has not expressly excluded, for the provisions in question, recourse to this procedure.

Orders are made in the Council of Ministers after consulting the deliberative assemblies concerned and the Council of State. They come into force as soon as they are published. They lapse in the absence of ratification by Parliament within eighteen months of publication.

Article 75.
Citizens of the Republic who do not have ordinary civil status, the only one referred to in Article 34, retain their personal status as long as they have not renounced it.

Article 75-1.
The regional languages ​​belong to the heritage of France.

Title XIII – TRANSITIONAL PROVISIONS RELATING TO NEW CALEDONIA

Article 76.
The populations of New Caledonia are called upon to decide before 31 December 1998 on the provisions of the agreement signed in Noumea on 5 May 1998 and published on 27 May 1998 in the Official Journal of the French Republic.

Candidates are eligible to participate in the ballot if they fulfill the conditions set out in Article 2 of Law No. 88-1028 of 9 November 1988.

The measures necessary for the organization of the vote are taken by decree in Council of State deliberated in the Council of Ministers.

Article 77.
After approval of the agreement during the consultation provided for in article 76, the organic law, taken after the opinion of the deliberative assembly of New Caledonia, determines, to ensure the evolution of New Caledonia in the respect the guidelines defined by this agreement and in the manner necessary for its implementation:

the powers of the State which will be definitively transferred to the institutions of New Caledonia, the staggering and the modalities of these transfers, as well as the distribution of the burdens resulting from them;
the rules of organization and operation of the institutions of New Caledonia and in particular the conditions under which certain categories of acts of the deliberative assembly of New Caledonia may be submitted before publication to the control of the Constitutional Council;
rules relating to citizenship, electoral system, employment and customary civil status;
the conditions and deadlines in which the interested populations of New Caledonia will have to decide on the accession to full sovereignty.
Other measures necessary for the implementation of the agreement referred to in Article 76 shall be defined by law.

For the definition of the electorate elected to elect the members of the deliberative assemblies of New Caledonia and the provinces, the table to which refer the agreement mentioned in article 76 and articles 188 and 189 of the organic law n ° 99 -209 of 19 March 1999 on New Caledonia is the table drawn up on the occasion of the ballot provided for in Article 76 and comprising persons who are not allowed to take part in it.

Title XIV – FRANCOPHONIE AND ASSOCIATION AGREEMENTS

Article 87.
The Republic participates in the development of solidarity and cooperation between states and peoples with French as a common language.

Article 88.
The Republic may enter into agreements with States wishing to associate with it to develop their civilizations.

Title XV – THE EUROPEAN UNION

Article 88-1.
The Republic participates in the European Union consisting of States which have freely chosen to exercise jointly certain of their powers under the Treaty on European Union and the Treaty on the Functioning of the European Union, as they result of the Treaty signed in Lisbon on 13 December 2007.

Article 88-2.
The law lays down the rules on the European arrest warrant in accordance with the acts of the institutions of the European Union.

Article 88-3.
Subject to reciprocity and in the manner provided for by the Treaty on European Union signed on 7 February 1992 , the right to vote and to stand as a candidate in municipal elections may be granted only to Union citizens residing in France. These citizens can not serve as mayor or deputy nor participate in the appointment of senatorial electors and the election of senators. An organic law passed in the same terms by the two assemblies determines the conditions of application of this article.

Article 88-4.
The Government submits to the National Assembly and to the Senate, as soon as they are transmitted to the Council of the European Union, the draft European legislative acts and the other projects or proposals for acts of the European Union.

In accordance with the rules laid down in the Rules of Procedure of each Assembly, European resolutions may be adopted, if necessary outside the sessions, on the projects or proposals referred to in the first paragraph, as well as on any document emanating from an institution of the Union. European.

Within each parliamentary assembly a commission for European affairs is set up.

Article 88-5.
Any bill authorizing the ratification of a treaty relating to the accession of a State to the European Union is submitted to referendum by the President of the Republic.

However, by voting on a motion adopted in identical terms by each assembly by a three-fifths majority, Parliament may authorize the adoption of the bill in accordance with the procedure provided for in the third paragraph of section 89.

[This article is not applicable to accessions following an intergovernmental conference whose convocation was decided by the European Council before 1 July 2004.]

Article 88-6.
The National Assembly or the Senate may issue a reasoned opinion on the conformity of a draft European legislative act with the principle of subsidiarity. The opinion is sent by the President of the Assembly concerned to the Presidents of the European Parliament, the Council and the European Commission. The Government is informed.

Each Assembly may appeal to the Court of Justice of the European Union against a European legislative act for breach of the principle of subsidiarity. This appeal is transmitted to the Court of Justice of the European Union by the Government.

To this end, resolutions may be adopted, if necessary outside the sessions, according to the methods of initiative and discussion fixed by the rules of each assembly. At the request of sixty deputies or sixty senators, the remedy is ex officio.

Article 88-7.
By the vote of a motion adopted in identical terms by the National Assembly and the Senate, the Parliament may object to a modification of the rules for the adoption of European Union acts in the cases envisaged, under the simplified revision of the Treaties or judicial cooperation by the Treaty on European Union and the Treaty on the Functioning of the European Union, as they result from the Treaty signed in Lisbon on 13 December 2007.

Title XVI – REVISION

Article 89.
The initiative for the revision of the Constitution belongs concurrently to the President of the Republic on the proposal of the Prime Minister and members of Parliament.

The draft or the proposal for revision must be examined under the conditions of time set in the third paragraph of Article 42 and voted by both assemblies in identical terms. The review is final after being approved by referendum.

However, the draft revision is not presented to the referendum when the President of the Republic decides to submit it to the Parliament convened in Congress; in this case, the draft revision is approved only if it receives a three-fifths majority of the votes cast. The bureau of the Congress is that of the National Assembly.

No review procedure may be initiated or continued where the integrity of the territory is impaired.

The republican form of the Government can not be revised.


 

THE CONSTITUTION OF BANGLADESH IN BENGALI

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান

THE CONSTITUTION OF THE PEOPLE’S REPUBLIC OF BANGLADESH

১ বিসমিল্লাহির-রহমানির রহিম

(দয়াময়, পরম দয়ালু, আল্লাহের নামে)

প্রস্তাবনা

আমরা, বাংলাদেশের জনগণ, ১৯৭১ খ্রীষ্টাব্দের মার্চ মাসের ২৬ তারিখে স্বাধীনতা ঘোষণা করিয়া ২ জাতীয় স্বাধীনতার জন্য ঐতিহাসিক যুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীন ও সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত করিয়াছি;

৩ আমরা অঙ্গীকার করিতেছি যে, যে সকল মহান আদর্শ আমাদের বীর জনগণকে জাতীয় স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধে আত্মনিয়োগ ও বীর শহীদদিগকে প্রাণোৎসর্গ করিতে উদ্বুদ্ধ করিয়াছিল সর্বশক্তিমান আল্লাহের উপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস, জাতীয়তাবাদ, গণতন্ত্র এবং সমাজতন্ত্র অর্থাৎ অর্থনৈতিক ও সামাজিক সুবিচারের সেই সকল আদর্শ এই সংবিধানের মূলনীতি হইবে;

আমরা আরও অঙ্গীকার করিতেছি যে, আমাদের রাষ্ট্রের অন্যতম মূল লক্ষ্য হইবে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে এমন এক শোষণমুক্ত সমাজতান্ত্রিক সমাজের প্রতিষ্ঠা- যেখানে সকল নাগরিকের জন্য আইনের শাসন, মৌলিক মানবাধিকার এবং রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক সাম্য, স্বাধীনতা ও সুবিচার নিশ্চিত হইবে;

আমরা দৃঢ়ভাবে ঘোষণা করিতেছি যে, আমরা যাহাতে স্বাধীন সত্তায় সমৃদ্ধি লাভ করিতে পারি এবং মানবজাতির প্রগতিশীল আশা-আকাঙ্খার সহিত সঙ্গতি রক্ষা করিয়া আন্তর্জাতিক শান্তি ও সহযোগিতার ক্ষেত্রে পূর্ণ ভূমিকা পালন করিতে পারি, সেইজন্য বাংলাদেশের জনগণের অভিপ্রায়ের অভিব্যক্তিস্বরূপ এই সংবিধানের প্রাধান্য অক্ষুণ্ন রাখা এবং ইহার রক্ষণ, সমর্থন ও নিরাপত্তাবিধান আমাদের পবিত্র কর্তব্য;

এতদ্বারা আমাদের এই গণপরিষদে, অদ্য তের শত ঊনআশী বঙ্গাব্দের কার্তিক মাসের আঠারো তারিখ, মোতাবেক ঊনিশ শত বাহাত্তর খ্রীষ্টাব্দের নভেম্বর মাসের চার তারিখে, আমরা এই সংবিধান রচনা ও বিধিবদ্ধ করিয়া সমবেতভাবে গ্রহণ করিলাম।


প্রথম ভাগ

প্রজাতন্ত্র

প্রজাতন্ত্র

১৷ বাংলাদেশ একটি একক, স্বাধীন ও সার্বভৌম প্রজাতন্ত্র, যাহা “গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ” নামে পরিচিত হইবে৷

প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রীয় সীমানা

২৷ প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রীয় সীমানার অন্তর্ভুক্ত হইবে

(ক) ১৯৭১ খ্রীষ্টাব্দের মার্চ মাসের ২৬ তারিখে স্বাধীনতা-ঘোষণার অব্যবহিত পূর্বে যে সকল এলাকা লইয়া পূর্ব পাকিস্তান গঠিত ছিল ৪ এবং সংবিধান (তৃতীয় সংশোধন) আইন, ১৯৭৪-এ অন্তর্ভুক্ত এলাকা বলিয়া উল্লিখিত এলাকা, কিন্তু উক্ত আইনে বহির্ভূত এলাকা বলিয়া উল্লিখিত এলাকা তদ্‌বহির্ভূত; এবং।

(খ) যে সকল এলাকা পরবর্তীকালে বাংলাদেশের সীমানাভুক্ত হইতে পারে৷

রাষ্ট্রধর্ম

৫ ২ক৷ প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম, তবে অন্যান্য ধর্মও প্রজাতন্ত্রে শান্তিতে পালন করা যাইবে৷

রাষ্ট্রভাষা

৩৷ প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রভাষা বাংলা৷

জাতীয় সঙ্গীত, পতাকা ও প্রতীক

৪৷ (১) প্রজাতন্ত্রের জাতীয় সঙ্গীত “আমার সোনার বাংলা”র প্রথম দশ চরণ৷

(২) প্রজাতন্ত্রের জাতীয় পতাকা হইতেছে সবুজ ক্ষেত্রের উপর স্থাপিত রক্তবর্ণের একটি ভরাট বৃত্ত৷

(৩) প্রজাতন্ত্রের জাতীয় প্রতীক হইতেছে উভয় পার্শ্বে ধান্যশীর্ষবেষ্টিত, পানিতে ভাসমান জাতীয় পুষ্প শাপলা, তাহার শীর্ষদেশে পাটগাছের তিনটি পরস্পর-সংযুক্ত পত্র, তাহার উভয় পার্শ্বে দুইটি করিয়া তারকা৷

(৪) উপরি-উক্ত দফাসমূহ-সাপেক্ষে জাতীয় সঙ্গীত, পতাকা ও প্রতীক সম্পর্কিত বিধানাবলী আইনের দ্বারা নির্ধারিত হইবে৷

প্রতিকৃতি

৬ ৪ক৷ (১) রাষ্ট্রপতির প্রতিকৃতি রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও স্পীকারের কার্যালয় এবং বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশের দূতাবাস ও মিশনসমূহে সংরক্ষণ ও প্রদর্শন করিতে হইবে৷

(২) (১) দফার অতিরিক্ত কেবলমাত্র প্রধানমন্ত্রীর প্রতিকৃতি রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও স্পীকারের কার্যালয় এবং সকল সরকারী ও আধা-সরকারী অফিস, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, সংবিধিবদ্ধ সরকারী কর্তৃপক্ষের প্রধান ও শাখা কার্যালয়, সরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশের দূতাবাস ও মিশনসমূহে সংরক্ষণ ও প্রদর্শন করিতে হইবে৷

রাজধানী

৫৷ (১) প্রজাতন্ত্রের রাজধানী ঢাকা৷

(২) রাজধানীর সীমানা আইনের দ্বারা নির্ধারিত হইবে৷

নাগরিকত্ব

৭ ৬৷ (১) বাংলাদেশের নাগরিকত্ব আইনের দ্বারা নির্ধারিত ও নিয়ন্ত্রিত হইবে৷

(২) বাংলাদেশের নাগরিকগণ বাংলাদেশী বলিয়া পরিচিত হইবেন৷

সংবিধানের প্রাধান্য
৭৷ (১) প্রজাতন্ত্রের সকল ক্ষমতার মালিক জনগণ; এবং জনগণের পক্ষে সেই ক্ষমতার প্রয়োগ কেবল এই সংবিধানের অধীন ও কর্তৃত্বে কার্যকর হইবে৷

(২) জনগণের অভিপ্রায়ের পরম অভিব্যক্তিরূপে এই সংবিধান প্রজাতন্ত্রের সর্বোচ্চ আইন এবং অন্য কোন আইন যদি এই সংবিধানের সহিত অসমঞ্জস হয়, তাহা হইলে সেই আইনের যতখানি অসামঞ্জস্যপূর্ণ, ততখানি বাতিল হইবে৷


দ্বিতীয় ভাগ
রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি

মূলনীতিসমূহ

৮৷ ৮ (১) সর্বশক্তিমান আল্লাহের উপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস, জাতীয়তাবাদ, গণতন্ত্র এবং সমাজতন্ত্র অর্থাৎ অর্থনৈতিক ও সামাজিক সুবিচার-এই নীতিসমূহ এবং তৎসহ এই নীতিসমূহ হইতে উদ্ভূত এই ভাগে বর্ণিত অন্য সকল নীতি রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি বলিয়া পরিগণিত হইবে৷

(১ক) সর্বশক্তিমান আল্লাহের উপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাসই হইবে যাবতীয় কার্যাবলীর ভিত্তি৷

(২) এই ভাগে বর্ণিত নীতিসমূহ বাংলাদেশ-পরিচালনার মূলসূত্র হইবে, আইন-প্রণয়নকালে রাষ্ট্র তাহা প্রয়োগ করিবেন, এই সংবিধান ও বাংলাদেশের অন্যান্য আইনের ব্যাখ্যাদানের ক্ষেত্রে তাহা নির্দেশক হইবে এবং তাহা রাষ্ট্র ও নাগরিকদের কার্যের ভিত্তি হইবে, তবে এই সকল নীতি আদালতের মাধ্যমে বলবৎযোগ্য হইবে না৷

স্থানীয় শাসন-সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠানসমূহের উন্নয়ন
৯ ৯৷ রাষ্ট্র সংশ্লিষ্ট এলাকার প্রতিনিধিগণ সমন্বয়ে গঠিত স্থানীয় শাসন-সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠানসমূহকে উৎসাহ দান করিবেন এবং এই সকল প্রতিষ্ঠানসমূহে কৃষক, শ্রমিক এবং মহিলাদিগকে যথাসম্ভব বিশেষ প্রতিনিধিত্ব দেওয়া হইবে৷

জাতীয় জীবনে মহিলাদের অংশগ্রহণ
১০৷ জাতীয় জীবনের সর্বস্তরে মহিলাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করিবার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হইবে৷

গণতন্ত্র ও মানবাধিকার
১১৷ প্রজাতন্ত্র হইবে একটি গণতন্ত্র, যেখানে মৌলিক মানবাধিকার ও স্বাধীনতার নিশ্চয়তা থাকিবে, মানবসত্তার মর্যাদা ও মূল্যের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ নিশ্চিত হইবে ১০ * * * ১১ এবং প্রশাসনের সকল পর্যায়ে নির্বাচিত প্রতিনিধদের মাধ্যমে জনগণের কার্যকর অংশগ্রহণ নিশ্চিত হইবে৷

১২৷ ধর্মনিরপেক্ষতা ও ধর্মীয় স্বাধীনতা – ধর্মনিরপেক্ষতার নীতিটি নির্মূলের মাধ্যমে উপলব্ধি করা হবে –
(ক) তার সমস্ত রূপে সাম্প্রদায়িকতা;
(খ) যে কোন ধর্মের পক্ষে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা রাষ্ট্রকে প্রদত্ত;
(গ) রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ধর্মের অপব্যবহার;
(ঘ) নির্দিষ্ট ধর্ম অনুশীলনকারী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কোনও বৈষম্য বা নিপীড়ন

মালিকানার নীতি
১৩৷ উৎপাদনযন্ত্র, উৎপাদনব্যবস্থা ও বন্টনপ্রণালীসমূহের মালিক বা নিয়ন্ত্রক হইবেন জনগণ এবং এই উদ্দেশ্যে মালিকানা-ব্যবস্থা নিম্নরূপ হইবে:

(ক) রাষ্ট্রীয় মালিকানা, অর্থাৎ অর্থনৈতিক জীবনের প্রধান প্রধান ক্ষেএ লইয়া সুষ্ঠু ও গতিশীল রাষ্ট্রায়ত্ত সরকারী খাত সৃষ্টির মাধ্যমে জনগণের পক্ষে রাষ্ট্রের মালিকানা;

(খ) সমবায়ী মালিকানা, অর্থাৎ আইনের দ্বারা নির্ধারিত সীমার মধ্যে সমবায়সমূহের সদস্যদের পক্ষে সমবায়সমূহের মালিকানা; এবং

(গ) ব্যক্তিগত মালিকানা, অর্থাৎ আইনের দ্বারা নির্ধারিত সীমার মধ্যে ব্যক্তির মালিকানা৷

কৃষক ও শ্রমিকের মুক্তি
১৪৷ রাষ্ট্রের অন্যতম মৌলিক দায়িত্ব হইবে মেহনতী মানুষকে-কৃষক ও শ্রমিকের-এবং জনগণের অনগ্রসর অংশসমূহকে সকল প্রকার শোষণ হইতে মুক্তি দান করা৷

মৌলিক প্রয়োজনের ব্যবস্থা
১৫৷ রাষ্ট্রের অন্যতম মৌলিক দায়িত্ব হইবে পরিকল্পিত অর্থনৈতিক বিকাশের মাধ্যমে উৎপাদনশক্তির ক্রমবৃদ্ধিসাধন এবং জনগণের জীবনযাত্রার বস্তুগত ও সংস্কৃতিগত মানের দৃঢ় উন্নতিসাধন, যাহাতে নাগরিকদের জন্য নিম্নলিখিত বিষয়সমূহ অর্জন নিশ্চিত করা যায়:

(ক) অন্ন, বস্ত্র, আশ্রয়, শিক্ষা ও চিকিৎসহ জীবনধারণের মৌলিক উপকরণের ব্যবস্থা;

(খ) কর্মের অধিকার, অর্থাৎ কর্মের গুণ ও পরিমাণ বিবেচনা করিয়া যুক্তিসঙ্গত মজুরীর বিনিময়ে কর্মসংস্থানের নিশ্চয়তার অধিকার;

(গ) যুক্তিসঙ্গত বিশ্রাম, বিনোদন ও অবকাশের অধিকার; এবং

(ঘ) সামাজিক নিরাপত্তার অধিকার, অর্থাৎ বেকারত্ব, ব্যাধি বা পঙ্গুত্বজনিত কিংবা বৈধব্য, মাতাপিতৃহীনতা বা বার্ধক্যজনিত কিংবা অনুরূপ অন্যান্য পরিস্থিতিজনিত আয়ত্তাতীত কারণে অভাবগ্রস্ত্মতার ক্ষেত্রে সরকারী সাহায্যলাভের অধিকার৷

গ্রামীণ উন্নয়ন ও কৃষি বিপ্লব
১৬৷ নগর ও গ্রামাঞ্চলের জীবন যাত্রার মানের বৈষম্য ক্রমাগতভাবে দূর করিবার উদ্দেশ্যে কৃষিবিপ্লবের বিকাশ, গ্রামাঞ্চলে বৈদ্যুতীকরণের ব্যবস্থা, কুটিরশিল্প ও অন্যান্য শিল্পের বিকাশ এবং শিক্ষা, যোগাযোগ ব্যবস্থা ও জনস্বাস্থ্যের উন্নয়নের মাধ্যমে গ্রামাঞ্চলের আমূল রূপান্তরসাধনের জন্য রাষ্ট্র কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন৷

অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক শিক্ষা
১৭৷ রাষ্ট্র

(ক) একই পদ্ধতির গণমুখী ও সার্বজনীন শিক্ষাব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার জন্য এবং আইনের দ্বারা নির্ধারিত স্তর পর্যন্ত সকল বালক-বালিকাকে অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক শিক্ষাদানের জন্য;

(খ) সমাজের প্রয়োজনের সহিত শিক্ষাকে সঙ্গতিপূর্ণ করিবার জন্য এবং সেই প্রয়োজন সিদ্ধ করিবার উদ্দেশ্যে যথাযথ প্রশিণপ্রাপ্ত ও সদিচ্ছা-প্রণোদিত নাগরিক সৃষ্টির জন্য;

(গ) আইনের দ্বারা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নিরক্ষরতা দূর করিবার জন্য;

কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন৷

জনস্বাস্থ্য ও নৈতিকতা
১৮৷ (১) জনগণের পুষ্টির স্তর-উন্নয়ন ও জনস্বাস্থ্যের উন্নতিসাধনকে রাষ্ট্র অন্যতম প্রাথমিক কর্তব্য বলিয়া গণ্য করিবেন এবং বিশেষতঃ আরোগ্যের প্রয়োজন কিংবা আইনের দ্বারা নির্দিষ্ট অন্যবিধ প্রয়োজন ব্যতীত মদ্য ও অন্যান্য মাদক পানীয় এবং স্বাস্থ্যহানিকর ভেষজের ব্যবহার নিষিদ্ধকরণের জন্য রাষ্ট্র কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন৷

(২) গণিকাবৃত্তি ও জুয়াখেলা নিরোধের জন্য রাষ্ট্র কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন৷

সুযোগের সমতা
১৯৷ (১) সকল নাগরিকের জন্য সুযোগের সমতা নিশ্চিত করিতে রাষ্ট্র সচেষ্ট হইবেন৷

(২) মানুষে মানুষে সামাজিক ও অর্থনৈতিক অসাম্য বিলোপ করিবার জন্য, নাগরিকদের মধ্যে সম্পদের সুষম বন্টন নিশ্চিত করিবার জন্য এবং প্রজাতন্ত্রের সর্বত্র অর্থনৈতিক উন্নয়নের সমান স্তর অর্জনের উদ্দেশ্যে সুষম সুযোগ-সুবিধাদান নিশ্চিত করিবার জন্য রাষ্ট্র কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন৷

অধিকার ও কর্তব্য-রূপে কর্ম
২০৷ (১) কর্ম হইতেছে কর্মক্ষম প্রত্যেক নাগরিকের পক্ষে অধিকার, কর্তব্য ও সম্মানের বিষয়, এবং “প্রত্যেকের নিকট হইতে যোগ্যতানুসারে ও প্রত্যেককে কর্মানুযায়ী”-এই নীতির ভিত্তিতে প্রত্যেকে স্বীয় কর্মের জন্য পারিশ্রমিক লাভ করিবেন৷

(২) রাষ্ট্র এমন অবস্থা সৃষ্টির চেষ্টা করিবেন, যেখানে সাধারণ নীতি হিসাবে কোন ব্যক্তি অনুপার্জিত আয় ভোগ করিতে সমর্থ হইবেন না এবং যেখানে বুদ্ধিবৃত্তিমূলক ও কায়িক-সকল প্রকার শ্র্রম সৃষ্টিধর্মী প্রয়াসের ও মানবিক ব্যক্তিত্বের পূর্ণতর অভিব্যক্তিতে পরিণত হইবে৷

নাগরিক ও সরকারী কর্মচারীদের কর্তব্য
২১৷ (১) সংবিধান ও আইন মান্য করা, শৃঙ্খলা রক্ষা করা, নাগরিক দায়িত্ব পালন করা এবং জাতীয় সম্পত্তি রক্ষা করা প্রত্যেক নাগরিকের কর্তব্য৷

(২) সকল সময়ে জনগণের সেবা করিবার চেষ্টা করা প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত প্রত্যেক ব্যক্তির কর্তব্য৷

নির্বাহী বিভাগ হইতে বিচার বিভাগের পৃথকীকরণ
২২৷ রাষ্ট্রের নির্বাহী অঙ্গসমূহ হইতে বিচার বিভাগের পৃথকীকরণ রাষ্ট্র নিশ্চিত করিবেন৷

জাতীয় সংস্কৃতি
২৩৷ রাষ্ট্র জনগণের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও উত্তরাধিকার রক্ষণের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন এবং জাতীয় ভাষা, সাহিত্য ও শিল্পকলাসমূহের এমন পরিপোষণ ও উন্নয়নের ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন, যাহাতে সর্বস্তরের জনগণ জাতীয় সংস্কৃতির সমৃদ্ধিতে অবদান রাখিবার ও অংশগ্রহণ করিবার সুযোগ লাভ করিতে পারেন৷

জাতীয় স্মৃতিনিদর্শন, প্রভৃতি
২৪৷ বিশেষ শৈল্পিক কিংবা ঐতিহাসিক গুরুত্বসম্পন্ন বা তাৎর্যমণ্ডিত স্মৃতিনিদর্শন, বস্তু বা স্থানসমূহকে বিকৃতি, বিনাশ বা অপসারণ হইতে রক্ষা করিবার জন্য রাষ্ট্র ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন৷

আন্তর্জাতিক শান্তি, নিরাপত্তা ও সংহতির উন্নয়ন
২৫৷ ১৩ (১) জাতীয় সার্বভৌমত্ব ও সমতার প্রতি শ্রদ্ধা, অন্যান্য রাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ না করা, আন্তর্জাতিক বিরোধের শান্তিপূর্ণ সমাধান এবং আন্তর্জাতিক আইনের ও জাতিসংঘের সনদে বর্ণিত নীতিসমূহের প্রতি শ্রদ্ধা-এই সকল নীতি হইবে রাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ভিত্তি এবং এই সকল নীতির ভিত্তিতে রাষ্ট্র

(ক) আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে শক্তিপ্রয়োগ পরিহার এবং সাধারণ ও সম্পূর্ণ নিরস্ত্রীকরণের জন্য চেষ্টা করিবেন;

(খ) প্রত্যেক জাতির স্বাধীন অভিপ্রায় অনুযায়ী পথ ও পন্থার মাধ্যমে অবাধে নিজস্ব সামাজিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক ব্যবস্থা নির্ধারণ ও গঠনের অধিকার সমর্থন করিবেন; এবং

(গ) সাম্রাজ্যবাদ, ঔপনিবেশিকতাবাদ বা বর্ণবৈষম্যবাদের বিরুদ্ধে বিশ্বের সর্বত্র নিপীড়িত জনগণের ন্যায়সঙ্গত সংগ্রামকে সমর্থন করিবেন৷

১৪ (২) রাষ্ট্র ইসলামী সংহতির ভিত্তিতে মুসলিম দেশসমূহের মধ্যে ভ্রাতৃত্ব সম্পর্ক সংহত, সংরক্ষণ এবং জোরদার করিতে সচেষ্ট হইবেন৷


তৃতীয় ভাগ
মৌলিক অধিকার

মৌলিক অধিকারের সহিত অসমঞ্জস আইন বাতিল

২৬। (১) এই ভাগের বিধানাবলীর সহিত অসমঞ্জস সকল প্রচলিত আইন যতখানি অসামঞ্জস্যপূর্ণ, এই সংবিধান-প্রবর্তন হইতে সেই সকল আইনের ততখানি বাতিল হইয়া যাইবে।

(২) রাষ্ট্র এই ভাগের কোন বিধানের সহিত অসমঞ্জস কোন আইন প্রণয়ন করিবেন না এবং অনুরূপ কোন আইন প্রণীত হইলে তাহা এই ভাগের কোন বিধানের সহিত যতখানি অসামঞ্জস্যপূর্ণ, ততখানি বাতিল হইয়া যাইবে।

১৫ (৩) সংবিধানের ১৪২ অনুচ্ছেদের অধীন প্রণীত সংশোধনের ক্ষেত্রে এই অনুচ্ছেদের কোন কিছুই প্রযোজ্য হইবে না।

আইনের দৃষ্টিতে সমতা

২৭। সকল নাগরিক আইনের দৃষ্টিতে সমান এবং আইনের সমান আশ্রয় লাভের অধিকারী।

ধর্ম, প্রভৃতি কারণে বৈষম্য

২৮। (১) কেবল ধর্ম, গোষ্ঠী, বর্ণ, নারী-পুরুষভেদ বা জন্মস্থানের কারণে কোন নাগরিকের প্রতি রাষ্ট্র বৈষম্য প্রদর্শন করিবেন না।

২) রাষ্ট্র ও গণজীবনের সর্বস্তরে নারী পুরুষের সমান অধিকার লাভ করিবেন।

(৩) কেবল ধর্ম, গোষ্ঠী, বর্ণ, নারী-পুরুষভেদ বা জন্মস্থানের কারণে জনসাধারণের কোন বিনোদন বা বিশ্রামের স্থানে প্রবেশের কিংবা কোন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে ভর্তির বিষয়ে কোন নাগরিককে কোনরূপ অক্ষমতা, বাধ্যবাধকতা, বাধা বা শর্তের অধীন করা যাইবে না।

(৪) নারী বা শিশুদের অনুকূলে কিংবা নাগরিকদের যে কোন অনগ্রসর অংশের অগ্রগতির জন্য বিশেষ বিধান-প্রণয়ন হইতে এই অনুচ্ছেদের কোন কিছুই রাষ্ট্রকে নিবৃত্ত করিবে না।

সরকারী নিয়োগ-লাভে সুযোগের সমতা
২৯। (১) প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিয়োগ বা পদ-লাভের ক্ষেত্রে সকল নাগরিকের জন্য সুযোগের সমতা থাকিবে।

(২) কেবল ধর্ম, গোষ্ঠী, বর্ণ, নারী-পুরুষভেদ বা জন্মস্থানের কারণে কোন নাগরিক প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিয়োগ বা পদ-লাভের অযোগ্য হইবেন না কিংবা সেই ক্ষেত্রে তাঁহার প্রতি বৈষম্য প্রদর্শন করা যাইবে না।

(৩) এই অনুচ্ছেদের কোন কিছুই-

(ক) নাগরিকদের যে কোন অনগ্রসর অংশ যাহাতে প্রজাতন্ত্রের কর্মে উপযুক্ত প্রতিনিধিত্ব লাভ করিতে পারেন, সেই উদ্দেশ্যে তাঁহাদের অনুকূলে বিশেষ বিধান-প্রণয়ন করা হইতে,

(খ) কোন ধর্মীয় বা উপ-সমপ্রদায়গত প্রতিষ্ঠানে উক্ত ধর্মাবলম্বী বা উপ-সমপ্রদায়ভুক্ত ব্যক্তিদের জন্য নিয়োগ সংরক্ষণের বিধান-সংবলিত যে কোন আইন কার্যকর করা হইতে,

(গ) যে শ্রেণীর কর্মের বিশেষ প্রকৃতির জন্য তাহা নারী বা পুরুষের পক্ষে অনুপযোগী বিবেচিত হয়, সেইরূপ যে কোন শ্রেণীর নিয়োগ বা পদ যথাক্রমে পুরুষ বা নারীর জন্য সংরক্ষণ করা হইতে, রাষ্ট্রকে নিবৃত্ত করিবে না।

বিদেশী, খেতাব, প্রভৃতি গ্রহণ নিষিদ্ধকরণ
১৬ ৩০। রাষ্ট্রপতির পূর্বানুমোদন ব্যতীত কোন নাগরিক কোন বিদেশী রাষ্ট্রের নিকট হইতে কোন উপাধি, খেতাব, সম্মান, পুরস্কার বা ভূষণ গ্রহণ করিবেন না।

আইনের আশ্রয়-লাভের অধিকার
৩১। আইনের আশ্রয়লাভ এবং আইনানুযায়ী ও কেবল আইনানুযায়ী ব্যবহারলাভ যে কোন স্থানে অবস্থানরত প্রত্যেক নাগরিকের এবং সাময়িকভাবে বাংলাদেশে অবস্থানরত অপরাপর ব্যক্তির অবিচ্ছেদ্য অধিকার এবং বিশেষতঃ আইনানুযায়ী ব্যতীত এমন কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাইবে না, যাহাতে কোন ব্যক্তির জীবন, স্বাধীনতা, দেহ, সুনাম বা সম্পত্তির হানি ঘটে।

জীবন ও ব্যক্তি-স্বাধীনতার অধিকাররক্ষণ

৩২। আইনানুযায়ী ব্যতীত জীবন ও ব্যক্তি-স্বাধীনতা হইতে কোন ব্যক্তিকে বঞ্চিত করা যাইবে না।

গ্রেপ্তার ও আটক সম্পর্কে রক্ষাকবচ
৩৩। (১) গ্রেপ্তারকৃত কোন ব্যক্তিকে যথাসম্ভব শীঘ্র গ্রেপ্তারের কারণ জ্ঞাপন না করিয়া প্রহরায় আটক রাখা যাইবে না এবং উক্ত ব্যক্তিকে তাঁহার মনোনীত আইনজীবীর সহিত পরামর্শের ও তাঁহার দ্বারা আত্মপক্ষ সমর্থনের অধিকার হইতে বঞ্চিত করা যাইবে না।

(২) গ্রেপ্তারকৃত ও প্রহরায় আটক প্রত্যেক ব্যক্তিকে নিকটতম ম্যাজিস্ট্রেটের সম্মুখে গ্রেপ্তারের চব্বিশ ঘন্টার মধ্যে গ্রেপ্তারের স্থান হইতে ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে আনয়নের জন্য প্রয়োজনীয় সময় ব্যতিরেকে) হাজির করা হইবে এবং ম্যাজিস্ট্রেটের আদেশ ব্যতীত তাঁহাকে তদতিরিক্তকাল প্রহরায় আটক রাখা যাইবে না।

(৩) এই অনুচ্ছেদের (১) ও (২) দফার কোন কিছুই সেই ব্যক্তির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হইবে না,

(ক) যিনি বর্তমান সময়ের জন্য বিদেশী শত্রু, অথবা

(খ) যাঁহাকে নিবর্তনমূলক আটকের বিধান-সংবলিত কোন আইনের অধীন গ্রেপ্তার করা হইয়াছে বা আটক করা হইয়াছে।

(৪) নিবর্তনমূলক আটকের বিধান-সংবলিত কোন আইন কোন ব্যক্তিকে ছয় মাসের অধিককাল আটক রাখিবার ক্ষমতা প্রদান করিবে না যদি সুপ্রীম কোর্টের বিচারক রহিয়াছেন বা ছিলেন কিংবা সুপ্রীম কোর্টের বিচারকপদে নিয়োগলাভের যোগ্যতা রাখেন, এইরূপ দুইজন এবং প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত একজন প্রবীণ কর্মচারীর সমন্বয়ে গঠিত কোন উপদেষ্টা-পর্ষদ্ উক্ত ছয় মাস অতিবাহিত হইবার পূর্বে তাঁহাকে উপস্থিত হইয়া বক্তব্য পেশ করিবার সুযোগদানের পর রিপোর্ট প্রদান না করিয়া থাকেন যে, পর্ষদের মতে উক্ত ব্যক্তিকে তদতিরিক্তকাল আটক রাখিবার পর্যাপ্ত কারণ রহিয়াছে।

(৫) নির্বতনমূলক আটকের বিধান-সংবলিত কোন আইনের অধীন প্রদত্ত আদেশ অনুযায়ী কোন ব্যক্তিকে আটক করা হইলে আদেশদানকারী কর্তৃপক্ষ তাঁহাকে যথাসম্ভব শীঘ্র আদেশদানের কারণ জ্ঞাপন করিবেন এবং উক্ত আদেশের বিরুদ্ধে বক্তব্য-প্রকাশের জন্য তাঁহাকে যত সত্বর সম্ভব সুযোগদান করিবেন:

তবে শর্ত থাকে যে, আদেশদানকারী কর্তৃপক্ষের বিবেচনায় তথ্যাদি-প্রকাশ জনস্বার্থবিরোধী বলিয়া মনে হইলে অনুরূপ কর্তৃপক্ষ তাহা প্রকাশে অস্বীকৃতি জ্ঞাপন করিতে পারিবেন।

(৬) উপদেষ্টা-পর্ষদ কর্তৃক এই অনুচ্ছেদের (৪) দফার অধীন তদন্তের জন্য অনুসরণীয় পদ্ধতি সংসদ আইনের দ্বারা নির্ধারণ করিতে পারিবেন।

জবরদস্তি-শ্রম নিষিদ্ধকরণ
৩৪। (১) সকল প্রকার জবরদস্তি-শ্রম নিষিদ্ধ; এবং এই বিধান কোনভাবে লংঘিত হইলে তাহা আইনতঃ দণ্ডনীয় অপরাধ বলিয়া গণ্য হইবে।

(২) এই অনুচ্ছেদের কোন কিছুই সেই সকল বাধ্যতামূলক শ্রমের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হইবে না, যেখানে

(ক) ফৌজদারী অপরাধের জন্য কোন ব্যক্তি আইনতঃ দণ্ডভোগ করিতেছেন; অথবা

(খ) জনগণের উদ্দেশ্যসাধনকল্পে আইনের দ্বারা তাহা আবশ্যক হইতেছে।

বিচার ও দন্ড সম্পর্কে রক্ষণ
৩৫। (১) অপরাধের দায়যুক্ত কার্যসংঘটনকালে বলবৎ ছিল, এইরূপ আইন ভঙ্গ করিবার অপরাধ ব্যতীত কোন ব্যক্তিকে দোষী সাব্যস্ত করা যাইবে না এবং অপরাধ-সংঘটনকালে বলবৎ সেই আইনবলে যে দণ্ড দেওয়া যাইতে পারিত, তাঁহাকে তাহার অধিক বা তাহা হইতে ভিন্ন দণ্ড দেওয়া যাইবে না।

(২) এক অপরাধের জন্য কোন ব্যক্তিকে একাধিকবার ফৌজদারীতে সোপর্দ ও দণ্ডিত করা যাইবে না।

(৩) ফৌজদারী অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত প্রত্যেক ব্যক্তি আইনের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত স্বাধীন ও নিরপেক্ষ আদালত বা ট্রাইব্যুনালে দ্রুত ও প্রকাশ্য বিচারলাভের অধিকারী হইবেন।

(৪) কোন অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে নিজের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে বাধ্য করা যাইবে না।

(৫) কোন ব্যক্তিকে যন্ত্রণা দেওয়া যাইবে না কিংবা নিষ্ঠুর, অমানুষিক বা লাঞ্ছনাকর দণ্ড দেওয়া যাইবে না কিংবা কাহারও সহিত অনুরূপ ব্যবহার করা যাইবে না।

(৬) প্রচলিত আইনে নির্দিষ্ট কোন দণ্ড বা বিচারপদ্ধতি সম্পর্কিত কোন বিধানের প্রয়োগকে এই অনুচ্ছেদের (৩) বা (৫) দফার কোন কিছুই প্রভাবিত করিবে না।

চলাফেরার স্বাধীনতা
৩৬। জনস্বার্থে আইনের দ্বারা আরোপিত যুক্তিসঙ্গত বাধা-নিষেধ সাপেক্ষে বাংলাদেশের সর্বত্র অবাধ চলাফেরা, ইহার যে কোন স্থানে বসবাস ও বসতিস্থাপন এবং বাংলাদেশ ত্যাগ ও বাংলাদেশে পুনঃপ্রবেশ করিবার অধিকার প্রত্যেক নাগরিকের থাকিবে।

সমাবেশের স্বাধীনতা
৩৭। জনশৃঙ্খলা বা জনস্বাস্থ্যের স্বার্থে আইনের দ্বারা আরোপিত যুক্তিসঙ্গত বাধা-নিষেধ সাপেক্ষে শান্তিপূর্ণভাবে ও নিরস্ত্র অবস্থায় সমবেত হইবার এবং জনসভা ও শোভাযাত্রায় যোগদান করিবার অধিকার প্রত্যেক নাগরিকের থাকিবে।

সংগঠনের স্বাধীনতা
৩৮। জনশৃঙ্খলা ও নৈতিকতার স্বার্থে আইনের দ্বারা আরোপিত যুক্তিসঙ্গত বাধা-নিষেধ সাপেক্ষে সমিতি বা সংঘ গঠন করিবার অধিকার প্রত্যেক নাগরিকের থাকিবে:

১৭ * * *

চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতা এবং বাক্-স্বাধীনতা

৩৯। (১) চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতার নিশ্চয়তাদান করা হইল।

(২) রাষ্ট্রের নিরাপত্তা, বিদেশী রাষ্ট্রসমূহের সহিত বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক, জনশৃঙ্খলা, শালীনতা ও নৈতিকতার স্বার্থে কিংবা আদালত-অবমাননা, মানহানি বা অপরাধ সংঘটনে প্ররোচনা সম্পর্কে আইনের দ্বারা আরোপিত যুক্তিসঙ্গত বাধা-নিষেধ সাপেক্ষে

(ক) প্রত্যেক নাগরিকের বাক্ ও ভাব প্রকাশের স্বাধীনতার অধিকারের, এবং

(খ) সংবাদ ক্ষেত্রের স্বাধীনতার,

নিশ্চয়তা দান করা হইল।

পেশা বা বৃত্তির স্বাধীনতা
৪০। আইনের দ্বারা আরোপিত বাধা-নিষেধ সাপেক্ষে কোন পেশা বা বৃত্তি-গ্রহণের কিংবা কারবার বা ব্যবসায়-পরিচালনার জন্য আইনের দ্বারা কোন যোগ্যতা নির্ধারিত হইয়া থাকিলে অনুরূপ যোগ্যতাসম্পন্ন প্রত্যেক নাগরিকের যে কোন আইনসঙ্গত পেশা বা বৃত্তি-গ্রহণের এবং যে কোন আইনসঙ্গত কারবার বা ব্যবসায়-পরিচালনার অধিকার থাকিবে।

ধর্মীয় স্বাধীনতা
৪১। (১) আইন, জনশৃঙ্খলা ও নৈতিকতা-সাপেক্ষে

(ক) প্রত্যেক নাগরিকের যে কোন ধর্ম অবলম্বন, পালন বা প্রচারের অধিকার রহিয়াছে;

(খ) প্রত্যেক ধর্মীয় সমপ্রদায় ও উপ-সমপ্রদায়ের নিজস্ব ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের স্থাপন, রক্ষণ ও ব্যবস্থাপনার অধিকার রহিয়াছে।

(২) কোন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে যোগদানকারী কোন ব্যক্তির নিজস্ব ধর্ম-সংক্রান্ত না হইলে তাঁহাকে কোন ধর্মীয় শিক্ষাগ্রহণ কিংবা কোন ধর্মীয় অনুষ্ঠান বা উপাসনায় অংশগ্রহণ বা যোগদান করিতে হইবে না।

সম্পত্তির অধিকার

৪২। (১) আইনের দ্বারা আরোপিত বাধা-নিষেধ সাপেক্ষে প্রত্যেক নাগরিকের সম্পত্তি অর্জন, ধারণ, হস্তান্তর বা অন্যভাবে বিলি-ব্যবস্থা করিবার অধিকার থাকিবে এবং আইনের কর্তৃত্ব ব্যতীত কোন সম্পত্তি বাধ্যতামূলকভাবে গ্রহণ, রাষ্ট্রায়ত্ত বা দখল করা যাইবে না।

১৮ (২) এই অনুচ্ছেদের (১) দফার অধীন প্রণীত আইনে ক্ষতিপূরণসহ বাধ্যতামূলকভাবে গ্রহণ, রাষ্ট্রায়ত্তকরণ বা দখলের বিধান করা হইবে এবং ক্ষতিপূরণের পরিমাণ নির্ধারণ, কিংবা ক্ষতিপূরণ নির্ণয় বা প্রদানের নীতি ও পদ্ধতি নির্দিষ্ট করা হইবে, তবে অনুরূপ কোন আইনে ক্ষতিপূরণের বিধান অপর্যাপ্ত হইয়াছে বলিয়া সেই আইন সম্পর্কে কোন আদালতে কোন প্রশ্ন উত্থাপন করা যাইবে না।

(৩) ১৯৭৭ সালের ফরমানসমূহ (সংশোধন) আদেশ, ১৯৭৭ (১৯৭৭ সালের ১ নং ফরমানসমূহ আদেশ) প্রবর্তনের পূর্বে প্রণীত কোন আইনের প্রয়োগকে, যতদূর তাহা ক্ষতিপূরণ ব্যতীত কোন সম্পত্তি বাধ্যতামূলকভাবে গ্রহণ, রাষ্ট্রায়ত্তকরণ বা দখলের সহিত সম্পর্কিত, এই অনুচ্ছেদের কোন কিছুই প্রভাবিত করিবে না।

গৃহ ও যোগাযোগের রক্ষণ
৪৩। রাষ্ট্রের নিরাপত্তা, জনশৃঙ্খলা, জনসাধারণের নৈতিকতা বা জনস্বাস্থ্যের স্বার্থে আইনের দ্বারা আরোপিত যুক্তিসঙ্গত বাধা-নিষেধ সাপেক্ষে প্রত্যেক নাগরিকের-

(ক) প্রবেশ, তল্লাশী ও আটক হইতে স্বীয় গৃহে নিরাপত্তালাভের অধিকার থাকিবে; এবং

(খ) চিঠিপত্রের ও যোগাযোগের অন্যান্য উপায়ের গোপনীয়তা রক্ষার অধিকার থাকিবে।

মৌলিক অধিকার বলবৎকরণ

৪৪। (১) এই ভাগে প্রদত্ত অধিকারসমূহ বলবৎ করিবার জন্য এই সংবিধানের ১০২ অনুচ্ছেদের (১) দফা অনুযায়ী হাইকোর্ট বিভাগের নিকট মামলা রুজু করিবার অধিকারের নিশ্চয়তা দান করা হইল।

(২) এই সংবিধানের ১০২ অনুচ্ছেদের অধীন হাইকোর্ট বিভাগের ক্ষমতার হানি না ঘটাইয়া সংসদ আইনের দ্বারা অন্য কোন আদালতকে তাহার এখতিয়ারের স্থানীয় সীমার মধ্যে ঐ সকল বা উহার যে কোন ক্ষমতা প্রয়োগের ক্ষমতা দান করিতে পারিবেন।

শৃঙ্খলামূলক আইনের ক্ষেত্রে অধিকারের পরিবর্তন
৪৫। কোন শৃঙ্খলা-বাহিনীর সদস্য-সম্পর্কিত কোন শৃঙ্খলামূলক আইনের যে কোন বিধান উক্ত সদস্যদের যথাযথ কর্তব্যপালন বা উক্ত বাহিনীতে শৃঙ্খলারক্ষা নিশ্চিত করিবার উদ্দেশ্যে প্রণীত বিধান বলিয়া অনুরূপ বিধানের ক্ষেত্রে এই ভাগের কোন কিছুই প্রযোজ্য হইবে না।

দায়মুক্তি-বিধানের ক্ষমতা
৪৬। এই ভাগের পূর্ববর্ণিত বিধানাবলীতে যাহা বলা হইয়াছে, তাহা সত্ত্বেও প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত কোন ব্যক্তি বা অন্য কোন ব্যক্তি জাতীয় মুক্তি-সংগ্রামের প্রয়োজনে কিংবা বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় সীমানার মধ্যে যে কোন অঞ্চলে শৃঙ্খলা-রক্ষা বা পুনর্বহালের প্রয়োজনে কোন কার্য করিয়া থাকিলে সংসদ আইনের দ্বারা সেই ব্যক্তিকে দায়মুক্ত করিতে পারিবেন কিংবা ঐ অঞ্চলে প্রদত্ত কোন দণ্ডাদেশ, দণ্ড বা বাজেয়াপ্তির আদেশকে কিংবা অন্য কোন কার্যকে বৈধ করিয়া লইতে পারিবেন।

কতিপয় আইনের হেফাজত
৪৭। (১) নিম্নলিখিত যে কোন বিষয়ের বিধান-সংবলিত কোন আইনে (প্রচলিত আইনের ক্ষেত্রে সংশোধনীর মাধ্যমে) সংসদ যদি স্পষ্টরূপে ঘোষণা করেন যে, এই সংবিধানের দ্বিতীয় ভাগে বর্ণিত রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতিসমূহের কোন একটিকে কার্যকর করিবার জন্য অনুরূপ বিধান করা হইল, তাহা হইলে অনুরূপ আইন এইভাগে নিশ্চয়কৃত কোন অধিকারের সহিত অসমঞ্জস কিংবা অনুরূপ অধিকার হরণ বা খর্ব করিতেছে, এই কারণে বাতিল বলিয়া গণ্য হইবে না:

(ক) কোন সম্পত্তি বাধ্যতামূলকভাবে গ্রহণ, রাষ্ট্রায়ত্তকরণ বা দখল কিংবা সাময়িকভাবে বা স্থায়ীভাবে কোন সম্পত্তির নিয়ন্ত্রণ বা ব্যবস্থাপনা;

(খ) বাণিজ্যিক বা অন্যবিধ উদ্যোগসম্পন্ন একাধিক প্রতিষ্ঠানের বাধ্যতামূলক সংযুক্তকরণ;

(গ) অনুরূপ যে কোন প্রতিষ্ঠানের পরিচালক, ব্যবস্থাপক, এজেন্ট ও কর্মচারীদের অধিকার এবং (যে কোন প্রকারের) শেয়ার ও স্টকের মালিকদের ভোটাধিকার বিলোপ, পরিবর্তন, সীমিতকরণ বা নিয়ন্ত্রণ;

(ঘ) খনিজদ্রব্য বা খনিজ তৈল-অনুসন্ধান বা লাভের অধিকার বিলোপ, পরিবর্তন, সীমিতকরণ বা নিয়ন্ত্রণ;

(ঙ) অন্যান্য ব্যক্তিকে অংশতঃ বা সম্পূর্ণতঃ পরিহার করিয়া সরকার কর্তৃক বা সরকারের নিজস্ব, নিয়ন্ত্রণাধীন বা ব্যবস্থাপনাধীন কোন সংস্থা কর্তৃক যে কোন কারবার, ব্যবসায়, শিল্প বা কর্মবিভাগ-চালনা; অথবা

(চ) যে কোন সম্পত্তির স্বত্ব কিংবা পেশা, বৃত্তি, কারবার বা ব্যবসায়-সংক্রান্ত যে কোন অধিকার কিংবা কোন সংবিধিবদ্ধ সরকারী প্রতিষ্ঠান বা কোন বাণিজ্যিক বা শিল্পগত উদ্যোগের মালিক বা কর্মচারীদের অধিকার বিলোপ, পরিবর্তন, সীমিতকরণ বা নিয়ন্ত্রণ।

(২) এই সংবিধানে যাহা বলা হইয়াছে, তাহা সত্ত্বেও প্রথম তফসিলে বর্ণিত আইনসমূহ (অনুরূপ আইনের কোন সংশোধনীসহ) পূর্ণভাবে বলবৎ ও কার্যকর হইতে থাকিবে এবং অনুরূপ যে কোন আইনের কোন বিধান কিংবা অনুরূপ কোন আইনের কর্তত্বে যাহা করা হইয়াছে বা করা হয় নাই, তাহা এই সংবিধানের কোন বিধানের সহিত অসমঞ্জস বা তাহার পরিপন্থী, এই কারণে বাতিল বা বেআইনী বলিয়া গণ্য হইবে না:

২০ তবে শর্ত থাকে যে, এই অনুচ্ছেদের কোন কিছুই অনুরূপ কোন আইনকে সংশোধন, পরিবর্তন বা বাতিল করা হইতে নিবৃত্ত করিবে না।

২১ (৩) এই সংবিধানে যাহা বলা হইয়াছে, তাহা সত্ত্বেও গণহত্যাজনিত অপরাধ, মানবতাবিরোধী অপরাধ বা যুদ্ধাপরাধ এবং আন্তর্জাতিক আইনের অধীন অন্যান্য অপরাধের জন্য কোন সশস্ত্র বাহিনী বা প্রতিরৰা বাহিনী বা সহায়ক বাহিনীর সদস্য কিংবা যুদ্ধবন্দীকে আটক, ফৌজদারীতে সোপর্দ কিংবা দ-দান করিবার বিধান-সংবলিত কোন আইন বা আইনের বিধান এই সংবিধানের কোন বিধানের সহিত অসমঞ্জস বা তাহার পরিপন্থী, এই কারণে বাতিল বা বেআইনী বলিয়া গণ্য হইবে না কিংবা কখনও বাতিল বা বেআইনী হইয়াছে বলিয়া গণ্য হইবে না।

সংবিধানের কতিপয় বিধানের অপ্রযোজ্যতা
২২ ৪৭ক। (১) যে ব্যক্তির ক্ষেত্রে এই সংবিধানের ৪৭ অনুচ্ছেদের (৩) দফায় বর্ণিত কোন আইন প্রযোজ্য হয়, সেই ব্যক্তির ক্ষেত্রে এই সংবিধানের ৩১ অনুচ্ছেদ, ৩৫ অনুচ্ছেদের (১) ও (৩) দফা এবং ৪৪ অনুচ্ছেদের অধীন নিশ্চয়কৃত অধিকারসমূহ প্রযোজ্য হইবে না।

(২) এই সংবিধানে যাহা বলা হইয়াছে, তাহা সত্ত্বেও যে ব্যক্তির ক্ষেত্রে এই সংবিধানের ৪৭ অনুচ্ছেদের (৩) দফায় বর্ণিত কোন আইন প্রযোজ্য হয়, এই সংবিধানের অধীন কোন প্রতিকারের জন্য সুপ্রীম কোর্টে আবেদন করিবার কোন অধিকার সেই ব্যক্তির থাকিবে না।


চতুর্থ ভাগ
নির্বাহী বিভাগ

১ম পরিচ্ছেদ
রাষ্ট্রপতি

রাষ্ট্রপতি

৪৮। (১) বাংলাদেশের একজন রাষ্ট্রপতি থাকিবেন, যিনি আইন অনুযায়ী সংসদ-সদস্যগণ কর্তৃক নির্বাচিত হইবেন।

(২) রাষ্ট্রপ্রধানরূপে রাষ্ট্রপতি রাষ্ট্রের অন্য সকল ব্যক্তির ঊর্ধ্বে স্থান লাভ করিবেন এবং এই সংবিধান ও অন্য কোন আইনের দ্বারা তাঁহাকে প্রদত্ত ও তাঁহার উপর অর্পিত সকল ক্ষমতা প্রয়োগ ও কর্তব্য পালন করিবেন।

(৩) এই সংবিধানের ৫৬ অনুচ্ছেদের (৩) দফা অনুসারে কেবল প্রধানমন্ত্রী ও ৯৫ অনুচ্ছেদের (১) দফা অনুসারে প্রধান বিচারপতি নিয়োগের ক্ষেত্র ব্যতীত রাষ্টপতি তাঁহার অন্য সকল দায়িত্ব পালনে প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ অনুযায়ী কার্য করিবেন:

তবে শর্ত থাকে যে, প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতিকে আদৌ কোন পরামর্শদান করিয়াছেন কি না এবং করিয়া থাকিলে কি পরামর্শ দান করিয়াছেন, কোন আদালত সেই সম্পর্কে কোন প্রশ্নের তদন্ত করিতে পারিবেন না।

(৪) কোন ব্যক্তি রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হইবার যোগ্য হইবেন না, যদি তিনি-

(ক) পঁয়ত্রিশ বৎসরের কম বয়স্ক হন; অথবা

(খ) সংসদ-সদস্য নির্বাচিত হইবার যোগ্য না হন; অথবা

(গ) কখনও এই সংবিধানের অধীন অভিশংসন দ্বারা রাষ্ট্রপতির পদ হইতে অপসারিত হইয়া থাকেন।

(৫) প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রীয় ও পররাষ্ট্রীয় নীতি সংক্রান্ত বিষয়াদি সম্পর্কে রাষ্ট্রপতিকে অবহিত রাখিবেন এবং রাষ্ট্রপতি অনুরোধ করিলে যে কোন বিষয় মন্ত্রিসভায় বিবেচনার জন্য পেশ করিবেন।

ক্ষমা প্রদর্শনের অধিকার
৪৯। কোন আদালত, ট্রাইব্যুনাল বা অন্য কোন কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রদত্ত যে কোন দণ্ডের মার্জনা, বিলম্বন ও বিরাম মঞ্জুর করিবার এবং যে কোন দণ্ড মওকুফ, স্থগিত বা হ্রাস করিবার ক্ষমতা রাষ্ট্রপতির থাকিবে।

রাষ্ট্রপতি-পদের মেয়াদ
৫০। (১) এই সংবিধানের বিধানাবলী সাপেক্ষে রাষ্ট্রপতি কার্যভার গ্রহণের তারিখ হইতে পাঁচ বৎসরের মেয়াদে তাঁহার পদে অধিষ্ঠিত থাকিবেন:

তবে শর্ত থাকে যে, রাষ্ট্রপতির পদের মেয়াদ শেষ হওয়া সত্ত্বেও তাঁহার উত্তরাধিকারী কার্যভার গ্রহণ না করা পর্যন্ত তিনি স্বীয় পদে বহাল থাকিবেন।

(২) একাদিক্রমে হউক বা না হউক-দুই মেয়াদের অধিক রাষ্ট্রপতির পদে কোন ব্যক্তি অধিষ্ঠিত থাকিবেন না।

(৩) স্পীকারের উদ্দেশ্যে স্বাক্ষরযুক্ত পত্রযোগে রাষ্ট্রপতি স্বীয় পদ ত্যাগ করিতে পারিবেন।

(৪) রাষ্ট্রপতি তাঁহার কার্যভারকালে সংসদ-সদস্য নির্বাচিত হইবার যোগ্য হইবেন না এবং কোন সংসদ-সদস্য রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হইলে রাষ্ট্রপতিরূপে তাঁহার কার্যভার গ্রহণের দিনে সংসদে তাঁহার আসন শূন্য হইবে।

রাষ্ট্রপতির দায়মুক্তি
৫১। (১) এই সংবিধানের ৫২ অনুচ্ছেদের হানি না ঘটাইয়া বিধান করা হইতেছে যে, রাষ্ট্রপতি তাঁহার দায়িত্ব পালন করিতে গিয়া কিংবা অনুরূপ বিবেচনায় কোন কার্য করিয়া থাকিলে বা না করিয়া থাকিলে সেইজন্য তাঁহাকে কোন আদালতে জবাবদিহি করিতে হইবে না, তবে এই দফা সরকারের বিরুদ্ধে কার্যধারা গ্রহণে কোন ব্যক্তির অধিকার ক্ষুণ্ন করিবে না।

(২) রাষ্ট্রপতির কার্যভারকালে তাঁহার বিরুদ্ধে কোন আদালতে কোন প্রকার ফৌজদারী কার্যধারা দায়ের করা বা চালু রাখা যাইবে না এবং তাঁহার গ্রেফতার বা কারাবাসের জন্য কোন আদালত হইতে পরোয়ানা জারী করা যাইবে না।

রাষ্ট্রপতির অভিশংসন
৫২। (১) এই সংবিধান লংঘন বা গুরুতর অসদাচরণের অভিযোগে রাষ্ট্রপতিকে অভিশংসিত করা যাইতে পারিবে; ইহার জন্য সংসদের মোট সদস্যের সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশের স্বাক্ষরে অনুরূপ অভিযোগের বিবরণ লিপিবদ্ধ করিয়া একটি প্রস্তাবের নোটিশ স্পীকারের নিকট প্রদান করিতে হইবে; স্পীকারের নিকট অনুরূপ নোটিশ প্রদানের দিন হইতে চৌদ্দ দিনের পূর্বে বা ত্রিশ দিনের পর এই প্রস্তাব আলোচিত হইতে পারিবে না এবং সংসদ অধিবেশনরত না থাকিলে স্পীকার অবিলম্বে সংসদ আহবান করিবেন।

(২) এই অনুচ্ছেদের অধীন কোন অভিযোগ তদন্তের জন্য সংসদ কর্তৃক নিযুক্ত বা আখ্যায়িত কোন আদালত, ট্রাইব্যুনাল বা কর্তৃপক্ষের নিকট সংসদ রাষ্ট্রপতির আচরণ গোচর করিতে পারিবেন।

(৩) অভিযোগ বিবেচনাকালে রাষ্ট্রপতির উপস্থিত থাকিবার এবং প্রতিনিধি প্রেরণের অধিকার থাকিবে।

(৪) অভিযোগ বিবেচনার পর মোট সদস্য-সংখ্যার অন্যূন দুই-তৃতীয়াংশ ভোটে অভিযোগ যথার্থ বলিয়া ঘোষণা করিয়া সংসদ কোন প্রস্তাব গ্রহণ করিলে প্রস্তাব গৃহীত হইবার তারিখে রাষ্ট্রপতির পদ শূন্য হইবে।

(৫) এই সংবিধানের ৫৪ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী স্পীকার কর্তৃক রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালনকালে এই অনুচ্ছেদের বিধানাবলী এই পরিবর্তন সাপেক্ষে প্রযোজ্য হইবে যে, এই অনুচ্ছেদের (১) দফায় স্পীকারের উল্লেখ ডেপুটি স্পীকারের উল্লেখ বলিয়া গণ্য হইবে এবং (৪) দফায় রাষ্ট্রপতির পদ শূন্য হইবার উল্লেখ স্পীকারের পদ শূন্য হইবার উল্লেখ বলিয়া গণ্য হইবে; এবং (৪) দফায় বর্ণিত কোন প্রস্তাব গৃহীত হইলে স্পীকার রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালনে বিরত হইবেন।

অসামর্থ্যের কারণে রাষ্ট্রপতির অপসারণ
৫৩। (১) শারীরিক বা মানসিক অসামর্থ্যের কারণে রাষ্ট্রপতিকে তাঁহার পদ হইতে অপসারিত করা যাইতে পারিবে; ইহার জন্য সংসদের মোট সদস্যের সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশের স্বাক্ষরে কথিত অসামর্থ্যের বিবরণ লিপিবদ্ধ করিয়া একটি প্রস্তাবের নোটিশ স্পীকারের নিকট প্রদান করিতে হইবে।

(২) সংসদ অধিবেশনরত না থাকিলে নোটিশ প্রাপ্তিমাত্র স্পীকার সংসদের অধিবেশন আহবান করিবেন এবং একটি চিকিৎসা-পর্ষদ (অতঃপর এই অনুচ্ছেদে “পর্ষদ” বলিয়া অভিহিত) গঠনের প্রস্তাব আহ্বান করিবেন এবং প্রয়োজনীয় প্রস্তাব উত্থাপিত ও গৃহীত হইবার পর স্পীকার তৎক্ষণাৎ উক্ত নোটিশের একটি প্রতিলিপি রাষ্ট্রপতির নিকট প্রেরণের ব্যবস্থা করিবেন এবং তাঁহার সহিত এই মর্মে স্বাক্ষরযুক্ত অনুরোধ জ্ঞাপন করিবেন যে, অনুরূপ অনুরোধ জ্ঞাপনের তারিখ হইতে দশ দিনের মধ্যে রাষ্ট্রপতি যেন পর্ষদের নিকট পরীক্ষিত হইবার জন্য উপস্থিত হন।

(৩) অপসারণের জন্য প্রস্তাবের নোটিশ স্পীকারের নিকট প্রদানের পর হইতে চৌদ্দ দিনের পূর্বে বা ত্রিশ দিনের পর প্রস্তাবটি ভোটে দেওয়া যাইবে না, এবং অনুরূপ মেয়াদের মধ্যে প্রস্তাবটি উত্থাপনের জন্য পুনরায় সংসদ আহ্বানের প্রয়োজন হইলে স্পীকার সংসদ আহ্বান করিবেন।

(৪) প্রস্তাবটি বিবেচিত হইবার কালে রাষ্ট্রপতির উপস্থিত থাকিবার এবং প্রতিনিধি প্রেরণের অধিকার থাকিবে।

(৫) প্রস্তাবটি সংসদে উত্থাপনের পূর্বে রাষ্ট্রপতি পর্ষদের দ্বারা পরীক্ষিত হইবার জন্য উপস্থিত না হইয়া থাকিলে প্রস্তাবটি ভোটে দেওয়া যাইতে পারিবে এবং সংসদের মোট সদস্য-সংখ্যার অন্যূন দুই-তৃতীয়াংশ ভোটে তাহা গৃহীত হইলে প্রস্তাবটি গৃহীত হইবার তারিখে রাষ্ট্রপতির পদ শূন্য হইবে।

(৬) অপসারণের জন্য প্রস্তাবটি সংসদে উস্থাপিত হইবার পূর্বে রাষ্ট্রপতি পর্ষদের নিকট পরীক্ষিত হইবার জন্য উপস্থিত হইয়া থাকিলে সংসদের নিকট পর্ষদের মতামত পেশ করিবার সুযোগ না দেওয়া পর্যন্ত প্রস্তাবটি ভোটে দেওয়া যাইবে না।

(৭) সংসদ কর্তৃক প্রস্তাবটি ও পর্ষদের রিপোর্ট (যাহা এই অনুচ্ছেদের (২) দফা অনুসারে পরীক্ষার সাত দিনের মধ্যে দাখিল করা হইবে এবং অনুরূপভাবে দাখিল না করা হইলে তাহা বিবেচনার প্রয়োজন হইবে না) বিবেচিত হইবার পর সংসদের মোট সদস্য-সংখ্যার অন্যূন দুই-তৃতীয়াংশ ভোটে প্রস্তাবটি গৃহীত হইলে তাহা গৃহীত হইবার তারিখে রাষ্ট্রপতি পদ শূন্য হইবে।

অনুপস্থিতি প্রভৃতির-কালে রাষ্ট্রপতি-পদে স্পীকার
৫৪। রাষ্ট্রপতির পদ শূন্য হইলে কিংবা অনুপস্থিতি, অসুস্থতা বা অন্য কোন কারণে রাষ্ট্রপতি দায়িত্ব পালনে অসমর্থ হইলে ক্ষেত্রমত রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত না হওয়া পর্যন্ত কিংবা রাষ্ট্রপতি পুনরায় স্বীয় কার্যভার গ্রহণ না করা পর্যন্ত স্পীকার রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করিবেন।

২য় পরিচ্ছেদ
প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিসভা

মন্ত্রিসভা

৫৫। (১) প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশের একটি মন্ত্রিসভা থাকিবে এবং প্রধানমন্ত্রী ও সময়ে সময়ে তিনি যেরূপ স্থির করিবেন, সেইরূপ অন্যান্য মন্ত্রী লইয়া এই মন্ত্রিসভা গঠিত হইবে।

(২) প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক বা তাঁহার কর্তত্বে এই সংবিধান-অনুযায়ী প্রজাতন্ত্রের নির্বাহী ক্ষমতা প্রযুক্ত হইবে।

(৩) মন্ত্রিসভা যৌথভাবে সংসদের নিকট দায়ী থাকিবেন।

(৪) সরকারের সকল নির্বাহী ব্যবস্থা রাষ্ট্রপতির নামে গৃহীত হইয়াছে বলিয়া প্রকাশ করা হইবে।

(৫) রাষ্ট্রপতির নামে প্রণীত আদেশসমূহ ও অন্যান্য চুক্তিপত্র কিরূপে সত্যায়িত বা প্রমাণীকৃত হইবে, রাষ্ট্রপতি তাহা বিধিসমূহ-দ্বারা নির্ধারণ করিবেন এবং অনুরূপভাবে সত্যায়িত বা প্রমাণীকৃত কোন আদেশ বা চুক্তিপত্র যথাযথভাবে প্রণীত বা সম্পাদিত হয় নাই বলিয়া তাহার বৈধতা সম্পর্কে কোন আদালতে প্রশ্ন উত্থাপন করা যাইবে না।

(৬) রাষ্ট্রপতি সরকারী কার্যাবলী বন্টন ও পরিচালনার জন্য বিধিসমূহ প্রণয়ন করিবেন।

মন্ত্রিগণ
৫৬। (১) একজন প্রধানমন্ত্রী থাকিবেন এবং প্রধানমন্ত্রী যেরূপ নির্ধারণ করিবেন, সেইরূপ অন্যান্য মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপ-মন্ত্রী থাকিবেন।

(২) প্রধানমন্ত্রী ও অন্যান্য মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপ-মন্ত্রীদিগকে রাষ্ট্রপতি নিয়োগ দান করিবেন:

তবে শর্ত থাকে যে, তাঁহাদের সংখ্যার অন্যূন নয়-দশমাংশ সংসদ-সদস্যগণের মধ্য হইতে নিযুক্ত হইবেন এবং অনধিক এক-দশমাংশ সংসদ-সদস্য নির্বাচিত হইবার যোগ্য ব্যক্তিগণের মধ্য হইতে মনোনীত হইতে পারিবেন।

(৩) যে সংসদ-সদস্য সংসদের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের আস্থাভাজন বলিয়া রাষ্ট্রপতির নিকট প্রতীয়মান হইবেন, রাষ্ট্রপতি তাঁহাকে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ করিবেন।

(৪) সংসদ ভাংগিয়া যাওয়া এবং সংসদ-সদস্যদের অব্যবহিত পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের মধ্যবর্তীকালে এই অনুচ্ছেদের (২) বা (৩) দফার অধীন নিয়োগ দানের প্রয়োজন দেখা দিলে সংসদ ভাংগিয়া যাইবার অব্যবহিত পূর্বে যাঁহারা সংসদ-সদস্য ছিলেন, এই দফার উদ্দেশ্যসাধনকল্পে তাঁহারা সদস্যরূপে বহাল রহিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবেন।

প্রধানমন্ত্রীর পদের মেয়াদ
৫৭। (১) প্রধানমন্ত্রীর পদ শূন্য হইবে, যদি-

(ক) তিনি কোন সময়ে রাষ্ট্রপতির নিকট পদত্যাগপত্র প্রদান করেন; অথবা

(খ) তিনি সংসদ-সদস্য না থাকেন।

(২) সংসদের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের সমর্থন হারাইলে প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগ করিবেন কিংবা সংসদ ভাংগিয়া দিবার জন্য লিখিতভাবে রাষ্ট্রপতিকে পরামর্শদান করিবেন এবং তিনি অনুরূপ পরামর্শদান করিলে রাষ্ট্রপতি, অন্য কোন সংসদ-সদস্য সংসদের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের আস্থাভাজন নহেন এই মর্মে সন্তুষ্ট হইলে, সংসদ ভাংগিয়া দিবেন।

(৩) প্রধানমন্ত্রীর উত্তরাধিকারী কার্যভার গ্রহণ না করা পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীকে স্বীয় পদে বহাল থাকিতে এই অনুচ্ছেদের কোন কিছুই অযোগ্য করিবে না।

অন্যান্য মন্ত্রীর পদের মেয়াদ
৫৮। (১) প্রধানমন্ত্রী ব্যতীত অন্য কোন মন্ত্রীর পদ শূন্য হইবে, যদি-

(ক) তিনি রাষ্ট্রপতির নিকট পেশ করিবার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নিকট পদত্যাগপত্র প্রদান করেন;

(খ) তিনি সংসদ-সদস্য না থাকেন, তবে ৫৬ অনুচ্ছেদের (২) দফার শর্তাংশের অধীনে মনোনীত মন্ত্রীর ক্ষেত্রে ইহা প্রযোজ্য হইবে না;

(গ) এই অনুচ্ছেদের (২) দফা অনুসারে রাষ্ট্রপতি অনুরূপ নির্দেশ দান করেন; অথবা

(ঘ) এই অনুচ্ছেদের (৪) দফায় যেরূপ বিধান করা হইয়াছে তাহা কার্যকর হয়।

(২) প্রধানমন্ত্রী যে কোন সময়ে কোন মন্ত্রীকে পদত্যাগ করিতে অনুরোধ করিতে পারিবেন এবং উক্ত মন্ত্রী অনুরূপ অনুরোধ পালনে অসমর্থ হইলে তিনি রাষ্ট্রপতিকে উক্ত মন্ত্রীর নিয়োগের অবসান ঘটাইবার পরামর্শ দান করিতে পারিবেন।

(৩) সংসদ ভাংগিয়া যাওয়া অবস্থায় যেকোন সময়ে কোন মন্ত্রীকে স্বীয় পদে বহাল থাকিতে এই অনুচ্ছেদের (১) দফার (ক), (খ) ও (ঘ) উপ-দফার কোন কিছুই অযোগ্য করিবে না।

(৪) প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগ করিলে বা স্বীয় পদে বহাল না থাকিলে মন্ত্রীদের প্রত্যেকে পদত্যাগ করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে; তবে এই পরিচ্ছেদের বিধানাবলী-সাপেক্ষে তাঁহাদের উত্তরাধিকারীগণ কার্যভার গ্রহণ না করা পর্যন্ত তাঁহারা স্ব স্ব পদে বহাল থাকিবেন।

(৫) এই অনুচ্ছেদে “মন্ত্রী” বলিতে প্রতিমন্ত্রী ও উপ-মন্ত্রী অন্তভর্ুক্ত।

পরিচ্ছেদের প্রয়োগ
২৩ ৫৮ক। এই পরিচ্ছেদের কোন কিছু ৫৫(৪), (৫) ও (৬) অনুচ্ছেদের বিধানাবলী ব্যতীত, যে মেয়াদে সংসদ ভাংগিয়া দেওয়া হয় বা ভংগ অবস্থায় থাকে সেই মেয়াদে প্রযুক্ত হইবে না:

তবে শর্ত থাকে যে, ২ক পরিচ্ছেদে যাহা কিছু থাকুক না কেন, যেক্ষেত্রে ৭২(৪) অনুচ্ছেদের অধীন কোন ভংগ হইয়া যাওয়া সংসদকে পুনরাহ্বান করা হয় সেক্ষেত্রে এই পরিচ্ছেদ প্রযোজ্য হইবে।

২ক পরিচ্ছেদ
নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার

নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার
৫৮খ। (১) সংসদ ভাংগিয়া দেওয়ার পর বা মেয়াদ অবসানের কারণে ভংগ হইবার পর যে তারিখে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা কার্যভার গ্রহণ করেন সেই তারিখ হইতে সংসদ গঠিত হওয়ার পর নূতন প্রধানমন্ত্রী তাঁহার পদের কার্যভার গ্রহণ করার তারিখ পর্যন্ত মেয়াদে একটি নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার থাকিবে।

(২) নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার যৌথভাবে রাষ্ট্রপতির নিকট দায়ী থাকিবেন।

(৩) (১) দফায় উল্লেখিত মেয়াদে প্রধান উপদেষ্টা কর্তৃক বা তাঁহার কর্তৃত্বে এই সংবিধান অনুযায়ী প্রজাতন্ত্রের নির্বাহী ক্ষমতা, ৫৮ঘ(১) অনুচ্ছেদের বিধানাবলী সাপেক্ষে প্রযুক্ত হইবে এবং নির্দলীয় তত্ত্ববধায়ক সরকারের পরামর্শ অনুযায়ী তৎকর্তৃক উহা প্রযুক্ত হইবে।

(৪) ৫৫(৪), (৫) ও (৬) অনুচ্ছেদের বিধানাবলী (প্রয়োজনীয় অভিযোজন সহকারে) (১) দফায় উল্লেখিত মেয়াদে একইরূপ বিষয়াবলীর ক্ষেত্রে প্রযুক্ত হইবে।

নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের গঠন, উপদেষ্টাগণের নিয়োগ ইত্যাদি
৫৮গ। (১) প্রধান উপদেষ্টার নেতৃত্বে প্রধান উপদেষ্টা এবং অপর অনধিক দশজন উপদেষ্টার সমন্বয়ে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠিত হইবে, যাহারা রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নিযুক্ত হইবেন।

(২) সংসদ ভাংগিয়া দেওয়ার বা ভংগ হইবার পরবর্তী পনের দিনের মধ্যে প্রধান উপদেষ্টা এবং অন্যান্য উপদেষ্টাগণ নিযুক্ত হইবেন এবং যে তারিখে সংসদ ভাংগিয়া দেওয়া হয় বা ভংগ হয় সেই তারিখ হইতে যে তারিখে প্রধান উপদেষ্টা নিযুক্ত হন সেই তারিখ পর্যন্ত মেয়াদে সংসদ ভাংগিয়া দেওয়ার বা ভংগ হইবার অব্যবহিত পূর্বে দায়িত্ব পালনরত প্রধানমন্ত্রী ও তাঁহার মন্ত্রিসভা তাঁহাদের দায়িত্ব পালন করিতে থাকিবেন।

(৩) রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতিগণের মধ্যে যিনি সর্বশেষে অবসরপ্রাপ্ত হইয়াছেন এবং যিনি এই অনুচ্ছেদের অধীন উপদেষ্টা নিযুক্ত হইবার যোগ্য তাঁহাকে প্রধান উপদেষ্টা নিয়োগ করিবেন:

তবে শর্ত থাকে যে, যদি উক্তরূপ অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতিকে পাওয়া না যায় অথবা তিনি প্রধান উপদেষ্টার পদ গ্রহণে অসম্মত হন, তাহা হইলে রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশের সর্বশেষ অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির অব্যবহিত পূর্বে অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতিকে প্রধান উপদেষ্টা নিয়োগ করিবেন।

(৪) যদি কোন অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতিকে পাওয়া না যায় অথবা তিনি প্রধান উপদেষ্টার পদ গ্রহণে অসম্মত হন, তাহা হইলে রাষ্ট্রপতি আপীল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারকগণের মধ্যে যিনি সর্বশেষে অবসরপ্রাপ্ত হইয়াছেন এবং যিনি এই অনুচ্ছেদের অধীন উপদেষ্টা নিযুক্ত হইবার যোগ্য তাঁহাকে প্রধান উপদেষ্টা নিয়োগ করিবেন:

তবে শর্ত থাকে যে, যদি উক্তরূপ অবসরপ্রাপ্ত বিচারককে পাওয়া না যায় অথবা তিনি প্রধান উপদেষ্টার পদ গ্রহণে অসম্মত হন, তাহা হইলে রাষ্ট্রপতি আপীল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারকগণের মধ্যে সর্বশেষে অবসরপ্রাপ্ত অনুরূপ বিচারকের অব্যবহিত পূর্বে অবসরপ্রাপ্ত বিচারককে প্রধান উপদেষ্টা নিয়োগ করিবেন।

(৫) যদি আপীল বিভাগের কোন অবসরপ্রাপ্ত বিচারককে পাওয়া না যায় অথবা তিনি প্রধান উপদেষ্টার পদ গ্রহণে অসম্মত হন, তাহা হইলে রাষ্ট্রপতি, যতদূর সম্ভব, প্রধান রাজনৈতিক দলসমূহের সহিত আলোচনাক্রমে, বাংলাদেশের যে সকল নাগরিক এই অনুচ্ছেদের অধীনে উপদেষ্টা নিযুক্ত হইবার যোগ্য তাঁহাদের মধ্য হইতে প্রধান উপদেষ্টা নিয়োগ করিবেন।

(৬) এই পরিচ্ছেদে যাহা কিছু থাকুক না কেন, যদি (৩), (৪) ও (৫) দফাসমূহের বিধানাবলীকে কার্যকর করা না যায়, তাহা হইলে রাষ্ট্রপতি এই সংবিধানের অধীন তাঁহার স্বীয় দায়িত্বের অতিরিক্ত হিসাবে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টার দায়িত্ব গ্রহণ করিবেন।

(৭) রাষ্ট্রপতি-

(ক) সংসদ-সদস্য হিসাবে নির্বাচিত হইবার যোগ্য;

(খ) কোন রাজনৈতিক দল অথবা কোন রাজনৈতিক দলের সহিত যুক্ত বা অংগীভূত কোন সংগঠনের সদস্য নহেন;

(গ) সংসদ-সদস্যদের আসন্ন নির্বাচনে প্রার্থী নহেন, এবং প্রার্থী হইবেন না মর্মে লিখিতভাবে সম্মত হইয়াছেন;

(ঘ) বাহাত্তর বৎসরের অধিক বয়স্ক নহেন;

এইরূপ ব্যক্তিগণের মধ্যে হইতে উপদেষ্টা নিয়োগ করিবেন।

(৮) রাষ্ট্রপতি প্রধান উপদেষ্টার পরামর্শ অনুযায়ী উপদেষ্টাগণের নিয়োগদান করিবেন।

(৯) রাষ্ট্রপতির উদ্দেশ্যে স্বহস্তে লিখিত ও স্বাক্ষরযুক্ত পত্রযোগে প্রধান উপদেষ্টা বা কোন উপদেষ্টা স্বীয় পদ ত্যাগ করিতে পারিবেন।

(১০) প্রধান উপদেষ্টা বা কোন উপদেষ্টা এই অনুচ্ছেদের অধীন উক্তরূপ নিয়োগের যোগ্যতা হারাইলে তিনি উক্ত পদে বহাল থাকিবেন না।

(১১) প্রধান উপদেষ্টা প্রধানমন্ত্রীর পদমর্যাদা এবং পারিশ্রমিক ও সুযোগ-সুবিধা লাভ করিবেন এবং উপদেষ্টা মন্ত্রীর পদমর্যাদা এবং পারিশ্রমিক ও সুযোগ-সুবিধা লাভ করিবেন।

(১২) নূতন সংসদ গঠিত হইবার পর প্রধানমন্ত্রী যে তারিখে তাঁহার পদের কার্যভার গ্রহণ করেন সেই তারিখে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার বিলুপ্ত হইবে।

নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কার্যাবলী
৫৮ঘ। (১) নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার একটি অন্তর্বর্তীকালীন সরকার হিসাবে ইহার দায়িত্ব পালন করিবেন এবং প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিয়োজিত ব্যক্তিগণের সাহায্য ও সহায়তায় উক্তরূপ সরকারের দৈনন্দিন কার্যাবলী সম্পাদন করিবেন; এবং এইরূপ কার্যাবলী সম্পাদনের প্রয়োজন ব্যতীত কোন নীতি নির্ধারণী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করিবেন না।

(২) নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার শান্তিপূর্ণ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে সংসদ-সদস্যগণের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য যেরূপ সাহায্য ও সহায়তার প্রয়োজন হইবে, নির্বাচন কমিশনকে সেইরূপ সকল সম্ভাব্য সাহায্য ও সহায়তা প্রদান করিবেন।

সংবিধানের কতিপয় বিধানের অকার্যকরতা
৫৮ঙ। এই সংবিধানের ৪৮(৩), ১৪১ক(১) এবং ১৪১গ(১) অনুচ্ছেদে যাহাই থাকুক না কেন, ৫৮খ অনুচ্ছেদের (১) দফার মেয়াদে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কার্যকালে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ অনুযায়ী বা তাঁহার প্রতিস্বাক্ষর গ্রহণান্তে কার্য করার বিধানসমূহ অকার্যকর হইবে।

৩য় পরিচ্ছেদ
স্থানীয় শাসন

স্থানীয় শাসন

৫৯। (১) আইনানুযায়ী নির্বাচিত ব্যক্তিদের সমন্বয়ে গঠিত প্রতিষ্ঠানসমূহের উপর প্রজাতন্ত্রের প্রত্যেক প্রশাসনিক একাংশের স্থানীয় শাসনের ভার প্রদান করা হইবে।

(২) এই সংবিধান ও অন্য কোন আইন-সাপেক্ষে সংসদ আইনের দ্বারা যেরূপ নির্দিষ্ট করিবেন, এই অনুচ্ছেদের (১) দফায় উল্লিখিত প্রত্যেক প্রতিষ্ঠান যথোপযুক্ত প্রশাসনিক একাংশের মধ্যে সেইরূপ দায়িত্ব পালন করিবেন এবং অনুরূপ আইনে নিম্নলিখিত বিষয় সংক্রান্ত দায়িত্ব অন্তর্ভুক্ত হইতে পারিবে:

(ক) প্রশাসন ও সরকারী কর্মচারীদের কার্য;

(খ) জনশৃংখলা রক্ষা;

(ক) জনসাধারণের কার্য ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন সম্পর্কিত পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন।

স্থানীয় শাসন সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠানের ক্ষমতা
৬০। এই সংবিধানের ৫৯ অনুচ্ছেদের বিধানাবলীকে পূর্ণ কার্যকরতাদানের উদ্দেশ্যে সংসদ আইনের দ্বারা উক্ত অনুচ্ছেদে উল্লিখিত স্থানীয় শাসন সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠানসমূহকে স্থানীয় প্রয়োজনে কর আরোপ করিবার ক্ষমতাসহ বাজেট প্রস্তুতকরণ ও নিজস্ব তহবিল রক্ষণাবেক্ষণের ক্ষমতা প্রদান করিবেন।

৪র্থ পরিচ্ছেদ
প্রতিরক্ষা কর্মবিভাগ

সর্বাধিনায়কতা

৬১। বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা কর্মবিভাগসমূহের সর্বাধিনায়কতা রাষ্ট্রপতির উপর ন্যস্ত হইবে এবং আইনের দ্বারা তাহার প্রয়োগ ২৪ নিয়ন্ত্রিত হইবে এবং যে মেয়াদে ৫৮খ অনুচ্ছেদের অধীন নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার থাকিবে সেই মেয়াদে উক্ত আইন রাষ্ট্রপতি কর্তৃক পরিচালিত হইবে।

প্রতিরক্ষা কর্মবিভাগে ভর্তি প্রভৃতি
৬২। (১) সংসদ আইনের দ্বারা নিম্নলিখিত বিষয়সমূহ নিয়ন্ত্রণ করিবেন:

(ক) বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা কর্মবিভাগসমূহ ও উক্ত কর্মবিভাগসমূহের সংরক্ষিত অংশসমূহ গঠন ও রক্ষণাবেক্ষণ;

(খ) উক্ত কর্মবিভাগসমূহে কমিশন মঞ্জুরী;

(গ) প্রতিরক্ষা-বাহিনীসমূহের প্রধানদের নিয়োগদান ও তাঁহাদের বেতন ও ভাতা-নির্ধারণ; এবং

(ঘ) উক্ত কর্মবিভাগসমূহ ও সংরক্ষিত অংশসমূহ-সংক্রান্ত শৃঙ্খলামূলক ও অন্যান্য বিষয়।

(২) সংসদ আইনের দ্বারা এই অনুচ্ছেদের (১) দফায় বর্ণিত বিষয়সমূহের জন্য বিধান না করা পর্যন্ত অনুরূপ যে সকল বিষয় প্রচলিত আইনের অধীন নহে, রাষ্ট্রপতি আদেশের দ্বারা সেই সকল বিষয়ের জন্য বিধান করিতে পারিবেন।

যুদ্ধ
৬৩। (১) সংসদের সম্মতি ব্যতীত যুদ্ধ ঘোষণা করা যাইবে না কিংবা প্রজাতন্ত্র কোন যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করিবেন না।

২৫ * * *

৫ম পরিচ্ছেদ
অ্যাটর্ণি -জেনারেল

অ্যাটর্ণি-জেনারেল
৬৪। (১) সুপ্রীম কোর্টের বিচারক হইবার যোগ্য কোন ব্যক্তিকে রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশের অ্যাটর্ণি-জেনারেল-পদে নিয়োগদান করিবেন।

(২) অ্যাটর্ণি-জেনারেল রাষ্ট্রপতি কর্তৃক প্রদত্ত সকল দায়িত্ব পালন করিবেন।

(৩) অ্যাটর্ণি-জেনারেলের দায়িত্ব পালনের জন্য বাংলাদেশের সকল আদালতে তাঁহার বক্তব্য পেশ করিবার অধিকার থাকিবে।

(৪) রাষ্ট্রপতির সন্তোষানুযায়ী সময়সীমা পর্যন্ত অ্যাটর্ণি-জেনারেল স্বীয় পদে বহাল থাকিবেন এবং রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নির্ধারিত পারিশ্রমিক লাভ করিবেন।


পঞ্চম ভাগ
আইনসভা

১ম পরিচ্ছেদ
সংসদ

সংসদ-প্রতিষ্ঠা
৬৫। (১) “জাতীয় সংসদ” নামে বাংলাদেশের একটি সংসদ থাকিবে এবং এই সংবিধানের বিধানাবলী-সাপেক্ষে প্রজাতন্ত্রের আইনপ্রণয়ন-ক্ষমতা সংসদের উপর ন্যস্ত হইবে:

তবে শর্ত থাকে যে, সংসদের আইন দ্বারা যে কোন ব্যক্তি বা কর্তৃপক্ষকে আদেশ, বিধি, প্রবিধান, উপ-আইন বা আইনগত কার্যকরতাসম্পন্ন অন্যান্য চুক্তিপত্র প্রণয়নের ক্ষমতার্পণ হইতে এই দফার কোন কিছুই সংসদকে নিবৃত্ত করিবে না।

(২) একক আঞ্চলিক নির্বাচনী এলাকাসমূহ হইতে প্রত্যক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে আইনানুযায়ী নির্বাচিত তিন শত সদস্য লইয়া এবং এই অনুচ্ছেদের (৩) দফার কার্যকরতাকালে উক্ত দফায় বর্ণিত সদস্যদিগকে লইয়া সংসদ গঠিত হইবে; সদস্যগণ সংসদ-সদস্য বলিয়া অভিহিত হইবেন।

২৬ (৩) সংবিধান (চতুর্দশ সংশোধন) আইন, ২০০৪ প্রবর্তনকালে বিদ্যমান সংসদের অব্যবহিত পরবর্তী সংসদের প্রথম বৈঠকের তারিখ হইতে শুরু করিয়া দশ বৎসর কাল অতিবাহিত হইবার অব্যবহিত পরবর্তীকালে সংসদ ভাংগিয়া না যাওয়া পর্যন্ত পঁয়তাল্লিশটি আসন কেবল মহিলা-সদস্যদের জন্য সংরক্ষিত থাকিবে এবং তাঁহারা আইনানুযায়ী পূর্বোক্ত সদস্যদের দ্বারা সংসদে আনুপাতিক প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতির ভিত্তিতে একক হস্তান্তরযোগ্য ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত হইবেন:

তবে শর্ত থাকে যে, এই দফার কোন কিছুই এই অনুচ্ছেদের (২) দফার অধীন কোন আসনে কোন মহিলার নির্বাচন নিবৃত্ত করিবে না।

(৪) রাজধানীতে সংসদের আসন থাকিবে।

সংসদে নির্বাচিত হইবার যোগ্যতা ও অযোগ্যতা
৬৬। (১) কোন ব্যক্তি বাংলাদেশের নাগরিক হইলে এবং তাঁহার বয়স পঁচিশ বৎসর পূর্ণ হইলে এই অনুচ্ছেদের (২) দফায় বর্ণিত বিধান-সাপেক্ষে তিনি সংসদের সদস্য নির্বাচিত হইবার এবং সংসদ-সদস্য থাকিবার যোগ্য হইবেন।

(২) কোন ব্যক্তি সংসদের সদস্য নির্বাচিত হইবার এবং সংসদ-সদস্য থাকিবার যোগ্য হইবেন না, যদি

(ক) কোন উপযুক্ত আদালত তাঁহাকে অপ্রকৃতিস্থ বলিয়া ঘোষণা করেন;

(খ) তিনি দেউলিয়া ঘোষিত হইবার পর দায় হইতে অব্যাহতি লাভ না করিয়া থাকেন;

(গ) তিনি কোন বিদেশী রাষ্ট্রের নাগরিকত্ব অর্জন করেন কিংবা কোন বিদেশী রাষ্ট্রের প্রতি আনুগত্য ঘোষণা বা স্বীকার করেন;

(ঘ) তিনি নৈতিক স্খলনজনিত কোন ফৌজদারী অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হইয়া অনূ্যন দুই বৎসরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হন এবং তাঁহার মুক্তিলাভের পর পাঁচ বৎসরকাল অতিবাহিত না হইয়া থাকে;

২৭ (ঘঘ) আইনের দ্বারা পদাধিকারীকে অযোগ্য ঘোষণা করিতেছে না এমন পদ ব্যতীত তিনি প্রজাতন্ত্রের কর্মে কোন লাভজনক পদে অধিষ্ঠিত থাকেন; অথবা

২৮ * * *

২৯ * * *

(ছ) তিনি কোন আইনের দ্বারা বা অধীন অনুরূপ নির্বাচনের জন্য অযোগ্য হন।

৩০ (২ক) এই অনুচ্ছেদের উদ্দেশ্য সাধনকল্পে কোন ব্যক্তি ৩১ কেবল রাষ্ট্রপতি, ৩২ * * * প্রধানমন্ত্রী, ৩৩ * * * মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী বা উপ-মন্ত্রী হইবার কারণে প্রজাতন্ত্রের কর্মে কোন লাভজনক পদে অধিষ্ঠিত বলিয়া গণ্য হইবেন না।

৩৪ * * *

(৪) কোন সংসদ-সদস্য তাঁহার নির্বাচনের পর এই অনুচ্ছেদের (২) দফায় বর্ণিত অযোগ্যতার অধীন হইয়াছেন কিনা কিংবা এই সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদ অনুসারে কোন সংসদ-সদস্যের আসন শূন্য হইবে কিনা, সে সম্পর্কে কোন বিতর্ক দেখা দিলে শুনানী ও নিষ্পত্তির জন্য প্রশ্নটি নির্বাচন কমিশনের নিকট প্রেরিত হইবে এবং অনুরূপ ক্ষেত্রে কমিশনের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হইবে।

(৫) এই অনুচ্ছেদের (৪) দফার বিধানাবলী যাহাতে পূর্ণ কার্যকরতা লাভ করিতে পারে, সেই উদ্দেশ্যে নির্বাচন কমিশনকে ক্ষমতাদানের জন্য সংসদ যেরূপ প্রয়োজন বোধ করিবেন, আইনের দ্বারা সেইরূপ বিধান করিতে পারিবেন।

সদস্যদের আসন শূন্য হওয়া
৬৭। (১) কোন সংসদ-সদস্যের আসন শূন্য হইবে, যদি

(ক) তাঁহার নির্বাচনের পর সংসদের প্রথম বৈঠকের তারিখ হইতে নব্বই দিনের মধ্যে তিনি তৃতীয় তফসিলে নির্ধারিত শপথ গ্রহণ বা ঘোষণা করিতে ও শপথপত্রে বা ঘোষণাপত্রে স্বাক্ষরদান করিতে অসমর্থ হন:

তবে শর্ত থাকে যে, অনুরূপ মেয়াদ অতিবাহিত হইবার পূর্বে স্পীকার যথার্থ কারণে তাহা বর্ধিত করিতে পারিবেন;

(খ) সংসদের অনুমতি না লইয়া তিনি একাদিক্রমে নব্বই বৈঠক-দিবস অনুপস্থিত থাকেন;

(গ) সংসদ ভাঙ্গিয়া যায়;

(ঘ) তিনি এই সংবিধানের ৬৬ অনুচ্ছেদের (২) দফার অধীন অযোগ্য হইয়া যান; অথবা

(ঙ) এই সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদে বর্ণিত পরিস্থিতির উদ্ভব হয়।

(২) কোন সংসদ-সদস্য স্পীকারের নিকট স্বাক্ষরযুক্ত পত্রযোগে স্বীয় পদ ত্যাগ করিতে পারিবেন, এবং স্পীকার- কিংবা স্পীকারের পদ শূন্য থাকিলে বা অন্য কোন কারণে স্পীকার স্বীয় দায়িত্ব পালনে অসমর্থ হইলে ডেপুটি স্পীকার- যখন উক্ত পত্র প্রাপ্ত হন, তখন হইতে উক্ত সদস্যের আসন শূন্য হইবে।

সংসদ-সদস্যদের ৩৫ পারিশ্রমিক প্রভৃতি
৬৮। সংসদের আইন দ্বারা কিংবা অনুরূপভাবে নির্ধারিত না হওয়া পর্যন্ত রাষ্ট্রপতি কর্তৃক আদেশের দ্বারা যেরূপ নির্ধারিত হইবে, সংসদ-সদস্যগণ সেইরূপ ৩৬ পারিশ্রমিক, ভাতা ও বিশেষ-অধিকার লাভ করিবেন।

শপথ গ্রহণের পূর্বে আসন গ্রহণ বা ভোট দান করিলে সদস্যের অর্থদন্ড
৬৯। কোন ব্যক্তি এই সংবিধানের বিধান অনুযায়ী শপথ গ্রহণ বা ঘোষণা করিবার এবং শপথপত্রে বা ঘোষণাপত্রে স্বাক্ষরদান করিবার পূর্বে কিংবা তিনি সংসদ-সদস্য হইবার যোগ্য নহেন বা অযোগ্য হইয়াছেন জানিয়া সংসদ-সদস্যরূপে আসনগ্রহণ বা ভোটদান করিলে তিনি প্রতি দিনের অনুরূপ কার্যের জন্য প্রজাতন্ত্রের নিকট দেনা হিসাবে উসুলযোগ্য এক হাজার টাকা করিয়া অর্থদণ্ডে দণ্ডনীয় হইবেন।

পদত্যাগ ইত্যাদি কারণে আসন শূন্য হওয়া
৩৭ ৭০। (১) কোন নির্বাচনে কোন রাজনৈতিক দলের প্রার্থীরূপে মনোনীত হইয়া কোন ব্যক্তি সংসদ-সদস্য নির্বাচিত হইলে তিনি যদি উক্ত দল হইতে পদত্যাগ করেন, অথবা সংসদে উক্ত দলের বিপক্ষে ভোটদান করেন, তাহা হইলে সংসদে তাঁহার আসন শূন্য হইবে।

ব্যাখ্যা।- যদি কোন সংসদ-সদস্য, যে দল তাঁহাকে নির্বাচনে প্রার্থীরূপে মনোনীত করিয়াছেন, সেই দলের নির্দেশ অমান্য করিয়া-

(ক) সংসদে উপস্থিত থাকিয়া ভোটদানে বিরত থাকেন, অথবা

(খ) সংসদের কোন বৈঠকে অনুপস্থিত থাকেন,

তাহা হইলে তিনি উক্ত দলের বিপক্ষে ভোটদান করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবেন।

(২) যদি কোন সময় কোন রাজনৈতিক দলের সংসদীয় দলের নেতৃত্ব সম্পর্কে কোন প্রশ্ন উঠে তাহা হইলে সংসদে সেই দলের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের নেতৃত্বের দাবীদার কোন সদস্য কর্তৃক লিখিতভাবে অবহিত হইবার সাত দিনের মধ্যে স্পীকার সংসদের কার্যপ্রণালী-বিধি অনুযায়ী উক্ত দলের সকল সংসদ-সদস্যের সভা আহ্বান করিয়া বিভক্তি ভোটের মাধ্যমে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটের দ্বারা উক্ত দলের সংসদীয় নেতৃত্ব নির্ধারণ করিবেন এবং সংসদে ভোটদানের ব্যাপারে অনুরূপ নির্ধারিত নেতৃত্বের নির্দেশ যদি কোন সদস্য অমান্য করেন তাহা হইলে তিনি (১) দফার অধীন উক্ত দলের বিপক্ষে ভোটদান করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে এবং সংসদে তাঁহার আসন শূন্য হইবে।

(৩) যদি কোন ব্যক্তি নির্দলীয় প্রার্থীরূপে সংসদ-সদস্য নির্বাচিত হইবার পর কোন রাজনৈতিক দলে যোগদান করেন, তাহা হইলে তিনি এই অনুচ্ছেদের উদ্দেশ্য সাধনকল্পে উক্ত দলের প্রার্থীরূপে সংসদ-সদস্য নির্বাচিত হইয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে।

দ্বৈত-সদস্যতায় বাধা
৭১। (১) কোন ব্যক্তি একই সময়ে দুই বা ততোধিক নির্বাচনী এলাকার সংসদ-সদস্য হইবেন না।

(২) কোন ব্যক্তির একই সময়ে দুই বা ততোধিক নির্বাচনী এলাকা হইতে নির্বাচন প্রার্থী হওয়ায় এই অনুচ্ছেদের (১) দফায় বর্ণিত কোন কিছুই প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করিবে না, তবে তিনি যদি একাধিক নির্বাচনী এলাকা হইতে নির্বাচিত হন তাহা হইলে-

(ক) তাঁহার সর্বশেষ নির্বাচনের ত্রিশ দিনের মধ্যে তিনি কোন্ নির্বাচনী এলাকার প্রতিনিধিত্ব করিতে ইচ্ছুক, তাহা জ্ঞাপন করিয়া নির্বাচন কমিশনকে একটি স্বাক্ষরযুক্ত ঘোষণা প্রদান করিবেন এবং তিনি অন্য যে সকল নির্বাচনী এলাকা হইতে নির্বাচিত হইয়াছিলেন, অতঃপর সেই সকল এলাকার আসনসমূহ শূন্য হইবে;

(খ) এই দফার (ক) উপ-দফা মান্য করিতে অসমর্থ হইলে তিনি যে সকল আসনে নির্বাচিত হইয়াছিলেন, সেই সকল আসন শূন্য হইবে; এবং

(গ) এই দফার উপরি-উক্ত বিধানসমূহ যতখানি প্রযোজ্য, ততখানি পালন না করা পর্যন্ত নির্বাচিত ব্যক্তি সংসদ-সদস্যের শপথ গ্রহণ বা ঘোষণা করিতে ও শপথপত্রে বা ঘোষণাপত্রে স্বাক্ষরদান করিতে পারিবেন না।

সংসদের অধিবেশন
৭২। (১) সরকারী বিজ্ঞপ্তি-দ্বারা রাষ্ট্রপতি সংসদ আহ্বান, স্থগিত ও ভঙ্গ করিবেন এবং সংসদ আহ্বানকালে রাষ্ট্রপতি প্রথম বৈঠকের সময় ও স্থান নির্ধারণ করিবেন:

৩৮ তবে শর্ত থাকে যে, সংসদের এক অধিবেশনের সমাপ্তি ও পরবর্তী অধিবেশনের প্রথম বৈঠকের মধ্যে ষাট দিনের অতিরিক্ত বিরতি থাকিবে না:

তবে আরও শর্ত থাকে যে, এই দফার অধীন তাঁহার দায়িত্ব পালনে রাষ্ট্রপতি প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক লিখিতভাবে প্রদত্ত পরামর্শ অনুযায়ী কার্য করিবেন।

(২) এই অনুচ্ছেদের (১) দফার বিধানাবলী সত্ত্বেও সংসদ-সদস্যদের যে কোন সাধারণ নির্বাচনের ফলাফল ঘোষিত হইবার ত্রিশ দিনের মধ্যে বৈঠক অনুষ্ঠানের জন্য সংসদ আহ্বান করা হইবে।

(৩) রাষ্ট্রপতি পূর্বে ভাঙ্গিয়া না দিয়া থাকিলে প্রথম বৈঠকের তারিখ হইতে পাঁচ বৎসর অতিবাহিত হইলে সংসদ ভাঙ্গিয়া যাইবে:

তবে শর্ত থাকে যে, প্রজাতন্ত্র যুদ্ধে লিপ্ত থাকিবার কালে সংসদের আইন-দ্বারা অনুরূপ মেয়াদ এককালে অনধিক এক বৎসর বর্ধিত করা যাইতে পারিবে, তবে যুদ্ধ সমাপ্ত হইলে বর্ধিত মেয়াদ কোনক্রমে ছয় মাসের অধিক হইবে না।

(৪) সংসদ ভঙ্গ হইবার পর এবং সংসদের পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের পূর্বে রাষ্ট্রপতির নিকট যদি সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হয় যে, প্রজাতন্ত্র যে যুদ্ধে লিপ্ত রহিয়াছেন, সেই যুদ্ধাবস্থার বিদ্যমানতার জন্য সংসদ পুনরাহ্বান করা প্রয়োজন, তাহা হইলে যে সংসদ ভাঙ্গিয়া দেওয়া হইয়াছিল, রাষ্ট্রপতি তাহা আহবান করিবেন।

৩৯ * * *

(৫) এই অনুচ্ছেদের (১) দফার বিধানাবলী-সাপেক্ষে কার্যপ্রণালী-বিধি-দ্বারা বা অন্যভাবে সংসদ যেরূপ নির্ধারণ করিবেন, সংসদের বৈঠকসমূহ সেইরূপ সময়ে ও স্থানে অনুষ্ঠিত হইবে।

সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণ ও বাণী
৭৩। (১) রাষ্ট্রপতি সংসদে ভাষণদান এবং বাণী প্রেরণ করিতে পারিবেন।

(২) সংসদ-সদস্যদের প্রত্যেক সাধারণ নির্বাচনের পর প্রথম অধিবেশনের সূচনায় এবং প্রত্যেক বৎসর প্রথম অধিবেশনের সূচনায় রাষ্ট্রপতি সংসদে ভাষণ দান করিবেন।

(৩) রাষ্ট্রপতি কর্তৃক প্রদত্ত ভাষণ শ্রবণ বা প্রেরিত বাণী প্রাপ্তির পর সংসদ উক্ত ভাষণ বা বাণী সম্পর্কে আলোচনা করিবেন।

সংসদ সম্পর্কে মন্ত্রীগণের অধিকার
৪০ ৭৩ক। (১) প্রত্যেক মন্ত্রী সংসদে বক্তৃতা করিতে এবং অন্যভাবে ইহার কার্যাবলীতে অংশগ্রহণ করিতে অধিকারী হইবেন, তবে যদি তিনি সংসদ-সদস্য না হন, তাহা হইলে তিনি ভোটদান করিতে পারিবেন না ৪১ এবং তিনি কেবল তাঁহার মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত বিষয় সম্পর্কে বক্তব্য রাখিতে পারিবেন।

(২) এই অনুচ্ছেদে “মন্ত্রী” বলিতে প্রধানমন্ত্রী ৪২ , ৪৩ * * *, প্রতিমন্ত্রী ও উপ-মন্ত্রী অন্তর্ভুক্ত।

স্পীকার ও ডেপুটি স্পীকার
৭৪। (১) কোন সাধারণ নির্বাচনের পর সংসদের প্রথম বৈঠকে সংসদ-সদস্যদের মধ্য হইতে সংসদ একজন স্পীকার ও একজন ডেপুটি স্পীকার নির্বাচিত করিবেন, এবং এই দুই পদের যে কোনটি শূন্য হইলে সাত দিনের মধ্যে কিংবা ঐ সময়ে সংসদ বৈঠকরত না থাকিলে পরবর্তী প্রথম বৈঠকে তাহা পূর্ণ করিবার জন্য সংসদ-সদস্যদের মধ্য হইতে একজনকে নির্বাচিত করিবেন।

(২) স্পীকার বা ডেপুটি স্পীকারের পদ শূন্য হইবে, যদি

(ক) তিনি সংসদ-সদস্য না থাকেন;

(খ) তিনি মন্ত্রী-পদ গ্রহণ করেন;

(গ) পদ হইতে তাঁহার অপসারণ দাবী করিয়া মোট সংসদ-সদস্যের সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে সমর্থিত কোন প্রস্তাব (প্রস্তাবটি উত্থাপনের অভিপ্রায় জ্ঞাপন করিয়া অন্যূন চৌদ্দ দিনের নোটিশ প্রদানের পর) সংসদে গৃহীত হয়;

(ঘ) তিনি রাষ্ট্রপতির নিকট স্বাক্ষরযুক্ত পত্রযোগে তাঁহার পদ ত্যাগ করেন;

(ঙ) কোন সাধারণ নির্বাচনের পর অন্য কোন সদস্য তাঁহার কার্যভার গ্রহণ করেন; অথবা

(চ) ডেপুটি স্পীকারের ক্ষেত্রে, তিনি স্পীকারের পদে যোগদান করেন।

(৩) স্পীকারের পদ শূন্য হইলে বা তিনি ৪৪ রাষ্ট্রপতিরূপে কার্য করিলে কিংবা অন্য কোন কারণে তিনি স্বীয় দায়িত্ব পালনে অসমর্থ বলিয়া সংসদ নির্ধারণ করিলে স্পীকারের সকল দায়িত্ব ডেপুটি স্পীকার পালন করিবেন, কিংবা ডেপুটি স্পীকারের পদও শূন্য হইলে সংসদের কার্যপ্রণালী-বিধি-অনুযায়ী কোন সংসদ-সদস্য তাহা পালন করিবেন; এবং সংসদের কোন বৈঠকে স্পীকারের অনুপস্থিতিতে ডেপুটি স্পীকার কিংবা ডেপুটি স্পীকারও অনুপস্থিত থাকিলে সংসদের কার্যপ্রণালী-বিধি-অনুযায়ী কোন সংসদ-সদস্য স্পীকারের দায়িত্ব পালন করিবেন।

(৪) সংসদের কোন বৈঠকে স্পীকারকে তাঁহার পদ হইতে অপসারণের জন্য কোন প্রস্তাব বিবেচনাকালে স্পীকার (কিংবা ডেপুটি স্পীকারকে তাঁহার পদ হইতে অপসারণের জন্য কোন প্রস্তাব বিবেচনাকালে ডেপুটি স্পীকার) উপস্থিত থাকিলেও সভাপতিত্ব করিবেন না এবং এই অনুচ্ছেদের (৩) দফায় বর্ণিত ক্ষেত্রমত স্পীকার বা ডেপুটি স্পীকারের অনুপস্থিতিকালীন বৈঠক সম্পর্কে প্রযোজ্য বিধানাবলী অনুরূপ প্রত্যেক বৈঠকের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হইবে।

(৫) স্পীকার বা ডেপুটি স্পীকারের অপসারণের জন্য কোন প্রস্তাব সংসদে বিবেচিত হইবার কালে ক্ষেত্রমত স্পীকার বা ডেপুটি স্পীকারের কথা বলিবার ও সংসদের কার্যধারায় অন্যভাবে অংশগ্রহণের অধিকার থাকিবে এবং তিনি কেবল সদস্যরূপে ভোটদানের অধিকারী হইবেন।

(৬) এই অনুচ্ছেদের (২) দফার বিধানাবলী সত্ত্বেও ক্ষেত্রমত স্পীকার বা ডেপুটি স্পীকার তাঁহার উত্তরাধিকারী কার্যভার গ্রহণ না করা পর্যন্ত স্বীয় পদে বহাল রহিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে।

কার্যপ্রণালী-বিধি, কোরাম প্রভৃতি
৭৫। (১) এই সংবিধান-সাপেক্ষে

(ক) সংসদ কর্তৃক প্রণীত কার্যপ্রণালী-বিধি-দ্বারা এবং অনুরূপ বিধি প্রণীত না হওয়া পর্যন্ত রাষ্ট্রপতি কর্তৃক প্রণীত কার্যপ্রণালী-বিধি-দ্বারা সংসদের কার্যপ্রণালী নিয়ন্ত্রিত হইবে;

(খ) উপস্থিত ও ভোটদানকারী সদস্যদের সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে সংসদে সিদ্ধান্ত গৃহীত হইবে, তবে সমসংখ্যক ভোটের ক্ষেত্র ব্যতীত সভাপতি ভোটদান করিবেন না এবং অনুরূপ ক্ষেত্রে তিনি নির্ণায়ক ভোট প্রদান করিবেন;

(গ) সংসদের কোন সদস্যপদ শূন্য রহিয়াছে, কেবল এই কারণে কিংবা সংসদে উপস্থিত হইবার বা ভোটদানের বা অন্য কোন উপায়ে কার্যধারায় অংশগ্রহণের অধিকার না থাকা সত্ত্বেও কোন ব্যক্তি অনুরূপ কার্য করিয়াছেন, কেবল এই কারণে সংসদের কোন কার্যধারা অবৈধ হইবে না।

(২) সংসদের বৈঠক চলাকালে কোন সময়ে উপস্থিত সদস্য-সংখ্যা ষাটের কম বলিয়া যদি সভাপতির দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়, তাহা হইলে তিনি অনূ্যন ষাট জন সদস্য উপস্থিত না হওয়া বৈঠক স্থগিত রাখিবেন কিংবা মুলতবী করিবেন।

সংসদের স্থায়ী কমিটিসমূহ
৭৬। (১) ৪৫ * * * সংসদ-সদস্যদের মধ্য হইতে সদস্য লইয়া সংসদ নিম্নলিখিত স্থায়ী কমিটিসমূহ নিয়োগ করিবেন:

(ক) সরকারী হিসাব কমিটি;

(খ) বিশেষ-অধিকার কমিটি; এবং

(গ) সংসদের কার্যপ্রণালী-বিধিতে নির্দিষ্ট অন্যান্য স্থায়ী কমিটি।

(২) সংসদ এই অনুচ্ছেদের (১) দফায় উলি্লখিত কমিটিসমূহের অতিরিক্ত অন্যান্য স্থায়ী কমিটি নিয়োগ করিবেন এবং অনুরূপভাবে নিযুক্ত কোন কমিটি এই সংবিধান ও অন্য কোন আইন-সাপেক্ষে

(ক) খসড়া বিল ও অন্যান্য আইনগত প্রস্তাব পরীক্ষা করিতে পারিবেন;

(খ) আইনের বলবৎকরণ পর্যালোচনা এবং অনুরূপ বলবৎকরণের জন্য ব্যবস্থাদি গ্রহণের প্রস্তাব করিতে পারিবেন;

(গ) জনগুরুত্বসম্পন্ন বলিয়া সংসদ কোন বিষয় সম্পর্কে কমিটিকে অবহিত করিলে সেই বিষয়ে কোন মন্ত্রণালয়ের কার্য বা প্রশাসন সম্বন্ধে অনুসন্ধান বা তদন্ত করিতে পারিবেন এবং কোন মন্ত্রণালয়ের নিকট হইতে ক্ষমতাপ্রাপ্ত প্রতিনিধির মাধ্যমে প্রাসঙ্গিক তথ্যাদি সংগ্রহের এবং প্রশ্নাদির মৌখিক বা লিখিত উত্তরলাভের ব্যবস্থা করিতে পারিবেন;

(ঘ) সংসদ কর্তৃক অর্পিত যে কোন দায়িত্ব পালন করিতে পারিবেন।

(৩) সংসদ আইনের দ্বারা এই অনুচ্ছেদের অধীন নিযুক্ত কমিটিসমূহকে

(ক) সাক্ষীদের হাজিরা বলবৎ করিবার এবং শপথ, ঘোষণা বা অন্য কোন উপায়ের অধীন করিয়া তাঁহাদের সাক্ষ্যগ্রহণের;

(খ) দলিলপত্র দাখিল করিতে বাধ্য করিবার;

ক্ষমতা প্রদান করিতে পারিবেন।

ন্যায়পাল

৭৭। (১) সংসদ আইনের দ্বারা ন্যায়পালের পদ-প্রতিষ্ঠার জন্য বিধান করিতে পারিবেন।

(২) সংসদ আইনের দ্বারা ন্যায়পালকে কোন মন্ত্রণালয়, সরকারী কর্মচারী বা সংবিধিবদ্ধ সরকারী কর্তৃপক্ষের যে কোন কার্য সম্পর্কে তদন্ত পরিচালনার ক্ষমতাসহ যেরূপ ক্ষমতা কিংবা যেরূপ দায়িত্ব প্রদান করিবেন, ন্যায়পাল সেইরূপ ক্ষমতা প্রয়োগ ও দায়িত্ব পালন করিবেন।

(৩) ন্যায়পাল তাঁহার দায়িত্বপালন সম্পর্কে বাৎসরিক রিপোর্ট প্রণয়ন করিবেন এবং অনুরূপ রিপোর্ট সংসদে উপস্থাপিত হইবে।

সংসদ ও সদস্যদের বিশেষ অধিকার ও দায়মুক্তি
৭৮। (১) সংসদের কার্যধারার বৈধতা সম্পর্কে কোন আদালতে প্রশ্ন উত্থাপন করা যাইবে না।

(২) সংসদের যে সদস্য বা কর্মচারীর উপর সংসদের কার্যপ্রণালী নিয়ন্ত্রণ, কার্যপরিচালনা বা শৃঙ্খলা রক্ষার ক্ষমতা ন্যস্ত থাকিবে, তিনি সকল ক্ষমতা-প্রয়োগ সম্পর্কিত কোন ব্যাপারে কোন আদালতের এখতিয়ারের অধীন হইবেন না।

(৩) সংসদে বা সংসদের কোন কমিটিতে কিছু বলা বা ভোটদানের জন্য কোন সংসদ-সদস্যের বিরুদ্ধে কোন আদালতে কার্যধারা গ্রহণ করা যাইবে না।

(৪) সংসদ কর্তৃক বা সংসদের কর্তৃত্বে কোন রিপোর্ট, কাগজপত্র, ভোট বা কার্যধারা প্রকাশের জন্য কোন ব্যক্তির বিরুদ্ধে কোন আদালতে কোন কার্যধারা গ্রহণ করা যাইবে না।

(৫) এই অনুচ্ছেদ-সাপেক্ষে সংসদের আইন-দ্বারা সংসদের, সংসদের কমিটিসমূহের এবং সংসদ-সদস্যদের বিশেষ-অধিকার নির্ধারণ করা যাইতে পারিবে।

সংসদ-সচিবালয়
৭৯। (১) সংসদের নিজস্ব সচিবালয় থাকিবে।

(২) সংসদের সচিবালয়ে কর্মচারীদের নিয়োগ ও কর্মের শর্তসমূহ সংসদ আইনের দ্বারা নির্ধারণ করিতে পারিবেন।

(৩) সংসদ কর্তৃক বিধান প্রণীত না হওয়া পর্যন্ত স্পীকারের সহিত পরামর্শক্রমে রাষ্ট্রপতি সংসদের সচিবালয়ে কর্মচারীদের নিয়োগ ও কর্মের শর্তসমূহ নির্ধারণ করিয়া বিধি প্রণয়ন করিতে পারিবেন এবং অনুরূপভাবে প্রণীত বিধিসমূহ যে কোন আইনের বিধান-সাপেক্ষে কার্যকর হইবে।

২য় পরিচ্ছেদ
আইন প্রনয়ন ও অর্থসংক্রান্ত পদ্ধতি

আইন প্রণয়ন পদ্ধতি
৮০। (১) আইনপ্রণয়নের উদ্দেশ্যে সংসদে আনীত প্রত্যেকটি প্রস্তাব বিল আকারে উত্থাপিত হইবে।

(২) সংসদ কর্তৃক কোন বিল গৃহীত হইলে সম্মতির জন্য তাহা রাষ্ট্রপতির নিকট পেশ করিতে হইবে।

(৩) রাষ্ট্রপতির নিকট কোন বিল পেশ করিবার পর পনর দিনের মধ্যে তিনি তাহাতে সম্মতিদান করিবেন ৪৬ * * * কিংবা অর্থবিল ব্যতীত অন্য কোন বিলের ক্ষেত্রে বিলটি বা তাহার কোন বিশেষ বিধান পুনর্বিবেচনার কিংবা রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নির্দেশিত কোন সংশোধনী বিবেচনার অনুরোধ জ্ঞাপন করিয়া একটি বার্তাসহ তিনি বিলটি সংসদে ফেরত দিতে পারিবেন; এবং রাষ্ট্রপতি তাহা করিতে অসমর্থ হইলে উক্ত মেয়াদের অবসানে তিনি বিলটিতে সম্মতিদান করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে।

(৪) রাষ্ট্রপতি যদি বিলটি অনুরূপভাবে সংসদে ফেরত পাঠান, তাহা হইলে সংসদ রাষ্টপতির বার্তাসহ তাহা পুনর্বিবেচনা করিবেন; এবং সংশোধনীসহ বা সংশোধনী ব্যতিরেকে ৪৭ মোট সংসদ-সদস্যের সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটের দ্বারা সংসদ পুনরায় বিলটি গ্রহণ করিলে সম্মতির জন্য তাহা রাষ্ট্রপতির নিকট উপস্থাপিত হইবে এবং অনুরূপ উপস্থাপনের সাত দিনের মধ্যে তিনি বিলটিতে সম্মতিদান করিবেন; এবং রাষ্ট্রপতি তাহা করিতে অসমর্থ হইলে উক্ত মেয়াদের অবসানে তিনি বিলটিতে সম্মতিদান করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে।

(৫) সংসদ কর্তৃক গৃহীত বিলটিতে রাষ্ট্রপতি সম্মতিদান করিলে বা তিনি সম্মতিদান করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইলে তাহা আইনে পরিণত হইবে এবং সংসদের আইন বলিয়া অভিহিত হইবে।

অর্থবিল
৮১। (১) এই ভাগে “অর্থবিল” বলিতে কেবল নিম্নলিখিত বিষয়সমূহের সকল বা যে কোন একটি সম্পর্কিত বিধানাবলী-সংবলিত বিল বুঝাইবে:

(ক) কোন কর আরোপ, নিয়ন্ত্রণ, রদবদল, মওকুফ বা রহিতকরণ;

(খ) সরকার কর্তৃক ঋণগ্রহণ বা কোন গ্যারান্টিদান, কিংবা সরকারের আর্থিক দায়-দায়িত্ব সম্পর্কিত আইন সংশোধন;

(গ) সংযুক্ত তহবিলের রক্ষণাবেক্ষণ, অনুরূপ তহবিলে অর্থপ্রদান বা অনুরূপ তহবিল হইতে অর্থ দান বা নির্দিষ্টকরণ;

(ঘ) সংযুক্ত তহবিলের উপর দায় আরোপ কিংবা অনুরূপ কোন দায় রদবদল বা বিলোপ;

(ঙ) সংযুক্ত তহবিল বা প্রজাতন্ত্রের সরকারী হিসাব বাবদ অর্থপ্রাপ্তি, কিংবা অনুরূপ অর্থ রক্ষণাবেক্ষণ বা দান, কিংবা সরকারের হিসাব-নিরীক্ষা;

(চ) উপরি-উক্ত উপ-দফাসমূহে নির্ধারিত যে কোন বিষয়ের অধীন কোন আনুষঙ্গিক বিষয়।

(২) কোন জরিমানা বা অন্য অর্থদণ্ড আরোপ বা রদবদল, কিংবা লাইসেন্স-ফি বা কোন কার্যের জন্য ফি বা উসুল আরোপ বা প্রদান কিংবা স্থানীয় উদ্দেশ্যসাধনকল্পে কোন স্থানীয় কর্তৃপক্ষ বা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক কোন কর আরোপ, নিয়ন্ত্রণ, রদবদল, মওকুফ বা রহিতকরণের বিধান করা হইয়াছে, কেবল এই কারণে কোন বিল অর্থবিল বলিয়া গণ্য হইবে না।

(৩) রাষ্ট্রপতির সম্মতির জন্য তাঁহার নিকট পেশ করিবার সময়ে প্রত্যেক অর্থবিলে স্পীকারের স্বাক্ষরে এই মর্মে একটি সার্টিফিকেটে থাকিবে যে, তাহা একটি অর্থবিল, এবং অনুরূপ সার্টিফিকেট সকল বিষয়ে চূড়ান্ত হইবে এবং সেই সম্পর্কে কোন আদালতে প্রশ্ন উত্থাপন করা যাইবে না।

আর্থিক ব্যবস্থাবলীর সুপারিশ
৮২। ৪৮ কোন অর্থ বিল, অথবা সরকারী অর্থ ব্যয়ের প্রশ্ন জড়িত রহিয়াছে এমন কোন বিল রাষ্ট্রপতির সুপারিশ ব্যতীত সংসদে উত্থাপন করা যাইবে না:

তবে শর্ত থাকে যে, কোন কর হ্রাস বা বিলোপের বিধান-সংবলিত কোন সংশোধনী উত্থাপনের জন্য এই অনুচ্ছেদের অধীন সুপারিশের প্রয়োজন হইবে না।

সংসদের আইন ব্যতীত করারোপে বাধা
৮৩। সংসদের কোন আইনের দ্বারা বা কর্তৃত্ব ব্যতীত কোন কর আরোপ বা সংগ্রহ করা যাইবে না।

সংযুক্ত তহবিল ও প্রজাতন্ত্রের সরকারী হিসাব
৮৪। (১) সরকার কর্তৃক প্রাপ্ত সকল রাজস্ব, সরকার কর্তৃক সংগৃহীত সকল ঋণ এবং কোন ঋণ পরিশোধ হইতে সরকার কর্তৃক প্রাপ্ত সকল অর্থ একটি মাত্র তহবিলের অংশে পরিণত হইবে এবং তাহা “সংযুক্ত তহবিল” নামে অভিহিত হইবে।

(২) সরকার কর্তৃক বা সরকারের পক্ষে প্রাপ্ত অন্য সকল সরকারী অর্থ প্রজাতন্ত্রের সরকারী হিসাবে জমা হইবে।

সরকারী অর্থের নিয়ন্ত্রণ
৮৫। সরকারী অর্থের রক্ষণাবেক্ষণ, ক্ষেত্রমত সংযুক্ত তহবিলে অর্থ প্রদান বা তাহা হইতে অর্থ প্রত্যাহার কিংবা প্রজাতন্ত্রের সরকারী হিসাবে অর্থ প্রদান বা তাহা হইতে অর্থ প্রত্যাহার এবং উপরি-উক্ত বিষয়সমূহের সহিত সংশ্লিষ্ট বা আনুষঙ্গিক সকল বিষয় সংসদের আইন-দ্বারা এবং অনুরূপ আইনের বিধান না হওয়া পর্যন্ত রাষ্ট্রপতি কর্তৃক প্রণীত বিধিসমূহ-দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হইবে।

প্রজাতন্ত্রের সরকারী হিসাবে প্রদেয় অর্থ
৮৬। প্রজাতন্ত্রের সরকারী হিসাবে জমা হইবে-

(ক) রাজস্ব কিংবা এই সংবিধানের ৮৪ অনুচ্ছেদের (১) দফার কারণে যেরূপ অর্থ সংযুক্ত তহবিলের অংশে পরিণত হইবে, তাহা ব্যতীত প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত কিংবা প্রজাতন্ত্রের বিষয়াবলীর সহিত সংশ্লিষ্ট কোন ব্যক্তি কর্তৃক প্রাপ্ত বা ব্যক্তির নিকট জমা রহিয়াছে, এইরূপ সকল অর্থ; অথবা

(খ) যে কোন মোকদ্দমা, বিষয়, হিসাব বা ব্যক্তি বাবদ যে কোন আদালত কর্তৃক প্রাপ্ত বা আদালতের নিকট জমা রহিয়াছে, এইরূপ সকল অর্থ।

বার্ষিক আর্থিক বিবৃতি
৮৭। (১) প্রত্যেক অর্থ-বৎসর সম্পর্কে উক্ত বৎসরের জন্য সরকারের অনুমিত আয় ও ব্যয়-সংবলিত একটি বিবৃতি (এই ভাগে “বার্ষিক আর্থিক বিবৃতি” নামে অভিহিত) সংসদে উপস্থাপিত হইবে।

(২) বার্ষিক আর্থিক বিবৃতিতে পৃথক পৃথকভাবে

(ক) এই সংবিধানের দ্বারা বা অধীন সংযুক্ত তহবিলের উপর দায়রূপে বর্ণিত ব্যয় নির্বাহের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ, এবং

(খ) সংযুক্ত তহবিল হইতে ব্যয় করা হইবে, এইরূপ প্রস্তাবিত অন্যান্য ব্যয় নির্বাহের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ,

প্রদর্শিত হইবে এবং অন্যান্য ব্যয় হইতে রাজস্ব খাতের ব্যয় পৃথক করিয়া প্রদর্শিত হইবে।

সংযুক্ত তহবিলের উপর দায়
৮৮। সংযুক্ত তহবিলের উপর দায়যুক্ত ব্যয় নিম্নরূপ হইবে:

(ক) রাষ্ট্রপতিকে দেয় পারিশ্রমিক ও তাঁহার দপ্তর-সংশ্লিষ্ট অন্যান্য ব্যয়;

৪৯ * * *

(খ) (অ) স্পীকার ও ডেপুটি স্পীকার,

(আ) সুপ্রীম কোর্টের বিচারকগণ,

(ই) মহা হিসাব-নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক,

(ঈ) নির্বাচন কমিশনারগণ,

(উ) সরকারী কর্ম কমিশনের সদস্যদিগকে,

দেয় পারিশ্রমিক;

(গ) সংসদ, সুপ্রীম কোর্ট, মহা হিসাব-নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রকের দপ্তর, নির্বাচন কমিশন এবং সরকারী কর্ম কমিশনের কর্মচারীদিগকে দেয় পারিশ্রমিকসহ প্রশাসনিক ব্যয়;

(ঘ) সুদ, পরিশোধ-তহবিলের দায়, মূলধন পরিশোধ বা তাহার ক্রম-পরিশোধ এবং ঋণসংগ্রহ-ব্যপদেশে ও সংযুক্ত তহবিলের জামানতে গৃহীত ঋণের মোচন-সংক্রান্ত অন্যান্য ব্যয়সহ সরকারের ঋণ-সংক্রান্ত সকল দেনার দায়;

(ঙ) কোন আদালত বা ট্রাইব্যুনাল কর্তৃক প্রজাতন্ত্রের বিরুদ্ধে প্রদত্ত কোন রায়, ডিক্রী বা রোয়েদাদ কার্যকর করিবার জন্য প্রয়োজনীয় যে কোন পরিমাণ অর্থ; এবং

(চ) এই সংবিধান বা সংসদের আইন দ্বারা অনুরূপ দায়যুক্ত বলিয়া ঘোষিত অন্য যে কোন ব্যয়।

বার্ষিক আর্থিক বিবৃতি সম্পর্কিত পদ্ধতি
৮৯। (১) সংযুক্ত তহবিলের দায়যুক্ত ব্যয়-সম্পর্কিত বার্ষিক আর্থিক বিবৃতির অংশ সংসদে আলোচনা করা হইবে, কিন্তু তাহা ভোটের আওতাভুক্ত হইবে না।

(২) অন্যান্য ব্যয়-সম্পর্কিত বার্ষিক আর্থিক বিবৃতির অংশ মঞ্জুরী-দাবীর আকারে সংসদে উপস্থাপিত হইবে এবং কোন মঞ্জুরী-দাবীতে সম্মতিদানের বা সম্মতিদানে অস্বীকৃতির কিংবা মঞ্জুরী-দাবীতে নির্ধারিত অর্থ হ্রাস-সাপেক্ষে তাহাতে সম্মতিদানের ক্ষমতা সংসদের থাকিবে।

(৩) রাষ্ট্রপতির সুপারিশ ব্যতীত কোন মঞ্জুরী দাবী করা যাইবে না।

নির্দিষ্টকরণ আইন
৯০। (১) সংসদ কর্তৃক এই সংবিধানের ৮৯ অনুচ্ছেদের অধীন মঞ্জুরী-দানের পর সংযুক্ত তহবিল হইতে নিম্নলিখিত ব্যয় নির্বাহের জন্য প্রয়োজনীয় সকল অর্থ নির্দিষ্টকরণের বিধান-সংবলিত একটি বিল যথাশীঘ্র সংসদে উত্থাপন করা হইবে:

(ক) সংসদ কর্তৃক প্রদত্ত অনুরূপ মঞ্জুরী; এবং

(খ) সংসদে উপস্থাপিত বিবৃতিতে প্রদর্শিত অর্থের অনধিক সংযুক্ত তহবিলের দায়যুক্ত ব্যয়।

(২) অনুরূপ কোন বিল সম্পর্কে সংসদে এমন কোন সংশোধনীর প্রস্তাব করা হইবে না, যাহার ফলে অনুরূপভাবে প্রদত্ত কোন মঞ্জুরীর পরিমাণ বা উদ্দেশ্য কিংবা সংযুক্ত তহবিলের উপর দায়যুক্ত ব্যয়ের পরিমাণ পরিবর্তিত হইয়া যায়।

(৩) এই সংবিধানের বিধানাবলী-সাপেক্ষে সংযুক্ত তহবিল হইতে এই অনুচ্ছেদের বিধানাবলী অনুযায়ী গৃহীত আইনের দ্বারা নির্দিষ্টকরণ ব্যতীত কোন অর্থ প্রত্যাহার করা হইবে না।

সম্পূরক ও অতিরিক্ত মঞ্জুরী
৯১। কোন অর্থ-বৎসর প্রসঙ্গে যদি দেখা যায় যে,

(ক) চলিত অর্থ-বৎসরে নির্দিষ্ট কোন কর্মবিভাগের জন্য অনুমোদিত ব্যয় অপর্যাপ্ত হইয়াছে কিংবা ঐ বৎসরের বার্ষিক আর্থিক বিবৃতিতে অন্তর্ভুক্ত হয় নাই, এমন কোন নূতন কর্মবিভাগের জন্য ব্যয় নির্বাহের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়াছে, অথবা

(খ) কোন অর্থ-বৎসরে কোন কর্মবিভাগের জন্য মঞ্জুরীকৃত অর্থের অধিক অর্থ ঐ বৎসরে উক্ত কর্মবিভাগের জন্য ব্যয়িত হইয়াছে,

তাহা হইলে এই সংবিধানের দ্বারা বা অধীন সংযুক্ত তহবিলের উপর ইহাকে দায়যুক্ত করা হউক বা না হউক, সংযুক্ত তহবিল হইতে এই ব্যয় নির্বাহের কর্তৃত্ব প্রদান করিবার ক্ষমতা রাষ্ট্রপতির থাকিবে এবং রাষ্ট্রপতি ক্ষেত্রমত এই ব্যয়ের অনুমিত পরিমাণ-সংবলিত একটি সম্পূরক আর্থিক বিবৃতি কিংবা অতিরিক্ত ব্যয়ের পরিমাণ সংবলিত একটি অতিরিক্ত আর্থিক বিবৃতি সংসদে উপস্থাপনের ব্যবস্থা করিবেন এবং বার্ষিক আর্থিক বিবৃতির ন্যায় উপরি-উক্ত বিবৃতির ক্ষেত্রে (প্রয়োজনীয় উপযোগীকরণসহ) এই সংবিধানের ৮৭ হইতে ৯০ পর্যন্ত অনুচ্ছেদসমূহ প্রযোজ্য হইবে।

হিসাব, ঋণ প্রভৃতির উপর ভোট
৯২। (১) এই পরিচ্ছেদের উপরি-উক্ত বিধানাবলীতে যাহা বলা হইয়াছে, তাহা সত্ত্বেও

(ক) মঞ্জুরীর উপর ভোটদান সম্পর্কে এই সংবিধানের ৮৯ অনুচ্ছেদে নির্ধারিত পদ্ধতি সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত এবং ঐ ব্যয় সম্পর্কিত ৯০ অনুচ্ছেদের বিধানাবলী অনুযায়ী আইন গৃহীত না হওয়া পর্যন্ত কোন অর্থ বৎসরের কোন অংশের জন্য অনুমিত ব্যয়ের অগ্রিম মঞ্জুরীদানের ক্ষমতা সংসদের থাকিবে;

(খ) কোন কার্যের বিশালতা বা অনির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্যের জন্য বার্ষিক আর্থিক বিবৃতিতে সাধারণভাবে প্রদত্ত বিস্তারিত বৃত্তান্তের সহিত অনুরূপ কার্য-সংক্রান্ত ব্যয়দাবী নির্ধারিত করা সম্ভব না হইলে প্রজাতন্ত্রের সম্পদ হইতে অনুরূপ অপ্রত্যাশিত ব্যয়নির্বাহের জন্য মঞ্জুরীদানের ক্ষমতা সংসদের থাকিবে;

(গ) কোন অর্থ-বৎসরের চলিত ব্যয়ের অংশ নয়, এইরূপ ব্যতিক্রমী মঞ্জুরীদানের ক্ষমতা সংসদের থাকিবে;

এবং যে উদ্দেশ্যে অনুরূপ মঞ্জুরীদান করা হইয়াছে, তাহা সাধনকল্পে সংযুক্ত তহবিল হইতে আইনের দ্বারা অর্থ প্রত্যাহারের কর্তৃত্ব প্রদানের ক্ষমতা সংসদের থাকিবে।

(২) বার্ষিক আর্থিক বিবৃতিতে উল্লিখিত কোন ব্যয়-সম্পর্কিত মঞ্জুরীদানের ক্ষেত্রে এবং অনুরূপ ব্যয় নির্বাহের উদ্দেশ্যে সংযুক্ত তহবিল হইতে অর্থ নির্দিষ্টকরণের কর্তৃত্ব প্রদানের জন্য প্রণীতব্য আইনের ক্ষেত্রে এই সংবিধানের ৮৯ ও ৯০ অনুচ্ছেদের বিধানাবলী যেরূপ সক্রিয় হইবে, বর্তমান অনুচ্ছেদের (১) দফার অধীন কোন মঞ্জুরীদানের ক্ষেত্রে এবং ঐ দফার অধীন প্রণীতব্য কোন আইনের ক্ষেত্রেও উক্ত অনুচ্ছেদদ্বয় সমভাবে কার্যকর হইবে।

৫০ (৩) এই পরিচ্ছেদের উপরি-উক্ত বিধানাবলীতে যাহা বলা হইয়াছে, তাহা সত্ত্বেও যদি কোন অর্থ-বৎসর প্রসঙ্গের সংসদ-

(ক) উক্ত বৎসর আরম্ভ হওয়ার পূর্বে এই সংবিধানের ৮৯ অনুচ্ছেদের অধীন মঞ্জুরীদান এবং ৯০ অনুচ্ছেদের অধীন আইন গ্রহণে অসমর্থ হইয়া থাকে এবং এই অনুচ্ছেদের অধীন কোন অগ্রিম মঞ্জুরীদান না করিয়া থাকে; অথবা

(খ) কোন ক্ষেত্রে এই অনুচ্ছেদের অধীন কোন মেয়াদের জন্য কোন অগ্রিম মঞ্জুরী দেওয়া হইয়া থাকিলে সেই মেয়াদ উত্তীর্ণ হইবার পূর্বে ৮৯ অনুচ্ছেদের অধীন মঞ্জুরীদানে এবং ৯০ অনুচ্ছেদের অধীন আইন গ্রহণে অসমর্থ হইয়া থাকে,

তাহা হইলে রাষ্ট্রপতি প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শক্রমে, আদেশের দ্বারা অনুরূপ মঞ্জুরীদান না করা এবং আইন গৃহীত না হওয়া পর্যন্ত, ঐ বৎসরের অনধিক ষাট দিন মেয়াদ পর্যন্ত উক্ত বৎসরের আর্থিক বিবৃতিতে উল্লিখিত ব্যয় নির্বাহের জন্য সংযুক্ত তহবিল হইতে অর্থ প্রত্যাহারের কর্তৃত্ব প্রদান করিতে পারিবেন।

৫১ বিলুপ্ত
৯২ক। ৫২ কতিপয় ক্ষেত্রে ব্যয়ের কর্তৃত্ব প্রদান- সংবিধান (দ্বাদশ সংশোধন) আইন, ১৯৯১ (১৯৯১ সনের ২৮ নং আইন)- এর ১০ ধারাবলে বিলুপ্ত।

৩য় পরিচ্ছেদ
অধ্যাদেশপ্রণয়ন-ক্ষমতা

অধ্যাদেশপ্রণয়ন-ক্ষমতা
৯৩। (১) ৫৩ সংসদ ভাঙ্গিয়া যাওয়া অবস্থায় অথবা উহার অধিবেশনকাল ব্যতীত কোন সময়ে রাষ্ট্রপতির নিকট আশু ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রয়োজনীয় পরিস্থিতি বিদ্যমান রহিয়াছে বলিয়া সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হইলে তিনি উক্ত পরিস্থিতিতে যেরূপ প্রয়োজনীয় বলিয়া মনে করিবেন, সেইরূপ অধ্যাদেশ প্রণয়ন ও জারী করিতে পারিবেন এবং জারী হইবার সময় হইতে অনুরূপভাবে প্রণীত অধ্যাদেশ সংসদের আইনের ন্যায় ক্ষমতাসম্পন্ন হইবে:

তবে শর্ত থাকে যে, এই দফার অধীন কোন অধ্যাদেশে এমন কোন বিধান করা হইবে না,

(ক) যাহা এই সংবিধানের অধীন সংসদের আইন-দ্বারা আইনসঙ্গতভাবে করা যায় না;

(খ) যাহাতে এই সংবিধানের কোন বিধান পরিবর্তিত বা রহিত হইয়া যায়; অথবা

(খ) যাহার দ্বারা পূর্বে প্রণীত কোন অধ্যাদেশের যে কোন বিধানকে অব্যাহতভাবে বলবৎ করা যায়।

(২) এই অনুচ্ছেদের (১) দফার অধীন প্রণীত কোন অধ্যাদেশ জারী হইবার পর অনুষ্ঠিত সংসদের প্রথম বৈঠকে তাহা উপস্থাপিত হইবে এবং ইতঃপূর্বে বাতিল না হইয়া থাকিলে অধ্যাদেশটি অনুরূপভাবে উপস্থাপনের পর ত্রিশ দিন অতিবাহিত হইলে কিংবা অনুরূপ মেয়াদ উত্তীর্ণ হইবার পূর্বে তাহা অননুমোদন করিয়া সংসদে প্রস্তাব গৃহীত হইলে অধ্যাদেশটির কার্যকরতা লোপ পাইবে।

(৩) সংসদ ভাঙ্গিয়া যাওয়া অবস্থা কোন সময়ে রাষ্ট্রপতির নিকট ব্যবস্থা-গ্রহণের জন্য প্রয়োজনীয় পরিস্থিতি বিদ্যমান রহিয়াছে বলিয়া সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হইলে তিনি এমন অধ্যাদেশ প্রণয়ন ও জারী করিতে পারিবেন, যাহাতে সংবিধান-দ্বারা সংযুক্ত তহবিলের উপর কোন ব্যয় দায়যুক্ত হউক বা না হউক, উক্ত তহবিল হইতে সেইরূপ ব্যয়নির্বাহের কতর্ৃত্ব প্রদান করা যাইবে এবং অনুরূপভাবে প্রণীত কোন অধ্যাদেশ জারী হইবার সময় হইতে তাহা সংসদের আইনের ন্যায় ক্ষমতাসম্পন্ন হইবে।

(৪) এই অনুচ্ছেদের (৩) দফার অধীন জারীকৃত প্রত্যেক অধ্যাদেশ যথাশীঘ্র সংসদে উপস্থাপিত হইবে এবং সংসদ পুনর্গঠিত হইবার তারিখ হইতে ত্রিশ দিনের মধ্যে এই সংবিধানের ৮৭, ৮৯ ও ৯০ অনুচ্ছেদসমূহের বিধানাবলী প্রয়োজনীয় উপযোগীকরণসহ পালিত হইবে।

ষষ্ঠ ভাগ
বিচারবিভাগ
১ম পরিচ্ছেদ
সুপ্রীম কোর্ট

সুপ্রীম কোর্ট প্রতিষ্ঠা
৯৪। (১) “বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট” নামে বাংলাদেশের একটি সর্বোচ্চ আদালত থাকিবে এবং আপীল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগ লইয়া তাহা গঠিত হইবে।

(২) প্রধান বিচারপতি (যিনি “বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি” নামে অভিহিত হইবেন) এবং প্রত্যেক বিভাগে আসন গ্রহণের জন্য রাষ্ট্রপতি যেরূপ সংখ্যক বিচারক নিয়োগের প্রয়োজন বোধ করিবেন, সেইরূপ সংখ্যক অন্যান্য বিচারক লইয়া সুপ্রীম কোর্ট গঠিত হইবে।

(৩) প্রধান বিচারপতি ও আপীল বিভাগে নিযুক্ত বিচারকগণ কেবল উক্ত বিভাগে এবং অন্যান্য বিচারক কেবল হাইকোর্ট বিভাগে আসন গ্রহণ করিবেন।

(৪) এই সংবিধানের বিধানাবলী-সাপেক্ষে প্রধান বিচারপতি এবং অন্যান্য বিচারক বিচারকার্য পালনের ক্ষেত্রে স্বাধীন থাকিবেন।

বিচারক নিয়োগ

৯৫। ৫৪ (১) প্রধান বিচারপতি এবং অন্যান্য বিচারকগণ রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নিযুক্ত হইবেন।

৫৫ (২) কোন ব্যক্তি বাংলাদেশের নাগরিক না হইলে, এবং-

(ক) সুপ্রীম কোর্টে অন্যূন দশ বৎসরকাল এ্যাডভোকেট না থাকিয়া থাকিলে; অথবা

(খ) বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় সীমানার মধ্যে অন্যূন দশ বৎসরকাল কোন বিচার বিভাগীয় পদে অধিষ্ঠান না করিয়া থাকিলে; অথবা

(গ) সুপ্রীম কোর্টের বিচারক পদে নিয়োগ লাভের জন্য আইনের দ্বারা নির্ধারিত অন্যান্য যোগ্যতা না থাকিয়া থাকিলে;

তিনি বিচারকপদে নিয়োগ লাভের যোগ্য হইবেন না।

(৩) এই অনুচ্ছেদে “সুপ্রীম কোর্ট” বলিতে ১৯৭৭ সালের দ্বিতীয় ফরমান (দশম সংশোধন) আদেশ প্রবর্তনের পূর্বে যে কোন সময়ে বর্তমানে বাংলাদেশের অন্তর্ভুক্ত এলাকার মধ্যে যে আদালত হাইকোর্ট অথবা সুপ্রীম কোর্ট হিসাবে এখতিয়ার প্রয়োগ করিয়াছেন সেই আদালত অন্তর্ভুক্ত হইবে।

বিচারকের পদের মেয়াদ
৫৬ ৯৬। (১) এই অনুচ্ছেদের অন্যান্য বিধানাবলী সাপেক্ষে, কোন বিচারক ৫৭ সাতষট্টি বৎসর বয়স পূর্ণ হওয়া পর্যন্ত স্বীয় পদে বহাল থাকিবেন।

(২) এই অনুচ্ছেদের নিম্নরূপ বিধানাবলী অনুযায়ী ব্যতীত কোন বিচারককে তাঁহার পদ হইতে অপসারিত করা যাইবে না।

(৩) একটি সুপ্রীম জুডিশিয়াল কাউন্সিল থাকিবে যাহা এই অনুচ্ছেদে “কাউন্সিল” বলিয়া উল্লিখিত হইবে এবং বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি এবং অন্যান্য বিচারকের মধ্যে পরবর্তী যে দুইজন কর্মে প্রবীন তাঁহাদের লইয়া গঠিত হইবে:

তবে শর্ত থাকে যে, কাউন্সিল যদি কোন সময়ে কাউন্সিলের সদস্য এইরূপ কোন বিচারকের সামর্থ্য বা আচরণ সম্পর্কে তদন্ত করেন, অথবা কাউন্সিলের কোন সদস্য যদি অনুপস্থিত থাকেন অথবা অসুস্থতা কিংবা অন্য কোন কারণে কার্য করিতে অসমর্থ হন তাহা হইলে কাউন্সিলের যাঁহারা সদস্য আছেন তাঁহাদের পরবর্তী যে বিচারক কর্মে প্রবীণ তিনিই অনুরূপ সদস্য হিসাবে কার্য করিবেন।

(৪) কাউন্সিলের দায়িত্ব হইবে-

(ক) বিচারকগণের জন্য পালনীয় আচরণ বিধি নির্ধারণ করা, এবং

(খ) কোন বিচারকের অথবা কোন বিচারক যেরূপ পদ্ধতিতে অপসারিত হইতে পারেন সেইরূপ পদ্ধতি ব্যতীত তাঁহার পদ হইতে অপসারণ যোগ্য নহেন এইরূপ অন্য কোন কর্মকর্তার সামর্থ্য বা আচরণ সম্পর্কে তদন্ত করা।

(৫) যে ক্ষেত্রে কাউন্সিল অথবা অন্য কোন সূত্র হইতে প্রাপ্ত তথ্যে রাষ্ট্রপতির এইরূপ বুঝিবার কারণ থাকে যে কোন বিচারক-

(ক) শারীরিক বা মানসিক অসামর্থ্যের কারণে তাঁহার পদের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করিতে অযোগ্য হইয়া পড়িতে পারেন, অথবা

(খ) গুরুতর অসদাচরণের জন্য দোষী হইতে পারেন, সেইক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতি কাউন্সিলকে বিষয়টি সম্পর্কে তদন্ত করিতে ও উহার তদন্তফল জ্ঞাপন করিবার জন্য নির্দেশ দিতে পারেন।

(৬) কাউন্সিল তদন্ত করিবার পর রাষ্ট্রপতির নিকট যদি এইরূপ রিপোর্ট করেন যে, উহার মতে উক্ত বিচারক তাঁহার পদের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালনে অযোগ্য হইয়া পড়িয়াছেন অথবা গুরুতর অসদাচরণের জন্য দোষী হইয়াছেন তাহা হইলে রাষ্ট্রপতি আদেশের দ্বারা উক্ত বিচারককে তাঁহার পদ হইতে অপসারিত করিবেন।

(৭) এই অনুচ্ছেদের অধীনে তদন্তের উদ্দেশ্যে কাউন্সিল স্বীয় কার্য-পদ্ধতি নিয়ন্ত্রণ করিবেন এবং পরওয়ানা জারী ও নির্বাহের ব্যাপারে সুপ্রীম কোর্টের ন্যায় উহার একই ক্ষমতা থাকিবে।

(৮) কোন বিচারক রাষ্ট্রপতিকে উদ্দেশ করিয়া স্বাক্ষরযুক্ত পত্রযোগে স্বীয় পদ ত্যাগ করিতে পারিবেন।

অস্থায়ী প্রধান বিচারপতি নিয়োগ
৯৭। প্রধান বিচারপতির পদ শূন্য হইলে কিংবা অনুপস্থিতি, অসুস্থতা বা অন্য কোন কারণে প্রধান বিচারপতি তাঁহার দায়িত্বপালনে অসমর্থ বলিয়া রাষ্ট্রপতির নিকট সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হইলে ক্ষেত্রমত অন্য কোন ব্যক্তি অনুরূপ পদে যোগদান না করা পর্যন্ত কিংবা প্রধান বিচারপতি স্বীয় কার্যভার পুনরায় গ্রহণ না করা পর্যন্ত আপীল বিভাগের অন্যান্য বিচারকের মধ্যে যিনি কর্মে প্রবীণতম, তিনি অনুরূপ কার্যভার পালন করিবেন।

সুপ্রীম কোর্টের অতিরিক্ত বিচারকগণ
৯৮। সংবিধানের ৯৪ অনুচ্ছেদের বিধানাবলী সত্ত্বেও ৫৮ * * * রাষ্ট্রপতির নিকট সুপ্রীম কোর্টের কোন বিভাগের বিচারক-সংখ্যা সাময়িকভাবে বৃদ্ধি করা উচিত বলিয়া সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হইলে তিনি যথাযথ যোগ্যতাসম্পন্ন এক বা একাধিক ব্যক্তিকে অনধিক দুই বৎসরের জন্য অতিরিক্ত বিচারক নিযুক্ত করিতে পারিবেন, কিংবা তিনি উপযুক্ত বিবেচনা করিলে হাইকোর্ট বিভাগের কোন বিচারককে ৫৯ একজন এ্যাডহক বিচারক হিসাবে যে কোন অস্থায়ী মেয়াদের জন্য আপীল বিভাগে আসন গ্রহণের ব্যবস্থা করিতে পারিবেন, এবং অনুরূপ বিচারক এইরূপ আসন গ্রহণকালে আপীল বিভাগের একজন বিচারকের ন্যায় একই এখতিয়ার ও ক্ষমতা প্রয়োগ ও দায়িত্ব পালন করিবেন:

তবে শর্ত থাকে যে, অতিরিক্ত বিচারকরূপে নিযুক্ত (কোন ব্যক্তিকে এই সংবিধানের ৯৫ অনুচ্ছেদের অধীন বিচারকরূপে নিযুক্ত) হইতে কিংবা বর্তমান অনুচ্ছেদের অধীন আরও এক মেয়াদের জন্য অতিরিক্ত বিচারকরূপে নিযুক্ত হইতে বর্তমান অনুচ্ছেদের কোন কিছুই নিবৃত্ত করিবে না।

বিচারকগণের অক্ষমতা
৬০ ৯৯। (১) (২) দফায় ব্যবস্থিত বিধান ব্যতিরেকে, কোন ব্যক্তি অতিরিক্ত বিচারকরূপে দায়িত্ব পালন ব্যতীত বিচারক পদে দায়িত্ব পালন করিয়া থাকিলে উক্ত পদ হইতে অবসর গ্রহণের কিংবা অপসারিত হইবার পর তিনি কোন আদালত বা কর্তৃপক্ষের নিকট ওকালতি বা কার্য করিতে পারিবেন না অথবা বিচার বিভাগীয় বা ৬১ আধা-বিচার বিভাগীয় পদ অথবা প্রধান উপদেষ্টা বা উপদেষ্টার পদ ব্যতীত প্রজাতন্ত্রের কর্মে কোন লাভজনক পদে বহাল হইবেন না।

(২) কোন ব্যক্তি হাইকোর্ট বিভাগের বিচারক পদে বহাল থাকিলে উক্ত পদ হইতে অবসর গ্রহণের বা অপসারিত হইবার পর তিনি আপীল বিভাগে ওকালতি বা কার্য করিতে পারিবেন।

সুপ্রীম কোর্টের আসন

১০০। রাজধানীতে সুপ্রীম কোর্টের স্থায়ী আসন থাকিবে, তবে রাষ্ট্রপতির অনুমোদন লইয়া প্রধান বিচারপতি সময়ে সময়ে অন্য যে স্থান বা স্থানসমূহ নির্ধারণ করিবেন, সেই স্থান বা স্থানসমূহে হাইকোর্ট বিভাগের অধিবেশন অনুষ্ঠিত হইতে পারিবে।

হাইকোর্ট বিভাগের এখতিয়ার

১০১। এই সংবিধান বা অন্য কোন আইনের দ্বারা হাইকোর্ট বিভাগের উপর যেরূপ আদি, আপীল ও অন্য প্রকার এখতিয়ার, ক্ষমতা ও দায়িত্ব অর্পিত হইয়াছে বা হইতে পারে উক্ত বিভাগের সেইরূপ এখতিয়ার, ক্ষমতা ও দায়িত্ব থাকিবে।

কতিপয় আদেশ ও নির্দেশ প্রভৃতি দানের ক্ষেত্রে হাইকোর্ট বিভাগের ক্ষমতা
১০২। (১) কোন সংক্ষুব্ধ ব্যক্তির আবেদনক্রমে এই সংবিধানের তৃতীয় ভাগের দ্বারা অর্পিত অধিকারসমূহের যে কোন একটি বলবৎ করিবার জন্য প্রজাতন্ত্রের বিষয়াবলীর সহিত সম্পর্কিত কোন দায়িত্ব পালনকারী ব্যক্তিসহ যে কোন ব্যক্তি বা কর্তৃপক্ষকে হাইকোর্ট বিভাগ উপযুক্ত নির্দেশাবলী বা আদেশাবলী দান করিতে পারিবেন।

(২) হাইকোর্ট বিভাগের নিকট যদি সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হয় যে, আইনের দ্বারা অন্য কোন সমফলপ্রদ বিধান করা হয় নাই, তাহা হইলে

(ক) যে কোন সংক্ষুব্ধ ব্যক্তির আবেদনক্রমে

(অ) প্রজাতন্ত্র বা কোন স্থানীয় কর্তৃপক্ষের বিষয়াবলীর সহিত সংশ্লিষ্ট যে কোন দায়িত্ব পালনে রত ব্যক্তিকে আইনের দ্বারা অনুমোদিত নয়, এমন কোন কার্য করা হইতে বিরত রাখিবার জন্য কিংবা আইনের দ্বারা তাঁহার করণীয় কার্য করিবার জন্য নির্দেশ প্রদান করিয়া; অথবা

(আ) প্রজাতন্ত্র বা কোন স্থানীয় কর্তৃপক্ষের বিষয়াবলীর সহিত সংশ্লিষ্ট যে কোন দায়িত্ব পালনে রত ব্যক্তির কৃত কোন কার্য বা গৃহীত কোন কার্যধারা আইনসংগত কর্তৃত্ব ব্যতিরেকে করা হইয়াছে বা গৃহীত হইয়াছে ও তাহার কোন আইনগত কার্যকরতা নাই বলিয়া ঘোষণা করিয়া;

উক্ত বিভাগ আদেশদান করিতে পারিবেন; অথবা

(খ) যে কোন ব্যক্তির আবেদনক্রমে

(অ) আইনসংগত কর্তৃত্ব ব্যতিরেকে বা বেআইনী উপায়ে কোন ব্যক্তিকে প্রহরায় আটক রাখা হয় নাই বলিয়া যাহাতে উক্ত বিভাগের নিকট সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হইতে পারে সেইজন্য প্রহরায় আটক উক্ত ব্যক্তিকে উক্ত বিভাগের সম্মুখে আনয়নের নির্দেশ প্রদান করিয়া; অথবা

(আ) কোন সরকারী পদে আসীন বা আসীন বলিয়া বিবেচিত কোন ব্যক্তিকে তিনি কোন্ কর্তৃত্ববলে অনুরূপ পদমর্যাদায় অধিষ্ঠানের দাবী করিতেছেন, তাহা প্রদর্শনের নির্দেশ প্রদান করিয়া;

উক্ত বিভাগ আদেশদান করিতে পারিবেন।

(৩) উপরি-উক্ত দফাসমূহে যাহা বলা হইয়াছে, তাহা সত্ত্বেও এই সংবিধানের ৪৭ অনুচ্ছেদ প্রযোজ্য হয়, এইরূপ কোন আইনের ক্ষেত্রে বর্তমান অনুচ্ছেদের অধীন অন্তর্বর্তীকালীন বা অন্য কোন আদেশদানের ক্ষমতা হাইকোর্ট বিভাগের থাকিবে না।

(৪) এই অনুচ্ছেদের (১) দফা কিংবা এই অনুচ্ছেদের (২) দফার (ক) উপ-দফার অধীন কোন আবেদনক্রমে যে ক্ষেত্রে অন্তর্বর্তী আদেশ প্রার্থনা করা হইয়াছে এবং অনুরূপ অন্তর্বর্তী আদেশ

(ক) যেখানে উন্নয়ন কর্মসূচী বাস্তবায়নের জন্য কোন ব্যবস্থার কিংবা কোন উন্নয়নমূলক কার্যের প্রতিকূলতা বা বাধা সৃষ্টি করিতে পারে; অথবা

(খ) যেখানে অন্য কোনভাবে জনস্বার্থের পক্ষে ক্ষতিকর হইতে পারে,

সেইখানে অ্যাটর্ণি-জেনারেলকে উক্ত আবেদন সম্পর্কে যুক্তিসংগত নোটিশদান এবং অ্যাটর্ণি-জেনারেলের (কিংবা এই বিষয়ে তাঁহার দ্বারা ভারপ্রাপ্ত অন্য কোন এ্যাডভোকেটের) বক্তব্য শ্রবণ না করা পর্যন্ত এবং এই দফার (ক) বা (খ) উপ-দফায় উল্লেখিত প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করিবে না বলিয়া হাইকোর্ট বিভাগের নিকট সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান না হওয়া পর্যন্ত উক্ত বিভাগ কোন অন্তর্বর্তী আদেশদান করিবেন না।

(৫) প্রসংগের প্রয়োজনে অন্যরূপ না হইলে এই অনুচ্ছেদে “ব্যক্তি” বলিতে সংবিধিদ্ধ সরকারী কর্তৃপক্ষ ও বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা কর্মবিভাগসমূহ বা কোন শৃঙ্খলা বাহিনী সংক্রান্ত আইনের অধীন প্রতিষ্ঠিত কোন আদালত বা ট্রাইব্যুনাল ব্যতীত কিংবা এই সংবিধানের ১১৭ অনুচ্ছেদ প্রযোজ্য হয়, এইরূপ কোন ট্রাইব্যুনাল ব্যতীত যে কোন আদালত বা ট্রাইব্যুনাল অন্তর্ভুক্ত হইবে।

আপীল বিভাগের এখতিয়ার
১০৩। (১) হাইকোর্ট বিভাগের রায়, ডিক্রী, আদেশ বা দণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে আপীল শুনানীর ও তাহা নিষ্পত্তির এখতিয়ার আপীল বিভাগের থাকিবে।

(২) হাইকোর্ট বিভাগের রায়, ডিক্রী, আদেশ বা দণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে আপীল বিভাগের নিকট সেই ক্ষেত্রে অধিকারবলে আপীল করা যাইবে, যে ক্ষেত্রে হাইকোর্ট বিভাগ

(ক) এই মর্মে সার্টিফিকেট দান করিবেন যে, মামলাটির সহিত এই সংবিধান-ব্যাখ্যার বিষয়ে আইনের গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন জড়িত রহিয়াছে; অথবা

৬৪ (খ) কোন ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ডে বা যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত করিয়াছেন; অথবা

(গ) উক্ত বিভাগের অবমাননার জন্য কোন ব্যক্তিকে দণ্ডদান করিয়াছেন;

এবং সংসদে আইন-দ্বারা যেরূপ বিধান করা হইবে, সেইরূপ অন্যান্য ক্ষেত্রে।

(৩) হাইকোর্ট বিভাগের রায়, ডিক্রী, আদেশ বা দণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে যে মামলায় এই অনুচ্ছেদের (২) দফা প্রযোজ্য নহে, কেবল আপীল বিভাগ আপীলের অনুমতিদান করিলে সেই মামলায় আপীল চলিবে।

(৪) সংসদ আইনের দ্বারা ঘোষণা করিতে পারিবেন যে, এই অনুচ্ছেদের বিধানসমূহ হাইকোর্ট বিভাগের প্রসঙ্গে যেরূপ প্রযোজ্য, অন্য কোন আদালত বা ট্রাইব্যুনালের ক্ষেত্রেও তাহা সেইরূপ প্রযোজ্য হইবে।

আপীল বিভাগের পরোয়ানা জারী ও নির্বাহ
১০৪। কোন ব্যক্তির হাজিরা কিংবা কোন দলিলপত্র উদ্ঘাটন বা দাখিল করিবার আদেশসহ আপীল বিভাগের নিকট বিচারাধীন যে কোন মামলা বা বিষয়ে সম্পূর্ণ ন্যায়বিচারের জন্য যেরূপ প্রয়োজনীয় হইতে পারে, উক্ত বিভাগ সেইরূপ নির্দেশ, আদেশ, ডিক্রী বা রীট জারী করিতে পারিবেন।

আপীল বিভাগ কর্তৃক রায় বা আদেশ পুনর্বিবেচনা
১০৫। সংসদের যে কোন আইনের বিধানাবলী-সাপেক্ষে এবং আপীল বিভাগ কর্তৃক প্রণীত যে কোন বিধি-সাপেক্ষে আপীল বিভাগের কোন ঘোষিত রায় বা প্রদত্ত আদেশ পুনর্বিবেচনার ক্ষমতা উক্ত বিভাগের থাকিবে।

সুপ্রীম কোর্টের উপদেষ্টামূলক এখতিয়ার
১০৬। যদি কোন সময়ে রাষ্ট্রপতির নিকট প্রতীয়মান হয় যে, আইনের এইরূপ কোন প্রশ্ন উত্থাপিত হইয়াছে বা উত্থাপনের সম্ভাবনা দেখা দিয়াছে, যাহা এমন ধরণের ও এমন জন-গুরুত্বসম্পন্ন যে, সেই সম্পর্কে সুপ্রীম কোর্টের মতামত গ্রহণ করা প্রয়োজন, তাহা হইলে তিনি প্রশ্নটি আপীল বিভাগের বিবেচনার জন্য প্রেরণ করিতে পারিবেন এবং উক্ত বিভাগ স্বীয় বিবেচনায় উপযুক্ত শুনানীর পর প্রশ্নটি সম্পর্কে রাষ্ট্রপতিকে স্বীয় মতামত জ্ঞাপন করিতে পারিবেন।

সুপ্রীম কোর্টের বিধি-প্রণয়ন-ক্ষমতা
১০৭। (১) সংসদ কর্তৃক প্রণীত যে কোন আইন-সাপেক্ষে সুপ্রীম কোর্ট রাষ্ট্রপতির অনুমোদন লইয়া প্রত্যেক বিভাগের এবং অধঃস্তন যে কোন আদালতের রীতি ও পদ্ধতি-নিয়ন্ত্রণের জন্য বিধিসমূহ প্রণয়ন করিতে পারিবেন।

(২) সুপ্রীম কোর্ট এই অনুচ্ছেদের (১) দফা এবং এই সংবিধানের ৬৫ ১১৩ অনুচ্ছেদের অধীন দায়িত্বসমূহের ভার উক্ত আদালতের কোন একটি বিভাগকে কিংবা এক বা একাধিক বিচারককে অর্পণ করিতে পারিবেন।

(৩) এই অনুচ্ছেদের অধীন প্রণীত বিধিসমূহ-সাপেক্ষে কোন্ কোন্ বিচারককে লইয়া ৬৬ কোন্ বিভাগের কোন্ বেঞ্চ গঠিত হইবে এবং কোন্ কোন্ বিচারক কোন্ উদ্দেশ্যে আসনগ্রহণ করিবেন, তাহা প্রধান বিচারপতি নির্ধারণ করিবেন।

(৪) প্রধান বিচারপতি সুপ্রীম কোর্টের যে কোন বিভাগের কর্মে প্রবীণতম বিচারককে সেই বিভাগে এই অনুচ্ছেদের (৩) দফা কিংবা এই অনুচ্ছেদের অধীন প্রণীত বিধিসমূহ-দ্বারা অর্পিত যে কোন ক্ষমতা প্রয়োগের ভার প্রদান করিতে পারিবেন।

“কোর্ট অব রেকর্ড” রূপে সুপ্রীম কোর্ট
১০৮। সুপ্রীম কোর্ট একটি “কোর্ট অব্ রেকর্ড” হইবেন এবং ইহার অবমাননার জন্য তদন্তের আদেশদান বা দণ্ডাদেশদানের ক্ষমতাসহ আইন-সাপেক্ষে অনুরূপ আদালতের সকল ক্ষমতার অধিকারী থাকিবেন।

আদালতসমূহের উপর তত্ত্বাবধান ও নিয়ন্ত্রণ
১০৯। হাইকোর্ট বিভাগের অধঃস্তন সকল ৬৭ আদালত ও ট্রাইব্যুনালের উপর উক্ত বিভাগের তত্ত্বাবধান ও নিয়ন্ত্রণ-ক্ষমতা থাকিবে।

অধস্তন আদালত হইতে হাইকোর্ট বিভাগে মামলা স্থানান্তর
১১০। হাইকোর্ট বিভাগের নিকট যদি সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হয় যে, উক্ত বিভাগের কোন অধঃস্তন আদালতের বিচারাধীন কোন মামলায় এই সংবিধানের ব্যাখ্যা-সংক্রান্ত আইনের এমন গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন বা এমন জন-গুরুত্বসম্পন্ন বিষয় জড়িত রহিয়াছে, সংশ্লিষ্ট মামলার মীমাংসার জন্য যাহার সম্পর্কে সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রয়োজন, তাহা হইলে হাইকোর্ট বিভাগ উক্ত আদালত হইতে মামলাটি প্রত্যাহার করিয়া লইবেন এবং

(ক) স্বয়ং মামলাটির মীমাংসা করিবেন; অথবা

(খ) উক্ত আইনের প্রশ্নটির নিষ্পত্তি করিবেন এবং উক্ত প্রশ্ন সম্বন্ধে হাইকোর্ট বিভাগের রায়ের নকলসহ যে আদালত হইতে মামলাটি প্রত্যাহার করা হইয়াছিল, সেই আদালতে (বা অন্য কোন অধঃস্তন আদালতে) মামলাটি ফেরত পাঠাইবেন এবং তাহা প্রাপ্ত হইবার পর সেই আদালত উক্ত রায়ের সহিত সঙ্গতি রক্ষা করিয়া মামলাটির মীমাংসা করিতে প্রবৃত্ত হইবেন।

সুপ্রীম কোর্টের রায়ের বাধ্যতামূলক কার্যকরতা
১১১। আপীল বিভাগ কর্তৃক ঘোষিত আইন হাইকোর্ট বিভাগের জন্য এবং সুপ্রীম কোর্টের যে কোন বিভাগ কর্তৃক ঘোষিত আইন অধঃস্তন সকল আদালতের জন্য অবশ্যপালনীয় হইবে।

সুপ্রীম কোর্টের সহায়তা
১১২। প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রীয় সীমানার অন্তর্ভুক্ত সকল নির্বাহী ও বিচার বিভাগীয় কর্তৃপক্ষ সুপ্রীম কোর্টের সহায়তা করিবেন।

সুপ্রীম কোর্টের কর্মচারীগণ
১১৩। (১) প্রধান বিচারপতি কিংবা তাঁহার নির্দেশক্রমে অন্য কোন বিচারক বা কর্মচারী সুপ্রীম কোর্টের কর্মচারীদিগকে নিযুক্ত করিবেন এবং রাষ্ট্রপতির পূর্বানুমোদনক্রমে সুপ্রীম কোর্ট কর্তৃক প্রণীত বিধিসমূহ-অনুযায়ী এই নিয়োগদান করা হইবে।

(২) সংসদের যে কোন আইনের বিধানাবলী-সাপেক্ষে সুপ্রীম কোর্ট কর্তৃক প্রণীত বিধিসমূহে যেরূপ নির্ধারিত হইবে, সুপ্রীম কোর্টের কর্মচারীদের কর্মের শর্তাবলী সেইরূপ হইবে।

২য় পরিচ্ছেদ
অধস্তন আদালত

অধস্তন আদালত-সমূহ প্রতিষ্ঠা

১১৪। আইনের দ্বারা যেরূপ প্রতিষ্ঠিত হইবে, সুপ্রীম কোর্ট ব্যতীত সেইরূপ অন্যান্য অধস্তন আদালত থাকিবে।

অধস্তন আদালতে নিয়োগ
৬৮ ১১৫। বিচারবিভাগীয় পদে বা বিচার বিভাগীয় দায়িত্ব পালনকারী ম্যাজিষ্ট্রেট পদে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক উক্ত উদেশ্যে প্রণীত বিধিসমূহ অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি নিয়োগদান করিবেন।

অধস্তন আদালতসমূহের নিয়ন্ত্রণ ও শৃঙ্খলা
১১৬। বিচার-কর্মবিভাগে নিযুক্ত ব্যক্তিদের এবং বিচারবিভাগীয় দায়িত্বপালনে রত ম্যাজিষ্ট্রেটদের নিয়ন্ত্রণ (কর্মস্থল-নির্ধারণ, পদোন্নতিদান ও ছুটি-মঞ্জুরীসহ) ও শৃঙ্খলাবিধান ৬৯ রাষ্ট্রপতির উপর ন্যস্ত থাকিবে ৭০ এবং সুপ্রীম কোর্টের সহিত পরামর্শক্রমে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক তাহা প্রযুক্ত হইবে।

বিচারবিভাগীয় কর্মচারীগণ বিচারকার্য পালনের ক্ষেত্রে স্বাধীন
৭১ ১১৬ক। এই সংবিধানের বিধানাবলী সাপেক্ষে বিচার-কর্মবিভাগে নিযুক্ত ব্যক্তিগণ এবং ম্যাজিষ্ট্রেটগণ বিচারকার্য পালনের ক্ষেত্রে স্বাধীন থাকিবেন।

৩য় পরিচ্ছেদ
প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনাল

প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনালসমূহ

১১৭। (১) ইতঃপূর্বে যাহা বলা হইয়াছে, তাহা সত্ত্বেও নিম্নলিখিত ক্ষেত্রসমুহ সম্পর্কে বা ক্ষেত্রসমুহ হইতে উদ্ভূত বিষয়াদির উপর এখতিয়ার প্রয়োগের জন্য সংসদ আইনের দ্বারা এক বা একাধিক প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনাল প্রতিষ্ঠিত করিতে পারিবেন-

(ক) নবম ভাগে বর্ণিত বিষয়াদি এবং অর্থদণ্ড বা অন্য দণ্ডসহ প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত ব্যক্তিদের কর্মের শর্তাবলী;

(খ) যে কোন রাষ্ট্রায়ত্ত উদ্যোগ বা সংবিধিবদ্ধ সরকারী কর্তৃপক্ষের চালনা ও ব্যবস্থাপনা এবং অনুরূপ উদ্যোগ বা সংবিধিবদ্ধ সরকারী কর্তৃপক্ষে কর্মসহ কোন আইনের দ্বারা বা অধীন সরকারের উপর ন্যস্ত বা সরকারের দ্বারা পরিচালিত কোন সম্পত্তির অর্জন, প্রশাসন, ব্যবস্থাপনা ও বিলি-ব্যবস্থা;

(গ) যে আইনের উপর এই সংবিধানের ১০২ অনুচ্ছেদের ৭২ (৩) দফা প্রযোজ্য হয়, সেইরূপ কোন আইন।

(২) কোন ক্ষেত্রে এই অনুচ্ছেদের অধীন কোন প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনাল প্রতিষ্ঠিত হইলে অনুরূপ ট্রাইব্যুনালের এখতিয়ারের অন্তর্গত কোন বিষয়ে অন্য কোন আদালত কোনরূপ কার্যধারা গ্রহণ করিবেন না বা কোন আদেশ প্রদান করিবেন না:

তবে শর্ত থাকে যে, সংসদ আইনের দ্বারা কোন ট্রাইব্যুনালের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা বা অনুরূপ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপীলের বিধান করিতে পারিবেন।


ষষ্ঠ ক ভাগ
জাতীয় দল- বিলুপ্ত

৭৩ বিলুপ্ত
The Second Proclamation (Fifteenth Amendment) Order, 1978 (Second Proclamation Order No. IV of 1978) এর 2nd Schedule বলে বিলুপ্ত।


সপ্তম ভাগ
নির্বাচন

নির্বাচন কমিশন প্রতিষ্ঠা
১১৮। (১) প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে লইয়া এবং রাষ্ট্রপতি সময়ে সময়ে যেরূপ নির্দেশ করিবেন, সেইরূপ সংখ্যক অন্যান্য নির্বাচন কমিশনারকে লইয়া বাংলাদেশের একটি নির্বাচন কমিশন থাকিবে এবং উক্ত বিষয়ে প্রণীত কোন আইনের বিধানাবলী-সাপেক্ষে রাষ্ট্রপতি প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনারকে নিয়োগদান করিবেন।

(২) একাধিক নির্বাচন কমিশনারকে লইয়া নির্বাচন কমিশন গঠিত হইলে প্রধান নির্বাচন কমিশনার তাহার সভাপতিরূপে কার্য করিবেন।

(৩) এই সংবিধানের বিধানাবলী-সাপেক্ষে কোন নির্বাচন কমিশনারের পদের মেয়াদ তাঁহার কার্যভার গ্রহণের তারিখ হইতে পাঁচ বৎসরকাল হইবে এবং

(ক) প্রধান নির্বাচন কমিশনার-পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন, এমন কোন ব্যক্তি প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিয়োগলাভের যোগ্য হইবেন না;

(খ) অন্য কোন নির্বাচন কমিশনার অনুরূপ পদে কর্মাবসানের পর প্রধান নির্বাচন কমিশনাররূপে নিয়োগলাভের যোগ্য হইবেন, তবে অন্য কোনভাবে প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিয়োগলাভের যোগ্য হইবেন না।

(৪) নির্বাচন কমিশন দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে স্বাধীন থাকিবেন এবং কেবল এই সংবিধান ও আইনের অধীন হইবেন।

(৫) সংসদ কর্তৃক প্রণীত যে কোন আইনের বিধানাবলী-সাপেক্ষে নির্বাচন কমিশনারদের কর্মের শর্তাবলী রাষ্ট্রপতি আদেশের দ্বারা যেরূপ নির্ধারণ করিবেন, সেইরূপ হইবে:

তবে শর্ত থাকে যে, সুপ্রীম কোর্টের বিচারক যেরূপ পদ্ধতি ও কারণে অপসারিত হইতে পারেন, সেইরূপ পদ্ধতি ও কারণ ব্যতীত কোন নির্বাচন কমিশনার অপসারিত হইবেন না।

(৬) কোন নির্বাচন কমিশনার রাষ্ট্রপতিকে উদ্দেশ করিয়া স্বাক্ষরযুক্ত পত্রযোগে স্বীয় পদ ত্যাগ করিতে পারিবেন।

নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব
১১৯। ৭৪ (১) রাষ্ট্রপতি পদের ও সংসদের নির্বাচনের জন্য ভোটার-তালিকা প্রস্তুতকরণের তত্ত্বাবধান, নির্দেশ ও নিয়ন্ত্রণ এবং অনুরূপ নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের উপর ন্যস্ত থাকিবে এবং নির্বাচন কমিশন এই সংবিধান ও আইনানুযায়ী

(ক) রাষ্ট্রপতি পদের নির্বাচন অনুষ্ঠান করিবেন;

(খ) সংসদ-সদস্যদের নির্বাচন অনুষ্ঠান করিবেন;

(গ) সংসদে নির্বাচনের জন্য নির্বাচনী এলাকার সীমানা নির্ধারণ করিবেন; এবং

(ঘ) রাষ্ট্রপতির পদের এবং সংসদের নির্বাচনের জন্য ভোটার-তালিকা প্রস্তুত করিবেন।

(২) উপরি-উক্ত দফাসমূহে নির্ধারিত দায়িত্বসমূহের অতিরিক্ত যেরূপ দায়িত্ব এই সংবিধান বা অন্য কোন আইনের দ্বারা নির্ধারিত হইবে, নির্বাচন কমিশন সেইরূপ দায়িত্ব পালন করিবেন।

নির্বাচন কমিশনের কর্মচারীগণ
১২০। এই ভাগের অধীন নির্বাচন কমিশনের উপর ন্যস্ত দায়িত্ব পালনের জন্য যেরূপ কর্মচারীর প্রয়োজন হইবে, নির্বাচন কমিশন অনুরোধ করিলে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন কমিশনকে সেইরূপ কর্মচারী প্রদানের ব্যবস্থা করিবেন।

প্রতি এলাকার জন্য একটিমাত্র ভোটার তালিকা
১২১। সংসদের নির্বাচনের জন্য প্রত্যেক আঞ্চলিক নির্বাচনী এলাকার একটি করিয়া ভোটার-তালিকা থাকিবে এবং ধর্ম, জাত, বর্ণ ও নারী-পুরুষভেদের ভিত্তিতে ভোটারদের বিন্যস্ত করিয়া কোন বিশেষ ভোটার-তালিকা প্রণয়ন করা যাইবে না।

ভোটার-তালিকায় নামভুক্তির যোগ্যতা
১২২। (১) প্রাপ্ত বয়স্কের ভোটাধিকার-ভিত্তিতে ৭৫ * * * সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে।

(২) কোন ব্যক্তি সংসদের নির্বাচনের জন্য নির্ধারিত কোন নির্বাচনী এলাকায় ভোটার-তালিকাভু্ক্ত হইবার অধিকারী হইবেন, যদি

(ক) তিনি বাংলাদেশের নাগরিক হন;

(খ) তাঁহার বয়স আঠার বৎসরের কম না হয়;

(গ) কোন যোগ্য আদালত কর্তৃক তাঁহার সম্পর্কে অপ্রকৃতিস্থ বলিয়া ঘোষণা বহাল না থাকিয়া থাকে; ৭৬ এবং

(ঘ) তিনি ঐ নির্বাচনী এলাকার অধিবাসী বা আইনের দ্বারা ঐ নির্বাচনী এলাকার অধিবাসী বিবেচিত হন ৭৭ ।

৭৮ * * *

৭৯ * * *

নির্বাচন-অনুষ্ঠানের সময়
১২৩। (১) রাষ্ট্রপতি-পদের মেয়াদ অবসানের কারণে উক্ত পদ শূন্য হইলে মেয়াদ-সমাপ্তির তারিখের পূর্ববর্তী নব্বই হইতে ষাট দিনের মধ্যে শূন্য পদ পূরণের জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে:

তবে শর্ত থাকে যে, যে সংসদের দ্বারা তিনি নির্বাচিত হইয়াছেন সেই সংসদের মেয়াদকালে রাষ্ট্রপতির কার্যকাল শেষ হইলে সংসদের পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত অনুরূপ শন্য পদ পূর্ণ করিবার জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে না, এবং অনুরূপ সাধারণ নির্বাচনের পর সংসদের প্রথম বৈঠকের দিন হইতে ত্রিশ দিনের মধ্যে রাষ্ট্রপতির শূন্য পদ পূর্ণ করিবার জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে।

(২) মৃত্যু, পদত্যাগ বা অপসারণের ফলে রাষ্ট্রপতির পদ শূন্য হইলে পদটি শূন্য হইবার পর নব্বই দিনের মধ্যে, তাহা পূর্ণ করিবার জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে।

৮১ (৩) মেয়াদ অবসানের কারণে অথবা মেয়াদ অবসান ব্যতীত অন্য কোন কারণে সংসদ ভাংগিয়া যাইবার পরবর্তী নব্বই দিনের মধ্যে সংসদ-সদস্যদের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে।

(৪) সংসদ ভাঙ্গিয়া যাওয়া ব্যতীত অন্য কোন কারণে সংসদের কোন সদস্যপদ শূন্য হইলে পদটি শূন্য হইবার নব্বই দিনের মধ্যে উক্ত শূন্যপদ পূর্ণ করিবার জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে ৮২ :

তবে শর্ত থাকে যে, যদি প্রধান নির্বাচন কমিশনারের মতে, কোন দৈব-দূর্বিপাকের কারণে এই দফার নির্ধারিত মেয়াদের মধ্যে উক্ত নির্বাচন অনুষ্ঠান সম্ভব না হয়, তাহা হইলে উক্ত মেয়াদের শেষ দিনের পরবর্তী নব্বই দিনের মধ্যে উক্ত নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে।

নির্বাচন সম্পর্কে সংসদের বিধান প্রণয়নের ক্ষমতা
৮৩ ১২৪। এই সংবিধানের বিধানাবলী সাপেক্ষে সংসদ আইনের দ্বারা নির্বাচনী এলাকার সীমা নির্ধারণ, ভোটার-তালিকা প্রস্তুতকরণ, নির্বাচন অনুষ্ঠান এবং সংসদের যথাযথ গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় অন্যান্য বিষয়সহ সংসদের নির্বাচন সংক্রান্ত বা নির্বাচনের সহিত সম্পর্কিত সকল বিষয়ে বিধান প্রণয়ন করিতে পারিবেন।

নির্বাচনী আইন ও নির্বাচনের বৈধতা
১২৫। এই সংবিধানে যাহা বলা হইয়াছে, তাহা সত্ত্বেও

(ক) এই সংবিধানের ১২৪ অনুচ্ছেদের অধীন প্রণীত বা প্রণীত বলিয়া বিবেচিত নির্বাচনী এলাকার সীমা নির্ধারণ, কিংবা অনুরূপ নির্বাচনী এলাকার জন্য আসন-বন্টন সম্পর্কিত যে কোন আইনের বৈধতা সম্পর্কে আদালতে প্রশ্ন উত্থাপন করা যাইবে না;

(খ) সংসদ কর্তৃক প্রণীত কোন আইনের দ্বারা বা অধীন বিধান-অনুযায়ী কর্তৃপক্ষের নিকট এবং অনুরূপভাবে নির্ধারিত প্রণালীতে নির্বাচনী দরখাস্ত ব্যতীত ৮৪ রাষ্ট্রপতি ৮৫ * * * পদে নির্বাচন বা সংসদের কোন নির্বাচন সম্পর্কে কোন প্রশ্ন উত্থাপন করা যাইবে না।

নির্বাচন কমিশনকে নির্বাহী কর্তৃপক্ষের সহায়তাদান
১২৬। নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বপালনে সহায়তা করা সকল নির্বাহী কর্তৃপক্ষের কর্তব্য হইবে।

অষ্টম ভাগ
মহা হিসাব-নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক

মহা হিসাব-নিরীক্ষক পদের প্রতিষ্ঠা
১২৭। (১) বাংলাদেশের একজন মহা হিসাব-নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক (অতঃপর “মহা হিসাব-নিরীক্ষক” নামে অভিহিত) থাকিবেন এবং তাঁহাকে রাষ্ট্রপতি নিয়োগদান করিবেন।

(২) এই সংবিধান ও সংসদ কর্তৃক প্রণীত যে কোন আইনের বিধানাবলী সাপেক্ষে মহা হিসাব-নিরীক্ষকের কর্মের শর্তাবলী রাষ্ট্রপতি আদেশের দ্বারা যেরূপ নির্ধারণ করিবেন, সেইরূপ হইবে।

মহা-হিসাব নিরীক্ষকের দায়িত্ব
১২৮। (১) মহা হিসাব-নিরীক্ষক প্রজাতন্ত্রের সরকারী হিসাব এবং সকল আদালত, সরকারী কর্তৃপক্ষ ও কর্মচারীর সরকারী হিসাব নিরীক্ষা করিবেন ও অনুরূপ হিসাব সম্পর্কে রিপোর্টদান করিবেন এবং সেই উদ্দেশ্যে তিনি কিংবা সেই প্রয়োজনে তাঁহার দ্বারা ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোন ব্যক্তি প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত যে কোন ব্যক্তির দখলভুক্ত সকল নথি, বহি, রসিদ, দলিল, নগদ অর্থ, ষ্ট্যাম্প, জামিন, ভাণ্ডার বা অন্য প্রকার সরকারী সম্পত্তি পরীক্ষার অধিকারী হইবেন।

(২) এই অনুচ্ছেদের (১) দফায় বর্ণিত বিধানাবলীর হানি না করিয়া বিধান করা হইতেছে যে, আইনের দ্বারা প্রত্যক্ষভাবে প্রতিষ্ঠিত কোন যৌথ সংস্থার ক্ষেত্রে আইনের দ্বারা যেরূপ ব্যক্তি কর্তৃক উক্ত সংস্থার হিসাব নিরীক্ষার ও অনুরূপ হিসাব সম্পর্কে রিপোর্ট দানের ব্যবস্থা করা হইয়া থাকে, সেইরূপ ব্যক্তি কর্তৃক অনুরূপ হিসাব নিরীক্ষা ও অনুরূপ হিসাব সম্পর্কে রিপোর্ট দান করা যাইবে।

(৩) এই অনুচ্ছেদের (১) দফায় নির্ধারিত দায়িত্বসমূহ ব্যতীত সংসদ আইনের দ্বারা যেরূপ নির্ধারণ করিবেন, মহা হিসাব-নিরীক্ষককে সেইরূপ দায়িত্বভার অর্পণ করিতে পারিবেন এবং এই দফার অধীন বিধানাবলী প্রণীত না হওয়া পর্যন্ত রাষ্ট্রপতি আদেশের দ্বারা অনুরূপ বিধানাবলী প্রণয়ন করিতে পারিবেন।

(৪) এই অনুচ্ছেদের (১) দফার অধীন দায়িত্বপালনের ক্ষেত্রে মহা হিসাব-নিরীক্ষককে অন্য কোন ব্যক্তি বা কর্তৃপক্ষের পরিচালনা বা নিয়ন্ত্রণের অধীন করা হইবে না।

মহা হিসাব-নিরীক্ষকের কর্মের মেয়াদ
১২৯। ৮৬ (১) এই অনুচ্ছেদের বিধানাবলী-সাপেক্ষে মহা হিসাব-নিরীক্ষক তাঁহার দায়িত্ব গ্রহণের তারিখ হইতে পাঁচ বৎসর বা তাঁহার পঁয়ষট্টি বৎসর বয়স পূর্ণ হওয়া ইহার মধ্যে যাহা অগ্রে ঘটে, সেই কাল পর্যন্ত স্বীয় পদে বহাল থাকিবেন।

(২) সুপ্রীম কোর্টের কোন বিচারক যেরূপ পদ্ধতি ও কারণে অপসারিত হইতে পারেন, সেইরূপ পদ্ধতি ও কারণ ব্যতীত মহা হিসাব-নিরীক্ষক অপসারিত হইবেন না।

(৩) মহা হিসাব-নিরীক্ষক রাষ্ট্রপতিকে উদ্দেশ করিয়া স্বাক্ষরযুক্ত পত্রযোগে স্বীয় পদ ত্যাগ করিতে পারিবেন।

(৪) কর্মাবসানের পর মহা হিসাব-নিরীক্ষক প্রজাতন্ত্রের কর্মে অন্য কোন পদে নিযুক্ত হইবার যোগ্য হইবেন না।

অস্থায়ী মহা হিসাব-নিরীক্ষক
১৩০। কোন সময়ে মহা হিসাব-নিরীক্ষকের পদ শূন্য থাকিলে কিংবা অনুপস্থিতি, অসুস্থতা বা অন্য কোন কারণে তিনি কার্যভার পালনে অক্ষম বলিয়া রাষ্ট্রপতির নিকট সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হইলে ক্ষেত্রমত এই সংবিধানের ১২৭ অনুচ্ছেদের অধীন কোন নিয়োগদান না করা পর্যন্ত কিংবা মহা হিসাব-নিরীক্ষক পুনরায় স্বীয় দায়িত্ব গ্রহণ না করা পর্যন্ত রাষ্ট্রপতি কোন ব্যক্তিকে মহা হিসাব-নিরীক্ষকরূপে কার্য করিবার জন্য এবং উক্ত পদের দায়িত্বভার পালনের জন্য নিয়োগদান করিতে পারিবেন।

প্রজাতন্ত্রের হিসাব-রক্ষার আকার ও পদ্ধতি
১৩১। রাষ্ট্রপতির অনুমোদনক্রমে মহা হিসাব-নিরীক্ষক যেরূপ নির্ধারণ করিবেন, সেইরূপ আকার ও পদ্ধতিতে প্রজাতন্ত্রের হিসাব রক্ষিত হইবে।

সংসদে মহা হিসাব-নিরীক্ষকের রিপোর্ট উপস্থাপন
১৩২। প্রজাতন্ত্রের হিসাব সম্পর্কিত মহা হিসাব-নিরীক্ষকের রিপোর্টসমূহ রাষ্ট্রপতির নিকট পেশ করা হইবে এবং রাষ্ট্রপতি তাহা সংসদে পেশ করিবার ব্যবস্থা করিবেন।


নবম ভাগ
বাংলাদেশের কর্মবিভাগ

১ম পরিচ্ছেদ
কর্মবিভাগ

নিয়োগ ও কর্মের শর্তাবলী

১৩৩। এই সংবিধানের বিধানাবলী-সাপেক্ষে সংসদ আইনের দ্বারা প্রজাতন্ত্রের কর্মে কর্মচারীদের নিয়োগ ও কর্মের শর্তাবলী নিয়ন্ত্রণ করিতে পারিবেন:

তবে শর্ত থাকে যে, এই উদ্দেশ্যে আইনের দ্বারা বা অধীন বিধান প্রণীত না হওয়া পর্যন্ত অনুরূপ কর্মচারীদের নিয়োগ ও কর্মের শর্তাবলী নিয়ন্ত্রণ করিয়া বিধিসমূহ-প্রণয়নের ক্ষমতা রাষ্ট্রপতির থাকিবে এবং অনুরূপ যে কোন আইনের বিধানাবলী-সাপেক্ষে অনুরূপ বিধিসমূহ কার্যকর হইবে।

কর্মের মেয়াদ
১৩৪। এই সংবিধানের দ্বারা অন্যরূপ বিধান না করা হইয়া থাকিলে প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত প্রত্যেক ব্যক্তি রাষ্ট্রপতির সন্তোষানুযায়ী সময়সীমা পর্যন্ত স্বীয় পদে বহাল থাকিবেন।

অসামরিক সরকারী কর্মচারীদের বরখাস্ত প্রভৃতি
১৩৫। (১) প্রজাতন্ত্রের কর্মে অসামরিক পদে নিযুক্ত কোন ব্যক্তি তাঁহার নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ-অপেক্ষা অধঃস্তন কোন কর্তৃপক্ষের দ্বারা বরখাস্ত বা অপসারিত বা পদাবনমিত হইবেন না।

(২) অনুরূপ পদে নিযুক্ত কোন ব্যক্তিকে তাঁহার সম্পর্কে প্রস্তাবিত ব্যবস্থা গ্রহণের বিরুদ্ধে কারণ দর্শাইবার যুক্তিসঙ্গত সুযোগদান না করা পর্যন্ত তাঁহাকে বরখাস্ত বা অপসারিত বা পদাবনমিত করা যাইবে না:

তবে শর্ত থাকে যে, এই দফা সেই সকল ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হইবে না, যেখানে

(অ) কোন ব্যক্তি যে আচরণের ফলে ফৌজদারী অপরাধে দণ্ডিত হইয়াছেন, সেই আচরণের জন্য তাঁহাকে বরখাস্ত, অপসারিত বা পদাবনমিত করা হইয়াছে; অথবা

(আ) কোন ব্যক্তিকে বরখাস্ত, অপসারিত বা পদাবনমিত করিবার ক্ষমতাসম্পন্ন কর্তৃপক্ষের নিকট সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হয় যে, কোন কারণে- যাহা উক্ত কর্তৃপক্ষ লিপিবদ্ধ করিবেন- উক্ত ব্যক্তিকে কারণ দর্শাইবার সুযোগদান করা যুক্তিসঙ্গতভাবে সম্ভব নহে; অথবা

(ই) রাষ্ট্রপতির নিকট সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হয় যে, রাষ্ট্রের নিরাপত্তার স্বার্থে উক্ত ব্যক্তিকে অনুরূপ সুযোগদান সমীচীন নহে।

(৩) অনুরূপ কোন ব্যক্তিকে এই অনুচ্ছেদের (২) দফায় বর্ণিত কারণ দর্শাইবার সুযোগদান করা যুক্তিসঙ্গতভাবে সম্ভব কি না, এইরূপ প্রশ্ন উত্থাপিত হইলে সেই সম্পর্কে তাঁহাকে বরখাস্ত, অপসারিত বা পদাবনমিত করিবার ক্ষমতাসম্পন্ন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হইবে।

(৪) যে ক্ষেত্রে কোন ব্যক্তি কোন লিখিত চুক্তির অধীন প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত হইয়াছেন এবং উক্ত চুক্তির শর্তাবলী-অনুযায়ী যথাযথ নোটিশের দ্বারা চুক্তিটির অবসান ঘটান হইয়াছে, সেই ক্ষেত্রে চুক্তিটির অনুরূপ অবসানের জন্য তিনি এই অনুচ্ছেদের উদ্দেশ্যসাধনকল্পে পদ হইতে অপসারিত হইয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে না।

কর্মবিভাগ-পুনর্গঠন
১৩৬। আইনের দ্বারা প্রজাতন্ত্রের কর্মবিভাগসমূহের সৃষ্টি, সংযুক্তকরণ ও একত্রীকরণসহ পুনর্গঠনের বিধান করা যাইবে এবং অনুরূপ আইন প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত কোন ব্যক্তির কর্মের শর্তাবলীর তারতম্য করিতে ও তাহা রদ করিতে পারিবে।

২য় পরিচ্ছেদ
সরকারী কর্ম কমিশন

কমিশন-প্রতিষ্ঠা
১৩৭। আইনের দ্বারা বাংলাদেশের জন্য এক বা একাধিক সরকারী কর্ম কমিশন প্রতিষ্ঠার বিধান করা যাইবে এবং একজন সভাপতিকে ও আইনের দ্বারা যেরূপ নির্ধারিত হইবে, সেইরূপ অন্যান্য সদস্যকে লইয়া প্রত্যেক কমিশন গঠিত হইবে।

সদস্য-নিয়োগ
১৩৮। (১) প্রত্যেক সরকারী কর্ম কমিশনের সভাপতি ও অন্যান্য সদস্য রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নিযুক্ত হইবেন:

তবে শর্ত থাকে যে, প্রত্যেক কমিশনের যতদূর সম্ভব অর্ধেক (তবে অর্ধেকের কম নহে) সংখ্যক সদস্য এমন ব্যক্তিগণ হইবেন, যাঁহারা কুড়ি বৎসর বা ততোধিককাল বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় সীমানার মধ্যে যে কোন সময়ে কার্যরত কোন সরকারের কর্মে কোন পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন।

(২) সংসদ কর্তৃক প্রণীত যে কোন আইন-সাপেক্ষে কোন সরকারী কর্ম কমিশনের সভাপতি ও অন্যান্য সদস্যের কর্মের শর্তাবলী রাষ্ট্রপতি আদেশের দ্বারা যেরূপ নির্ধারণ করিবেন, সেইরূপ হইবে।

পদের মেয়াদ
১৩৯। (১) এই অনুচ্ছেদের বিধানাবলী-সাপেক্ষে কোন সরকারী কর্ম কমিশনের সভাপতি বা অন্য কোন সদস্য তাঁহার দায়িত্ব গ্রহণের তারিখ হইতে পাঁচ বৎসর বা তাঁহার ৮৭ পয়ষট্টি বৎসর বয়স পূর্ণ হওয়া ইহার মধ্যে যাহা অগ্রে ঘটে, সেই কাল পর্যন্ত স্বীয় পদে বহাল থাকিবেন।

(২) সুপ্রীম কোর্টের কোন বিচারক যেরূপ পদ্ধতি ও কারণে অপসারিত হইতে পারেন, সেইরূপ পদ্ধতি ও কারণ ব্যতীত কোন সরকারী কর্ম কমিশনের সভাপতি বা অন্য কোন সদস্য অপসারিত হইবেন না।

(৩) কোন সরকারী কর্ম কমিশনের সভাপতি বা অন্য কোন সদস্য রাষ্ট্রপতিকে উদ্দেশ করিয়া স্বাক্ষরযুক্ত পত্রযোগে স্বীয় পদ ত্যাগ করিতে পারিবেন।

(৪) কর্মাবসানের পর কোন সরকারী কর্ম কমিশনের সদস্য প্রজাতন্ত্রের কর্মে পুনরায় নিযুক্ত হইবার যোগ্য থাকিবেন না, তবে এই অনুচ্ছেদের (১) দফা-সাপেক্ষে

(ক) কর্মাবসানের পর কোন সভাপতি এক মেয়াদের জন্য পুনর্নিয়োগলাভের যোগ্য থাকিবেন; এবং

(খ) কর্মাবসানের পর কোন সদস্য (সভাপতি ব্যতীত) এক মেয়াদের জন্য কিংবা কোন সরকারী কর্ম কমিশনের সভাপতিরূপে নিয়োগলাভের যোগ্য থাকিবেন।

কমিশনের দায়িত্ব
১৪০। (১) কোন সরকারী কর্ম কমিশনের দায়িত্ব হইবে

(ক) প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিয়োগদানের জন্য উপযুক্ত ব্যক্তিদিগকে মনোনয়নের উদ্দেশ্যে যাচাই ও পরীক্ষা-পরিচালনা;

(খ) এই অনুচ্ছেদের (২) দফা অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি কর্তৃক কোন বিষয় সম্পর্কে কমিশনের পরামর্শ চাওয়া হইলে কিংবা কমিশনের দায়িত্ব-সংক্রান্ত কোন বিষয় কমিশনের নিকট প্রেরণ করা হইলে সেই সম্বন্ধে রাষ্ট্রপতিকে উপদেশ দান; এবং

(গ) আইনের দ্বারা নির্ধারিত অন্যান্য দায়িত্ব পালন।

(২) সংসদ কর্তৃক প্রণীত কোন আইন এবং কোন কমিশনের সহিত পরামর্শক্রমে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক প্রণীত কোন প্রবিধানের (যাহা অনুরূপ আইনের সহিত অসমঞ্জস নহে) বিধানাবলী-সাপেক্ষে রাষ্ট্রপতি নিম্নলিখিত ক্ষেত্রসমূহে কোন কমিশনের সহিত পরামর্শ করিবেন:

(ক) প্রজাতন্ত্রের কর্মের জন্য যোগ্যতা ও তাহাতে নিয়োগের পদ্ধতি সম্পর্কিত বিষয়াদি;

(খ) প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিয়োগদান, উক্ত কর্মের এক শাখা হইতে অন্য শাখায় পদোন্নতিদান ও বদলিকরণ এবং অনুরূপ নিয়োগদান, পদোন্নতিদান বা বদলিকরণের জন্য প্রার্থীর উপযোগিতা-নির্ণয় সম্পর্কে অনুসরণীয় নীতিসমূহ;

(গ) অবসর ভাতার অধিকারসহ প্রজাতন্ত্রের কর্মের শর্তাবলীকে প্রভাবিত করে, এইরূপ বিষয়াদি; এবং

(ঘ) প্রজাতন্ত্রের কর্মের শৃঙ্খলামূলক বিষয়াদি।

বার্ষিক রিপোর্ট
১৪১। (১) প্রত্যেক কমিশন প্রতি বৎসর মার্চ মাসের প্রথম দিবসে বা তাহার পূর্বে পূর্ববর্তী একত্রিশে ডিসেম্বরে সমাপ্ত এক বৎসরে স্বীয় কার্যাবলী সম্বন্ধে রিপোর্ট প্রস্তুত করিবেন এবং তাহা রাষ্ট্রপতির নিকট পেশ করিবেন।

(২) রিপোর্টের সহিত একটি স্মারকলিপি থাকিবে, যাহাতে

(ক) কোন ক্ষেত্রে কমিশনের কোন পরামর্শ গৃহীত না হইয়া থাকিলে সেই ক্ষেত্র এবং পরামর্শ গৃহীত না হইবার কারণ; এবং

(খ) যে সকল ক্ষেত্রে কমিশনের সহিত পরামর্শ করা উচিত ছিল অথচ পরামর্শ করা হয় নাই, সেই সকল ক্ষেত্র এবং পরামর্শ না করিবার কারণ;

সম্বন্ধে কমিশন যতদূর অবগত, ততদূর লিপিবদ্ধ করিবেন।

(৩) যে বৎসর রিপোর্ট পেশ করা হইয়াছে, সেই বৎসর একত্রিশে মার্চের পর অনুষ্ঠিত সংসদের প্রথম বৈঠকে রাষ্ট্রপতি উক্ত রিপোর্ট ও স্মারকলিপি সংসদে উপস্থাপনের ব্যবস্থা করিবেন।

নবম-ক ভাগ
জরুরী বিধানাবলী

জরুরী-অবস্থা ঘোষণা
১৪১ক। (১) রাষ্ট্রপতির নিকট যদি সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হয় যে, এমন জরুরী-অবস্থা বিদ্যমান রহিয়াছে, যাহাতে যুদ্ধ বা বহিরাক্রমণ বা অভ্যন্তরীণ গোলযোগের দ্বারা বাংলাদেশ বা উহার যে কোন অংশের নিরাপত্তা বা অর্থনৈতিক জীবন বিপদের সম্মুখীন, তাহা হইলে তিনি জরুরী-অবস্থা ঘোষণা করিতে পারিবে ৮৮ :

তবে শর্ত থাকে যে, অনুরূপ ঘোষণার বৈধতার জন্য ঘোষণার পূর্বেই প্রধানমন্ত্রীর প্রতি-স্বাক্ষর প্রয়োজন হইবে।

৮৯ * * *

(২) জরুরী-অবস্থার ঘোষণা

(ক) পরবর্তী কোন ঘোষণার দ্বারা প্রত্যাহার করা যাইবে;

(খ) সংসদে উপস্থাপিত হইবে;

(গ) একশত কুড়ি দিন অতিবাহিত হইবার পূর্বে সংসদের প্রস্তাব-দ্বারা অনুমোদিত না হইলে উক্ত সময়ের অবসানে কার্যকর থাকিবে না:

তবে শর্ত থাকে যে, যদি সংসদ ভাঙ্গিয়া যাওয়া অবস্থায় অনুরূপ কোন ঘোষণা জারী করা হয় কিংবা এই দফার (গ) উপ-দফায় বর্ণিত এক শত কুড়ি দিনের মধ্যে সংসদ ভাঙ্গিয়া যায়, তাহা হইলে তাহা পুনর্গঠিত হইবার পর সংসদের প্রথম বৈঠকের তারিখ হইতে ত্রিশ দিন অতিবাহিত হইবার পূর্বে ঘোষণাটি অনুমোদন করিয়া সংসদে প্রস্তাব গৃহীত না হওয়া পর্যন্ত উক্ত ত্রিশ দিনের অবসানে অনুরূপ ঘোষণা কার্যকর থাকিবে না।

(৩) যুদ্ধ বা বহিরাক্রমণ বা অভ্যন্তরীণ গোলযোগের বিপদ আসন্ন বলিয়া রাষ্ট্রপতির নিকট সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হইলে প্রকৃত যুদ্ধ বা বহিরাক্রমণ বা অভ্যন্তরীণ গোলযোগ সংঘটিত হইবার পূর্বে তিনি অনুরূপ যুদ্ধ বা বহিরাক্রমণ বা অভ্যন্তরীণ গোলযোগের জন্য বাংলাদেশ বা উহার যে কোন অংশের নিরাপত্তা বিপন্ন বলিয়া জরুরী-অবস্থা ঘোষণা করিতে পারিবেন।

জরুরী-অবস্থার সময় সংবিধানের কতিপয় অনুচ্ছেদের বিধান স্থগিতকরণ
১৪১খ। এই সংবিধানের তৃতীয় ভাগের অন্তর্গত বিধানাবলীর কারণে রাষ্ট্র যে আইন প্রণয়ন করিতে ও নির্বাহী ব্যবস্থা গ্রহণ করিতে সক্ষম নহেন, জরুরী-অবস্থা ঘোষণার কার্যকরতা-কালে এই সংবিধানের ৩৬, ৩৭, ৩৮, ৩৯, ৪০ ও ৪২ অনুচ্ছেদসমূহের কোন কিছুই সেইরূপ আইন-প্রণয়ন ও নির্বাহী ব্যবস্থা গ্রহণ সম্পর্কিত রাষ্ট্রের ক্ষমতাকে সীমাবদ্ধ করিবে না; তবে অনুরূপভাবে প্রণীত কোন আইনের কর্তৃত্বে যাহা করা হইয়াছে বা করা হয় নাই, তাহা ব্যতীত অনুরূপ আইন যে পরিমাণে কর্তৃত্বহীন, জরুরী-অবস্থার ঘোষণা অকার্যকর হইবার অব্যবহিত পরে তাহা সেই পরিমাণে অকার্যকর হইবে।

জরুরী-অবস্থার সময় মৌলিক অধিকারসমূহ স্থগিতকরণ
১৪১গ। (১) জরুরী-অবস্থা ঘোষণার ৯০ কার্যকরতা-কালে প্রধানমন্ত্রীর লিখিত পরামর্শ অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি আদেশের দ্বারা ঘোষণা করিতে পারিবেন যে, আদেশে উল্লেখিত এবং সংবিধানের তৃতীয় ভাগের অন্তর্গত মৌলিক অধিকারসমূহ বলবৎকরণের জন্য আদালতে মামলা রুজু করিবার অধিকার এবং আদেশে অনুরূপভাবে উল্লেখিত কোন অধিকার বলবৎকরণের জন্য কোন আদালতে বিবেচনাধীন সকল মামলা জরুরী-অবস্থা ঘোষণার কার্যকরতা-কালে কিংবা উক্ত আদেশের দ্বারা নির্ধারিত স্বল্পতর কালের জন্য স্থগিত থাকিবে।

(২) সমগ্র বাংলাদেশ বা উহার যে কোন অংশে এই অনুচ্ছেদের অধীন প্রণীত আদেশ প্রযোজ্য হইতে পারিবে।

(৩) এই অনুচ্ছেদের অধীন প্রণীত প্রত্যেক আদেশ যথাসম্ভব শীঘ্র সংসদে উপস্থাপিত হইবে।

দশম ভাগ
সংবিধান-সংশোধন

সংবিধানের বিধান ৯১ সংশোধনের ক্ষমতা
১৪২। ৯২ (১) এই সংবিধানে যাহা বলা হইয়াছে, তাহা সত্ত্বেও

(ক) সংসদের আইন-দ্বারা এই সংবিধানের কোন বিধান ৯৩ সংযোজন, পরিবর্তন, প্রতিস্থাপন বা রহিতকরণের দ্বারা সংশোধিত হইতে পারিবে:

তবে শর্ত থাকে যে,

(অ) অনুরূপ ৯৪ সংশোধনীর জন্য আনীত কোন বিলের সম্পূর্ণ শিরনামায় এই সংবিধানের কোন বিধান সংশোধন ৯৫ * * * করা হইবে বলিয়া স্পষ্টরূপে উল্লেখ না থাকিলে বিলটি বিবেচনার জন্য গ্রহণ করা যাইবে না;

(আ) সংসদের মোট সদস্য-সংখ্যার অন্যূন দুই-তৃতীয়াংশ ভোটে গৃহীত না হইলে অনুরূপ কোন বিলে সম্মতিদানের জন্য তাহা রাষ্ট্রপতির নিকট উপস্থাপিত হইবে না;

(খ) উপরি-উক্ত উপায়ে কোন বিল গৃহীত হইবার পর সম্মতির জন্য রাষ্ট্রপতির নিকট তাহা উপস্থাপিত হইলে উপস্থাপনের সাত দিনের মধ্যে তিনি বিলটিতে সম্মতিদান করিবেন, এবং তিনি তাহা করিতে অসমর্থ হইলে উক্ত মেয়াদের অবসানে তিনি বিলটিতে সম্মতিদান করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে।

৯৬ (১ক) (১) দফায় যাহা বলা হইয়াছে, তাহা সত্ত্বেও এই সংবিধানের প্রস্তাবনার অথবা ৮, ৪৮ ৯৭ বা ৫৬ ৯৮ * * * অনুচ্ছেদ অথবা এই অনুচ্ছেদের কোন বিধানাবলীর সংশোধনের ব্যবস্থা রহিয়াছে এইরূপ কোন বিল উপরি-উক্ত উপায়ে গৃহীত হইবার পর সম্মতির জন্য রাষ্ট্রপতির নিকট উপস্থাপিত হইলে উপস্থাপনের সাত দিনের মধ্যে তিনি বিলটিতে সম্মতিদান করিবেন কি করিবেন না এই প্রশ্নটি গণ-ভোটে প্রেরণের ব্যবস্থা করিবেন।

(১খ) এই অনুচ্ছেদের অধীন গণ-ভোট ৯৯ সংসদ নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতকৃত ভোটার তালিকাভু্ক্ত ব্যক্তিগণের মধ্যে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক আইনের দ্বারা নির্ধারিত মেয়াদের মধ্যে ও পদ্ধতিতে পরিচালিত হইবে।

(১গ) এই অনুচ্ছেদের অধীন কোন বিল সম্পর্কে পরিচালিত গণ-ভোটের ফলাফল যেদিন ঘোষিত হয় সেইদিন-

(অ) প্রদত্ত সমুদয় ভোটের সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোট উক্ত বিলে সম্মতিদানের পক্ষে প্রদান করা হইয়া থাকিলে, রাষ্ট্রপতি বিলটিতে সম্মতিদান করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে, অথবা

(আ) প্রদত্ত সমুদয় ভোটের সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোট উক্ত বিলে সম্মতিদানের পক্ষে প্রদান করা না হইয়া থাকিলে, রাষ্ট্রপতি বিলটিতে সম্মতিদানে বিরত রহিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে।

১০০ (১ঘ) (১গ) দফার কোন কিছুই মন্ত্রিসভা বা সংসদের উপর আস্থা বা অনাস্থা বলিয়া গণ্য হইবে না।

(২) এই অনুচ্ছেদের অধীন প্রণীত কোন সংশোধনের ক্ষেত্রে ২৬ অনুচ্ছেদের কোন কিছুই প্রযোজ্য হইবে না।


একাদশ ভাগ
বিবিধ

প্রজাতন্ত্রের সম্পত্তি
১৪৩। (১) আইনসঙ্গতভাবে প্রজাতন্ত্রের উপর ন্যস্ত যে কোন ভূমি বা সস্পত্তি ব্যতীত নিম্নলিখিত প্রজাতন্ত্রের উপর ন্যস্ত হইবে:

(ক) বাংলাদেশের যে কোন ভূমির অন্তঃস্থ সকল খনিজ ও অন্যান্য মূল্যসম্পন্ন সামগ্রী;

(খ) বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় জলসীমার অন্তর্বর্তী মহাসাগরের অন্তঃস্থ কিংবা বাংলাদেশের মহীসোপানের উপরিস্থ মহাসাগরের অন্তঃস্থ সকল ভূমি, খনিজ ও অন্যান্য মূল্যসম্পন্ন সামগ্রী; এবং

(গ) বাংলাদেশে অবস্থিত প্রকৃত মালিকবিহীন যে কোন সম্পত্তি।

(২) সংসদ সময়ে সময়ে আইনের দ্বারা বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় সীমানার এবং বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় জলসীমা ও মহীসোপানের সীমা-নির্ধারণের বিধান করিতে পারিবেন।

সম্পত্তি ও কারবার প্রভৃতি-প্রসঙ্গে নির্বাহী কর্তৃত্ব

১৪৪। প্রজাতন্ত্রের নির্বাহী কর্তৃত্বে সম্পত্তি গ্রহণ, বিক্রয়, হস্তান্তর, বন্ধকদান ও বিলি-ব্যবস্থা, যে কোন কারবার বা ব্যবসায়-চালনা এবং যে কোন চুক্তি প্রণয়ন করা যাইবে।

চুক্তি ও দলিল

১৪৫। (১) প্রজাতন্ত্রের নির্বাহী কর্তত্বে প্রণীত সকল চুক্তি ও দলিল রাষ্ট্রপতি কর্তৃক প্রণীত বলিয়া প্রকাশ করা হইবে এবং রাষ্ট্রপতি যেরূপ নির্দেশ বা ক্ষমতা প্রদান করিবেন, তাঁহার পক্ষে সেইরূপ ব্যক্তি কর্তৃক ও সেইরূপ প্রণালীতে তাহা সম্পাদিত হইবে।

(২) প্রজাতন্ত্রের নির্বাহী কর্তৃত্বে কোন চুক্তি বা দলিল প্রণয়ন বা সম্পাদন করা হইলে উক্ত কর্তৃত্বে অনুরূপ চুক্তি বা দলিল প্রণয়ন বা সম্পাদন করিবার জন্য রাষ্ট্রপতি কিংবা অন্য কোন ব্যক্তি ব্যক্তিগতভাবে দায়ী হইবেন না, তবে এই অনুচ্ছেদ সরকারের বিরুদ্ধে যথাযথ কার্যধারা আনয়নে কোন ব্যক্তির অধিকার ক্ষুণ্ন করিবে না।

আন্তর্জাতিক চুক্তি

১৪৫ক। বিদেশের সহিত সম্পাদিত সকল চুক্তি রাষ্ট্রপতির নিকট পেশ করা হইবে, এবং রাষ্ট্রপতি তাহা সংসদে পেশ করিবার ব্যবস্থা করিবেন:

তবে শর্ত থাকে যে, জাতীয় নিরাপত্তার সহিত সংশ্লিষ্ট অনুরূপ কোন চুক্তি কেবলমাত্র সংসদের গোপন বৈঠকে পেশ করা হইবে।

বাংলাদেশের নামে মামলা

১৪৬। “বাংলাদেশ”-এই নামে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক বা বাংলাদেশ সরকারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা যাইতে পারিবে।

কতিপয় পদাধিকারীর পারিশ্রমিক প্রভৃতি
১৪৭। (১) এই অনুচ্ছেদ প্রযোজ্য হয়, এইরূপ কোন পদে অধিষ্ঠিত বা কর্মরত ব্যক্তির পারিশ্রমিক, বিশেষ-অধিকার ও কর্মের অন্যান্য শর্ত সংসদের আইনের দ্বারা বা অধীন নির্ধারিত হইবে, তবে অনুরূপভাবে নির্ধারিত না হওয়া পর্যন্ত

(ক) এই সংবিধান প্রবর্তনের অব্যবহিত পূর্বে ক্ষেত্রমত সংশ্লিষ্ট পদে অধিষ্ঠিত বা কর্মরত ব্যক্তির ক্ষেত্রে তাহা যেরূপ প্রযোজ্য ছিল, সেইরূপ হইবে; অথবা

(খ) অব্যবহিত পূর্ববর্তী উপ-দফা প্রযোজ্য না হইলে রাষ্ট্রপতি আদেশের দ্বারা যেরূপ নির্ণয় করিবেন, সেইরূপ হইবে।

(২) এই অনুচ্ছেদ প্রযোজ্য হয়, এইরূপ কোন পদে অধিষ্ঠিত বা কর্মরত ব্যক্তির কার্যভারকালে তাঁহার পারিশ্রমিক, বিশেষ অধিকার ও কর্মের অন্যান্য শর্তের এমন তারতম্য করা যাইবে না, যাহা তাঁহার পক্ষে অসুবিধাজনক হইতে পারে।

(৩) এই অনুচ্ছেদ প্রযোজ্য হয়, এইরূপ কোন পদে নিযুক্ত বা কর্মরত ব্যক্তি কোন লাভজনক পদ কিংবা বেতনাদিযুক্ত পদ বা মর্যাদায় বহাল হইবেন না কিংবা মুনাফালাভের উদ্দেশ্যযুক্ত কোন কোম্পানী, সমিতি বা প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনায় বা পরিচালনায় কোনরূপ অংশগ্রহণ করিবেন না:

তবে শর্ত থাকে যে, এই দফার উদ্দেশ্যসাধনকল্পে উপরের প্রথমোলি্লখিত পদে অধিষ্ঠিত বা কর্মরত রহিয়াছেন, কেবল এই কারণে কোন ব্যক্তি অনুরূপ লাভজনক পদ বা বেতনাদিযুক্ত পদ বা মর্যাদায় অধিষ্ঠিত বলিয়া গণ্য হইবেন না।

(৪) এই অনুচ্ছেদ নিম্নলিখিত পদসমূহে প্রযোজ্য হইবে:

(ক) রাষ্ট্রপতি,

(খ) প্রধানমন্ত্রী বা প্রধান উপদেষ্টা;

(গ) স্পীকার বা ডেপুটি স্পীকার,

(ঘ) মন্ত্রী, উপদেষ্টা, প্রতিমন্ত্রী বা উপ-মন্ত্রী;

(ঙ) সুপ্রীম কোর্টের বিচারক,

(চ) মহা হিসাব-নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক,

(ছ) নির্বাচন কমিশনার,

(জ) সরকারী কর্ম কমিশনের সদস্য।

পদের শপথ

১৪৮। (১) তৃতীয় তফসিলে উল্লিখিত যে কোন পদে নির্বাচিত বা নিযুক্ত ব্যক্তি কার্যভার গ্রহণের পূর্বে উক্ত তফসিল-অনুযায়ী শপথগ্রহণ বা ঘোষণা (এই অনুচ্ছেদে “শপথ” বলিয়া অভিহিত) করিবেন এবং অনুরূপ শপথপত্রে বা ঘোষণাপত্রে স্বাক্ষরদান করিবেন।

(২) এই সংবিধানের অধীন নির্দিষ্ট কোন ব্যক্তির নিকট শপথগ্রহণ আবশ্যক হইলে * * * অনুরূপ ব্যক্তি যেরূপ ব্যক্তি ও স্থান নির্ধারণ করিবেন, সেইরূপ ব্যক্তির নিকট সেইরূপ স্থানে শপথগ্রহণ করা যাইবে।

২(ক) ১২৩ অনুচ্ছেদের (৩) দফার অধীন অনুষ্ঠিত সংসদ সদস্যদের সাধারণ নির্বাচনের ফলাফল সরকারী গেজেটে প্রজ্ঞাপিত হইবার তারিখ হইতে পরবর্তী তিন দিনের মধ্যে এই সংবিধানের অধীন এতদুদ্দেশ্যে নির্দিষ্ট ব্যক্তি বা তদুদ্দেশ্যে অনুরূপ ব্যক্তি কর্তৃক নির্ধারিত অন্য কোন ব্যক্তি যে কোন কারণে নির্বাচিত সদস্যদের শপথ পাঠ পরিচালনা করিতে ব্যর্থ হইলে বা না করিলে, প্রধান নির্বাচন কমিশনার উহার পরবর্তী তিন দিনের মধ্যে উক্ত শপথ পাঠ পরিচালনা করিবেন, যেন এই সংবিধানের অধীন তিনিই ইহার জন্য নির্দিষ্ট ব্যক্তি।

(৩) এই সংবিধানের অধীন যে ক্ষেত্রে কোন ব্যক্তির পক্ষে কার্যভার গ্রহণের পূর্বে শপথগ্রহণ আবশ্যক, সেই ক্ষেত্রে শপথ গ্রহণের অব্যবহিত পর তিনি কার্যভার গ্রহণ করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে।

প্রচলিত আইনের হেফাজত
১৪৯। এই সংবিধানের বিধানাবলী-সাপেক্ষে সকল প্রচলিত আইনের কার্যকরতা অব্যাহত থাকিবে, তবে অনুরূপ আইন এই সংবিধানের অধীন প্রণীত আইনের দ্বারা সংশোধিত বা রহিত হইতে পারিবে।

ক্রান্তিকালীন ও অস্থায়ী বিধানাবলী
১৫০। এই সংবিধানের অন্য কোন বিধান সত্ত্বেও চতুর্থ তফ্সিলে বর্ণিত ক্রান্তিকালীন ও অস্থায়ী বিধানাবলী কার্যকর হইবে।

রহিতকরণ

১৫১। রাষ্ট্রপতির নিম্নলিখিত আদেশসমূহ এতদ্বারা রহিত করা হইল:

(ক) আইনের ধারাবাহিকতা বলবৎকরণ আদেশ (১৯৭১ সালের ১০ই এপ্রিল তারিখে প্রণীত);

(খ) ১৯৭২ সালের বাংলাদেশ অস্থায়ী সংবিধান আদেশ;

(গ) ১৯৭২ সালের বাংলাদেশ হাইকোর্ট আদেশ (১৯৭২ সালের পি.ও. নং ৫);

(ঘ) ১৯৭২ সালের বাংলদেশ মহা হিসাব-নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক আদেশ (১৯৭২ সালের পি.ও. নং ১৫);

(ঙ) ১৯৭২ সালের বাংলাদেশ গণপরিষদ আদেশ (১৯৭২ সালের পি.ও. নং ২২);

(চ) ১৯৭২ সালের বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন আদেশ (১৯৭২ সালের পি.ও. নং ২৫);

(ছ) ১৯৭২ সালের বাংলাদেশ সরকারী কর্ম কমিশনসমূহ আদেশ (১৯৭২ সালের পি.ও. নং ৩৪);

(জ) ১৯৭২ সালের বাংলাদেশ (সরকারী কর্ম সম্পাদন) আদেশ (১৯৭২ সালের পি.ও. নং ৫৮)

ব্যাখ্যা

১৫২। (১) বিষয় বা প্রসঙ্গের প্রয়োজনে অন্যরূপ না হইলে এই সংবিধানে

“অধিবেশন” (সংসদ-প্রসঙ্গে) অর্থ এই সংবিধান-প্রবর্তনের পর কিংবা একবার স্থগিত হইবার বা ভাঙ্গিয়া যাইবার পর সংসদ যখন প্রথম মিলিত হয়, তখন হইতে সংসদ স্থগিত হওয়া বা ভাঙ্গিয়া যাওয়া পর্যন্ত বৈঠকসমূহ;

“অনুচ্ছেদ” অর্থ এই সংবিধানের কোন অনুচ্ছেদ;

“উপদেষ্টা” অর্থ ৫৮গ অনুচ্ছেদের অধীন উক্ত পদে নিযুক্ত কোন ব্যক্তি;

“অবসর-ভাতা” অর্থ আংশিকভাবে প্রদেয় হউক বা না হউক, যে কোন অবসর-ভাতা, যাহা কোন ব্যক্তিকে বা ব্যক্তির ক্ষেত্রে দেয়; এবং কোন ভবিষ্য তহবিলের চাঁদা বা ইহার সহিত সংযোজিত অতিরিক্ত অর্থ প্রত্যর্পণ-ব্যপদেশে দেয় অবসরকালীন বেতন বা আনুতোষিক ইহার অন্তর্ভূ্ক্ত হইবে;

“অর্থ-বৎসর” অর্থ জুলাই মাসের প্রথম দিবসে যে বৎসরের আরম্ভ;

“আইন” অর্থ কোন আইন, অধ্যাদেশ, আদেশ, বিধি, প্রবিধান, উপ-আইন, বিজ্ঞপ্তি ও অন্যান্য আইনগত দলিল এবং বাংলাদেশে আইনের ক্ষমতাসম্পন্ন যে কোন প্রথা বা রীতি;

“আদালত” অর্থ সুপ্রীম কোর্টসহ যে কোন আদালত;

“আপীল বিভাগ” অর্থ সুপ্রীম কোর্টের আপীল বিভাগ;

“উপ-দফা” অর্থ যে দফায় শব্দটি ব্যবহৃত, সেই দফার একটি উপ-দফা;

* * *

“ঋণগ্রহণ” বলিতে বাৎসরিক কিস্তিতে পরিশোধযোগ্য অর্থসংগ্রহ অন্তর্ভুক্ত হইবে; এবং “ঋণ” বলিতে তদনুরূপ অর্থ বুঝাইবে;

“করারোপ” বলিতে সাধারণ, স্থানীয় বা বিশেষ-যে কোন কর, খাজনা, শুল্ক বা বিশেষ করের আরোপ অন্তর্ভুক্ত হইবে; এবং “কর” বলিতে তদনুরূপ অর্থ বুঝাইবে;

“গ্যারান্টি” বলিতে কোন উদ্যোগের মুনাফা নির্ধারিত পরিমাণের অপেক্ষা কম হইলে তাহার জন্য অর্থ প্রদান করিবার বাধ্যবাধকতা-যাহা এই সংবিধান-প্রবর্তনের পূর্বে গৃহীত হইয়াছে-অন্তর্ভুক্ত হইবে;

“জেলা-বিচারক” বলিতে অতিরিক্ত জেলা-বিচারক অন্তর্ভুক্ত হইবেন;

“তফসিল” অর্থ এই সংবিদানের কোন তফসিল;

“দফা” অর্থ যে অনুচ্ছেদে শব্দটি ব্যবহৃত, সেই অনুচ্ছেদের একটি দফা;

“দেনা” বলিতে বাৎসরিক কিস্তি হিসাবে মূলধন পরিশোধের জন্য যে কোন বাধ্যবাধকতাজনিত দায় এবং যে কোন গ্যারান্টিযুক্ত দায় অন্তর্ভুক্ত হইবে; এবং “দেনার দায়” বলিতে তদনুরূপ অর্থ বুঝাইবে;

“নাগরিক” অর্থ নাগরিকত্ব-সম্পর্কিত আইনানুযায়ী যে ব্যক্তি বাংলাদেশের নাগরিক;

“প্রচলিত আইন” অর্থ এই সংবিধান-প্রবর্তনের অব্যবহিত পূর্বে বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় সীমানায় বা উহার অংশবিশেষে আইনের ক্ষমতাসম্পন্ন কিন্তু কার্যক্ষেত্রে সক্রিয় থাকুক বা না থাকুক, এমন যে কোন আইন;

“প্রজাতন্ত্র” অর্থ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ;

“প্রজাতন্ত্রের কর্ম” অর্থ অসামরিক বা সামরিক ক্ষমতায় বাংলাদেশ সরকার-সংক্রান্ত যে কোন কর্ম, চাকুরী বা পদ এবং আইনের দ্বারা প্রজাতন্ত্রের কর্ম বলিয়া ঘোষিত হইতে পারে, এইরূপ অন্য কোন কর্ম;

“প্রধান উপদেষ্টা” অর্থ ৫৮গ অনুচ্ছেদের অধীন উক্ত পদে নিযুক্ত কোন ব্যক্তি;

“প্রধান নির্বাচন কমিশনার” অর্থ এই সংবিধানের ১১৮ অনুচ্ছেদের অধীন উক্ত পদে নিযুক্ত কোন ব্যক্তি;

“প্রধান বিচারপতি” অর্থ বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি;

“প্রশাসনিক একাংশ” অর্থ জেলা কিংবা এই সংবিধানের ৫৯ অনুচ্ছেদের উদ্দেশ্য-সাধনকল্পে আইনের দ্বারা অভিহিত অন্য কোন এলাকা;

“বিচারক” অর্থ সুপ্রীম কোর্টের কোন বিভাগের কোন বিচারক;

“বিচার-কর্মবিভাগ” অর্থ জেলা-বিচারক-পদের অনূর্ধ্ব কোন বিচারবিভাগীয় পদে অধিষ্ঠিত ব্যক্তিদের লইয়া গঠিত কর্মবিভাগ;

“বৈঠক” (সংসদ-প্রসঙ্গে) অর্থ মূলতবী না করিয়া সংসদ যতক্ষণ ধারাবাহিকভাবে বৈঠকরত থাকেন, সেইরূপ মেয়াদ;

“ভাগ” অর্থ এই সংবিধানের কোন ভাগ;

“রাজধানী” অর্থ এই সংবিধানের ৫ অনুচ্ছেদের রাজধানী বলিতে যে অর্থ করা হইয়াছে;

“রাজনৈতিক দল” বলিতে এমন একটি অধিসঙ্ঘ বা ব্যক্তিসমষ্টি অন্তর্ভুক্ত, যে অধিসঙ্ঘ বা ব্যক্তিসমষ্টি সংসদের অভ্যন্তরে বা বাহিরে স্বাতন্ত্র্যসূচক কোন নামে কার্য করেন এবং কোন রাজনৈতিক মত প্রচারের বা কোন রাজনৈতিক তৎপরতা পরিচালনার উদ্দেশ্যে অন্যান্য অধিসঙ্ঘ হইতে পৃথক কোন অধিসঙ্ঘ হিসাবে নিজদিগকে প্রকাশ করেন;

“রাষ্ট্র” বলিতে সংসদ, সরকার ও সংবিধিবদ্ধ সরকারী কর্তৃপক্ষ অন্তর্ভুক্ত;

“রাষ্ট্রপতি” অর্থ এই সংবিধানের অধীন নির্বাচিত বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি কিংবা সাময়িকভাবে উক্ত পদে কর্মরত কোন ব্যক্তি;

“শৃঙ্খলা-বাহিনী” অর্থ

(ক) স্থল, নৌ বা বিমান-বাহিনী;

(খ) পুলিশ-বাহিনী;

(গ) আইনের দ্বারা সংজ্ঞার অর্থের অন্তর্গত বলিয়া ঘোষিত যে কোন শৃঙ্খলা-বাহিনী;

“শৃঙ্খলামূলক আইন” অর্থ শৃঙ্খলা- বাহিনীর নিয়ন্ত্রণকারী কোন আইন;

“সংবিধিবদ্ধ সরকারী কতর্ৃপক্ষ” অর্থ যে কোন কর্তৃপক্ষ, সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান, যাহার কার্যাবলী বা প্রধান প্রধান কার্য কোন আইন, অধ্যাদেশ, আদেশ বা বাংলাদেশে আইনের ক্ষমতাসম্পন্ন চুক্তিপত্র-দ্বারা অর্পিত হয়;

“সংসদ” অর্থ এই সংবিধানের ৬৫ অনুচ্ছেদ-দ্বারা প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশের সংসদ;

“সম্পত্তি” বলিতে সকল স্থাবর ও অস্থাবর, বস্তুগত ও নির্বস্তগত সকল প্রকার সম্পত্তি, বাণিজ্যিক ও শিল্পগত উদ্যোগ এবং অনুরূপ সম্পত্তি বা উদ্যোগের সহিত সংশ্লিষ্ট যে কোন স্বত্ব বা অংশ অন্তর্ভুক্ত হইবে;

“সরকারী কর্মচারী” অর্থ প্রজাতন্ত্রের কর্মে বেতনাদিযুক্ত পদে অধিষ্ঠিত বা কর্মরত কোন ব্যক্তি;

“সরকারী বিজ্ঞপ্তি” অর্থ বাংলাদেশে গেজেটে প্রকাশিত কোন বিজ্ঞপ্তি;

“সিকিউরিটি” বলিতে স্টক অন্তর্ভুক্ত হইবে;

“সুপ্রীম কোর্ট” অর্থ এই সংবিধানের ৯৪ অনুচ্ছেদ-দ্বারা গঠিত বাংলাদেশের সুপ্রীম কোর্ট;

“স্পীকার” অর্থ এই সংবিধানের ৭৪ অনুচ্ছেদ-অনুসারে সাময়িকভাবে স্পীকারের পদে অধিষ্ঠিত ব্যক্তি;

“হাইকোর্ট বিভাগ” অর্থ সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগ।

(২) ১৮৯৭ সালের জেনারেল ক্লজেস্ অ্যাক্ট

(ক) সংসদের কোন আইনের ক্ষেত্রে যেরূপ প্রযোজ্য, এই সংবিধানের ক্ষেত্রে সেইরূপ প্রযোজ্য হইবে;

(খ) সংসদের কোন আইনের দ্বারা রহিত কোন আইনের ক্ষেত্রে যেরূপ প্রযোজ্য, এই সংবিধানের দ্বারা রহিত কিংবা এই সংবিধানের কারণে বাতিল বা কার্যকরতালুপ্ত কোন আইনের ক্ষেত্রে সেইরূপ প্রযোজ্য হইবে।

প্রবর্তন, উল্লেখ ও নির্ভরযোগ্য পাঠ
১৫৩। (১) এই সংবিধানকে “গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান” বলিয়া উল্লেখ করা হইবে এবং ১৯৭২ সালের ডিসেম্বর মাসের ১৬ তারিখে ইহা বলবৎ হইবে, যাহাকে এই সংবিধানে “সংবিধান-প্রবর্তন” বলিয়া অভিহিত করা হইয়াছে।

(২) বাংলায় এই সংবিধানের একটি নির্ভরযোগ্য পাঠ ও ইংরাজীতে অনুদিত একটি নির্ভরযোগ্য অনুমোদিত পাঠ থাকিবে এবং উভয় পাঠ নির্ভরযোগ্য বলিয়া গণপরিষদের স্পীকার সার্টিফিকেট প্রদান করিবেন।

(৩) এই অনুচ্ছেদের (২) দফা-অনুযায়ী সার্টিফিকেটযুক্ত কোন পাঠ এই সংবিধানের বিধানাবলীর চূড়ান্ত প্রমাণ বলিয়া গণ্য হইবে:

তবে শর্ত থাকে যে, বাংলা ও ইংরাজী পাঠের মধ্যে বিরোধের ক্ষেত্রে বাংলা পাঠ প্রাধান্য পাইবে।


See english THE CONSTITUTION OF THE PEOPLE’S REPUBLIC OF BANGLADESH for amendment and foot notes

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান Edition 2019 November

CONSTITUTION OF KENYA

WHEREAS the people of Kenya, in exercise of their sovereign right to replace the Constitution, ratified the proposed New Constitution of Kenya through a referendum held on the 4th August, 2010, in accordance with the provisions of section 47A of the Constitution of Kenya and Part V of the Constitution of Kenya Review Act, 2008;

Arrangement of Sections

CHAPTER ONE – SOVEREIGNTY OF THE PEOPLE AND SUPREMACY OF THIS CONSTITUTION
CHAPTER TWO – THE REPUBLIC
CHAPTER THREE – CITIZENSHIP
CHAPTER FOUR –THE BILL OF RIGHTS
CHAPTER FIVE – LAND AND ENVIRONMENT
CHAPTER SIX – LEADERSHIP AND INTEGRITY
CHAPTER SEVEN – REPRESENTATION OF THE PEOPLE
CHAPTER EIGHT – THE LEGISLATURE
CHAPTER NINE – THE EXECUTIVE
CHAPTER TEN – JUDICIARY
CHAPTER ELEVEN – DEVOLVED GOVERNMENT
CHAPTER TWELVE – PUBLIC FINANCE
CHAPTER THIRTEEN – THE PUBLIC SERVICE
CHAPTER FOURTEEN – NATIONAL SECURITY
CHAPTER FIFTEEN – COMMISSIONS AND INDEPENDENT OFFICES
CHAPTER SIXTEEN – AMENDMENT OF THIS CONSTITUTION
CHAPTER SEVENTEEN – GENERAL PROVISIONS
CHAPTER EIGHTEEN – TRANSITIONAL AND CONSEQUENTIAL PROVISIONS
SCHEDULES
Subsidiary Legislation

 


CONSTITUTION OF KENYA 2010

PREAMBLE

 

We, the people of Kenya—

ACKNOWLEDGING the supremacy of the Almighty God of all creation:

HONOURING those who heroically struggled to bring freedom and justice to our land:

PROUD of our ethnic, cultural and religious diversity, and determined to live in peace and unity as one indivisible sovereign nation:

RESPECTFUL of the environment, which is our heritage, and determined to sustain it for the benefit of future generations:

COMMITTED to nurturing and protecting the well-being of the individual, the family, communities and the nation:

RECOGNISING the aspirations of all Kenyans for a government based on the essential values of human rights, equality, freedom, democracy, social justice and the rule of law:

EXERCISING our sovereign and inalienable right to determine the form of governance of our country and having participated fully in the making of this Constitution:

ADOPT, ENACT and give this Constitution to ourselves and to our future generations.

GOD BLESS KENYA

CHAPTER ONE – SOVEREIGNTY OF THE PEOPLE AND SUPREMACY OF THIS CONSTITUTION
1.
Sovereignty of the people
(1)

All sovereign power belongs to the people of Kenya and shall be exercised only in accordance with this Constitution.

(2)

The people may exercise their sovereign power either directly or through their democratically elected representatives.

(3)

Sovereign power under this Constitution is delegated to the following State organs, which shall perform their functions in accordance with this Constitution—

(a)

Parliament and the legislative assemblies in the county governments;

(b)

the national executive and the executive structures in the county governments; and

(c)

the Judiciary and independent tribunals.

(4)

The sovereign power of the people is exercised at—

(a)

the national level; and

(b)

the county level.

2.
Supremacy of this Constitution
(1)

This Constitution is the supreme law of the Republic and binds all persons and all State organs at both levels of government.

(2)

No person may claim or exercise State authority except as authorised under this Constitution.

(3)

The validity or legality of this Constitution is not subject to challenge by or before any court or other State organ.

(4)

Any law, including customary law, that is inconsistent with this Constitution is void to the extent of the inconsistency, and any act or omission in contravention of this Constitution is invalid.

(5)

The general rules of international law shall form part of the law of Kenya.

(6)

Any treaty or convention ratified by Kenya shall form part of the law of Kenya under this Constitution.

3.
Defence of this Constitution
(1)

Every person has an obligation to respect, uphold and defend this Constitution.

(2)

Any attempt to establish a government otherwise than in compliance with this Constitution is unlawful.

CHAPTER TWO – THE REPUBLIC
4.
Declaration of the Republic
(1)

Kenya is a sovereign Republic.

(2)

The Republic of Kenya shall be a multi-party democratic State founded on the national values and principles of governance referred to in Article 10.

5.
Territory of Kenya

Kenya consists of the territory and territorial waters comprising Kenya on the effective date, and any additional territory and territorial waters as defined by an Act of Parliament.

6.
Devolution and access to services
(1)

The territory of Kenya is divided into the counties specified in the First Schedule.

(2)

The governments at the national and county levels are distinct and inter-dependent and shall conduct their mutual relations on the basis of consultation and cooperation.

(3)

A national State organ shall ensure reasonable access to its services in all parts of the Republic, so far as it is appropriate to do so having regard to the nature of the service.

7.
National, official and other languages
(1)

The national language of the Republic is Kiswahili.

(2)

The official languages of the Republic are Kiswahili and English.

(3)

The State shall—

(a)

promote and protect the diversity of language of the people of Kenya; and

(b)

promote the development and use of indigenous languages, Kenyan Sign language, Braille and other communication formats and technologies accessible to persons with disabilities.

8.
State and religion

There shall be no State religion.

9.
National symbols and national days
(1)

The national symbols of the Republic are—

(a)

the national flag;

(b)

the national anthem;

(c)

the coat of arms; and

(d)

the public seal.

(2)

The national symbols are as set out in the Second Schedule.

(3)

The national days are—

(a)

Madaraka Day, to be observed on 1st June;

(b)

Mashujaa Day, to be observed on 20th October; and

(c)

Jamhuri Day, to be observed on 12th December.

(4)

A national day shall be a public holiday.

(5)

Parliament may enact legislation prescribing other public holidays, and providing for observance of public holidays.

10.
National values and principles of governance
(1)

The national values and principles of governance in this Article bind all State organs, State officers, public officers and all persons whenever any of them—

(a)

applies or interprets this Constitution;

(b)

enacts, applies or interprets any law; or

(c)

makes or implements public policy decisions.

(2)

The national values and principles of governance include—

(a)

patriotism, national unity, sharing and devolution of power, the rule of law, democracy and participation of the people;

(b)

human dignity, equity, social justice, inclusiveness, equality, human rights, non-discrimination and protection of the marginalised;

(c)

good governance, integrity, transparency and accountability; and

(d)

sustainable development.

11.
Culture
(1)

This Constitution recognises culture as the foundation of the nation and as the cumulative civilization of the Kenyan people and nation.

(2)

The State shall—

(a)

promote all forms of national and cultural expression through literature, the arts, traditional celebrations, science, communication, information, mass media, publications, libraries and other cultural heritage;

(b)

recognise the role of science and indigenous technologies in the development of the nation; and

(c)

promote the intellectual property rights of the people of Kenya.

(3)

Parliament shall enact legislation to—

(a)

ensure that communities receive compensation or royalties for the use of their cultures and cultural heritage; and

(b)

recognise and protect the ownership of indigenous seeds and plant varieties, their genetic and diverse characteristics and their use by the communities of Kenya.

CHAPTER THREE – CITIZENSHIP
12.
Entitlements of citizens
(1)

Every citizen is entitled to—

(a)

the rights, privileges and benefits of citizenship, subject to the limits provided or permitted by this Constitution; and

(b)

a Kenyan passport and any document of registration or identification issued by the State to citizens.

(2)

A passport or other document referred to in clause (1)(b) may be denied, suspended or confiscated only in accordance with an Act of Parliament that satisfies the criteria referred to in Article 24.

13.
Retention and acquisition of citizenship
(1)

Every person who was a citizen immediately before the effective date retains the same citizenship status as of that date.

(2)

Citizenship may be acquired by birth or registration.

(3)

Citizenship is not lost through marriage or the dissolution of marriage.

14.
Citizenship by birth
(1)

A person is a citizen by birth if on the day of the person’s birth, whether or not the person is born in Kenya, either the mother or father of the person is a citizen.

(2)

Clause (1) applies equally to a person born before the effective date, whether or not the person was born in Kenya, if either the mother or father of the person is or was a citizen.

(3)

Parliament may enact legislation limiting the effect of clauses (1) and (2) on the descendents of Kenyan citizens who are born outside Kenya.

(4)

A child found in Kenya who is, or appears to be, less than eight years of age, and whose nationality and parents are not known, is presumed to be a citizen by birth.

(5)

A person who is a Kenyan citizen by birth and who has ceased to be a Kenyan citizen because the person acquired citizenship of another country, is entitled on application to regain Kenyan citizenship.

15.
Citizenship by registration
(1)

A person who has been married to a citizen for a period of at least seven years is entitled on application to be registered as a citizen.

(2)

A person who has been lawfully resident in Kenya for a continuous period of at least seven years, and who satisfies the conditions prescribed by an Act of Parliament, may apply to be registered as a citizen.

(3)

A child who is not a citizen, but is adopted by a citizen, is entitled on application to be registered as a citizen.

(4)

Parliament shall enact legislation establishing conditions on which citizenship may be granted to individuals who are citizens of other countries.

(5)

This Article applies to a person as from the effective date, but any requirements that must be satisfied before the person is entitled to be registered as a citizen shall be regarded as having been satisfied irrespective of whether the person satisfied them before or after the effective date, or partially before, and partially after, the effective date.

16.
Dual citizenship

A citizen by birth does not lose citizenship by acquiring the citizenship of another country.

17.
Revocation of citizenship
(1)

If a person acquired citizenship by registration, the citizenship may be revoked if—

(a)

the person acquired the citizenship by fraud, false representation or concealment of any material fact;

(b)

the person has, during any war in which Kenya was engaged, unlawfully traded or communicated with an enemy or been engaged in or associated with any business that was knowingly carried on in such a manner as to assist an enemy in that war;

(c)

the person has, within five years after registration, been convicted of an offence and sentenced to imprisonment for a term of three years or longer; or

(d)

the person has, at any time after registration, been convicted of treason, or of an offence for which—

(i) a penalty of at least seven years imprisonment may be imposed; or
(ii) a more severe penalty may be imposed.
(2)

The citizenship of a person who was presumed to be a citizen by birth, as contemplated in Article 14(4), may be revoked if—

(a)

the citizenship was acquired by fraud, false representation or concealment of any material fact by any person;

(b)

the nationality or parentage of the person becomes known, and reveals that the person was a citizen of another country; or

(c)

the age of the person becomes known, and reveals that the person was older than eight years when found in Kenya.

18.
Legislation on citizenship

Parliament shall enact legislation—

(a)

prescribing procedures by which a person may become a citizen;

(b)

governing entry into and residence in Kenya;

(c)

providing for the status of permanent residents;

(d)

providing for voluntary renunciation of citizenship;

(e)

prescribing procedures for revocation of citizenship;

(f)

prescribing the duties and rights of citizens; and

(g)

generally giving effect to the provisions of this Chapter.

CHAPTER FOUR –THE BILL OF RIGHTS
PART 1 – GENERAL PROVISIONS RELATING TO THE BILL OF RIGHTS
19.
Rights and fundamental freedoms
(1)

The Bill of Rights is an integral part of Kenya’s democratic state and is the framework for social, economic and cultural policies.

(2)

The purpose of recognising and protecting human rights and fundamental freedoms is to preserve the dignity of individuals and communities and to promote social justice and the realisation of the potential of all human beings.

(3)

The rights and fundamental freedoms in the Bill of Rights—

(a)

belong to each individual and are not granted by the State;

(b)

do not exclude other rights and fundamental freedoms not in the Bill of Rights, but recognised or conferred by law, except to the extent that they are inconsistent with this Chapter; and

(c)

are subject only to the limitations contemplated in this Constitution.

20.
Application of Bill of Rights
(1)

The Bill of Rights applies to all law and binds all State organs and all persons.

(2)

Every person shall enjoy the rights and fundamental freedoms in the Bill of Rights to the greatest extent consistent with the nature of the right or fundamental freedom.

(3)

In applying a provision of the Bill of Rights, a court shall—

(a)

develop the law to the extent that it does not give effect to a right or fundamental freedom; and

(b)

adopt the interpretation that most favours the enforcement of a right or fundamental freedom.

(4)

In interpreting the Bill of Rights, a court, tribunal or other authority shall promote—

(a)

the values that underlie an open and democratic society based on human dignity, equality, equity and freedom; and

(b)

the spirit, purport and objects of the Bill of Rights.

(5)

In applying any right under Article 43, if the State claims that it does not have the resources to implement the right, a court, tribunal or other authority shall be guided by the following principles—

(a)

it is the responsibility of the State to show that the resources are not available;

(b)

in allocating resources, the State shall give priority to ensuring the widest possible enjoyment of the right or fundamental freedom having regard to prevailing circumstances, including the vulnerability of particular groups or individuals; and

(c)

the court, tribunal or other authority may not interfere with a decision by a State organ concerning the allocation of available resources, solely on the basis that it would have reached a different conclusion.

21.
Implementation of rights and fundamental freedoms
(1)

It is a fundamental duty of the State and every State organ to observe, respect, protect, promote and fulfil the rights and fundamental freedoms in the Bill of Rights.

(2)

The State shall take legislative, policy and other measures, including the setting of standards, to achieve the progressive realisation of the rights guaranteed under Article 43.

(3)

All State organs and all public officers have the duty to address the needs of vulnerable groups within society, including women, older members of society, persons with disabilities, children, youth, members of minority or marginalised communities, and members of particular ethnic, religious or cultural communities.

(4)

The State shall enact and implement legislation to fulfil its international obligations in respect of human rights and fundamental freedoms.

22.
Enforcement of Bill of Rights
(1)

Every person has the right to institute court proceedings claiming that a right or fundamental freedom in the Bill of Rights has been denied, violated or infringed, or is threatened.

(2)

In addition to a person acting in their own interest, court proceedings under clause (1) may be instituted by—

(a)

a person acting on behalf of another person who cannot act in their own name;

(b)

a person acting as a member of, or in the interest of, a group or class of persons;

(c)

a person acting in the public interest; or

(d)

an association acting in the interest of one or more of its members.

(3)

The Chief Justice shall make rules providing for the court proceedings referred to in this Article, which shall satisfy the criteria that—

(a)

the rights of standing provided for in clause (2) are fully facilitated;

(b)

formalities relating to the proceedings, including commencement of the proceedings, are kept to the minimum, and in particular that the

court shall, if necessary, entertain proceedings on the basis of informal documentation;

(c)

no fee may be charged for commencing the proceedings;

(d)

the court, while observing the rules of natural justice, shall not be unreasonably restricted by procedural technicalities; and

(e)

an organisation or individual with particular expertise may, with the leave of the court, appear as a friend of the court.

(4)

The absence of rules contemplated in clause (3) does not limit the right of any person to commence court proceedings under this Article, and to have the matter heard and determined by a court.

23.
Authority of courts to uphold and enforce the Bill of Rights
(1)

The High Court has jurisdiction, in accordance with Article 165, to hear and determine applications for redress of a denial, violation or infringement of, or threat to, a right or fundamental freedom in the Bill of Rights.

(2)

Parliament shall enact legislation to give original jurisdiction in appropriate cases to subordinate courts to hear and determine applications for redress of a denial, violation or infringement of, or threat to, a right or fundamental freedom in the Bill of Rights.

(3)

In any proceedings brought under Article 22, a court may grant appropriate relief, including—

(a)

a declaration of rights;

(b)

an injunction;

(c)

a conservatory order;

(d)

a declaration of invalidity of any law that denies, violates, infringes, or threatens a right or fundamental freedom in the Bill of Rights and is not justified under Article 24;

(e)

an order for compensation; and

(f)

an order of judicial review.

24.
Limitation of rights and fundamental freedoms
(1)

A right or fundamental freedom in the Bill of Rights shall not be limited except by law, and then only to the extent that the limitation is reasonable and justifiable in an open and democratic society based on human dignity, equality and freedom, taking into account all relevant factors, including—

(a)

the nature of the right or fundamental freedom;

(b)

the importance of the purpose of the limitation;

(c)

the nature and extent of the limitation;

(d)

the need to ensure that the enjoyment of rights and fundamental freedoms by any individual does not prejudice the rights and fundamental freedoms of others; and

(e)

the relation between the limitation and its purpose and whether there are less restrictive means to achieve the purpose.

(2)

Despite clause (1), a provision in legislation limiting a right or fundamental freedom—

(a)

in the case of a provision enacted or amended on or after the effective date, is not valid unless the legislation specifically expresses the

intention to limit that right or fundamental freedom, and the nature and extent of the limitation;

(b)

shall not be construed as limiting the right or fundamental freedom unless the provision is clear and specific about the right or freedom to be limited and the nature and extent of the limitation; and

(c)

shall not limit the right or fundamental freedom so far as to derogate from its core or essential content.

(3)

The State or a person seeking to justify a particular limitation shall demonstrate to the court, tribunal or other authority that the requirements of this Article have been satisfied.

(4)

The provisions of this Chapter on equality shall be qualified to the extent strictly necessary for the application of Muslim law before the Kadhis’ courts, to persons who profess the Muslim religion, in matters relating to personal status, marriage, divorce and inheritance.

(5)

Despite clauses (1) and (2), a provision in legislation may limit the application of the rights or fundamental freedoms in the following provisions to persons serving in the Kenya Defence Forces or the National Police Service—

(a)

Article 31—Privacy;

(b)

Article 36—Freedom of association;

(c)

Article 37—Assembly, demonstration, picketing and petition;

(d)

Article 41—Labour relations;

(e)

Article 43—Economic and social rights; and

(f)

Article 49—Rights of arrested persons.

25.
Fundamental Rights and freedoms that may not be limited

Despite any other provision in this Constitution, the following rights and fundamental freedoms shall not be limited—

(a)

freedom from torture and cruel, inhuman or degrading treatment or punishment;

(b)

freedom from slavery or servitude;

(c)

the right to a fair trial; and

(d)

the right to an order of habeas corpus.

PART 2 – RIGHTS AND FUNDAMENTAL FREEDOMS
26.
Right to life
(1)

Every person has the right to life.

(2)

The life of a person begins at conception.

(3)

A person shall not be deprived of life intentionally, except to the extent authorised by this Constitution or other written law.

(4)

Abortion is not permitted unless, in the opinion of a trained health professional, there is need for emergency treatment, or the life or health of the mother is in danger, or if permitted by any other written law.

27.
Equality and freedom from discrimination
(1)

Every person is equal before the law and has the right to equal protection and equal benefit of the law.

(2)

Equality includes the full and equal enjoyment of all rights and fundamental freedoms.

(3)

Women and men have the right to equal treatment, including the right to equal opportunities in political, economic, cultural and social spheres.

(4)

The State shall not discriminate directly or indirectly against any person on any ground, including race, sex, pregnancy, marital status, health status, ethnic or social origin, colour, age, disability, religion, conscience, belief, culture, dress, language or birth.

(5)

A person shall not discriminate directly or indirectly against another person on any of the grounds specified or contemplated in clause (4).

(6)

To give full effect to the realisation of the rights guaranteed under this Article, the State shall take legislative and other measures, including affirmative action programmes and policies designed to redress any disadvantage suffered by individuals or groups because of past discrimination.

(7)

Any measure taken under clause (6) shall adequately provide for any benefits to be on the basis of genuine need.

(8)

In addition to the measures contemplated in clause (6), the State shall take legislative and other measures to implement the principle that not more than two-thirds of the members of elective or appointive bodies shall be of the same gender.

28.
Human dignity

Every person has inherent dignity and the right to have that dignity respected and protected.

29.
Freedom and security of the person

Every person has the right to freedom and security of the person, which includes the right not to be—

(a)

deprived of freedom arbitrarily or without just cause;

(b)

detained without trial, except during a state of emergency, in which case the detention is subject to Article 58;

(c)

subjected to any form of violence from either public or private sources;

(d)

subjected to torture in any manner, whether physical or psychological;

(e)

subjected to corporal punishment; or

(f)

treated or punished in a cruel, inhuman or degrading manner.

30.
Slavery, servitude and forced labour
(1)

A person shall not be held in slavery or servitude.

(2)

A person shall not be required to perform forced labour.

31.
Privacy

Every person has the right to privacy, which includes the right not to have—

(a)

their person, home or property searched;

(b)

their possessions seized;

(c)

information relating to their family or private affairs unnecessarily required or revealed; or

(d)

the privacy of their communications infringed.

32.
Freedom of conscience, religion, belief and opinion
(1)

Every person has the right to freedom of conscience, religion, thought, belief and opinion.

(2)

Every person has the right, either individually or in community with others, in public or in private, to manifest any religion or belief through worship, practice, teaching or observance, including observance of a day of worship.

(3)

A person may not be denied access to any institution, employment or facility, or the enjoyment of any right, because of the person’s belief or religion.

(4)

A person shall not be compelled to act, or engage in any act, that is contrary to the person’s belief or religion.

33.
Freedom of expression
(1)

Every person has the right to freedom of expression, which includes—

(a)

freedom to seek, receive or impart information or ideas;

(b)

freedom of artistic creativity; and

(c)

academic freedom and freedom of scientific research.

(2)

The right to freedom of expression does not extend to—

(a)

propaganda for war;

(b)

incitement to violence;

(c)

hate speech; or

(d)

advocacy of hatred that—

(i) constitutes ethnic incitement, vilification of others or incitement to cause harm; or
(ii) is based on any ground of discrimination specified or contemplated in Article 27(4).
(3)

In the exercise of the right to freedom of expression, every person shall respect the rights and reputation of others.

34.
Freedom of the media
(1)

Freedom and independence of electronic, print and all other types of media is guaranteed, but does not extend to any expression specified in Article 33(2).

(2)

The State shall not—

(a)

exercise control over or interfere with any person engaged in broadcasting, the production or circulation of any publication or the dissemination of information by any medium; or

(b)

penalise any person for any opinion or view or the content of any broadcast, publication or dissemination.

(3)

Broadcasting and other electronic media have freedom of establishment, subject only to licensing procedures that—

(a)

are necessary to regulate the airwaves and other forms of signal distribution; and

(b)

are independent of control by government, political interests or commercial interests.

(4)

All State-owned media shall—

(a)

be free to determine independently the editorial content of their broadcasts or other communications;

(b)

be impartial; and

(c)

afford fair opportunity for the presentation of divergent views and dissenting opinions.

(5)

Parliament shall enact legislation that provides for the establishment of a body, which shall—

(a)

be independent of control by government, political interests or commercial interests;

(b)

reflect the interests of all sections of the society; and

(c)

set media standards and regulate and monitor compliance with those standards.

35.
Access to information
(1)

Every citizen has the right of access to—

(a)

information held by the State; and

(b)

information held by another person and required for the exercise or protection of any right or fundamental freedom.

(2)

Every person has the right to the correction or deletion of untrue or misleading information that affects the person.

(3)

The State shall publish and publicise any important information affecting the nation.

36.
Freedom of association
(1)

Every person has the right to freedom of association, which includes the right to form, join or participate in the activities of an association of any kind.

(2)

A person shall not be compelled to join an association of any kind.

(3)

Any legislation that requires registration of an association of any kind shall provide that—

(a)

registration may not be withheld or withdrawn unreasonably; and

(b)

there shall be a right to have a fair hearing before a registration is cancelled.

37.
Assembly, demonstration, picketing and petition

Every person has the right, peaceably and unarmed, to assemble, to demonstrate, to picket, and to present petitions to public authorities.

38.
Political rights
(1)

Every citizen is free to make political choices, which includes the right—

(a)

to form, or participate in forming, a political party;

(b)

to participate in the activities of, or recruit members for, a political party; or

(c)

to campaign for a political party or cause.

(2)

Every citizen has the right to free, fair and regular elections based on universal suffrage and the free expression of the will of the electors for—

(a)

any elective public body or office established under this Constitution; or

(b)

any office of any political party of which the citizen is a member.

(3)

Every adult citizen has the right, without unreasonable restrictions—

(a)

to be registered as a voter;

(b)

to vote by secret ballot in any election or referendum; and

(c)

to be a candidate for public office, or office within a political party of which the citizen is a member and, if elected, to hold office.

39.
Freedom of movement and residence
(1)

Every person has the right to freedom of movement.

(2)

Every person has the right to leave Kenya.

(3)

Every citizen has the right to enter, remain in and reside anywhere in Kenya.

40.
Protection of right to property
(1)

Subject to Article 65, every person has the right, either individually or in association with others, to acquire and own property—

(a)

of any description; and

(b)

in any part of Kenya.

(2)

Parliament shall not enact a law that permits the State or any person—

(a)

to arbitrarily deprive a person of property of any description or of any interest in, or right over, any property of any description; or

(b)

to limit, or in any way restrict the enjoyment of any right under this Article on the basis of any of the grounds specified or contemplated in Article 27(4).

(3)

The State shall not deprive a person of property of any description, or of any interest in, or right over, property of any description, unless the deprivation—

(a)

results from an acquisition of land or an interest in land or a conversion of an interest in land, or title to land, in accordance with Chapter Five; or

(b)

is for a public purpose or in the public interest and is carried out in accordance with this Constitution and any Act of Parliament that—

(i) requires prompt payment in full, of just compensation to the person; and
(ii) allows any person who has an interest in, or right over, that property a right of access to a court of law.
(4)

Provision may be made for compensation to be paid to occupants in good faith of land acquired under clause (3) who may not hold title to the land.

(5)

The State shall support, promote and protect the intellectual property rights of the people of Kenya.

(6)

The rights under this Article do not extend to any property that has been found to have been unlawfully acquired.

41.
Labour relations
(1)

Every person has the right to fair labour practices.

(2)

Every worker has the right—

(a)

to fair remuneration;

(b)

to reasonable working conditions;

(c)

to form, join or participate in the activities and programmes of a trade union; and

(d)

to go on strike.

(3)

Every employer has the right—

(a)

to form and join an employers organisation; and

(b)

to participate in the activities and programmes of an employers organisation.

(4)

Every trade union and every employers’ organisation has the right—

(a)

to determine its own administration, programmes and activities;

(b)

to organise; and

(c)

to form and join a federation.

(5)

Every trade union, employers’ organisation and employer has the right to engage in collective bargaining.

42.
Environment

Every person has the right to a clean and healthy environment, which includes the right—

(a)

to have the environment protected for the benefit of present and future generations through legislative and other measures, particularly those contemplated in Article 69; and

(b)

to have obligations relating to the environment fulfilled under Article 70.

43.
Economic and social rights
(1)

Every person has the right—

(a)

to the highest attainable standard of health, which includes the right to health care services, including reproductive health care;

(b)

to accessible and adequate housing, and to reasonable standards of sanitation;

(c)

to be free from hunger, and to have adequate food of acceptable quality;

(d)

to clean and safe water in adequate quantities;

(e)

to social security; and

(f)

to education.

(2)

A person shall not be denied emergency medical treatment.

(3)

The State shall provide appropriate social security to persons who are unable to support themselves and their dependants.

44.
Language and culture
(1)

Every person has the right to use the language, and to participate in the cultural life, of the person’s choice.

(2)

A person belonging to a cultural or linguistic community has the right, with other members of that community—

(a)

to enjoy the person’s culture and use the person’s language; or

(b)

to form, join and maintain cultural and linguistic associations and other organs of civil society.

(3)

A person shall not compel another person to perform, observe or undergo any cultural practice or rite.

45.
Family
(1)

The family is the natural and fundamental unit of society and the necessary basis of social order, and shall enjoy the recognition and protection of the State.

(2)

Every adult has the right to marry a person of the opposite sex, based on the free consent of the parties.

(3)

Parties to a marriage are entitled to equal rights at the time of the marriage, during the marriage and at the dissolution of the marriage.

(4)

Parliament shall enact legislation that recognises—

(a)

marriages concluded under any tradition, or system of religious, personal or family law; and

(b)

any system of personal and family law under any tradition, or adhered to by persons professing a particular religion,

to the extent that any such marriages or systems of law are consistent with this Constitution.

46.
Consumer rights
(1)

Consumers have the right—

(a)

to goods and services of reasonable quality;

(b)

to the information necessary for them to gain full benefit from goods and services;

(c)

to the protection of their health, safety, and economic interests; and

(d)

to compensation for loss or injury arising from defects in goods or services.

(2)

Parliament shall enact legislation to provide for consumer protection and for fair, honest and decent advertising.

(3)

This Article applies to goods and services offered by public entities or private persons.

47.
Fair administrative action
(1)

Every person has the right to administrative action that is expeditious, efficient, lawful, reasonable and procedurally fair.

(2)

If a right or fundamental freedom of a person has been or is likely to be adversely affected by administrative action, the person has the right to be given written reasons for the action.

(3)

Parliament shall enact legislation to give effect to the rights in clause (1) and that legislation shall—

(a)

provide for the review of administrative action by a court or, if appropriate, an independent and impartial tribunal; and

(b)

promote efficient administration.

48.
Access to justice

The State shall ensure access to justice for all persons and, if any fee is required, it shall be reasonable and shall not impede access to justice.

49.
Rights of arrested persons
(1)

An arrested person has the right—

(a)

to be informed promptly, in language that the person understands, of—

(i) the reason for the arrest;
(ii) the right to remain silent; and
(iii) the consequences of not remaining silent;
(b)

to remain silent;

(c)

to communicate with an advocate, and other persons whose assistance is necessary;

(d)

not to be compelled to make any confession or admission that could be used in evidence against the person;

(e)

to be held separately from persons who are serving a sentence;

(f)

to be brought before a court as soon as reasonably possible, but not later than—

(i) twenty-four hours after being arrested; or
(ii) if the twenty-four hours ends outside ordinary court hours, or on a day that is not an ordinary court day, the end of the next court day;
(g)

at the first court appearance, to be charged or informed of the reason for the detention continuing, or to be released; and

(h)

to be released on bond or bail, on reasonable conditions, pending a charge or trial, unless there are compelling reasons not to be released.

(2)

A person shall not be remanded in custody for an offence if the offence is punishable by a fine only or by imprisonment for not more than six months.

50.
Fair hearing
(1)

Every person has the right to have any dispute that can be resolved by the application of law decided in a fair and public hearing before a court or, if appropriate, another independent and impartial tribunal or body.

(2)

Every accused person has the right to a fair trial, which includes the right—

(a)

to be presumed innocent until the contrary is proved;

(b)

to be informed of the charge, with sufficient detail to answer it;

(c)

to have adequate time and facilities to prepare a defence;

(d)

to a public trial before a court established under this Constitution;

(e)

to have the trial begin and conclude without unreasonable delay;

(f)

to be present when being tried, unless the conduct of the accused person makes it impossible for the trial to proceed;

(g)

to choose, and be represented by, an advocate, and to be informed of this right promptly;

(h)

to have an advocate assigned to the accused person by the State and at State expense, if substantial injustice would otherwise result, and to be informed of this right promptly;

(i)

to remain silent, and not to testify during the proceedings;

(j)

to be informed in advance of the evidence the prosecution intends to rely on, and to have reasonable access to that evidence;

(k)

to adduce and challenge evidence;

(l)

to refuse to give self-incriminating evidence;

(m)

to have the assistance of an interpreter without payment if the accused person cannot understand the language used at the trial;

(n)

not to be convicted for an act or omission that at the time it was committed or omitted was not—

(i) an offence in Kenya; or
(ii) a crime under international law;
(o)

not to be tried for an offence in respect of an act or omission for which the accused person has previously been either acquitted or convicted;

(p)

to the benefit of the least severe of the prescribed punishments for an offence, if the prescribed punishment for the offence has been changed between the time that the offence was committed and the time of sentencing; and

(q)

if convicted, to appeal to, or apply for review by, a higher court as prescribed by law.

(3)

If this Article requires information to be given to a person, the information shall be given in language that the person understands.

(4)

Evidence obtained in a manner that violates any right or fundamental freedom in the Bill of Rights shall be excluded if the admission of that evidence would render the trial unfair, or would otherwise be detrimental to the administration of justice.

(5)

An accused person—

(a)

charged with an offence, other than an offence that the court may try by summary procedures, is entitled during the trial to a copy of the record of the proceedings of the trial on request; and

(b)

has the right to a copy of the record of the proceedings within a reasonable period after they are concluded, in return for a reasonable fee as prescribed by law.

(6)

A person who is convicted of a criminal offence may petition the High Court for a new trial if—

(a)

the person’s appeal, if any, has been dismissed by the highest court to which the person is entitled to appeal, or the person did not appeal within the time allowed for appeal; and

(b)

new and compelling evidence has become available.

(7)

In the interest of justice, a court may allow an intermediary to assist a complainant or an accused person to communicate with the court.

(8)

This Article does not prevent the exclusion of the press or other members of the public from any proceedings if the exclusion is necessary, in a free and democratic society, to protect witnesses or vulnerable persons, morality, public order or national security.

(9)

Parliament shall enact legislation providing for the protection, rights and welfare of victims of offences.

51.
Rights of persons detained, held in custody or imprisoned
(1)

A person who is detained, held in custody or imprisoned under the law, retains all the rights and fundamental freedoms in the Bill of Rights, except to the extent that any particular right or a fundamental freedom is clearly incompatible with the fact that the person is detained, held in custody or imprisoned.

(2)

A person who is detained or held in custody is entitled to petition for an order of habeas corpus.

(3)

Parliament shall enact legislation that—

(a)

provides for the humane treatment of persons detained, held in custody or imprisoned; and

(b)

takes into account the relevant international human rights instruments.

PART 3 – SPECIFIC APPLICATION OF RIGHTS
52.
Interpretation of Part
(1)

This Part elaborates certain rights to ensure greater certainty as to the application of those rights and fundamental freedoms to certain groups of persons.

(2)

This Part shall not be construed as limiting or qualifying any right.

53.
Children
(1)

Every child has the right—

(a)

to a name and nationality from birth;

(b)

to free and compulsory basic education;

(c)

to basic nutrition, shelter and health care;

(d)

to be protected from abuse, neglect, harmful cultural practices, all forms of violence, inhuman treatment and punishment, and hazardous or exploitative labour;

(e)

to parental care and protection, which includes equal responsibility of the mother and father to provide for the child, whether they are married to each other or not; and

(f)

not to be detained, except as a measure of last resort, and when detained, to be held—

(i) for the shortest appropriate period of time; and
(ii) separate from adults and in conditions that take account of the child’s sex and age.
(2)

A child’s best interests are of paramount importance in every matter concerning the child.

54.
Persons with disabilities
(1)

A person with any disability is entitled—

(a)

to be treated with dignity and respect and to be addressed and referred to in a manner that is not demeaning;

(b)

to access educational institutions and facilities for persons with disabilities that are integrated into society to the extent compatible with the interests of the person;

(c)

to reasonable access to all places, public transport and information;

(d)

to use Sign language, Braille or other appropriate means of communication; and

(e)

to access materials and devices to overcome constraints arising from the person’s disability.

(2)

The State shall ensure the progressive implementation of the principle that at least five percent of the members of the public in elective and appointive bodies are persons with disabilities.

55.
Youth

The State shall take measures, including affirmative action programmes, to ensure that the youth—

(a)

access relevant education and training;

(b)

have opportunities to associate, be represented and participate in political, social, economic and other spheres of life;

(c)

access employment; and

(d)

are protected from harmful cultural practices and exploitation.

56.
Minorities and marginalised groups

The State shall put in place affirmative action programmes designed to ensure that minorities and marginalised groups—

(a)

participate and are represented in governance and other spheres of life;

(b)

are provided special opportunities in educational and economic fields;

(c)

are provided special opportunities for access to employment;

(d)

develop their cultural values, languages and practices; and

(e)

have reasonable access to water, health services and infrastructure.

57.
Older members of society

The State shall take measures to ensure the rights of older persons—

(a)

to fully participate in the affairs of society;

(b)

to pursue their personal development;

(c)

to live in dignity and respect and be free from abuse; and

(d)

to receive reasonable care and assistance from their family and the State.

PART 4 – STATE OF EMERGENCY
58.
State of emergency
(1)

A state of emergency may be declared only under Article 132 (4)(d) and only when—

(a)

the State is threatened by war, invasion, general insurrection, disorder, natural disaster or other public emergency; and

(b)

the declaration is necessary to meet the circumstances for which the emergency is declared.

(2)

A declaration of a state of emergency, and any legislation enacted or other action taken in consequence of the declaration, shall be effective only—

(a)

prospectively; and

(b)

for not longer than fourteen days from the date of the declaration, unless the National Assembly resolves to extend the declaration.

(3)

The National Assembly may extend a declaration of a state of emergency—

(a)

by resolution adopted—

(i) following a public debate in the National Assembly; and
(ii) by the majorities specified in clause (4); and
(b)

for not longer than two months at a time.

(4)

The first extension of the declaration of a state of emergency requires a supporting vote of at least two-thirds of all the members of the National Assembly, and any subsequent extension requires a supporting vote of at least three-quarters of all the members of the National Assembly.

(5)

The Supreme Court may decide on the validity of—

(a)

a declaration of a state of emergency;

(b)

any extension of a declaration of a state of emergency; and

(c)

any legislation enacted, or other action taken, in consequence of a declaration of a state of emergency.

(6)

Any legislation enacted in consequence of a declaration of a state of emergency—

(a)

may limit a right or fundamental freedom in the Bill of Rights only to the extent that—

(i) the limitation is strictly required by the emergency; and
(ii) the legislation is consistent with the Republic’s obligations under international law applicable to a state of emergency; and
(b)

shall not take effect until it is published in the Gazette.

(7)

A declaration of a state of emergency, or legislation enacted or other action taken in consequence of any declaration, may not permit or authorise the indemnification of the State, or of any person, in respect of any unlawful act or omission.

PART 5 – KENYA NATIONAL HUMAN RIGHTS AND EQUALITY COMMISSION
59.
Kenya National Human Rights and Equality Commission
(1)

There is established the Kenya National Human Rights and Equality Commission.

(2)

The functions of the Commission are—

(a)

to promote respect for human rights and develop a culture of human rights in the Republic;

(b)

to promote gender equality and equity generally and to coordinate and facilitate gender mainstreaming in national development;

(c)

to promote the protection, and observance of human rights in public and private institutions;

(d)

to monitor, investigate and report on the observance of human rights in all spheres of life in the Republic, including observance by the national security organs;

(e)

to receive and investigate complaints about alleged abuses of human rights and take steps to secure appropriate redress where human rights have been violated;

(f)

on its own initiative or on the basis of complaints, to investigate or research a matter in respect of human rights, and make recommendations to improve the functioning of State organs;

(g)

to act as the principal organ of the State in ensuring compliance with obligations under treaties and conventions relating to human rights;

(h)

to investigate any conduct in state affairs, or any act or omission in public administration in any sphere of government, that is alleged or suspected to be prejudicial or improper or to result in any impropriety or prejudice;

(i)

to investigate complaints of abuse of power, unfair treatment, manifest injustice or unlawful, oppressive, unfair or unresponsive official conduct;

(j)

to report on complaints investigated under paragraphs (h) and (i) and take remedial action; and

(k)

to perform any other functions prescribed by legislation.

(3)

Every person has the right to complain to the Commission, alleging that a right or fundamental freedom in the Bill of Rights has been denied, violated or infringed, or is threatened.

(4)

Parliament shall enact legislation to give full effect to this Part, and any such legislation may restructure the Commission into two or more separate commissions.

(5)

If Parliament enacts legislation restructuring the Commission under clause (4)—

(a)

that legislation shall assign each function of the Commission specified in this Article to one or the other of the successor commissions;

(b)

each of the successor commissions shall have powers equivalent to the powers of the Commission under this Article; and

(c)

each successor commission shall be a commission within the meaning of Chapter Fifteen, and shall have the status and powers of a commission under that Chapter.

CHAPTER FIVE – LAND AND ENVIRONMENT
PART 1 – LAND
60.
Principles of land policy
(1)

Land in Kenya shall be held, used and managed in a manner that is equitable, efficient, productive and sustainable, and in accordance with the following principles—

(a)

equitable access to land;

(b)

security of land rights;

(c)

sustainable and productive management of land resources;

(d)

transparent and cost effective administration of land;

(e)

sound conservation and protection of ecologically sensitive areas;

(f)

elimination of gender discrimination in law, customs and practices related to land and property in land; and

(g)

encouragement of communities to settle land disputes through recognised local community initiatives consistent with this Constitution.

(2)

These principles shall be implemented through a national land policy developed and reviewed regularly by the national government and through legislation.

61.
Classification of land
(1)

All land in Kenya belongs to the people of Kenya collectively as a nation, as communities and as individuals.

(2)

Land in Kenya is classified as public, community or private.

62.
Public land
(1)

Public land is—

(a)

land which at the effective date was unalienated government land as defined by an Act of Parliament in force at the effective date;

(b)

land lawfully held, used or occupied by any State organ, except any such land that is occupied by the State organ as lessee under a private lease;

(c)

land transferred to the State by way of sale, reversion or surrender;

(d)

land in respect of which no individual or community ownership can be established by any legal process;

(e)

land in respect of which no heir can be identified by any legal process;

(f)

all minerals and mineral oils as defined by law;

(g)

government forests other than forests to which Article 63(2)(d)(i) applies, government game reserves, water catchment areas, national parks, government animal sanctuaries, and specially protected areas;

(h)

all roads and thoroughfares provided for by an Act of Parliament;

(i)

all rivers, lakes and other water bodies as defined by an Act of Parliament;

(j)

the territorial sea, the exclusive economic zone and the sea bed;

(k)

the continental shelf;

(l)

all land between the high and low water marks;

(m)

any land not classified as private or community land under this Constitution; and

(n)

any other land declared to be public land by an Act of Parliament—

(i) in force at the effective date; or
(ii) enacted after the effective date.
(2)

Public land shall vest in and be held by a county government in trust for the people resident in the county, and shall be administered on their behalf by the National Land Commission, if it is classified under—

(a)

clause (1)(a), (c), (d) or (e); and

(b)

clause (1)(b), other than land held, used or occupied by a national State organ.

(3)

Public land classified under clause (1)(f) to (m) shall vest in and be held by the national government in trust for the people of Kenya and shall be administered on their behalf by the National Land Commission.

(4)

Public land shall not be disposed of or otherwise used except in terms of an Act of Parliament specifying the nature and terms of that disposal or use.

63.
Community land
(1)

Community land shall vest in and be held by communities identified on the basis of ethnicity, culture or similar community of interest.

(2)

Community land consists of—

(a)

land lawfully registered in the name of group representatives under the provisions of any law;

(b)

land lawfully transferred to a specific community by any process of law;

(c)

any other land declared to be community land by an Act of Parliament; and

(d)

land that is—

(i) lawfully held, managed or used by specific communities as community forests, grazing areas or shrines;
(ii) ancestral lands and lands traditionally occupied by hunter-gatherer communities; or
(iii) lawfully held as trust land by the county governments,

but not including any public land held in trust by the county government under Article 62(2).

(3)

Any unregistered community land shall be held in trust by county governments on behalf of the communities for which it is held.

(4)

Community land shall not be disposed of or otherwise used except in terms of legislation specifying the nature and extent of the rights of members of each community individually and collectively.

(5)

Parliament shall enact legislation to give effect to this Article.

64.
Private land

Private land consists of —

(a)

registered land held by any person under any freehold tenure;

(b)

land held by any person under leasehold tenure; and

(c)

any other land declared private land under an Act of Parliament.

65.
Landholding by non-citizens
(1)

A person who is not a citizen may hold land on the basis of leasehold tenure only, and any such lease, however granted, shall not exceed ninety-nine years.

(2)

If a provision of any agreement, deed, conveyance or document of whatever nature purports to confer on a person who is not a citizen an interest in land greater than a ninety-nine year lease, the provision shall be regarded as conferring on the person a ninety-nine year leasehold interest, and no more.

(3)

For purposes of this Article—

(a)

a body corporate shall be regarded as a citizen only if the body corporate is wholly owned by one or more citizens; and

(b)

property held in trust shall be regarded as being held by a citizen only if all of the beneficial interest of the trust is held by persons who are citizens.

(4)

Parliament may enact legislation to make further provision for the operation of this Article.

66.
Regulation of land use and property
(1)

The State may regulate the use of any land, or any interest in or right over any land, in the interest of defence, public safety, public order, public morality, public health, or land use planning.

(2)

Parliament shall enact legislation ensuring that investments in property benefit local communities and their economies.

67.
National Land Commission
(1)

There is established the National Land Commission.

(2)

The functions of the National Land Commission are—

(a)

to manage public land on behalf of the national and county governments;

(b)

to recommend a national land policy to the national government;

(c)

to advise the national government on a comprehensive programme for the registration of title in land throughout Kenya;

(d)

to conduct research related to land and the use of natural resources, and make recommendations to appropriate authorities;

(e)

to initiate investigations, on its own initiative or on a complaint, into present or historical land injustices, and recommend appropriate redress;

(f)

to encourage the application of traditional dispute resolution mechanisms in land conflicts;

(g)

to assess tax on land and premiums on immovable property in any area designated by law; and

(h)

to monitor and have oversight responsibilities over land use planning throughout the country.

(3)

The National Land Commission may perform any other functions prescribed by national legislation.

68.
Legislation on land

Parliament shall—

(a)

revise, consolidate and rationalise existing land laws;

(b)

revise sectoral land use laws in accordance with the principles set out in Article 60 (1); and

(c)

enact legislation—

(i) to prescribe minimum and maximum land holding acreages in respect of private land;
(ii) to regulate the manner in which any land may be converted from one category to another;
(iii) to regulate the recognition and protection of matrimonial property and in particular the matrimonial home during and on the termination of marriage;
(iv) to protect, conserve and provide access to all public land;
(v) to enable the review of all grants or dispositions of public land to establish their propriety or legality;
(vi) to protect the dependants of deceased persons holding interests in any land, including the interests of spouses in actual occupation of land; and
(vii) to provide for any other matter necessary to give effect to the provisions of this Chapter.
PART 2 – ENVIRONMENT AND NATURAL RESOURCES
69.
Obligations in respect of the environment
(1)

The State shall—

(a)

ensure sustainable exploitation, utilisation, management and conservation of the environment and natural resources, and ensure the equitable sharing of the accruing benefits;

(b)

work to achieve and maintain a tree cover of at least ten per cent of the land area of Kenya;

(c)

protect and enhance intellectual property in, and indigenous knowledge of, biodiversity and the genetic resources of the communities;

(d)

encourage public participation in the management, protection and conservation of the environment;

(e)

protect genetic resources and biological diversity;

(f)

establish systems of environmental impact assessment, environmental audit and monitoring of the environment;

(g)

eliminate processes and activities that are likely to endanger the environment; and

(h)

utilise the environment and natural resources for the benefit of the people of Kenya.

(2)

Every person has a duty to cooperate with State organs and other persons to protect and conserve the environment and ensure ecologically sustainable development and use of natural resources.

70.
Enforcement of environmental rights
(1)

If a person alleges that a right to a clean and healthy environment recognised and protected under Article 42 has been, is being or is likely to be, denied, violated, infringed or threatened, the person may apply to a court for redress in addition to any other legal remedies that are available in respect to the same matter.

(2)

On application under clause (1), the court may make any order, or give any directions, it considers appropriate—

(a)

to prevent, stop or discontinue any act or omission that is harmful to the environment;

(b)

to compel any public officer to take measures to prevent or discontinue any act or omission that is harmful to the environment; or

(c)

to provide compensation for any victim of a violation of the right to a clean and healthy environment.

(3)

For the purposes of this Article, an applicant does not have to demonstrate that any person has incurred loss or suffered injury.

71.
Agreements relating to natural resource
(1)

A transaction is subject to ratification by Parliament if it—

(a)

involves the grant of a right or concession by or on behalf of any person, including the national government, to another person for the exploitation of any natural resource of Kenya; and

(b)

is entered into on or after the effective date.

(2)

Parliament shall enact legislation providing for the classes of transactions subject to ratification under clause (1).

72.
Legislation relating to the environment

Parliament shall enact legislation to give full effect to the provisions of this Part.

CHAPTER SIX – LEADERSHIP AND INTEGRITY
73.
Responsibilities of leadership
(1)

Authority assigned to a State officer—

(a)

is a public trust to be exercised in a manner that—

(i) is consistent with the purposes and objects of this Constitution;
(ii) demonstrates respect for the people;
(iii) brings honour to the nation and dignity to the office; and
(iv) promotes public confidence in the integrity of the office; and
(b)

vests in the State officer the responsibility to serve the people, rather than the power to rule them.

(2)

The guiding principles of leadership and integrity include—

(a)

selection on the basis of personal integrity, competence and suitability, or election in free and fair elections;

(b)

objectivity and impartiality in decision making, and in ensuring that decisions are not influenced by nepotism, favouritism, other improper motives or corrupt practices;

(c)

selfless service based solely on the public interest, demonstrated by—

(i) honesty in the execution of public duties; and
(ii) the declaration of any personal interest that may conflict with public duties;
(d)

accountability to the public for decisions and actions; and

(e)

discipline and commitment in service to the people.

74.
Oath of office of State officers

Before assuming a State office, acting in a State office, or performing any functions of a State office, a person shall take and subscribe the oath or affirmation of office, in the manner and form prescribed by the Third Schedule or under an Act of Parliament.

75.
Conduct of State officers
(1)

A State officer shall behave, whether in public and official life, in private life, or in association with other persons, in a manner that avoids—

(a)

any conflict between personal interests and public or official duties;

(b)

compromising any public or official interest in favour of a personal interest; or

(c)

demeaning the office the officer holds.

(2)

A person who contravenes clause (1), or Article 76, 77 or 78(2)—

(a)

shall be subject to the applicable disciplinary procedure for the relevant office; and

(b)

may, in accordance with the disciplinary procedure referred to in paragraph (a), be dismissed or otherwise removed from office.

(3)

A person who has been dismissed or otherwise removed from office for a contravention of the provisions specified in clause (2) is disqualified from holding any other State office.

76.
Financial probity of State officers
(1)

A gift or donation to a State officer on a public or official occasion is a gift or donation to the Republic and shall be delivered to the State unless exempted under an Act of Parliament.

(2)

A State officer shall not—

(a)

maintain a bank account outside Kenya except in accordance with an Act of Parliament; or

(b)

seek or accept a personal loan or benefit in circumstances that compromise the integrity of the State officer.

77.
Restriction on activities of State officers
(1)

A full-time State officer shall not participate in any other gainful employment.

(2)

Any appointed State officer shall not hold office in a political party.

(3)

A retired State officer who is receiving a pension from public funds shall not hold more than two concurrent remunerative positions as chairperson, director or employee of—

(a)

a company owned or controlled by the State; or

(b)

a State organ.

(4)

A retired State officer shall not receive remuneration from public funds other than as contemplated in clause (3).

78.
Citizenship and leadership
(1)

A person is not eligible for election or appointment to a State office unless the person is a citizen of Kenya.

(2)

A State officer or a member of the defence forces shall not hold dual citizenship.

(3)

Clauses (1) and (2) do not apply to—

(a)

judges and members of commissions; or

(b)

any person who has been made a citizen of another country by operation of that country’s law, without ability to opt out.

79.
Legislation to establish the ethics and anti-corruption commission

Parliament shall enact legislation to establish an independent ethics and anti-corruption commission, which shall be and have the status and powers of a commission under Chapter Fifteen, for purposes of ensuring compliance with, and enforcement of, the provisions of this Chapter.

80.
Legislation on leadership

Parliament shall enact legislation—

(a)

establishing procedures and mechanisms for the effective administration of this Chapter;

(b)

prescribing the penalties, in addition to the penalties referred to in Article 75, that may be imposed for a contravention of this Chapter;

(c)

providing for the application of this Chapter, with the necessary modifications, to public officers; and

(d)

making any other provision necessary for ensuring the promotion of the principles of leadership and integrity referred to in this Chapter, and the enforcement of this Chapter.

CHAPTER SEVEN – REPRESENTATION OF THE PEOPLE
PART 1 – ELECTORAL SYSTEM AND PROCESS
81.
General principles for the electoral system

The electoral system shall comply with the following principles—

(a)

freedom of citizens to exercise their political rights under Article 38;

(b)

not more than two-thirds of the members of elective public bodies shall be of the same gender;

(c)

fair representation of persons with disabilities;

(d)

universal suffrage based on the aspiration for fair representation and equality of vote; and

(e)

free and fair elections, which are—

(i) by secret ballot;
(ii) free from violence, intimidation, improper influence or corruption;
(iii) conducted by an independent body;
(iv) transparent; and
(v) administered in an impartial, neutral, efficient, accurate and accountable manner.
82.
Legislation on elections
(1)

Parliament shall enact legislation to provide for—

(a)

the delimitation by the Independent Electoral and Boundaries Commission of electoral units for election of members of the National Assembly and county assemblies;

(b)

the nomination of candidates;

(c)

the continuous registration of citizens as voters;

(d)

the conduct of elections and referenda and the regulation and efficient supervision of elections and referenda, including the nomination of candidates for elections; and

(e)

the progressive registration of citizens residing outside Kenya, and the progressive realisation of their right to vote.

(2)

Legislation required by clause (1)(d) shall ensure that voting at every election is—

(a)

simple;

(b)

transparent; and

(c)

takes into account the special needs of—

(i) persons with disabilities; and
(ii) other persons or groups with special needs.
83.
Registration as a voter
(1)

A person qualifies for registration as a voter at elections or referenda if the person—

(a)

is an adult citizen;

(b)

is not declared to be of unsound mind; and

(c)

has not been convicted of an election offence during the preceding five years.

(2)

A citizen who qualifies for registration as a voter shall be registered at only one registration centre.

(3)

Administrative arrangements for the registration of voters and the conduct of elections shall be designed to facilitate, and shall not deny, an eligible citizen the right to vote or stand for election.

84.
Candidates for election and political parties to comply with code of conduct

In every election, all candidates and all political parties shall comply with the code of conduct prescribed by the Independent Electoral and Boundaries Commission.

85.
Eligibility to stand as an independent candidate

Any person is eligible to stand as an independent candidate for election if the person—

(a)

is not a member of a registered political party and has not been a member for at least three months immediately before the date of the election; and

(b)

satisfies the requirements of—

(i) Article 99(1)(c)(i) or (ii), in the case of a candidate for election to the National Assembly or the Senate, respectively; or
(ii) Article 193(1)(c)(ii), in the case of a candidate for election to a county assembly.
86.
Voting

At every election, the Independent Electoral and Boundaries Commission shall ensure that—

(a)

whatever voting method is used, the system is simple, accurate, verifiable, secure, accountable and transparent;

(b)

the votes cast are counted, tabulated and the results announced promptly by the presiding officer at each polling station;

(c)

the results from the polling stations are openly and accurately collated and promptly announced by the returning officer; and

(d)

appropriate structures and mechanisms to eliminate electoral malpractice are put in place, including the safekeeping of election materials.

87.
Electoral disputes
(1)

Parliament shall enact legislation to establish mechanisms for timely settling of electoral disputes.

(2)

Petitions concerning an election, other than a presidential election, shall be filed within twenty-eight days after the declaration of the election results by the Independent Electoral and Boundaries Commission.

(3)

Service of a petition may be direct or by advertisement in a newspaper with national circulation.

PART 2 – INDEPENDENT ELECTORAL AND BOUNDARIES COMMISSION AND DELIMITATION OF ELECTORAL UNITS
88.
Independent Electoral and Boundaries Commission
(1)

There is established the Independent Electoral and Boundaries Commission.

(2)

A person is not eligible for appointment as a member of the Commission if the person—

(a)

has, at any time within the preceding five years, held office, or stood for election as—

(i) a member of Parliament or of a county assembly; or
(ii) a member of the governing body of a political party; or
(b)

holds any State office.

(3)

A member of the Commission shall not hold another public office.

(4)

The Commission is responsible for conducting or supervising referenda and elections to any elective body or office established by this Constitution, and any other elections as prescribed by an Act of Parliament and, in particular, for—

(a)

the continuous registration of citizens as voters;

(b)

the regular revision of the voters’ roll;

(c)

the delimitation of constituencies and wards;

(d)

the regulation of the process by which parties nominate candidates for elections;

(e)

the settlement of electoral disputes, including disputes relating to or arising from nominations but excluding election petitions and disputes subsequent to the declaration of election results;

(f)

the registration of candidates for election;

(g)

voter education;

(h)

the facilitation of the observation, monitoring and evaluation of elections;

(i)

the regulation of the amount of money that may be spent by or on behalf of a candidate or party in respect of any election;

(j)

the development of a code of conduct for candidates and parties contesting elections; and

(k)

the monitoring of compliance with the legislation required by Article 82(1)(b) relating to nomination of candidates by parties.

(5)

The Commission shall exercise its powers and perform its functions in accordance with this Constitution and national legislation.

89.
Delimitation of electoral units
(1)

There shall be two hundred and ninety constituencies for the purposes of the election of the members of the National Assembly provided for in Article 97(1)(a).

(2)

The Independent Electoral and Boundaries Commission shall review the names and boundaries of constituencies at intervals of not less than eight years, and not more than twelve years, but any review shall be completed at least twelve months before a general election of members of Parliament.

(3)

The Commission shall review the number, names and boundaries of wards periodically.

(4)

If a general election is to be held within twelve months after the completion of a review by the Commission, the new boundaries shall not take effect for purposes of that election.

(5)

The boundaries of each constituency shall be such that the number of inhabitants in the constituency is, as nearly as possible, equal to the population quota, but the number of inhabitants of a constituency may be greater or lesser than the population quota in the manner specified in clause (6) to take account of—

(a)

geographical features and urban centres;

(b)

community of interest, historical, economic and cultural ties; and

(c)

means of communication.

(6)

The number of inhabitants of a constituency or ward may be greater or lesser than the population quota by a margin of not more than—

(a)

forty per cent for cities and sparsely populated areas; and

(b)

thirty per cent for the other areas.

(7)

In reviewing constituency and ward boundaries the Commission shall—

(a)

consult all interested parties; and

(b)

progressively work towards ensuring that the number of inhabitants in each constituency and ward is, as nearly as possible, equal to the population quota.

(8)

If necessary, the Commission shall alter the names and boundaries of constituencies, and the number, names and boundaries of wards.

(9)

Subject to clauses (1), (2), (3) and (4), the names and details of the boundaries of constituencies and wards determined by the Commission shall be published in the Gazette, and shall come into effect on the dissolution of Parliament first following their publication.

(10)

A person may apply to the High Court for review of a decision of the Commission made under this Article.

(11)

An application for the review of a decision made under this Article shall be filed within thirty days of the publication of the decision in the Gazette and shall be heard and determined within three months of the date on which it is filed.

(12)

For the purposes of this Article, “population quota” means the number obtained by dividing the number of inhabitants of Kenya by the number of constituencies or wards, as applicable, into which Kenya is divided under this Article.

90.
Allocation of party list seats
(1)

Elections for the seats in Parliament provided for under Articles 97(1)(c) and 98(1)(b), (c) and (d), and for the members of county assemblies under article 177(1)(b) and (c), shall be on the basis of proportional representation by use of party lists.

(2)

The Independent Electoral and Boundaries Commission shall be responsible for the conduct and supervision of elections for seats provided for under clause (1) and shall ensure that—

(a)

each political party participating in a general election nominates and submits a list of all the persons who would stand elected if the party were to be entitled to all the seats provided for under clause (1), within the time prescribed by national legislation;

(b)

except in the case of the seats provided for under Article 98(1)(b), each party list comprises the appropriate number of qualified candidates and alternates between male and female candidates in the priority in which they are listed; and

(c)

except in the case of county assembly seats, each party list reflects the regional and ethnic diversity of the people of Kenya.

(3)

The seats referred to in clause (1) shall be allocated to political parties in proportion to the total number of seats won by candidates of the political party at the general election.

PART 3 – POLITICAL PARTIES
91.
Basic requirements for political parties
(1)

Every political party shall—

(a)

have a national character as prescribed by an Act of Parliament;

(b)

have a democratically elected governing body;

(c)

promote and uphold national unity;

(d)

abide by the democratic principles of good governance, promote and practise democracy through regular, fair and free elections within the party;

(e)

respect the right of all persons to participate in the political process, including minorities and marginalised groups;

(f)

respect and promote human rights and fundamental freedoms, and gender equality and equity;

(g)

promote the objects and principles of this Constitution and the rule of law; and

(h)

subscribe to and observe the code of conduct for political parties.

(2)

A political party shall not—

(a)

be founded on a religious, linguistic, racial, ethnic, gender or regional basis or seek to engage in advocacy of hatred on any such basis;

(b)

engage in or encourage violence by, or intimidation of, its members, supporters, opponents or any other person;

(c)

establish or maintain a paramilitary force, militia or similar organisation;

(d)

engage in bribery or other forms of corruption; or

(e)

except as is provided under this Chapter or by an Act of Parliament, accept or use public resources to promote its interests or its candidates in elections.

92.
Legislation on political parties

Parliament shall enact legislation to provide for—

(a)

the reasonable and equitable allocation of airtime, by State-owned and other specified categories of broadcasting media, to political parties either generally or during election campaigns;

(b)

the regulation of freedom to broadcast in order to ensure fair election campaigning;

(c)

the regulation of political parties;

(d)

the roles and functions of political parties;

(e)

the registration and supervision of political parties;

(f)

the establishment and management of a political parties fund;

(g)

the accounts and audit of political parties;

(h)

restrictions on the use of public resources to promote the interests of political parties; and

(i)

any other matters necessary for the management of political parties.

CHAPTER EIGHT – THE LEGISLATURE
PART 1 – ESTABLISHMENT AND ROLE OF PARLIAMENT
93.
Establishment of Parliament
(1)

There is established a Parliament of Kenya, which shall consist of the National Assembly and the Senate.

(2)

The National Assembly and the Senate shall perform their respective functions in accordance with this Constitution.

94.
Role of Parliament
(1)

The legislative authority of the Republic is derived from the people and, at the national level, is vested in and exercised by Parliament.

(2)

Parliament manifests the diversity of the nation, represents the will of the people, and exercises their sovereignty.

(3)

Parliament may consider and pass amendments to this Constitution, and alter county boundaries as provided for in this Constitution.

(4)

Parliament shall protect this Constitution and promote the democratic governance of the Republic.

(5)

No person or body, other than Parliament, has the power to make provision having the force of law in Kenya except under authority conferred by this Constitution or by legislation.

(6)

An Act of Parliament, or legislation of a county, that confers on any State organ, State officer or person the authority to make provision having the force of law in Kenya, as contemplated in clause (5), shall expressly specify the purpose and objectives for which that authority is conferred, the limits of the authority, the nature and scope of the law that may be made, and the principles and standards applicable to the law made under the authority.

95.
Role of the National Assembly
(1)

The National Assembly represents the people of the constituencies and special interests in the National Assembly.

(2)

The National Assembly deliberates on and resolves issues of concern to the people.

(3)

The National Assembly enacts legislation in accordance with Part 4 of this Chapter.

(4)

The National Assembly—

(a)

determines the allocation of national revenue between the levels of government, as provided in Part 4 of Chapter Twelve;

(b)

appropriates funds for expenditure by the national government and other national State organs; and

(c)

exercises oversight over national revenue and its expenditure.

(5)

The National Assembly—

(a)

reviews the conduct in office of the President, the Deputy President and other State officers and initiates the process of removing them from office; and

(b)

exercises oversight of State organs.

(6)

The National Assembly approves declarations of war and extensions of states of emergency.

96.
Role of the Senate
(1)

The Senate represents the counties, and serves to protect the interests of the counties and their governments.

(2)

The Senate participates in the law-making function of Parliament by considering, debating and approving Bills concerning counties, as provided in Articles 109 to 113.

(3)

The Senate determines the allocation of national revenue among counties, as provided in Article 217, and exercises oversight over national revenue allocated to the county governments.

(4)

The Senate participates in the oversight of State officers by considering and determining any resolution to remove the President or Deputy President from office in accordance with Article 145.

PART 2 – COMPOSITION AND MEMBERSHIP OF PARLIAMENT
97.
Membership of the National Assembly
(1)

The National Assembly consists of—

(a)

two hundred and ninety members, each elected by the registered voters of single member constituencies;

(b)

forty-seven women, each elected by the registered voters of the counties, each county constituting a single member constituency;

(c)

twelve members nominated by parliamentary political parties according to their proportion of members of the National Assembly in accordance with Article 90, to represent special interests including the youth, persons with disabilities and workers; and

(d)

the Speaker, who is an ex officio member.

(2)

Nothing in this Article shall be construed as excluding any person from contesting an election under clause (1)(a).

98.
Membership of the Senate
(1)

The Senate consists of—

(a)

forty-seven members each elected by the registered voters of the counties, each county constituting a single member constituency;

(b)

sixteen women members who shall be nominated by political parties according to their proportion of members of the Senate elected under clause (a) in accordance with Article 90;

(c)

two members, being one man and one woman, representing the youth;

(d)

two members, being one man and one woman, representing persons with disabilities; and

(e)

the Speaker, who shall be an ex officio member.

(2)

The members referred to in clause (1)(c) and (d) shall be elected in accordance with Article 90.

(3)

Nothing in this Article shall be construed as excluding any person from contesting an election under clause (1)(a).

99.
Qualifications and disqualifications for election as member of Parliament
(1)

Unless disqualified under clause (2), a person is eligible for election as a member of Parliament if the person—

(a)

is registered as a voter;

(b)

satisfies any educational, moral and ethical requirements prescribed by this Constitution or by an Act of Parliament; and

(c)

is nominated by a political party, or is an independent candidate who is supported—

(i) in the case of election to the National Assembly, by at least one thousand registered voters in the constituency; or
(ii) in the case of election to the Senate, by at least two thousand registered voters in the county.
(2)

A person is disqualified from being elected a member of Parliament if the person—

(a)

is a State officer or other public officer, other than a member of Parliament;

(b)

has, at any time within the five years immediately preceding the date of election, held office as a member of the Independent Electoral and Boundaries Commission;

(c)

has not been a citizen of Kenya for at least the ten years immediately preceding the date of election;

(d)

is a member of a county assembly;

(e)

is of unsound mind;

(f)

is an undischarged bankrupt;

(g)

is subject to a sentence of imprisonment of at least six months, as at the date of registration as a candidate, or at the date of election; or

(h)

is found, in accordance with any law, to have misused or abused a State office or public office or in any way to have contravened Chapter Six.

(3)

A person is not disqualified under clause (2) unless all possibility of appeal or review of the relevant sentence or decision has been exhausted.

100.
Promotion of representation of marginalised groups

Parliament shall enact legislation to promote the representation in Parliament of—

(a)

women;

(b)

persons with disabilities;

(c)

youth;

(d)

ethnic and other minorities; and

(e)

marginalised communities.

101.
Election of members of Parliament
(1)

A general election of members of Parliament shall be held on the second Tuesday in August in every fifth year.

(2)

Whenever a vacancy occurs in the office of a member of the National Assembly under Article 97(1)(c), or of the Senate under Article 98(1)(b), (c) or (d), the respective Speaker shall, within twenty-one days of the occurrence of the vacancy, give notice in writing of the vacancy to—

(a)

the Independent Electoral and Boundaries Commission; and

(b)

the political party on whose party list the member was elected or nominated.

(3)

A vacancy referred to in clause (2) shall, subject to clause (5), be filled in the manner prescribed by an Act of Parliament within twenty-one days of the notification by the respective Speaker.

(4)

Whenever a vacancy occurs in the office of a member of the National Assembly elected under Article 97(1)(a) or (b), or of the Senate elected under Article 98(1)(a)—

(a)

the respective Speaker shall, within twenty-one days after the occurrence of the vacancy, give notice in writing of the vacancy to the Independent Electoral and Boundaries Commission; and

(b)

a by-election shall be held within ninety days of the occurrence of the vacancy, subject to clause (5).

(5)

A vacancy referred to in clause (4) shall not be filled within the three months immediately before a general election.

102.
Term of Parliament
(1)

The term of each House of Parliament expires on the date of the next general election.

(2)

When Kenya is at war, Parliament may, by resolution supported in each House by at least two-thirds of all the members of the House, from time to time extend the term of Parliament by not more than six months at a time.

(3)

The term of Parliament shall not be extended under clause (2) for a total of more than twelve months.

103.
Vacation of office of member of Parliament
(1)

The office of a member of Parliament becomes vacant—

(a)

if the member dies;

(b)

if, during any session of Parliament, the member is absent from eight sittings of the relevant House without permission, in writing, from the Speaker, and is unable to offer a satisfactory explanation for the absence to the relevant committee;

(c)

if the member is otherwise removed from office under this Constitution or legislation enacted under Article 80;

(d)

if the member resigns from Parliament in writing to the Speaker;

(e)

if, having been elected to Parliament—

(i) as a member of a political party, the member resigns from that party or is deemed to have resigned from the party as determined in accordance with the legislation contemplated in clause (2); or
(ii) as an independent candidate, the member joins a political party;
(f)

at the end of the term of the relevant House; or

(g)

if the member becomes disqualified for election to Parliament under Article 99(2)(d) to (h).

(3)

Parliament shall enact legislation providing for the circumstances under which a member of a political party shall be deemed, for the purposes of clause (1)(e), to have resigned from the party.

104.
Right of recall
(1)

The electorate under Articles 97 and 98 have the right to recall the member of Parliament representing their constituency before the end of the term of the relevant House of Parliament.

(2)

Parliament shall enact legislation to provide for the grounds on which a member may be recalled and the procedure to be followed.

105.
Determination of questions of membership
(1)

The High Court shall hear and determine any question whether—

(a)

a person has been validly elected as a member of Parliament; or

(b)

the seat of a member has become vacant.

(2)

A question under clause (1) shall be heard and determined within six months of the date of lodging the petition.

(3)

Parliament shall enact legislation to give full effect to this Article.

PART 3 – OFFICES OF PARLIAMENT
106.
Speakers and Deputy Speakers of Parliament
(1)

There shall be—

(a)

a Speaker for each House of Parliament, who shall be elected by that House in accordance with the Standing Orders, from among persons who are qualified to be elected as members of Parliament but are not such members; and

(b)

a Deputy Speaker for each House of Parliament, who shall be elected by that House in accordance with the Standing Orders, from among the members of that House.

(2)

The office of Speaker or Deputy Speaker shall become vacant—

(a)

when a new House of Parliament first meets after an election;

(b)

if the office holder, as a member of the relevant House, vacates office under Article 103;

(c)

if the relevant House so resolves by resolution supported by the votes of at least two-thirds of its members; or

(d)

if the office holder resigns from office in a letter addressed to the relevant House.

107.
Presiding in Parliament
(1)

At any sitting of a House of Parliament—

(a)

the Speaker presides;

(b)

in the absence of the Speaker, the Deputy Speaker presides; and

(c)

in the absence of the Speaker and the Deputy Speaker, another member of the House elected by the House presides.

(2)

At a joint sitting of the Houses of Parliament, the Speaker of the National Assembly shall preside, assisted by the Speaker of the Senate.

108.
Party leaders
(1)

There shall be a leader of the majority party and a leader of the minority party.

(2)

The leader of the majority party shall be the person who is the leader in the National Assembly of the largest party or coalition of parties.

(3)

The leader of the minority party shall be the person who is the leader in the National Assembly of the second largest party or coalition of parties.

(4)

The following order of precedence shall be observed in the National Assembly—

(a)

the Speaker of the National Assembly;

(b)

the leader of the majority party; and

(c)

the leader of the minority party.

PART 4 – PROCEDURES FOR ENACTING LEGISLATION
109.
Exercise of legislative powers
(1)

Parliament shall exercise its legislative power through Bills passed by Parliament and assented to by the President.

(2)

Any Bill may originate in the National Assembly.

(3)

A Bill not concerning county government is considered only in the National Assembly, and passed in accordance with Article 122 and the Standing Orders of the Assembly.

(4)

A Bill concerning county government may originate in the National Assembly or the Senate, and is passed in accordance with Articles 110 to 113, Articles 122 and 123 and the Standing Orders of the Houses.

(5)

A Bill may be introduced by any member or committee of the relevant House of Parliament, but a money Bill may be introduced only in the National Assembly in accordance with Article 114.

110.
Bills concerning county government
(1)

In this Constitution, “a Bill concerning county government” means—

(a)

a Bill containing provisions affecting the functions and powers of the county governments set out in the Fourth Schedule;

(b)

a Bill relating to the election of members of a county assembly or a county executive; and

(c)

a Bill referred to in Chapter Twelve affecting the finances of county governments.

(2)

A Bill concerning county governments is—

(a)

a special Bill, which shall be considered under Article 111, if it—

(i) relates to the election of members of a county assembly or a county executive; or
(ii) is the annual County Allocation of Revenue Bill referred to in Article 218; or
(b)

an ordinary Bill, which shall be considered under Article 112, in any other case.

(3)

Before either House considers a Bill, the Speakers of the National Assembly and Senate shall jointly resolve any question as to whether it is a Bill concerning counties and, if it is, whether it is a special or an ordinary Bill.

(4)

When any Bill concerning county government has been passed by one House of Parliament, the Speaker of that House shall refer it to the Speaker of the other House.

(5)

If both Houses pass the Bill in the same form, the Speaker of the House in which the Bill originated shall, within seven days, refer the Bill to the President for assent.

111.
Special Bills concerning county governments
(1)

A special Bill concerning a county government shall proceed in the same manner as an ordinary Bill concerning county government, subject to clauses (2) and (3).

(2)

The National Assembly may amend or veto a special Bill that has been passed by the Senate only by a resolution supported by at least two-thirds of the members of the Assembly.

(3)

If a resolution in the National Assembly to amend or veto a special Bill fails to pass, the Speaker of the Assembly shall, within seven days, refer the Bill, in the form adopted by the Senate, to the President for assent.

112.
Ordinary Bills concerning county governments
(1)

If one House passes an ordinary Bill concerning counties, and the second House—

(a)

rejects the Bill, it shall be referred to a mediation committee appointed under Article 113; or

(b)

passes the Bill in an amended form, it shall be referred back to the originating House for reconsideration.

(2)

If, after the originating House has reconsidered a Bill referred back to it under clause (1)(b), that House—

(a)

passes the Bill as amended, the Speaker of that House shall refer the Bill to the President within seven days for assent; or

(b)

rejects the Bill as amended, the Bill shall be referred to a mediation committee under Article 113.

113.
Mediation committees
(1)

If a Bill is referred to a mediation committee under Article 112, the Speakers of both Houses shall appoint a mediation committee consisting of equal numbers of members of each House to attempt to develop a version of the Bill that both Houses will pass.

(2)

If the mediation committee agrees on a version of the Bill, each House shall vote to approve or reject that version of the Bill.

(3)

If both Houses approve the version of the Bill proposed by the mediation committee, the Speaker of the National Assembly shall refer the Bill to the President within seven days for assent.

(4)

If the mediation committee fails to agree on a version of the Bill within thirty days, or if a version proposed by the committee is rejected by either House, the Bill is defeated.

114.
Money Bills
(1)

A money Bill may not deal with any matter other than those listed in the definition of “a money Bill” in clause (3).

(2)

If, in the opinion of the Speaker of the National Assembly, a motion makes provision for a matter listed in the definition of “a money Bill”, the Assembly may proceed only in accordance with the recommendation of the relevant Committee of the Assembly after taking into account the views of the Cabinet Secretary responsible for finance.

(3)

In this Constitution, “a money Bill” means a Bill, other than a Bill specified in Article 218, that contains provisions dealing with—

(a)

taxes;

(b)

the imposition of charges on a public fund or the variation or repeal of any of those charges;

(c)

the appropriation, receipt, custody, investment or issue of public money;

(d)

the raising or guaranteeing of any loan or its repayment; or

(e)

matters incidental to any of those matters.

(4)

In clause (3), “tax”, “public money”, and “loan” do not include any tax, public money or loan raised by a county.

115.
Presidential assent and referral
(1)

Within fourteen days after receipt of a Bill, the President shall—

(a)

assent to the Bill; or

(b)

refer the Bill back to Parliament for reconsideration by Parliament, noting any reservations that the President has concerning the Bill.

(2)

If the President refers a Bill back for reconsideration, Parliament may, following the appropriate procedures under this Part—

(a)

amend the Bill in light of the President’s reservations; or

(b)

pass the Bill a second time without amendment.

(3)

If Parliament amends the Bill fully accommodating the President’s reservations, the appropriate Speaker shall re-submit it to the President for assent.

(4)

Parliament, after considering the President’s reservations, may pass the Bill a second time, without amendment, or with amendments that do not fully accommodate the President’s reservations, by a vote supported—

(a)

by two-thirds of members of the National Assembly; and

(b)

two-thirds of the delegations in the Senate, if it is a Bill that requires the approval of the Senate.

(5)

If Parliament has passed a Bill under clause (4)—

(a)

the appropriate Speaker shall within seven days re-submit it to the President; and

(b)

the President shall within seven days assent to the Bill.

(6)

If the President does not assent to a Bill or refer it back within the period prescribed in clause (1), or assent to it under clause (5)(b), the Bill shall be taken to have been assented to on the expiry of that period.

116.
Coming into force of laws
(1)

A Bill passed by Parliament and assented to by the President shall be published in the Gazette as an Act of Parliament within seven days after-assent.

(2)

Subject to clause (3), an Act of Parliament comes into force on the fourteenth day after its publication in the Gazette, unless the Act stipulates a different date on or time at which it will come into force.

(3)

An Act of Parliament that confers a direct pecuniary interest on members of Parliament shall not come into force until after the next general election of members of Parliament.

(4)

Clause (3) does not apply to an interest that members of Parliament have as members of the public.

PART 5 – PARLIAMENT’S GENERAL PROCEDURES AND RULES
117.
Powers, privileges and immunities
(1)

There shall be freedom of speech and debate in Parliament.

(2)

Parliament may, for the purpose of the orderly and effective discharge of the business of Parliament, provide for the powers, privileges and immunities of Parliament, its committees, the leader of the majority party, the leader of the minority party, the chairpersons of committees and members.

118.
Public access and participation
(1)

Parliament shall—

(a)

conduct its business in an open manner, and its sittings and those of its committees shall be open to the public; and

(b)

facilitate public participation and involvement in the legislative and other business of Parliament and its committees.

(2)

Parliament may not exclude the public, or any media, from any sitting unless in exceptional circumstances the relevant Speaker has determined that there are justifiable reasons for the exclusion.

119.
Right to petition Parliament
(1)

Every person has a right to petition Parliament to consider any matter within its authority, including to enact, amend or repeal any legislation.

(2)

Parliament shall make provision for the procedure for the exercise of this right.

120.
Official languages of Parliament
(1)

The official languages of Parliament shall be Kiswahili, English and Kenyan Sign language, and the business of Parliament may be conducted in English, Kiswahili and Kenyan Sign language.

(2)

In case of a conflict between different language versions of an Act of Parliament, the version signed by the President shall prevail.

121.
Quorum

The quorum of Parliament shall be–—

(a)

fifty members, in the case of the National Assembly; or

(b)

fifteen members, in the case of the Senate.

122.
Voting in Parliament
(1)

Except as otherwise provided in this Constitution, any question proposed for decision in either House of Parliament shall be determined by a majority of the members in that House, present and voting.

(2)

On a question proposed for decision in either House—

(a)

the Speaker has no vote; and

(b)

in the case of a tie, the question is lost.

(3)

A member shall not vote on any question in which the member has a pecuniary interest.

(4)

In reckoning the number of members of a House of Parliament for any purpose of voting in that House, the Speaker of that House shall not be counted as a member.

123.
Decisions of Senate
(1)

On election, all the members of the Senate who were registered as voters in a particular county shall collectively constitute a single delegation for purposes of clause (4) and the member elected under Article 98(1)(a) shall be the head of the delegation.

(2)

When the Senate is to vote on any matter other than a Bill, the Speaker shall rule on whether the matter affects or does not affect counties.

(3)

When the Senate votes on a matter that does not affect counties, each senator has one vote.

(4)

Except as provided otherwise in this Constitution, in any matter in the Senate affecting counties—

(a)

each county delegation shall have one vote to be cast on behalf of the county by the head of the county delegation or, in the absence of the head of the delegation, by another member of the delegation designated by the head of the delegation;

(b)

the person who votes on behalf of a delegation shall determine whether or not to vote in support of, or against, the matter, after consulting the other members of the delegation; and

(c)

the matter is carried only if it is supported by a majority of all the delegations.

124.
Committees and Standing Orders
(1)

Each House of Parliament may establish committees, and shall make Standing Orders for the orderly conduct of its proceedings, including the proceedings of its committees.

(2)

Parliament may establish joint committees consisting of members of both Houses and may jointly regulate the procedure of those committees.

(3)

The proceedings of either House are not invalid just because of—

(a)

a vacancy in its membership; or

(b)

the presence or participation of any person not entitled to be present at, or to participate in, the proceedings of the House.

(4)

When a House of Parliament considers any appointment for which its approval is required under this Constitution or an Act of Parliament—

(a)

the appointment shall be considered by a committee of the relevant House;

(b)

the committee’s recommendation shall be tabled in the House for approval; and

(c)

the proceedings of the committee and the House shall be open to the public.

125.
Power to call for evidence
(1)

Either House of Parliament, and any of its committees, has power to summon any person to appear before it for the purpose of giving evidence or providing information.

(2)

For the purposes of clause (1), a House of Parliament and any of its committees has the same powers as the High Court—

(a)

to enforce the attendance of witnesses and examine them on oath, affirmation or otherwise;

(b)

to compel the production of documents; and

(c)

to issue a commission or request to examine witnesses abroad.

PART 6 – MISCELLANEOUS
126.
Location of sittings of Parliament
(1)

A sitting of either House may be held at any place within Kenya and may commence at any time that the House appoints.

(2)

Whenever a new House is elected, the President, by notice in the Gazette, shall appoint the place and date for the first sitting of the new House, which shall be not more than thirty days after the election.

127.
Parliamentary Service Commission
(1)

There is established the Parliamentary Service Commission.

(2)

The Commission consists of—

(a)

the Speaker of the National Assembly, as chairperson;

(b)

a vice-chairperson elected by the Commission from the members appointed under paragraph (c);

(c)

seven members appointed by Parliament from among its members of whom—

(i) four shall be nominated equally from both Houses by the party or coalition of parties forming the national government, of whom at least two shall be women; and
(ii) three shall be nominated by the parties not forming the national government, at least one of whom shall be nominated from each House and at least one of whom shall be a woman; and
(d)

one man and one woman appointed by Parliament from among persons who are experienced in public affairs, but are not members of Parliament.

(3)

The Clerk of the Senate shall be the Secretary to the Commission.

(4)

A member of the Commission shall vacate office—

(a)

if the person is a member of Parliament—

(i) at the end of the term of the House of which the person is a member; or
(ii) if the person ceases to be a member of Parliament; or
(b)

if the person is an appointed member, on revocation of the person’s appointment by Parliament.

(5)

Despite clause (4), when the term of a House of Parliament ends, a member of the Commission appointed under clause (2)(c) shall continue in office until a new member has been appointed in the member’s place by the next House.

(6)

The Commission is responsible for—

(a)

providing services and facilities to ensure the efficient and effective functioning of Parliament;

(b)

constituting offices in the parliamentary service, and appointing and supervising office holders;

(c)

preparing annual estimates of expenditure of the parliamentary service and submitting them to the National Assembly for approval, and exercising budgetary control over the service;

(d)

undertaking, singly or jointly with other relevant organisations, programmes to promote the ideals of parliamentary democracy; and

(e)

performing other functions—

(i) necessary for the well-being of the members and staff of Parliament; or
(ii) prescribed by national legislation.
128.
Clerks and staff of Parliament
(1)

There shall be a Clerk for each House of Parliament, appointed by the Parliamentary Service Commission with the approval of the relevant House.

(2)

The offices of the Clerks and offices of members of the staff of the Clerks shall be offices in the Parliamentary Service.

CHAPTER NINE – THE EXECUTIVE
PART 1 – PRINCIPLES AND STRUCTURE OF THE NATIONAL EXECUTIVE
129.
Principles of executive authority
(1)

Executive authority derives from the people of Kenya and shall be exercised in accordance with this Constitution.

(2)

Executive authority shall be exercised in a manner compatible with the principle of service to the people of Kenya, and for their well-being and benefit.

130.
The National Executive
(1)

The national executive of the Republic comprises the President, the Deputy President and the rest of the Cabinet.

(2)

The composition of the national executive shall reflect the regional and ethnic diversity of the people of Kenya.

PART 2 – THE PRESIDENT AND DEPUTY PRESIDENT
131.
Authority of the President
(1)

The President—

(a)

is the Head of State and Government;

(b)

exercises the executive authority of the Republic, with the assistance of the Deputy President and Cabinet Secretaries;

(c)

is the Commander-in-Chief of the Kenya Defence Forces;

(d)

is the chairperson of the National Security Council; and

(e)

is a symbol of national unity.

(2)

The President shall—

(a)

respect, uphold and safeguard this Constitution;

(b)

safeguard the sovereignty of the Republic;

(c)

promote and enhance the unity of the nation;

(d)

promote respect for the diversity of the people and communities of Kenya; and

(e)

ensure the protection of human rights and fundamental freedoms and the rule of law.

(3)

The President shall not hold any other State or public office.

132.
Functions of the President
(1)

The President shall—

(a)

address the opening of each newly elected Parliament;

(b)

address a special sitting of Parliament once every year and may address Parliament at any other time; and

(c)

once every year—

(i) report, in an address to the nation, on all the measures taken and the progress achieved in the realisation of the national values, referred to in Article 10;
(ii) publish in the Gazette the details of the measures and progress under sub-paragraph (i); and
(iii) submit a report for debate to the National Assembly on the progress made in fulfilling the international obligations of the Republic.
(2)

The President shall nominate and, with the approval of the National Assembly, appoint, and may dismiss—

(a)

the Cabinet Secretaries, in accordance with Article 152;

(b)

the Attorney-General, in accordance with Article 156;

(c)

the Secretary to the Cabinet in accordance with Article 154;

(d)

Principal Secretaries in accordance with Article 155;

(e)

high commissioners, ambassadors and diplomatic and consular representatives; and

(f)

in accordance with this Constitution, any other State or public officer whom this Constitution requires or empowers the President to appoint or dismiss.

(3)

The President shall—

(a)

chair Cabinet meetings;

(b)

direct and co-ordinate the functions of ministries and government departments; and

(c)

by a decision published in the Gazette, assign responsibility for the implementation and administration of any Act of Parliament to a Cabinet Secretary, to the extent not inconsistent with any Act of Parliament.

(4)

The President may—

(a)

perform any other executive function provided for in this Constitution or in national legislation and, except as otherwise provided for in this Constitution, may establish an office in the public service in accordance with the recommendation of the Public Service Commission;

(b)

receive foreign diplomatic and consular representatives;

(c)

confer honours in the name of the people and the Republic;

(d)

subject to Article 58, declare a state of emergency; and

(e)

with the approval of Parliament, declare war.

(5)

The President shall ensure that the international obligations of the Republic are fulfilled through the actions of the relevant Cabinet Secretaries.

133.
Power of mercy
(1)

On the petition of any person, the President may exercise a power of mercy in accordance with the advice of the Advisory Committee established under clause (2), by—

(a)

granting a free or conditional pardon to a person convicted of an offence;

(b)

postponing the carrying out of a punishment, either for a specified or indefinite period;

(c)

substituting a less severe form of punishment; or

(d)

remitting all or part of a punishment.

(2)

There shall be an Advisory Committee on the Power of Mercy, comprising—

(a)

the Attorney-General;

(b)

the Cabinet Secretary responsible for correctional services; and

(c)

at least five other members as prescribed by an Act of Parliament, none of whom may be a State officer or in public service.

(3)

Parliament shall enact legislation to provide for—

(a)

the tenure of the members of the Advisory Committee;

(b)

the procedure of the Advisory Committee; and

(c)

criteria that shall be applied by the Advisory Committee in formulating its advice.

(4)

The Advisory Committee may take into account the views of the victims of the offence in respect of which it is considering making recommendations to the President.

134.
Exercise of presidential powers during temporary incumbency
(1)

A person who holds the office of President or who is authorised in terms of this Constitution to exercise the powers of the President—

(a)

during the period commencing on the date of the first vote in a presidential election, and ending when the newly elected President assumes office; or

(b)

while the President is absent or incapacitated, or at other times contemplated in Article 147(3),

may not exercise the powers of the President specified in clause (2).

(2)

The powers referred to in clause (1) are—

(a)

the nomination or appointment of the judges of the superior courts;

(b)

the nomination or appointment of any other public officer whom this Constitution or legislation requires the President to appoint;

(c)

the nomination or appointment or dismissal of Cabinet Secretaries and other State or Public officers;

(d)

the nomination or appointment or dismissal of a high commissioner, ambassador, or diplomatic or consular representative;

(e)

the power of mercy; and

(f)

the authority to confer honours in the name of the people and the Republic.

135.
Decisions of the President

A decision of the President in the performance of any function of the President under this Constitution shall be in writing and shall bear the seal and signature of the President.

136.
Election of the President
(1)

The President shall be elected by registered voters in a national election conducted in accordance with this Constitution and any Act of Parliament regulating presidential elections.

(2)

An election of the President shall be held—

(a)

on the same day as a general election of Members of Parliament, being the second Tuesday in August, in every fifth year; or

(b)

in the circumstances contemplated in Article 146.

137.
Qualifications and disqualifications for election as President
(1)

A person qualifies for nomination as a presidential candidate if the person—

(a)

is a citizen by birth;

(b)

is qualified to stand for election as a member of Parliament;

(c)

is nominated by a political party, or is an independent candidate; and

(d)

is nominated by not fewer than two thousand voters from each of a majority of the counties.

(2)

A person is not qualified for nomination as a presidential candidate if the person—

(a)

owes allegiance to a foreign state; or

(b)

is a public officer, or is acting in any State or other public office.

(3)

Clause (2)(b) shall not apply to—

(a)

the President;

(b)

the Deputy President; or

(c)

a member of Parliament.

138.
Procedure at presidential election
(1)

If only one candidate for President is nominated, that candidate shall be declared elected.

(2)

If two or more candidates for President are nominated, an election shall be held in each constituency.

(3)

In a presidential election—

(a)

all persons registered as voters for the purposes of parliamentary elections are entitled to vote;

(b)

the poll shall be taken by secret ballot on the day specified in Article 101(1) at the time, in the places and in the manner prescribed under an Act of Parliament; and

(c)

after counting the votes in the polling stations, the Independent Electoral and Boundaries Commission shall tally and verify the count and declare the result.

(4)

A candidate shall be declared elected as President if the candidate receives—

(a)

more than half of all the votes cast in the election; and

(b)

at least twenty-five per cent of the votes cast in each of more than half of the counties.

(5)

If no candidate is elected, a fresh election shall be held within thirty days after the previous election and in that fresh election the only candidates shall be—

(a)

the candidate, or the candidates, who received the greatest number of votes; and

(b)

the candidate, or the candidates, who received the second greatest number of votes.

(6)

If more than one candidate receives the greatest number of votes, clause (5)(b) shall not apply and the only candidates in the fresh election shall be those contemplated in clause (5)(a).

(7)

The candidate who receives the most votes in the fresh election shall be declared elected as President.

(8)

A presidential election shall be cancelled and a new election held if—

(a)

no person has been nominated as a candidate before the expiry of the period set for the delivery of nominations;

(b)

a candidate for election as President or Deputy President dies on or before the scheduled election date; or

(c)

a candidate who would have been entitled to be declared elected as President, dies before being declared elected as President.

(9)

A new presidential election under clause (8) shall be held within sixty days after the date set for the previous presidential election.

(10)

Within seven days after the presidential election, the chairperson of the Independent Electoral and Boundaries Commission shall—

(a)

declare the result of the election; and

(b)

deliver a written notification of the result to the Chief Justice and the incumbent President.

139.
Death before assuming office
(1)

If a President-elect dies after being declared elected as President, but before assuming office—

(a)

the Deputy President-elect shall be sworn in as acting President on the date on which the President-elect would otherwise have been sworn-in; and

(b)

a fresh election to the office of President shall be held within sixty days after the death of the President-elect.

(2)

If the Deputy President-elect dies before assuming office, the office of the Deputy President shall be declared vacant on the assumption of office by the person declared elected as the President.

(3)

If both the persons declared elected as the President and the Deputy President die before assuming office—

(a)

the Speaker of the National Assembly shall act as President from the date on which the President-elect would otherwise have been sworn-in; and

(b)

a fresh presidential election shall be conducted within sixty days after the second death.

140.
Questions as to validity of presidential election
(1)

A person may file a petition in the Supreme Court to challenge the election of the President-elect within seven days after the date of the declaration of the results of the presidential election.

(2)

Within fourteen days after the filing of a petition under clause (1), the Supreme Court shall hear and determine the petition and its decision shall be final.

(3)

If the Supreme Court determines the election of the President-elect to be invalid, a fresh election shall be held within sixty days after the determination.

141.
Assumption of office of President
(1)

The swearing in of the President-elect shall be in public before the Chief Justice, or, in the absence of the Chief Justice, the Deputy Chief Justice.

(2)

The President-elect shall be sworn in on the first Tuesday following—

(a)

the fourteenth day after the date of the declaration of the result of the presidential election, if no petition has been filed under Article 140; or

(b)

the seventh day following the date on which the court renders a decision declaring the election to be valid, if any petition has been filed under Article 140.

(3)

The President-elect assumes office by taking and subscribing the oath or affirmation of allegiance, and the oath or affirmation for the execution of the functions of office, as prescribed in the Third Schedule.

(4)

Parliament shall by legislation provide for the procedure and ceremony for the swearing-in of a President-elect.

142.
Term of office of President
(1)

The President shall hold office for a term beginning on the date on which the President was sworn in, and ending when the person next elected President in accordance with Article 136(2)(a) is sworn in.

(2)

A person shall not hold office as President for more than two terms.

143.
Protection from legal proceedings
(1)

Criminal proceedings shall not be instituted or continued in any court against the President or a person performing the functions of that office, during their tenure of office.

(2)

Civil proceedings shall not be instituted in any court against the President or the person performing the functions of that office during their tenure of office in respect of anything done or not done in the exercise of their powers under this Constitution.

(3)

Where provision is made in law limiting the time within which proceedings under clause (1) or (2) may be brought against a person, a period of time during which the person holds or performs the functions of the office of the President shall not be taken into account in calculating the period of time prescribed by that law.

(4)

The immunity of the President under this Article shall not extend to a crime for which the President may be prosecuted under any treaty to which Kenya is party and which prohibits such immunity.

144.
Removal of President on grounds of incapacity
(1)

A member of the National Assembly, supported by at least a quarter of all the members, may move a motion for the investigation of the President’s physical or mental capacity to perform the functions of office.

(2)

If a motion under clause (1) is supported by a majority of all the members of the National Assembly—

(a)

the Speaker shall inform the Chief Justice of that resolution within two days; and

(b)

the President shall continue to perform the functions of the office pending the outcome of the proceedings required by this Article.

(3)

Within seven days after receiving notice of the resolution from the Speaker, the Chief Justice shall appoint a tribunal consisting of—

(a)

three persons who are qualified to practise medicine under the laws of Kenya, nominated by the body which by law is responsible for regulating the professional practice of medicine;

(b)

one advocate of the High Court nominated by the body which by law is responsible for regulating the professional practice of advocates; and

(c)

one person nominated by the President.

(4)

If the Chief Justice is unable to appoint a tribunal under clause (3), the Deputy Chief Justice shall appoint such a tribunal.

(5)

If the President is unable to nominate the person required to be nominated under clause (3)(c), the person shall be nominated by—

(a)

a member of the family of the President; or

(b)

if no such member is willing or able to make the nomination, by a close relative of the President.

(6)

The tribunal shall inquire into the matter and, within fourteen days after the appointment, report to the Chief Justice and to the Speaker of the National Assembly.

(7)

The Speaker shall cause the report of the tribunal to be tabled before the National Assembly within seven days after receiving it.

(8)

The report of the tribunal shall be final and not subject to appeal and if the tribunal reports that the President is capable of performing the functions of the office, the Speaker of the National Assembly shall so announce in the National Assembly.

(9)

If the tribunal reports that the President is incapable of performing the functions of the office, the National Assembly shall vote on whether to ratify the report.

(10)

If a majority of all the members of the National Assembly vote in favour of ratifying the report, the President shall cease to hold office.

145.
Removal of President by impeachment
(1)

A member of the National Assembly, supported by at least a third of all the members, may move a motion for the impeachment of the President—

(a)

on the ground of a gross violation of a provision of this Constitution or of any other law;

(b)

where there are serious reasons for believing that the President has committed a crime under national or international law; or

(c)

for gross misconduct.

(2)

If a motion under clause (1) is supported by at least two-thirds of all the members of the National Assembly—

(a)

the Speaker shall inform the Speaker of the Senate of that resolution within two days; and

(b)

the President shall continue to perform the functions of the office pending the outcome of the proceedings required by this Article.

(3)

Within seven days after receiving notice of a resolution from the Speaker of the National Assembly—

(a)

the Speaker of the Senate shall convene a meeting of the Senate to hear charges against the President; and

(b)

the Senate, by resolution, may appoint a special committee comprising eleven of its members to investigate the matter.

(4)

A special committee appointed under clause (3)(b) shall—

(a)

investigate the matter; and

(b)

report to the Senate within ten days whether it finds the particulars of the allegations against the President to have been substantiated.

(5)

The President shall have the right to appear and be represented before the special committee during its investigations.

(6)

If the special committee reports that the particulars of any allegation against the President—

(a)

have not been substantiated, further proceedings shall not be taken under this Article in respect of that allegation; or

(b)

have been substantiated, the Senate shall, after according the President an opportunity to be heard, vote on the impeachment charges.

(7)

If at least two-thirds of all the members of the Senate vote to uphold any impeachment charge, the President shall cease to hold office.

146.
Vacancy in the office of President
(1)

The office of President shall become vacant if the holder of the office—

(a)

dies;

(b)

resigns, in writing, addressed to the Speaker of the National Assembly; or

(c)

otherwise ceases to hold office under Article 144 or 145 or under any other provision of this Constitution.

(2)

When a vacancy occurs in the office of President—

(a)

the Deputy President shall assume office as President for the remainder of the term of the President; or

(b)

if the office of Deputy President is vacant, or the Deputy President is unable to assume the office of President, the Speaker of the National Assembly shall act as President and an election to the office of President shall be held within sixty days after the vacancy arose in the office of President.

(3)

A person who assumes the office of President under clause (2)(a), or following an election required by clause (2)(b), shall, unless otherwise removed from office under this Constitution, hold office until a newly elected President is sworn in following the next regularly scheduled election under Article 136 (2)(a).

(4)

If the Deputy President assumes office as President under clause (2)(a), or a person is elected to the office of President under clause (2)(b), the Deputy President, or the person elected, shall be deemed for the purposes of Article 142(2)—

(a)

to have served a full term as President if, at the date on which the person assumed office, more than two and a half years remain before the date of the next regularly scheduled election under Article 136 (2)(a); or

(b)

not to have served a term of office as President, in any other case.

147.
Functions of the Deputy President
(1)

The Deputy President shall be the principal assistant of the President and shall deputise for the President in the execution of the President’s functions.

(2)

The Deputy President shall perform the functions conferred by this Constitution and any other functions of the President as the President may assign.

(3)

Subject to Article 134, when the President is absent or is temporarily incapacitated, and during any other period that the President decides, the Deputy President shall act as the President.

(4)

The Deputy President shall not hold any other State or public office.

148.
Election and swearing-in of Deputy President
(1)

Each candidate in a presidential election shall nominate a person who is qualified for nomination for election as President, as a candidate for Deputy President.

(2)

For the purposes of clause (1), there shall be no separate nomination process for the Deputy President and Article 137(1)(d) shall not apply to a candidate for Deputy President.

(3)

The Independent Electoral and Boundaries Commission shall declare the candidate nominated by the person who is elected as the President to be elected as the Deputy President.

(4)

The swearing in of the Deputy President-elect shall be before the Chief Justice or, in the absence of the Chief Justice, the Deputy Chief Justice and in public.

(5)

The Deputy President-elect assumes office by taking and subscribing—

(a)

the oath or affirmation of allegiance; and

(b)

the oath or affirmation for the execution of the functions of office,

as prescribed in the Third Schedule.

(6)

The term of office of the Deputy President shall run from the date of the swearing in of the Deputy President, and shall end—

(a)

when the person next elected President at an election under Article 136 (2)(a) is sworn in;

(b)

on the Deputy President assuming the office of President; or

(c)

on resignation, death or removal from office of the Deputy President.

(7)

The Deputy President may resign from office at any time by notice, in writing, addressed to the President and the resignation shall take effect on the date and at the time specified in the notice, if any, or if a date is not specified, at noon on the day after the notice is delivered.

(8)

A person shall not hold office as Deputy President for more than two terms.

149.
Vacancy in the office of Deputy President
(1)

Within fourteen days after a vacancy in the office of Deputy President arises, the President shall nominate a person to fill the vacancy, and the National Assembly shall vote on the nomination within sixty days after receiving it.

(2)

If a person assumes office as Deputy President under clause (1), then, for the purposes of Article 148(8), the person shall be deemed—

(a)

to have served a full term as Deputy President if, at the date on which the person assumed office, more than two and a half years remain before the date of the next regularly scheduled election under Article 136(2)(a); or

(b)

not to have served a term of office as Deputy President, in any other case.

150.
Removal of Deputy President
(1)

The Deputy President may be removed from office—

(a)

on the ground of physical or mental incapacity to perform the functions of the office; or

(b)

on impeachment—

(i) on the ground of a gross violation of a provision of this Constitution or any other law;
(ii) where there are serious reasons to believe that the Deputy President has committed a crime under national or international law; or
(iii) for gross misconduct.
(2)

The provisions of Articles 144 and 145 relating to the removal of the President shall apply, with the necessary modifications, to the removal of the Deputy President.

151.
Remuneration and benefits of President and Deputy President
(1)

The remuneration and benefits payable to the President and the Deputy President shall be a charge on the Consolidated Fund.

(2)

The remuneration, benefits and privileges of the President and Deputy President shall not be varied to their disadvantage while in office.

(3)

The retirement benefits payable to a former President and a former Deputy President, the facilities available to and the privileges enjoyed by them, shall not be varied to their disadvantage during their lifetime.

PART 3 – THE CABINET
152.
Cabinet
(1)

The Cabinet consists of—

(a)

the President;

(b)

the Deputy President;

(c)

the Attorney-General; and

(d)

not fewer than fourteen and not more than twenty-two Cabinet Secretaries.

(2)

The President shall nominate and, with the approval of the National Assembly, appoint Cabinet Secretaries.

(3)

A Cabinet Secretary shall not be a Member of Parliament.

(4)

Each person appointed as a Cabinet Secretary—

(a)

assumes office by swearing or affirming faithfulness to the people and the Republic of Kenya and obedience to this Constitution, before the President and in accordance with the Third Schedule; and

(b)

may resign by delivering a written statement of resignation to the President.

(5)

The President—

(a)

may re-assign a Cabinet Secretary;

(b)

may dismiss a Cabinet Secretary; and

(c)

shall dismiss a Cabinet Secretary if required to do so by a resolution adopted under clauses (6) to (10).

(6)

A member of the National Assembly, supported by at least one-quarter of all the members of the Assembly, may propose a motion requiring the President to dismiss a Cabinet Secretary—

(a)

on the ground of a gross violation of a provision of this Constitution or of any other law;

(b)

where there are serious reasons for believing that the Cabinet Secretary has committed a crime under national or international law; or

(c)

for gross misconduct.

(7)

If a motion under clause (6) is supported by at least one-third of the members of the National Assembly—

(a)

the Assembly shall appoint a select committee comprising eleven of its members to investigate the matter; and

(b)

the select committee shall, within ten days, report to the Assembly whether it finds the allegations against the Cabinet Secretary to be substantiated.

(8)

The Cabinet Secretary has the right to appear and be represented before the select committee during its investigations.

(9)

If the select committee reports that it finds the allegations—

(a)

unsubstantiated, no further proceedings shall be taken; or

(b)

substantiated, the National Assembly shall—

(i) afford the Cabinet Secretary an opportunity to be heard; and
(ii) vote whether to approve the resolution requiring the Cabinet Secretary to be dismissed.
(10)

If a resolution under clause (9)(b)(ii) requiring the President to dismiss a Cabinet Secretary is supported by a majority of the members of the National Assembly—

(a)

the Speaker shall promptly deliver the resolution to the President; and

(b)

the President shall dismiss the Cabinet Secretary.

153.
Decisions, responsibility and accountability of the Cabinet
(1)

A decision by the Cabinet shall be in writing.

(2)

Cabinet Secretaries are accountable individually, and collectively, to the President for the exercise of their powers and the performance of their functions.

(3)

A Cabinet Secretary shall attend before a committee of the National Assembly, or the Senate, when required by the committee, and answer any question concerning a matter for which the Cabinet Secretary is responsible.

(4)

Cabinet Secretaries shall—

(a)

act in accordance with this Constitution; and

(b)

provide Parliament with full and regular reports concerning matters under their control.

154.
Secretary to the Cabinet
(1)

There is established the office of Secretary to the Cabinet, which is an office in the public service.

(2)

The Secretary to the Cabinet shall—

(a)

be nominated and, with the approval of the National Assembly, appointed by the President; and

(b)

may be dismissed by the President.

(3)

The Secretary to the Cabinet shall—

(a)

have charge of the Cabinet office;

(b)

be responsible, subject to the directions of the Cabinet, for arranging the business, and keeping the minutes, of the Cabinet;

(c)

convey the decisions of the Cabinet to the appropriate persons or authorities; and

(d)

have other functions as directed by the Cabinet.

(4)

The Secretary to the Cabinet may resign from office by giving notice, in writing, to the President.

155.
Principal Secretaries
(1)

There is established the office of Principal Secretary, which is an office in the public service.

(2)

Each State department shall be under the administration of a Principal Secretary.

(3)

The President shall—

(a)

nominate a person for appointment as Principal Secretary from among persons recommended by the Public Service Commission; and

(b)

with the approval of the National Assembly, appoint Principal Secretaries.

(4)

The President may re-assign a Principal Secretary.

(5)

A Principal Secretary may resign from office by giving notice, in writing, to the President.

PART 4 – OTHER OFFICES
156.
Attorney-General
(1)

There is established the office of Attorney-General.

(2)

The Attorney-General shall be nominated by the President and, with the approval of the National Assembly, appointed by the President.

(3)

The qualifications for appointment as Attorney-General are the same as for appointment to the office of Chief Justice.

(4)

The Attorney-General—

(a)

is the principal legal adviser to the Government;

(b)

shall represent the national government in court or in any other legal proceedings to which the national government is a party, other than criminal proceedings; and

(c)

shall perform any other functions conferred on the office by an Act of Parliament or by the President.

(5)

The Attorney-General shall have authority, with the leave of the court, to appear as a friend of the court in any civil proceedings to which the Government is not a party.

(6)

The Attorney-General shall promote, protect and uphold the rule of law and defend the public interest.

(7)

The powers of the Attorney-General may be exercised in person or by subordinate officers acting in accordance with general or special instructions.

157.
Director of Public Prosecutions
(1)

There is established the office of Director of Public Prosecutions.

(2)

The Director of Public Prosecutions shall be nominated and, with the approval of the National Assembly, appointed by the President.

(3)

The qualifications for appointment as Director of Public Prosecutions are the same as for the appointment as a judge of the High Court.

(4)

The Director of Public Prosecutions shall have power to direct the Inspector-General of the National Police Service to investigate any information or allegation of criminal conduct and the Inspector-General shall comply with any such direction.

(5)

The Director of Public Prosecutions shall hold office for a term of eight years and shall not be eligible for re-appointment.

(6)

The Director of Public Prosecutions shall exercise State powers of prosecution and may—

(a)

institute and undertake criminal proceedings against any person before any court (other than a court martial) in respect of any offence alleged to have been committed;

(b)

take over and continue any criminal proceedings commenced in any court (other than a court martial) that have been instituted or undertaken by another person or authority, with the permission of the person or authority; and

(c)

subject to clauses (7) and (8), discontinue at any stage before judgment is delivered any criminal proceedings instituted by the Director of Public Prosecutions or taken over by the Director of Public Prosecutions under paragraph (b).

(7)

If the discontinuance of any proceedings under clause (6)(c) takes place after the close of the prosecution’s case, the defendant shall be acquitted.

(8)

The Director of Public Prosecutions may not discontinue a prosecution without the permission of the court.

(9)

The powers of the Director of Public Prosecutions may be exercised in person or by subordinate officers acting in accordance with general or special instructions.

(10)

The Director of Public Prosecutions shall not require the consent of any person or authority for the commencement of criminal proceedings and in the exercise of his or her powers or functions, shall not be under the direction or control of any person or authority.

(11)

In exercising the powers conferred by this Article, the Director of Public Prosecutions shall have regard to the public interest, the interests of the administration of justice and the need to prevent and avoid abuse of the legal process.

(12)

Parliament may enact legislation conferring powers of prosecution on authorities other than the Director of Public Prosecutions.

158.
Removal and resignation of Director of Public Prosecutions
(1)

The Director of Public Prosecutions may be removed from office only on the grounds of—

(a)

inability to perform the functions of office arising from mental or physical incapacity;

(b)

non-compliance with Chapter Six;

(c)

bankruptcy;

(d)

incompetence; or

(e)

gross misconduct or misbehaviour.

(2)

A person desiring the removal of the Director of Public Prosecutions may present a petition to the Public Service Commission which, shall be in writing, setting out the alleged facts constituting the grounds for the removal of the Director.

(3)

The Public Service Commission shall consider the petition and, if it is satisfied that it discloses the existence of a ground under clause (1), it shall send the petition to the President.

(4)

On receipt and examination of the petition, the President shall, within fourteen days, suspend the Director of Public Prosecutions from office pending action by the President in accordance with clause (5) and shall, acting in accordance with the advice of the Public Service Commission, appoint a tribunal consisting of—

(a)

four members from among persons who hold or have held office as a judge of a superior court, or who are qualified to be appointed as such;

(b)

one advocate of at least fifteen years’ standing nominated by the statutory body responsible for the professional regulation of advocates; and

(c)

two other persons with experience in public affairs.

(5)

The tribunal shall inquire into the matter expeditiously and report on the facts and make recommendations to the President, who shall act in accordance with the recommendations of the tribunal.

(6)

A Director of Public Prosecutions who is suspended from office under clause (4) shall be entitled to half of their remuneration until removed from, or reinstated in, office.

(7)

A tribunal appointed under clause (4) shall elect a chairperson from among its members.

(8)

A tribunal appointed under clause (4) shall be responsible for the regulation of its proceedings.

(9)

The Director of Public Prosecutions may resign from office by giving notice, in writing, to the President.

CHAPTER TEN – JUDICIARY
PART 1 – JUDICIAL AUTHORITY AND LEGAL SYSTEM
159.
Judicial authority
(1)

Judicial authority is derived from the people and vests in, and shall be exercised by, the courts and tribunals established by or under this Constitution.

(2)

In exercising judicial authority, the courts and tribunals shall be guided by the following principles—

(a)

justice shall be done to all, irrespective of status;

(b)

justice shall not be delayed;

(c)

alternative forms of dispute resolution including reconciliation, mediation, arbitration and traditional dispute resolution mechanisms shall be promoted, subject to clause (3);

(d)

justice shall be administered without undue regard to procedural technicalities; and

(e)

the purpose and principles of this Constitution shall be protected and promoted.

(3)

Traditional dispute resolution mechanisms shall not be used in a way that—

(a)

contravenes the Bill of Rights;

(b)

is repugnant to justice and morality or results in outcomes that are repugnant to justice or morality; or

(c)

is inconsistent with this Constitution or any written law.

160.
Independence of the Judiciary
(1)

In the exercise of judicial authority, the Judiciary, as constituted by Article 161, shall be subject only to this Constitution and the law and shall not be subject to the control or direction of any person or authority.

(2)

The office of a judge of a superior court shall not be abolished while there is a substantive holder of the office.

(3)

The remuneration and benefits payable to or in respect of judges shall be a charge on the Consolidated Fund.

(4)

Subject to Article 168(6), the remuneration and benefits payable to, or in respect of, a judge shall not be varied to the disadvantage of that judge, and the retirement benefits of a retired judge shall not be varied to the disadvantage of the retired judge during the lifetime of that retired judge.

(5)

A member of the Judiciary is not liable in an action or suit in respect of anything done or omitted to be done in good faith in the lawful performance of a judicial function.

161.
Judicial offices and officers
(1)

The Judiciary consists of the judges of the superior courts, magistrates, other judicial officers and staff.

(2)

There is established the office of—

(a)

Chief Justice, who shall be the Head of the Judiciary;

(b)

Deputy Chief Justice, who shall be the Deputy Head of the Judiciary; and

(c)

Chief Registrar of the Judiciary, who shall be the chief administrator and accounting officer of the Judiciary.

(3)

The Judicial Service Commission may establish other offices of registrar as may be necessary.

162.
System of courts
(1)

The superior courts are the Supreme Court, the Court of Appeal, the High Court and the courts referred to in clause (2).

(2)

Parliament shall establish courts with the status of the High Court to hear and determine disputes relating to—

(a)

employment and labour relations; and

(b)

the environment and the use and occupation of, and title to, land.

(3)

Parliament shall determine the jurisdiction and functions of the courts contemplated in clause (2).

(4)

The subordinate courts are the courts established under Article 169, or by Parliament in accordance with that Article.

PART 2 – SUPERIOR COURTS
163.
Supreme Court
(1)

There is established the Supreme Court, which shall consists of—

(a)

the Chief Justice, who shall be the president of the court;

(b)

the Deputy Chief Justice, who shall—

(i) deputise for the Chief Justice; and
(ii) be the vice-president of the court; and
(c)

five other judges.

(2)

The Supreme Court shall be properly constituted for the purposes of its proceedings if it is composed of five judges.

(3)

The Supreme Court shall have—

(a)

exclusive original jurisdiction to hear and determine disputes relating to the elections to the office of President arising under Article 140; and

(b)

subject to clauses (4) and (5), appellate jurisdiction to hear and determine appeals from—

(i) the Court of Appeal; and
(ii) any other court or tribunal as prescribed by national legislation.
(4)

Appeals shall lie from the Court of Appeal to the Supreme Court—

(a)

as of right in any case involving the interpretation or application of this Constitution; and

(b)

in any other case in which the Supreme Court, or the Court of Appeal, certifies that a matter of general public importance is involved, subject to clause (5).

(5)

A certification by the Court of Appeal under clause (4)(b) may be reviewed by the Supreme Court, and either affirmed, varied or overturned.

(6)

The Supreme Court may give an advisory opinion at the request of the national government, any State organ, or any county government with respect to any matter concerning county government.

(7)

All courts, other than the Supreme Court, are bound by the decisions of the Supreme Court.

(8)

The Supreme Court shall make rules for the exercise of its jurisdiction.

(9)

An Act of Parliament may make further provision for the operation of the Supreme Court.

164.
Court of Appeal
(1)

There is established the Court of Appeal, which—

(a)

shall consist of the number of judges, being not fewer than twelve, as may be prescribed by an Act of Parliament; and

(b)

shall be organised and administered in the manner prescribed by an Act of Parliament.

(2)

There shall be a president of the Court of Appeal who shall be elected by the judges of the Court of Appeal from among themselves.

(3)

The Court of Appeal has jurisdiction to hear appeals from—

(a)

the High Court; and

(b)

any other court or tribunal as prescribed by an Act of Parliament.

165.
High Court
(1)

There is established the High Court, which—

(a)

shall consist of the number of judges prescribed by an Act of Parliament; and

(b)

shall be organised and administered in the manner prescribed by an Act of Parliament.

(2)

There shall be a Principal Judge of the High Court, who shall be elected by the judges of the High Court from among themselves.

(3)

Subject to clause (5), the High Court shall have—

(a)

unlimited original jurisdiction in criminal and civil matters;

(b)

jurisdiction to determine the question whether a right or fundamental freedom in the Bill of Rights has been denied, violated, infringed or threatened;

(c)

jurisdiction to hear an appeal from a decision of a tribunal appointed under this Constitution to consider the removal of a person from office, other than a tribunal appointed under Article 144;

(d)

jurisdiction to hear any question respecting the interpretation of this Constitution including the determination of—

(i) the question whether any law is inconsistent with or in contravention of this Constitution;
(ii) the question whether anything said to be done under the authority of this Constitution or of any law is inconsistent with, or in contravention of, this Constitution;
(iii) any matter relating to constitutional powers of State organs in respect of county governments and any matter relating to the constitutional relationship between the levels of government; and
(iv) a question relating to conflict of laws under Article 191; and
(e)

any other jurisdiction, original or appellate, conferred on it by legislation.

(4)

Any matter certified by the court as raising a substantial question of law under clause (3)(b) or (d) shall be heard by an uneven number of judges, being not less than three, assigned by the Chief Justice.

(5)

The High Court shall not have jurisdiction in respect of matters—

(a)

reserved for the exclusive jurisdiction of the Supreme Court under this Constitution; or

(b)

falling within the jurisdiction of the courts contemplated in Article 162 (2).

(6)

The High Court has supervisory jurisdiction over the subordinate courts and over any person, body or authority exercising a judicial or quasi-judicial function, but not over a superior court.

(7)

For the purposes of clause (6), the High Court may call for the record of any proceedings before any subordinate court or person, body or authority referred to in clause (6), and may make any order or give any direction it considers appropriate to ensure the fair administration of justice.

166.
Appointment of Chief Justice, Deputy Chief Justice and other judges
(1)

The President shall appoint—

(a)

the Chief Justice and the Deputy Chief Justice, in accordance with the recommendation of the Judicial Service Commission, and subject to the approval of the National Assembly; and

(b)

all other judges, in accordance with the recommendation of the Judicial Service Commission.

(2)

Each judge of a superior court shall be appointed from among persons who—

(a)

hold a law degree from a recognised university, or are advocates of the High Court of Kenya, or possess an equivalent qualification in a common-law jurisdiction;

(b)

possess the experience required under clauses (3) to (6) as applicable, irrespective of whether that experience was gained in Kenya or in another Commonwealth common-law jurisdiction; and

(c)

have a high moral character, integrity and impartiality.

(3)

The Chief Justice and other judges of the Supreme Court shall be appointed from among persons who have—

(a)

at least fifteen years experience as a superior court judge; or

(b)

at least fifteen years’ experience as a distinguished academic, judicial officer, legal practitioner or such experience in other relevant legal field; or

(c)

held the qualifications specified in paragraphs (a) and (b) for a period amounting, in the aggregate, to fifteen years.

(4)

Each judge of the Court of Appeal shall be appointed from among persons who have—

(a)

at least ten years’ experience as a superior court judge; or

(b)

at least ten years’ experience as a distinguished academic or legal practitioner or such experience in other relevant legal field; or

(c)

held the qualifications mentioned in paragraphs (a) and (b) for a period amounting, in the aggregate, to ten years.

(5)

Each judge of the High Court shall be appointed from among persons who have—

(a)

at least ten years’ experience as a superior court judge or professionally qualified magistrate; or

(b)

at least ten years’ experience as a distinguished academic or legal practitioner or such experience in other relevant legal field; or

(c)

held the qualifications specified in paragraphs (a) and (b) for a period amounting, in the aggregate, to ten years.

167.
Tenure of office of the Chief Justice and other judges
(1)

A judge shall retire from office on attaining the age of seventy years, but may elect to retire at any time after attaining the age of sixty-five years.

(2)

The Chief Justice shall hold office for a maximum of ten years or until retiring under clause (1), whichever is the earlier.

(3)

If the Chief Justice’s term of office expires before the Chief Justice retires under clause (1), the Chief Justice may continue in office as a judge of the Supreme Court.

(4)

If, on the expiry of the term of office of a Chief Justice, the Chief Justice opts to remain on the Supreme Court under clause (3), the next person appointed as Chief Justice may be selected in accordance with Article 166(1), even though that appointment may result in there being more than the maximum permitted number of Supreme Court judges holding office.

(5)

The Chief Justice and any other judge may resign from office by giving notice, in writing, to the President.

168.
Removal from office
(1)

A judge of a superior court may be removed from office only on the grounds of—

(a)

inability to perform the functions of office arising from mental or physical incapacity;

(b)

a breach of a code of conduct prescribed for judges of the superior courts by an Act of Parliament;

(c)

bankruptcy;

(d)

incompetence; or

(e)

gross misconduct or misbehaviour.

(2)

The removal of a judge may be initiated only by the Judicial Service Commission acting on its own motion, or on the petition of any person to the Judicial Service Commission.

(3)

A petition by a person to the Judicial Service Commission under clause (2) shall be in writing, setting out the alleged facts constituting the grounds for the judges removal.

(4)

The Judicial Service Commission shall consider the petition and, if it is satisfied that the petition discloses a ground for removal under clause (1), send the petition to the President.

(5)

The President shall, within fourteen days after receiving the petition, suspend the judge from office and, acting in accordance with the recommendation of the Judicial Service Commission—

(a)

in the case of the Chief Justice, appoint a tribunal consisting of—

(i) the Speaker of the National Assembly, as chairperson;
(ii) three superior court judges from common-law jurisdictions;
(iii) one advocate of fifteen years standing; and
(iv) two other persons with experience in public affairs; or
(b)

in the case of a judge other than the Chief Justice, appoint a tribunal consisting of—

(i) a chairperson and three other members from among persons who hold or have held office as a judge of a superior court, or who are qualified to be appointed as such but who, in either case, have not been members of the Judicial Service Commission at any time within the immediately preceding three years;
(ii) one advocate of fifteen years standing; and
(iii) two other persons with experience in public affairs.
(6)

Despite Article 160 (4), the remuneration and benefits payable to a judge who is suspended from office under clause (5) shall be adjusted to one half until such time as the judge is removed from, or reinstated in, office.

(7)

A tribunal appointed under clause (5) shall—

(a)

be responsible for the regulation of its proceedings, subject to any legislation contemplated in clause (10); and

(b)

inquire into the matter expeditiously and report on the facts and make binding recommendations to the President.

(8)

A judge who is aggrieved by a decision of the tribunal under this Article may appeal against the decision to the Supreme Court, within ten days after the tribunal makes its recommendations.

(9)

The President shall act in accordance with the recommendations made by the tribunal on the later of—

(a)

the expiry of the time allowed for an appeal under clause (8), if no such appeal is taken; or

(b)

the completion of all rights of appeal in any proceedings allowed for under clause (8), if such an appeal is taken and the final order in the matter affirms the tribunal’s recommendations.

(10)

Parliament shall enact legislation providing for the procedure of a tribunal appointed under this Article.

PART 3 – SUBORDINATE COURTS
169.
Subordinate courts
(1)

The subordinate courts are—

(a)

the Magistrates courts;

(b)

the Kadhis’ courts;

(c)

the Courts Martial; and

(d)

any other court or local tribunal as may be established by an Act of Parliament, other than the courts established as required by Article 162(2).

(2)

Parliament shall enact legislation conferring jurisdiction, functions and powers on the courts established under clause (1).

170.
Kadhis’ courts
(1)

There shall be a Chief Kadhi and such number, being not fewer than three, of other Kadhis as may be prescribed under an Act of Parliament.

(2)

A person shall not be qualified to be appointed to hold or act in the office of Kadhi unless the person—

(a)

professes the Muslim religion; and

(b)

possesses such knowledge of the Muslim law applicable to any sects of Muslims as qualifies the person, in the opinion of the Judicial Service Commission, to hold a Kadhi’s court.

(3)

Parliament shall establish Kadhis’ courts, each of which shall have the jurisdiction and powers conferred on it by legislation, subject to clause (5).

(4)

The Chief Kadhi and the other Kadhis, or the Chief Kadhi and such of the other Kadhis (not being fewer than three in number) as may be prescribed under an Act of Parliament, shall each be empowered to hold a Kadhi’s court having jurisdiction within Kenya.

(5)

The jurisdiction of a Kadhis’ court shall be limited to the determination of questions of Muslim law relating to personal status, marriage, divorce or inheritance in proceedings in which all the parties profess the Muslim religion and submit to the jurisdiction of the Kadhi’s courts.

PART 4 – JUDICIAL SERVICE COMMISSION
171.
Establishment of the Judicial Service Commission
(1)

There is established the Judicial Service Commission.

(2)

The Commission shall consist of—

(a)

the Chief Justice, who shall be the chairperson of the Commission;

(b)

one Supreme Court judge elected by the judges of the Supreme Court;

(c)

one Court of Appeal judge elected by the judges of the Court of Appeal;

(d)

one High Court judge and one magistrate, one a woman and one a man, elected by the members of the association of judges and magistrates;

(e)

the Attorney-General;

(f)

two advocates, one a woman and one a man, each of whom has at least fifteen years’ experience, elected by the members of the statutory body responsible for the professional regulation of advocates;

(g)

one person nominated by the Public Service Commission; and

(h)

one woman and one man to represent the public, not being lawyers, appointed by the President with the approval of the National Assembly.

(3)

The Chief Registrar of the Judiciary shall be the Secretary to the Commission.

(4)

Members of the Commission, apart from the Chief Justice and the Attorney-General, shall hold office, provided that they remain qualified, for a term of five years and shall be eligible to be nominated for one further term of five years.

172.
Functions of the Judicial Service Commission
(1)

The Judicial Service Commission shall promote and facilitate the independence and accountability of the judiciary and the efficient, effective and transparent administration of justice and shall—

(a)

recommend to the President persons for appointment as judges;

(b)

review and make recommendations on the conditions of service of—

(i) judges and judicial officers, other than their remuneration; and
(ii) the staff of the Judiciary;
(c)

appoint, receive complaints against, investigate and remove from office or otherwise discipline registrars, magistrates, other judicial officers and other staff of the Judiciary, in the manner prescribed by an Act of Parliament;

(d)

prepare and implement programmes for the continuing education and training of judges and judicial officers; and

(e)

advise the national government on improving the efficiency of the administration of justice.

(2)

In the performance of its functions, the Commission shall be guided by the following—

(a)

competitiveness and transparent processes of appointment of judicial officers and other staff of the judiciary; and

(b)

the promotion of gender equality.

173.
Judiciary Fund
(1)

There is established a fund to be known as the Judiciary Fund which shall be administered by the Chief Registrar of the Judiciary.

(2)

The Fund shall be used for administrative expenses of the Judiciary and such other purposes as may be necessary for the discharge of the functions of the Judiciary.

(3)

Each financial year, the Chief Registrar shall prepare estimates of expenditure for the following year, and submit them to the National Assembly for approval.

(4)

On approval of the estimates by the National Assembly, the expenditure of the Judiciary shall be a charge on the Consolidated Fund and the funds shall be paid directly into the Judiciary Fund.

(5)

Parliament shall enact legislation to provide for the regulation of the Fund.

CHAPTER ELEVEN – DEVOLVED GOVERNMENT
PART 1 – OBJECTS AND PRINCIPLES OF DEVOLVED GOVERNMENT
174.
Objects of devolution

The objects of the devolution of government are—

(a)

to promote democratic and accountable exercise of power;

(b)

to foster national unity by recognising diversity;

(c)

to give powers of self-governance to the people and enhance the participation of the people in the exercise of the powers of the State and in making decisions affecting them;

(d)

to recognise the right of communities to manage their own affairs and to further their development;

(e)

to protect and promote the interests and rights of minorities and marginalised communities;

(f)

to promote social and economic development and the provision of proximate, easily accessible services throughout Kenya;

(g)

to ensure equitable sharing of national and local resources throughout Kenya;

(h)

to facilitate the decentralisation of State organs, their functions and services, from the capital of Kenya; and

(i)

to enhance checks and balances and the separation of powers.

175.
Principles of devolved government

County governments established under this Constitution shall reflect the following principles—

(a)

county governments shall be based on democratic principles and the separation of powers;

(b)

county governments shall have reliable sources of revenue to enable them to govern and deliver services effectively; and

(c)

no more than two-thirds of the members of representative bodies in each county government shall be of the same gender.

PART 2 – COUNTY GOVERNMENTS
176.
County governments
(1)

There shall be a county government for each county, consisting of a county assembly and a county executive.

(2)

Every county government shall decentralise its functions and the provision of its services to the extent that it is efficient and practicable to do so.

177.
Membership of county assembly
(1)

A county assembly consists of—

(a)

members elected by the registered voters of the wards, each ward constituting a single member constituency, on the same day as a general election of Members of Parliament, being the second Tuesday in August, in every fifth year;

(b)

the number of special seat members necessary to ensure that no more than two-thirds of the membership of the assembly are of the same gender;

(c)

the number of members of marginalised groups, including persons with disabilities and the youth, prescribed by an Act of Parliament; and

</